সোমবার, ১৪ Jun ২০২১, ০৩:০৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
বিএফইউজে-ডিইউজে বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃবৃন্দ গণতন্ত্র ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা রক্ষায় বিচার বিভাগের নিরপেক্ষ ভূমিকা জরুরি আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলে পুলিশের ধাওয়ায় এক নারী শ্রমিকের মৃত্যু তিতাস তাকওয়া ফাউন্ডেশনের সভাপতি শাহজালাল, সম্পাদক ফারুক ও সাংগঠনিক সজীব থানায় সাধারণ ডায়েরি বা মামলা গ্রহণ করেনি মাগুরায় ১৭ জন নতুন করোনা রোগী শনাক্ত! জেলা শহরে ও মহম্মদপুরে লকডাউন ঘোষনা উত্তরা আধুনিক মেডিকেলে ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারিদের ইনজেকটিং ড্রাগ্সের রমরমা ব্যবসা স্বাস্থ্যবিধি মেনে কুবিতে সশরীরে পরীক্ষা শুরু খুটাখালীতে ইজিবাইক উল্টে গৃহবধুর মৃত্যু রংপুরে ঘাঘট নদীতে দুই ভাইবোনের মৃত্যু বাঁচতে চায় কাজল রেখা, কিন্তু পরিবারের সাধ্য নেই

কলেজ ছাত্র সোহানের হত্যাকারীদের গ্রেফতার দাবিতে মানববন্ধনও বিক্ষভ মিছিলে ছাত্র- জনতা

এম,এ মান্নান, কুমিল্লা বিশেষ প্রতিনিধি :
আহসান উল্ল্যাহ পলিটেকনিক কলেজের মেধাবী ছাত্র সাইফুল ইসলাম সোহান এর খুনি মিজানুর, আবদুল ওয়াদুদসহ তার সহযোগীদের দ্রুত গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবি জানিয়েছে লাকসাম উজেলার ছাত্র-জনতা।শনিবার (২২ মে) সকালে লাকসাম উপজেলার মুদাফরগুন্জ উত্তর ইউনিয়নে ও কুমিল্লা- চাঁদপুর আঞ্চলিক মহাসড়ক মুদাফরগুন্জ বাজারে আয়োজিত মানববন্ধনে ও বিক্ষভ মিছিলে এ দাবি জানান তারা।মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ব্যক্তিগত শত্রুতার জের ধরে কলেজের ছাত্র এবং ডিপ্লোমা টেক্সটাইল ইন্জিনিয়ার ও মুদাফরগুন্জ উত্তর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের নেতা সাইফুল ইসলাম সোহানকে রাস্তায় উপর প্রকাশ্যে কপিয়ে গুরুতর আহত করে খুনিরা ।৪০দিন আইসিইউতে চিকিৎসাদিন থাকা অবস্থায় গত ১৮ মে মঙ্গলবার রাতে মারা যান তিনি ।পরবর্তীতে ছাত্র সেহানের বাবা রুহুল আমিন বাদী হয়ে গত ২৫ এপ্রিল লাকসাম থানায় মিজানুর রহমান, আবদুল ওয়াদুদ, রাসেল,ফয়সাল ও মেহেদীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।
এ ঘটনায় প্রশাসনের কাছে তারা দাবি জানিয়ে বলেন, এই হত্যার ঘটনায় খুনি মিজানুর রহমান ও আবদুল ওয়াদুদসহ তার সহযোগীদের আগামী ৭ দিনের মধ্যে প্রত্যেকে গ্রেফতার করে দ্রুত বিচারের আওতায় আনতে হবে। আমরা চাই না আর কোনও মা-বাবার সন্তানের এমন করুণ মৃত্যু হোক। আমরা খুনিদের ফাঁসির দাবি জানাচ্ছি। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, নিহতের পিতা রুহুল আমিন, স্থানীয় সমাজসেবক আলমগীর হোসেন, রায়হান হোসেন, জিসান, এটিএম আলমগীর। এ সময় উপজেলার ছাত্র-জনতা উপস্থিত ছিল।

সোহান লাকসাম উপজেলাধীন নগরীপাড়া গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা তার বাবা রুহুল আমিন
একজন ব্যবসায়ী। সোহান কিছুদিনের মধ্যে কানাডায় চলে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই তুচ্ছ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে দীর্ঘ দেড়মাসের যাবত ঢাকা মেডিকেল কলেজের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে গত ১৮ মে রাত ১০:৫০ মিনিটে মৃত্যুবরণ করেন।

ঘটনার বিবরনে মামলার অভিযোগ ও সোহানের পিতা রুহুল আমিন সুত্রে জানা যায়, মুদাফরগঞ্জ উত্তর ইউনিয়ের নগরীপাড়া গ্রামের আবদুল ওয়াদুদ নামীয় এক ব্যাক্তি একই ইউনিয়নের পার্শ্ববর্তী চিকুনিয়া গ্রামের মিজান হাজারী নামক এক ব্যাক্তির নিকট টাকা পাওনা ছিল। গত ৮ এপ্রিল দুপুরে সোহান মুদাফরগঞ্জ বাজারে তার বাবার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে দুপুরের খাবার খেতে তার বাড়ীর উদ্যেশ্যে রওয়ানা হলে নগরীপাড়া গ্রামের পাওনাদার আবদুল ওয়াদুদ তার অন্যান্য সঙ্গীরা সহ জোর করে চিকোনিয়া গ্রামের মিজান হাজারীর কাছ থেকে পাওনা টাকা আদায় করতে সোহানকে তাদের বাড়ির উদ্দেশ্য নিয়ে যায়। যাওয়ার পথে সোহান তার মোবাইলে কথা বলতে দেখে সেখানে কথা কাটাকাটি ও ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে মিজান হাজারীর লোকজন ধারালো বটি দা দিয়ে সোহানের মাথায় কুপিয়ে মারাত্বক জখম করে। সোহান তখন মাটিতে পড়ে গড়াগড়ি করতে শুরু করে, এমতাঅস্থায় পাওনাদার ওয়াদুদ ও দেনাদার মিজান হাজারী ঘটনাস্থল থেকে ছটকে পড়ে। গুরুতর অবস্থায় মেধাবী ছাত্র সোহানকে উদ্ধার করে কুমিল্লা ট্রমা সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়। ট্রমার কর্তব্যরত ডাক্তাররা সোহানের অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন। ঢাকা মেডিকেলের আইসিইউতে দীর্ঘ দেড়মাস চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় গত ১৮ মে সোহান ইন্তেকাল করেন।
এরমধ্যে সোহানের পিতা রুহুল বাদী হয়ে মিজান হাজারী, আবদুল ওয়াদুদ সহ অন্য তিন জনকে বিবাদী করে ২৫ এপ্রিল লাকসাম থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। ৩২৬ ধারায় লাকসাম থানা পুলিশ উক্ত অভিযোগ আমলে নিয়ে মামলা তদন্ত করার দায়িত্ব দেন লাকসাম থানার সাব ইনসপেক্টর আমিরুল ইসলামকে। মামলার বাদী মৃত সোহানের পিতা রুহুল আমিন সুত্রে আরও জানা যায়, মামলার তদন্তকালীন সময়েই কয়েকজন বিবাদী আগাম জামিন নিয়ে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াতে থাকে। এরমধ্যে গত ১৮ মে সোহানের মৃত্যু হলে বিষয়টি নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। তারই ধারাবাহিকতায় শনিবার সকাল ১১ টায় এলাকাবাসীর উদ্যোগে মেধাবী ছাত্র সোহান হত্যার বিচারের দাবীতে কুমিল্লা-চাঁদপুর আঞ্চলিক মহাসড়ক মুদাফরগঞ্জ বাজারে বিশাল মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। বিক্ষোভ মিছিলের এক পর্যায়ে সোহানের পিতা রুহুল আমিন রাস্তার উপর বসে হাউমাউ করে কাঁদতে কাঁদতে বলেন “আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও প্রশাসনের কাছে আমার ছেলে হত্যার বিচার চাই। আমি ন্যায় বিচার চাই, আমার ছেলেকে যারা অন্যায় ভাবে হত্যা করেছে তাদের ফাঁসি চাই ”
এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা লাকসাম থানার সাব ইনসপেক্টর আমিরুল ইসলামের সাথে তাঁর সেলফোনে যোগাযোগ করলে তিনি যুগান্তরকে জানান, “মামলাটি আমরা প্রথমে ৩২৬ ধারায় রুজু করেছি। এখন যেহেতু সোহান মারা গেছে সে ক্ষেত্রে সোহানের মরদেহের সুরতহাল রিপোর্ট পাওয়ার পর মামলাটি ৩০২ ধারায় রজু করার জন্য আমরা আদালতে আবেদন করবো।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com