1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
করোনাকে প্রথম পর্যায়ে গুরুত্ব না দেয়ায় রাজশাহীতে দীর্ঘ হচ্ছে মৃত্যুর মিছিল | দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১২:২৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
পুলিশিংসেবা ডিজিটালাইজেশনে সিএমপির নতুন উদ্যোগ” ‘বডি ওর্ন ক্যামেরা” সাতকানিয়ায় “মদিনা নগর কল্যাণ সোসাইটি”র বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচী যদি করেন ভাই চালাকি, পরে বুঝবেন এর জ্বালা কী! নরসিংদীতে মানব কল্যাণে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে সদর এসিল্যান্ড শাহ আলম মিয়া দেশ সেরা কন্টেন্ট নির্মাতা হলেন চৌদ্দগ্রামের মোহাম্মদ আমির হোসেন বিএনপি নেতা গাজী কবিরের চাচা আবু তাহেরের ইন্তেকাল, দাফন সম্পন্ন রাউজানে এক যুবকের আত্মহত্যা লালমনিরহাটে ঈদুল আজহা উপলক্ষে ২ শতাধিক ছিন্নমূল মানুষের মাঝে খাবার বিতরন করেন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন লালমনিরহাটে তিস্তার ভাঙন ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারে মাঝে খাবার ও মাস্ক বিতরণ মাগুরার শ্রীপুর প্রেস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতির বোনের ইন্তেকাল

করোনাকে প্রথম পর্যায়ে গুরুত্ব না দেয়ায় রাজশাহীতে দীর্ঘ হচ্ছে মৃত্যুর মিছিল

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন, ২০২১
  • ৪২ বার

করোনাভাইরাসে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে মৃত্যু এখন প্রতিদিনকার ঘটনায় পরিণত হয়েছে। এতে দীর্ঘ হচ্ছে দীর্ঘ হচ্ছে মৃত্যুর মিছিল। মে মাসের শুরু থেকে এমন কোনো দিন নেই যে করোনায় মৃত্যু হয়নি। কেন এত মৃত্যু, এমন প্রশ্নে চিকিৎসকরা বলছেন, করোনাকে প্রথম পর্যায়ে গুরুত্ব না দিয়ে রোগীর অবস্থা যখন খারাপ হয়ে যাচ্ছে, তখন চিকিৎসকের কাছে বা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া অন্যতম কারণ। এ ছাড়া শেষ সময়ে যেসব রোগীর নিবিড় পরিচর্যা ইউনিটের (আইসিইউ) সেবা দরকার হয়, তারাও সময়মতো আইসিইউ বেড পান না।

অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে যে, রামেকের করোনা ইউনিটের এখন একটি আইসিইউ বেড পাওয়ার জন্য অপেক্ষায় থাকতে হয় প্রায় ৭০ জন রোগীর স্বজনদের। এ কারণে আইসিইউ বেডের অপেক্ষা করতে করতেই মারা যাচ্ছেন অনেকেই। রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আইসিইউ বেড রয়েছে ৩০টি। তার মধ্যে করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ আছেন এমন রোগীদের জন্য ২০টি বেড রয়েছে।

রামেকের অধ্যক্ষ ডা. নওশাদ আলী বলেন, ‘আমাদের এখানে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট আছে। এটি মারাত্মক। এটির আক্রমণে মৃত্যু বেড়ে যায়। ‘এ ছাড়া আমাদের অনেকেই আক্রান্ত হয়ে খারাপ অবস্থায়ও বাড়িতে থাকছেন। মনে করছেন, ভালো হয়ে যাবেন। যখন তারা খুব খারাপ হয়ে যান তখন হাসপাতালে আসছেন। তখন আর তাদের বাঁচানো যাচ্ছে না।’ দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ না নিলে বা হাসপাতলে ভর্তি না হলে মৃত্যুহার কমানো যাবে না বলে মনে করছেন তিনি।
ডা. নওশাদ বলেন, ‘কেউ পজিটিভ হলে তার রক্ত, ফুসফুসসহ বেশ কিছু পরীক্ষা করা দরকার। দ্রুত চিকিৎসা নিলে এটি ভালো হয়। যত বেশি দেরি করবে তত বেশি মৃত্যুহার বাড়বে।

আইসিইউতে জায়গা না পাওয়া মৃত্যু বাড়ার কারণ কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমাদের হাসপাতালে আইসিইউ বেডের সংকট আছে। চাইলেই সময়মতো সবাইকে দেয়া যাচ্ছে না। ম্যানেজ করে চলতে হচ্ছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম