মঙ্গলবার, ১৫ Jun ২০২১, ০১:৩৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
হত্যাকান্ডের ৯ দিন পর খুনিকে গ্রেপ্তার করেছে র্্যাব মাগুরা শ্রীপুরের জনপ্রিয় শিক্ষক আমিরুজ্জামান সেলিমের ইন্তেকাল বাকলিয়ার সন্ত্রাসী এয়াকুবসহ চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের গ্রেফতার দাবি চট্টগ্রামে বায়েজিদ লিংক রোডে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে পাহাড়ের বসতিদের উচ্ছেদ অভিযান শুরু পরীমণিকে ধর্ষণচেষ্টায় নাসির উদ্দিন গ্রেফতার রাউজানের গণি পাড়ার মেয়ে কিংবদন্তি শাবানার গ্রামের বাড়িতে বছরে পর বছর ঝুলছে তালা র‌্যাব ক্যাম্পের অভিযান : দুই মাদক কারবারি আটক সদ্য নবনির্বাচিত দিনাজপুর চেম্বারের রেজা হুমায়ুন ফারুক চৌধুরী (শামীম) পরিষদের বিজয়ীদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানালো পরিবেশক সমিতি দিনাজপুর কোম্পানীগঞ্জে সিএনজি ধর্মঘটের ঘোষণা পৌর মেয়র কাদের মির্জা’র চট্টগ্রামের বাকলিয়ার এয়াকুব আলী বাহিনীর চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের অস্ত্র উদ্ধারের দাবিতে সাংবাদিক সম্মেলন

ঈদের আগেই শতভাগ উৎসব ভাতা; জাতীয়করণের দাবিও শিক্ষকদের

নিজস্ব প্রতিবেদক: শতভাগ উৎসব ভাতা প্রদান, এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণ ও আসন্ন বাজেটে অর্থ বরাদ্দসহ কয়েকটি দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে ‘শতভাগ উৎসব ভাতা বাস্তবায়ন কমিটি’।

বুধবার (২৬ মে) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের ১০টি সংগঠন সম্মিলিতভাবে এ দাবি করেন।

লিখিত বক্তব্যে তারা বলেন, জনবল কাঠামো ২০২১ এর ১১.৭ ধারার (ঙ) এর উপধারা মোতাবেক এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদেরকে জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ এর আলোকে স্কেল ভিত্তিক শতভাগ ঈদ বোনাস গত ঈদ-উল-ফিতর এর পূর্বে সরকারের পক্ষ থেকে প্রদান করার কথা থাকলেও সরকার ঈদ বোনাস প্রদান করেনি।

এর আগে ‘শতভাগ উৎসব ভাতা বাস্তবায়ন কমিটি’ জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ঈদ-উল-ফিতর এর নামাজ আদায়সহ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন। তাদের দাবি ছিল, সরকার যেন আগামী ঈদ-উল আযহার পূর্বেই শতভাগ বোনাস প্রদান করেন। তাছাড়া নেতৃবৃন্দ সরকারের প্রতি আহ্বান জানান, সরকার যেন তার চলমান মেয়াদেই এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণ করেন এবং ২০২১-২০২২ এর জাতীয় বাজেটে শিক্ষা খাতে পর্যাপ্ত পরিমাণ অর্থ বরাদ্দ পূর্বক ঈদ-উল-আযহার পূর্বে শতভাগ বোনাস প্রদান করেন।

বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক জসিম উদ্দিন আহ্মদ নেতৃবৃন্দের পক্ষে তার বক্তব্যে বলেন, আইএলও এবং ইউনেস্কোর পরামর্শ হলো বাজেটে শিক্ষা খাতে জিডিপির ৬% অর্থ বরাদ্দ রাখা উচিত এবং বাজেটের মোট ব্যয়ের ২০ শতাংশ অর্থ শিক্ষা খাতে বরাদ্দ করা উচিত। কিন্তু এ পর্যন্ত সরকার শিক্ষা খাতে জিডিপির ২% এবং মোট ব্যয়ের ১১.৬৯% এর বেশি অর্থ খরচ করেনি। সরকার যদি জিডিপির ৪% এবং মোট ব্যয়ের ১৫% টাকা আগামী ০৩ টি বাজেটে শিক্ষা খাতে খরচ করে তাহলে অনায়াসেই এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণ করতে পারে।

তিনি আরও বলেন, বর্তমানে এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীগণ শিক্ষার ৯৭% দায়িত্ব পালন করলেও তারা বাড়ি ভাড়া পাচ্ছে ১০০০ টাকা, চিকিৎসা ভাতা পাচ্ছে ৫০০ টাকা, গত ১৭ বছর ধরে শিক্ষকগণ ঈদ বোনাস পাচ্ছে ২৫% এবং কর্মচারীগণ ঈদ বোনাস পাচ্ছে ৫০% ; নেই তাদের বদলি ,শিক্ষা কল্যাণ ও শ্রান্তি বিনোদন ভাতাসহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধাদি। কিন্তু স্থায়ী অবসর-কল্যাণ ভাতার ব্যবস্থা নেই।

আন্দোলনকারীদের বক্তব্য হচ্ছে, যেহেতু এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীগণ জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ এর আওতায় বেতনসহ বার্ষিক ৫% প্রবৃদ্ধি, ২০% বৈশাখী ভাতা পায়। সেহেতু শতভাগ উৎসব ভাতা প্রাপ্তি এবং এমপিওভুক্ত শিক্ষাজাতীয়করণ শিক্ষক-কর্মচারীদের অধিকারের বিষয়ে পরিণত হয়েছে। এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণের বিষয়টি সরকারের সামনে আসলে আর্থিক সংকটের বিষয়টি প্রাধান্য পায়।

জানা যায়, এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীগণ শিক্ষামন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট আবেদন করেছে যে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আয় সরকারি কোষাগারে জমা নিলে এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চলমান বেতন কাঠামোর পরিবর্তন করলে অনায়াসেই এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণ সম্ভব। এ সময় তারা কয়েকটি প্রস্তাবনা দেনঃ

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের যাবতীয় আয় যেমন- রিজার্ভ ফান্ড, সাধারণ তহবিল, প্রতিষ্ঠানের পুকুর, জমি ও দোকান ভাড়া এর টাকা সরকারি কোষাগারে যদি জমা নেয়া হয়; বর্তমানে সরকারি স্কুলে ৩য়-৫ম শ্রেণির বেতন ৮ টাকার স্থলে ২০ টাকা করা হয়, ৬ষ্ঠ-৮ম শ্রেণির বেতন ১২ টাকার স্থলে ৩০ টাকা করা হয়, ৯ম-১০ম শ্রেণির বেতন ১৮ টাকার স্থলে ৪০ টাকা করা হয় এবং কলেজ শাখার শিক্ষার্থীদের বেতন ২৫ টাকার স্থলে ৫০ টাকা করা হয়, তবেই এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণ করা সম্ভব। তারপরও সরকারের হিসাব ও নিরীক্ষা কমিটি যদি মনে করে এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণ করতে আরো অর্থের প্রয়োজন।

সংবাদ সম্মেলন থেকে বলা হয়, জানুয়ারি মাসে শিক্ষার্থী ভর্তির সময় সেশন ফি খাতে শিক্ষার্থী প্রতি যদি ৫০০ টাকা নেয়া হয় এবং প্রতিষ্ঠানের আভ্যন্তরীণ পরীক্ষা এবং পাবলিক পরীক্ষার সময় শিক্ষার্থী প্রতি পরীক্ষার ফি ৫০ টাকা বা তার চেয়ে একটু বেশি অর্থ নেয়া হয়। এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের উপরোক্ত প্রস্তাবনা অনুযায়ী ৩৯০৯২ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১,৬২,৬৩,৭২৪ জন শিক্ষার্থীর নিকট থেকে বছরে কমপক্ষে ২৫৭৪,০২,৯৯,৪০০ (দুই হাজার পাঁচশত চুয়াত্তর কোটি দুই লক্ষ নিরানব্বই হাজার চারশত) টাকা আয় হতে পারে বলে আমরা হিসাব বের করেছি এবং ইতোমধ্যে হিসাব বিবরণী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রী এবং অর্থমন্ত্রীকেও প্রদান করেছি। উক্ত টাকা সরকার যদি শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন খাতে খরচ করে তাহলে এ খাতে সরকারকে কোন ভর্তুকি দিতে হবে না।

সংবাদ সম্মেলনে তারা আরও বলেন, এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণের বিষয়টি নিশ্চিত করতে এ সরকারের রাজনৈতিক সিদ্ধান্তের প্রয়োজন এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একক সিদ্ধান্তের মাধ্যমেই বিষয়টি নিষ্পত্তি হতে পারে বলে জানান তারা।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি আবেদনের মধ্যে ছিল- প্রথমতঃ আগামী ঈদ-উল-আযহার পূর্বে শতভাগ উৎসব ভাতা প্রদান ও এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্ধসহ মুজিব জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণ সুনিশ্চিত।
দ্বিতীয়তঃ স্বীকৃতিপ্রাপ্ত সকল নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তকরণসহ অনার্স-মাষ্টার্স কলেজের তৃতীয় শিক্ষকদের এমপিওভুক্তি নিশ্চিত। তৃতীয়তঃ কোভিড-১৯ এ ক্ষতিগ্রস্থ শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ প্রণোদনার ব্যবস্থা। তবেই এ দেশে শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়ন ও অগ্রগতি দ্রুত এগিয়ে যাবে এবং মেধাবীরা শিক্ষকতায় আকৃষ্ট হবে।

সংবাদ সম্মেলনে ১০টি সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন শতভাগ উৎসব ভাতা বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য সচিব ও বাংলাদেশ মাদ্রসা শিক্ষক-কর্মচারী ফোরামের সভাপতি মুহাম্মদ দেলাওয়ার হোসেন আজিজী। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধু ১৯৭৩ সালে আর্থিক সীমাবদ্ধতা থাকা স্বত্বেও ৩৭ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের লক্ষাধিক শিক্ষকের চাকরি জাতীয়করণ করেছিলেন এবং এরই ধারাবাহিকতায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৩ সালে ২৬ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের লক্ষাধিক শিক্ষকের চাকরি জাতীয়করণ করেছেন বিধায় তাঁর মাধ্যমেই এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণ হতে পারে বলে সাধারণ শিক্ষকরা বিশ্বাস করেন। এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীগণ আরো বিশ্বাস করেন যে, মুজিব জন্মশতবার্ষিকীকে স্মরণীয় করে রাখতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মুজিববর্ষেই এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণের ঐতিহাসিক ঘোষণা দিবেন।

বাবেশিকফো এর সভাপতি অধ্যক্ষ মো. মাইনুদ্দীন বলেন, বৈষম্যহীন শিক্ষা নিশ্চিতকরণে এ সরকারের পক্ষ থেকে এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণের বিকল্প নেই। বাবেশিকফো এর মহাসচিব মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম বলেন, এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণ করলে শিক্ষকদের চেয়ে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকগণ অধিক উপকৃত হবে এবং এ সরকারের জনপ্রিয়তা সাধারণ জনগণের মধ্যে বৃদ্ধি পাবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com