1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ইসকনের সাথে চুক্তি বাতিলের জন্য আইনগত প্রক্রিয়ায় যাচ্ছে প্রবর্তক সংঘ | দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০৩:২৬ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
হাটহাজারীতে আশ্রয়ণ প্রকল্পে বসবাসকারীদের মাঝে ত্রাণ বিতরণে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক দৈনিক ডাক প্রতিদিনের সম্পাদক আর নেই। বনানীতে টিবিএল ফুডের প্রথম সাধারন সভা অনুষ্ঠিত খুলল শিল্পকারখানা চাপে শ্রমিকরা __ দ্রুত শ্রমিকদের টিকা দিতে হবে শ্রীনগরে মসজিদের টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ সভাপতি’র বিরুদ্ধে সাংবাদিক হাবিব আল জালালের ইন্তেকাল শ্রীনগরে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মসিউর রহমান মামুন আশুরোগ মুক্তি কামনায় বিশেষ দোয়া মাহফিল চৌদ্দগ্রামে সাংবাদিক সিরাজুল ইসলাম ফরায়েজীর ভাই রফিকুল ইসলামের ইন্তেকাল চৌদ্দগ্রামে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে অসহায়দের মাঝে ঢেউটিন ও নগদ অর্থ প্রদান হাটহাজারী গুমানমর্দ্দন ইউনিয়নে নজরুল সংঘ কমিটি গঠন

ইসকনের সাথে চুক্তি বাতিলের জন্য আইনগত প্রক্রিয়ায় যাচ্ছে প্রবর্তক সংঘ

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২৬ জুন, ২০২১
  • ৩৩ বার

ইসকন নামধারী কর্তৃক প্রবর্তক সংঘের ভূমি আত্মসাৎ, প্রবর্তক শ্রীকৃষ্ণ মন্দিরে ভক্তদের দানের অর্থ লোপাটসহ নানান কর্মকা-ের অভিযোগ তুলে তাদের সঙ্গে হওয়া চুক্তি বাতিলের জন্য আইনগত প্রক্রিয়ায় যাচ্ছে প্রবর্তক সংঘ। চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের বঙ্গবন্ধু হল মিলনায়তনে আজ ২৬ জুন (শনিবার) সকাল ১০টায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ইসকনের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ করেন প্রবর্তক সংঘের সাধারণ সম্পাদক তিনকড়ি চক্রবর্তী।
লিখিত বক্তব্যে প্রবর্তক সংঘের সম্পাদক তিনকড়ি চক্রবর্তী বলেন, প্রবর্তক ও ইসকন উভয়পক্ষের মৌখিক আবেদনে বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খৃষ্টান ঐক্য পরিষদের সম্পাদক এড. রানা দাশগুপ্ত ঢাকায় ২ এপ্রিল সমঝোতার চেষ্টায় ত্রি-পক্ষীয় বৈঠক আহ্বান করেন। কিন্তু বৈঠকে ইসকন কর্তৃপক্ষ উপস্থিত হয়নি। এই অবস্থার মধ্যে গত ১৩-১৬ মে ইসকন নবনির্মিত প্রবর্তক শ্রীকৃষ্ণ মন্দিরের উদ্বোধন করেছে প্রবর্তক সংঘের অংশগ্রহণ ব্যতিরেখে। প্রবর্তক সংঘের কোন সদস্য মন্দিরে যেতে চাইলে তাদেরকে বাধা দেয়া হয়। ইতিমধ্যে প্রবর্তক সংঘ থেকে মন্দিরে ওঠার জন্য ভিতরের সিঁড়িটি ইসকন নিশ্চিহ্ন করে দিয়েছে। তিনি বলেন, ইতিমধ্যে মন্দিরের আশেপাশে ইসকনের সাথে করা চুক্তি বহির্ভূত জায়গায় তারা অনুপ্রবেশ করেছে। বায়েজিদ বোস্তামী রোড থেকে মন্দিরে ওঠার পথে ভিতরে নিরাপত্তা চৌকি সংলগ্ন একটি শতবর্ষ প্রাচীন গাছ রাতের অন্ধকারে অপসারণ করেছে। এতে পাহাড়ের মাটি ক্ষয় হচ্ছে। প্রবর্তক সংঘ থেকে ইসকনের কয়েকজনকে আসামি করে চট্টগ্রাম আদালতে গত ৮ জুন মামলা দায়ের করা হয়েছে।

