সোমবার, ১৪ Jun ২০২১, ০৩:৩৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
বিএফইউজে-ডিইউজে বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃবৃন্দ গণতন্ত্র ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা রক্ষায় বিচার বিভাগের নিরপেক্ষ ভূমিকা জরুরি আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলে পুলিশের ধাওয়ায় এক নারী শ্রমিকের মৃত্যু তিতাস তাকওয়া ফাউন্ডেশনের সভাপতি শাহজালাল, সম্পাদক ফারুক ও সাংগঠনিক সজীব থানায় সাধারণ ডায়েরি বা মামলা গ্রহণ করেনি মাগুরায় ১৭ জন নতুন করোনা রোগী শনাক্ত! জেলা শহরে ও মহম্মদপুরে লকডাউন ঘোষনা উত্তরা আধুনিক মেডিকেলে ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারিদের ইনজেকটিং ড্রাগ্সের রমরমা ব্যবসা স্বাস্থ্যবিধি মেনে কুবিতে সশরীরে পরীক্ষা শুরু খুটাখালীতে ইজিবাইক উল্টে গৃহবধুর মৃত্যু রংপুরে ঘাঘট নদীতে দুই ভাইবোনের মৃত্যু বাঁচতে চায় কাজল রেখা, কিন্তু পরিবারের সাধ্য নেই

আলোচিত মিতু হত্যাকান্ডের আসামী মুছার সিকদারের স্ত্রীর নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি

আশিক এলাহী,রাঙ্গুনিয়া,চট্টগ্রাম

নিজের নিরাপত্তা চেয়ে সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু হত্যা মামলার আসামী কামরুল ইসলাম সিকদার ওরফে মুছা সিকদারের স্ত্রী পান্না আক্তার চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন। মঙ্গলবার (১ জুন) দুপুরে তিনি বাদী হয়ে সাধারণ ডায়েরি করেন। রাঙ্গুনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুব মিলকী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সাধারণ ডায়েরীতে বলা হয়েছে, ২০১৬ সালের ৫ জুন চট্টগ্রাম নগরীতে প্রকাশ্য মাহমুদা খানম মিতুকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করার পর বিভিন্ন মুঠোফোন নম্বর থেকে কল করে পান্না আক্তারকে হুমকি দেওয়া হয়। নম্বরগুলো সংরক্ষণ করা হয়নি। গতকাল আদালতে জবানবন্দী দেওয়ার কারণে ক্ষতি করার আশংকা প্রকাশ করেন তিনি। সে জন্য সাধারণ ডায়েরী করেছেন।

সাধারণ ডায়েরীতে আরও বলা হয়েছে, পান্না আক্তার সাক্ষী হিসেবে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দিয়েছেন। তিনি জবানবন্দীতে মুছার জড়িত থাকার কথা উল্লেখ করেন। ২০১৬ সালে মিতু হত্যাকান্ডের পর আসামী মুছা সিকদার আত্মসমর্পণ করার চিন্তা করেছিলেন। কিন্তু আত্মসমর্পণ করার আগে পুলিশের গোয়েন্দা সংস্থার পরিচয় দিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যান। এখনো তার কোনো খবর মিলেনি। মিতুর স্বামী বাবুল আক্তারের সোর্স হিসেবেও পরিচিত ছিলেন মুছা সিকদার।

চট্টগ্রাম নগরীর নিজাম রোডে ছেলেকে স্কুলে দিতে খুন হয় মাহমুদা খানম মিতু। তখন স্বামী বাবুল আক্তার ঢাকায় কর্মরত ছিলেন। বাবুল আক্তার চট্টগ্রামে ফিরে নগরীর পাঁচলাইশ থানায় অজ্ঞাতনামাদের আসামী করে একটি হত্যা মামলা করেন।

এক পর্যায়ে বাদী বাবুল আক্তারের বিরুদ্বেই হত্যায় জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া যায়। বাবুল আক্তার বাদী থেকে হয়ে যায় মামলা আসামী। তিনি বর্তমান ফেনী কারাগারে রয়েছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com