বুধবার, ১৬ Jun ২০২১, ০৫:৩৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
হত্যাকান্ডের ৯ দিন পর খুনিকে গ্রেপ্তার করেছে র্্যাব মাগুরা শ্রীপুরের জনপ্রিয় শিক্ষক আমিরুজ্জামান সেলিমের ইন্তেকাল বাকলিয়ার সন্ত্রাসী এয়াকুবসহ চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের গ্রেফতার দাবি চট্টগ্রামে বায়েজিদ লিংক রোডে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে পাহাড়ের বসতিদের উচ্ছেদ অভিযান শুরু পরীমণিকে ধর্ষণচেষ্টায় নাসির উদ্দিন গ্রেফতার রাউজানের গণি পাড়ার মেয়ে কিংবদন্তি শাবানার গ্রামের বাড়িতে বছরে পর বছর ঝুলছে তালা র‌্যাব ক্যাম্পের অভিযান : দুই মাদক কারবারি আটক সদ্য নবনির্বাচিত দিনাজপুর চেম্বারের রেজা হুমায়ুন ফারুক চৌধুরী (শামীম) পরিষদের বিজয়ীদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানালো পরিবেশক সমিতি দিনাজপুর কোম্পানীগঞ্জে সিএনজি ধর্মঘটের ঘোষণা পৌর মেয়র কাদের মির্জা’র চট্টগ্রামের বাকলিয়ার এয়াকুব আলী বাহিনীর চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের অস্ত্র উদ্ধারের দাবিতে সাংবাদিক সম্মেলন

অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর মৃত্যু নিয়ে স্বামী ও শশুর শাশুড়ীর বিরুদ্ধে মামলায় গ্রেফতার স্বামী

এম,এ মান্নান, কুমিল্লা বিশেষ প্রতিনিধি

অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ জান্নাতকে হত্যা করে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে, না শ্বশুরবাড়ির নির্যাতন সইতে না পেরে আত্মহত্যা করেছেন তা নিয়ে রহস্য তৈরি হয়েছে কুমিল্লা লাকসাম উপজেলায়। গত ৪ জুন শুক্রবার দুপুরে লাকসাম জেনারেল হাসপাতাল থেকে লাকসাম পুলিশ গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মর্গে পাঠানো হয়েছে। তবে জান্নাতের বাবা-মা’র অভিযোগ, তাদের মেয়েকে হত্যা করে সিলিংয়ে ঝুলিয়ে রেখেছে তার স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন।
এ ঘটনায় জান্নাতের মা পারুল বেগম বাদী হয়ে গত ৪ জুন শুক্রবার রাতে স্বামী সাইফুল ও শশুর-শাশুড়ীসহ পাঁচ জনের বিরুদ্ধে, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে লাকসাম থানায় একটি মামলা করেন।
মামলার হওয়ার আগে পুলিশ জান্নাতের স্বামী সাইফুল ইসলামক আটক করে জিজ্ঞেসাবাদ করার জন্য থানায় আনা হয়। পরে গ্রেফতার করে আজ শনিবার কুমিল্লা আদালতে পেরন করেন।

মামলার এজাহার ও স্হানীয় সুত্রে জানাজায়, ৮ মাস আগে সাইফুল ইসলামের সঙ্গে উপজেলার বড় ইছাপুরা গ্রামের সৈয়দ আহমেদের মেয়ে শাহিদা আক্তার জান্নাতের বিয়ে হয়। বিয়ে হওয়ার পর থেকেই তার শশুর বাড়ী একই উপজেলার ইরুয়াইন উত্তর পাড়া স্বামীকে নিয়ে তাদের সংসার চলতে থাকে। বিয়ের তিন মাস পর গর্ভবতী হন শাহিদা আক্তার জান্নাত। তিনি বর্তমানে ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। বিয়ে হওয়ার পর থেকেই সাইফুল ও তার মা-বাবার, ভাই বোন প্রায়ই সময় যৌতুকের জন্য জান্নাতকে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন করতেন তারা।জান্নাতের মা-বাবার কাছে যেতে দেয়া হতো না। হুমকি হুমকি ধমকিও প্রদান করতো এমনকি ফোনেও কথা বলতে দিতেন না সাইফুল ও তার পরিবার। গত ৪ জুন শুক্রবার সকালের নাস্তার জন্য দোকান থেকে ছয়টি পরোটা নিয়ে আসেন স্বামী সাইফুল। স্ত্রী জান্নাতের সঙ্গে নাস্তা শেষ করে ৮টার দিকে পাশের বাড়িতে রাজমিস্ত্রির কাজে যান তিনি। সকাল ১০টার দিকে সাইফুল বাড়িতে আসেন। এ সময় সাইফুলের মা জলেখা খাতুন তার ছেলেকে বলে বৌ মা কোথায় তাকে দেখছিনা কেন? যাবে কোথায় ঘরেই আছে। এ সময় ঘরে ভিতর দেখতে পান জান্নাত গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলছে। তার চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে গৃহবধূকে হাসপাতালে নিলে কর্মরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

মামলার তদন্ত লাকসাম থানার এসআই মাকসুদুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে শ্যমল বাংলাকে বলেন, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ১১ (ক)৩০ এর ধারা যৌতুকের জন্য মারধর করিয়া হত্যা ও সহয়তা করার অপরাধ মামলা হয়েছে। তার স্বামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। শ্বশুর-শাশুড়ি ও দেভর- ননদ পলাতক রয়েছে। মামলার তদন্ত চলছে, তবেম য়নাতদন্তের রিপোর্ট এলে বলা যাবে হত্যা না-কি আত্মহত্যা।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com