লিখিত বক্তব্যে তিনি আরও বলেন, ইসকন নাম ব্যবহার করে প্রবর্তক সংঘের অনুমতি ছাড়া বিদ্যুৎ বিভাগ, কর্ণফুলী গ্যাস ও ওয়াসা কর্তৃপক্ষের কাছে মিথ্যা ও জাল দলিল দিয়ে সংযোগ নেওয়া হয়েছে। দায়ীদের শাস্তির আওতায় এনে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার জন্য প্রবর্তক সংঘের পক্ষ থেকে সকল প্রতিষ্ঠানে আবেদন করা হয়েছে। এছাড়া দুদকে প্রবর্তক সংঘের পক্ষ থেকে ইসকনের বিরুদ্ধে গত ১৬ জুন অভিযোগ দায়ের করা হয়। অভিযোগে বলা হয়েছে, ইসকন কর্তৃপক্ষ প্রবর্তক শ্রীকৃষ্ণ মন্দির নির্মাণে ১০০-১৬০ কোটি টাকা খরচ করেছে। চুক্তি অনুযায়ী প্রবর্তক-ইসকন যৌথ মন্দির পরিচালনা কমিটির সভা আহ্বান করে মন্দির নির্মাণের হিসাব ও তার সমর্থনে কাগজপত্র দেখাতে বললে কমিটির সম্পাদক চারুচন্দ্র দাস কখনো সভা আহ্বান করেননি। এই টাকার উৎস সম্পর্কেও প্রবর্তক কর্তৃপক্ষ অজ্ঞাত। প্রকৌশলীদের মতে, এই মন্দির নির্মাণে সর্বোচ্চ ২০-২২ কোটি টাকা খরচ হতে পারে। ইসকনের নাম ব্যবহার করে তারা কোটি কোটি টাকা আয় করেছে।

তিনি বলেন, মন্দির নির্মাণে যে পাথরগুলো ব্যবহার করা হয়েছে তা ইতালি ও ভারত থেকে ধর্মীয় কাজে ব্যবহারের নাম করে কর রেয়াত সুবিধা নিয়ে আমদানি করা হয়েছে। একই পদ্ধতিতে আফ্রিকা থেকে লৌহ কাঠ (আয়রন উড) আমদানি করেছে। এসব পাথর ও কাঠ আংশিক মন্দিরের কাজে ব্যবহার করে অধিকাংশ হস্তান্তর করে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা অর্থ আত্মসাৎ করেছে। চুক্তি মোতাবেক প্রবর্তক শ্রীকৃষ্ণ মন্দিরের নামে ব্যাংকে প্রবর্তক সংঘ ও ইসকনের যথাক্রমে সভাপতি ও সম্পাদকের যৌথ স্বাক্ষরে একাউন্ট খোলার বাধ্যবাধকতা থাকলেও ইসকন কর্তৃপক্ষের অসহযোগিতার কারণে তা সম্ভব হয়নি।

তিনি বলেন, গত ৩০ মার্চ চট্টগ্রামের সনাতন সম্প্রদায়ের সর্বস্তরের জনগণের ঐক্যমত ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়েছিল-যৌথ চুক্তির শর্ত মোতাবেক প্রবর্তকবিরোধী কর্মকা-ের জন্য ইসকনের সাথে চুক্তি বাতিল করা হোক। সেহেতু চুক্তি বাতিলের জন্য প্রবর্তক সংঘ আইনগত প্রক্রিয়া গ্রহণের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। ইতিমধ্যে পুলিশের বাধা অমান্য করে মন্দির প্রাঙ্গণ থেকে গাছ কেটে বিক্রি করে দেওয়া, ইচ্ছেমতো মন্দির প্রাঙ্গণের আকৃতি এবং প্রকৃতি পরিবর্তন করা, পেশিশক্তি প্রদর্শনের মাধ্যমে প্রবর্তক ভূমি দখলের অপচেষ্টায় বহিরাগতদের মন্দিরে জমায়েত করে অপ্রীতিকর ঘটনা সাজিয়ে দায়ভার চাপানোর চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। এই আশঙ্কায় প্রবর্তকের পক্ষ থেকে ইসকনের বিরুদ্ধে গত ১০ জুন থানায় জিডি করা হয়েছে। প্রবর্তক ভূমি ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিরাপত্তার জন্য প্রবর্তক পরিচালনা পরিষদ সশস্ত্র আনসার নিয়োগের জন্য আবেদন করেছে। কারণ, এই মন্দির ও ভূমির একমাত্র মালিক প্রবর্তক সংঘ। এই পরিস্থিতিতে ইসকন নাম ব্যবহারকারীদের করাল গ্রাস থেকে প্রবর্তক সংঘকে রক্ষার জন্য সবার নৈতিক সমর্থন ও সহযোগীতা প্রয়োজন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন প্রবর্তক সংঘের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুভাষ চন্দ্র লালা, সহ-সভাপতি প্রফেসর রনজিৎ কুমার দে, ট্রেজারার ডা. শ্রীপ্রকাশ বিশ্বাস, সদস্য অ্যাডভোকেট স্বভূপ্রসাদ বিশ^াস, চন্দর ধর, প্রফেসর রনজিত ধর, রূপক ভট্টাচার্য্য, ইঞ্জিনিয়ার ঝুলন কান্তি দাশ, অ্যাডভোকেট অমর প্রসাদ ধর প্রমুখ। এছাড়াও সংবাদ সম্মেলনে প্রবর্তক সংঘ (বাংলাদেশ), চট্টগ্রাম এর আজীবন সদস্যবৃন্দ ও আমন্ত্রিত অতিথিরা উপস্থিত ছিলেন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম