1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
কাঁটাতারের বেড়াবিহীন ৫৪ কিলোমিটার ভারত - বাংলাদেশী দের অবাধ যাতায়াত, করোনার মরন কামর | দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০৩:১৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
হাটহাজারীতে আশ্রয়ণ প্রকল্পে বসবাসকারীদের মাঝে ত্রাণ বিতরণে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক দৈনিক ডাক প্রতিদিনের সম্পাদক আর নেই। বনানীতে টিবিএল ফুডের প্রথম সাধারন সভা অনুষ্ঠিত খুলল শিল্পকারখানা চাপে শ্রমিকরা __ দ্রুত শ্রমিকদের টিকা দিতে হবে শ্রীনগরে মসজিদের টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ সভাপতি’র বিরুদ্ধে সাংবাদিক হাবিব আল জালালের ইন্তেকাল শ্রীনগরে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মসিউর রহমান মামুন আশুরোগ মুক্তি কামনায় বিশেষ দোয়া মাহফিল চৌদ্দগ্রামে সাংবাদিক সিরাজুল ইসলাম ফরায়েজীর ভাই রফিকুল ইসলামের ইন্তেকাল চৌদ্দগ্রামে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে অসহায়দের মাঝে ঢেউটিন ও নগদ অর্থ প্রদান হাটহাজারী গুমানমর্দ্দন ইউনিয়নে নজরুল সংঘ কমিটি গঠন

কাঁটাতারের বেড়াবিহীন ৫৪ কিলোমিটার ভারত – বাংলাদেশী দের অবাধ যাতায়াত, করোনার মরন কামর

লাভলু শেখ স্টাফ রিপোর্টার লালমনিরহাট
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৯ জুন, ২০২১
  • ৩৩ বার

দু’দেশের মানুষের অবাধ যাতায়াত লালমনিরহাট জেলায় কাঁটাতারের বেড়াবিহীন ৫৪ কিলোমিটার সীমান্ত করোনা ঝুঁকিতে জেলার মানুষ। জানা গেছে, লালমনিরহাট জেলার ২৮৪ কিলোমিটার ভারত সীমান্ত পথের ৫৪ কিলোমিটার অংশে কাঁটাতারের বেড়া না থাকায় প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে চলছে দু’দেশের মানুষের অবাধ যাতায়াত। অরক্ষিত সীমান্তের কারণে করোনা ঝুঁকিতে আছে লালমনিরহাট জেলার ১৩ লক্ষ ৫ হাজার ২৪৮ জনেরও বেশি জন সংখ্যা । এতে জেলায় বেড়েছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা তার সাথে তালমিলিয়ে দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে করোনা আক্রান্ত মৃত্যুর সংখ্যাও। সীমান্ত পথে সরকার বিধি নিষেধ আরোপ করলেও লালমনিরহাটের অরক্ষিত সীমান্ত পথে দু’দেশের মানুষের যাতায়াত বন্ধ হয়নি। করোনায় সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় দু’দেশের মানুষরা জেলার একাধিক সীমান্ত পকেট গেট ব্যবহার করছেন। ফলে বুধবার (১৬ জুন) ভোর রাতে বানের পানির মত ভারতীয় গরু চোরাই পথে এসেছে। এসব গরুর মধ্যে পানবাড়ি বিজিবি ১৩টি ভারতীয় গরু আটক করেছে।

ফলে সব চেয়ে বেশি আক্রান্ত ঝুঁকিতে রয়েছে লালমনিরহাট জেলার মানুষজন।
সীমান্ত অপরাধ ঠেকাতে জেলার মোট সীমান্ত পথে বিজিবির ৩টি ব্যাটালিয়ন তথা ১৫, ৫১ ও ৬১ ব্যাটালিয়ন কাজ করছেন। কাঁটাতারের বেড়াবিহীন সীমান্ত পথে সীমান্তরর্ক্ষীদের নজরদারী ফাঁকি দিয়ে চলছে চোরাকারবারি ও সাধারণ মানুষের অবাধ যাতায়াত। দুই দেশের দালাল চক্রের মাধ্যমে চলছে মানুষ পারাপার। এদিকে আগামী কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে সীমান্তের অন্তত ৩০টিরও বেশি পয়েন্ট দিয়ে প্রায় প্রতিরাতে গরু পারাপার করছে শতাধিক
চোরাকারবারি সিন্ডিকেট। এসব গরু আবার প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে স্থানীয় হাট-বাজারে।

এ ছাড়া জেলার বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে প্রতিদিন ভারত থেকে দেশে প্রবেশ করছে কয়েক শত ট্রাক।
এসব ভারতীয় ট্রাকের সাথে আসা চালক ও সহকারী চালকরা স্থলবন্দরের বিভিন্ন হোটেলে খাবার খাচ্ছে এবং অবাধে চলাফেরাও করছেন।
একটি সুত্র জানান, কাঁটাতারের বেড়াবিহীন সীমান্ত গুলো প্রায় উম্মুক্ত। বুড়িতিস্তা, ধরলা ও তিস্তা নদী দ্বারা বেষ্টিত। কোথাও কোথাও রয়েছে দূর্গম চরাঞ্চল। সীমান্তের এই দূর্বলাতার সুযোগকে কাজে লাগিয়ে সামনের কোরবানির ঈদে গরুর চাহিদার উপর নির্ভর করে গরু পাচারকারিরা বেপোরয়া হয়ে উঠেছে। সীমান্তের দহগ্রাম, দৈইখাওয়া, কালীগঞ্জ, চাপারহাট, গোড়ল, কুটিয়ামঙ্গল, দূর্গাপর ও মোগলহাট সীমান্ত দিয়ে দে-দারছে আসছে ভারতীয় গরু। এসব গরু দেশী গরুর সাথে মিশিয়ে স্থানীয় বড়বাড়ি হাট, শিয়াল খোওয়া হাট, চাপারহাট, দূরাকুটি’র হাটে প্রকাশ্য বিক্রি করা হচ্ছে। এমনকি এসব গরু ঢাকা, চট্রগ্রাম, কুমিল্লা, বগুড়া, রংপুর-সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ট্রাকভর্তি করে পাচার হয়ে চলে যাচ্ছে।

লালমনিরহাটে ২৮৫ কিলোমিটার সীমান্তে লালমনিরহাট ১৫ বিজিবি, রংপুর ৫১ বিজিবি ও রংপুর ৬১ বিজিবিকে সীমান্তে কঠোরভাবে দায়িত্ব পালনের সুবিধার্থে ৩টি পৃথক ব্যাটালিয়ন
দায়িত্বে নিয়োজিত রয়েছে। কিন্তু রহস্যজনক কারণে সীমান্তে হঠাৎ গরুপাচার, মাদক পাচার, নারী, শিশু পাচার ও মানুষ পাচার সহ নানা অবৈধ সীমান্ত ব্যবসা বেড়ে গেছে। এদিকে বেশ কয়েকটি সীমান্ত ঘুরে দেখা যায়, দিনের বেলায় কৃষি কাজের নাম করে ভারতীয়রা যেমন বাংলাদেশে প্রবেশ করছেন তেমনি বাংলাদেশীরাও ভারতের অভ্যন্তরে একই কায়দায় প্রবেশ করছেন। এসব লোকের অনেকের রয়েছে দু’দেশের জাতীয় পরিচয়পত্র। মাদক ব্যবসায়ীরা দুই দেশের জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে বিভিন্ন অপরাধের সাথে জড়িত হয়ে অরক্ষিত সীমান্ত পথ দিয়ে ভারতে গিয়ে অবস্থান করছে। আর এভাবেই চলছে সীমান্ত পথে ভারত-বাংলাদেশের মানুষের অবাধ যাতায়াত। এ কারণে করোনা আক্রান্তের ঝুঁকিতে রয়েছে লালমনিরহাট জেলার ১৩লক্ষ ৫ হাজার ২৪৮ জন জনগন।

সিভিল সার্জন অফিস সুত্রে জানা গেছে, লালমনিরহাটে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ২ স্কুল শিক্ষক-সহ এ পর্যন্ত মোট মৃত্যু হয়েছে ২১জনের। লালমনিরহাট সিভিল সার্জন ডা. নির্মলেন্দু রায় জানান,গত কয়েক দিন ধরে
লালমনিরহাটে করোনা শনাক্তের হার ৩৭-৩৮ শতাংশ, যা ২ মাস আগেও ছিল ১০-১১ শতাংশ। সীমান্ত পথে সরকার বিধি নিষেধ আরোপ করলেও লালমনিরহাটের অরক্ষিত সীমান্ত পথে দুই দেশের মানুষের যাতায়াত বন্ধ হয়নি। ফলে এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম