1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
জিয়ার বড় কীর্তি তিনি একটি বিভক্ত জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করতে পেরেছিলেনঃ নজরুল ইসলাম খান | দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০৩:৩১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
হাটহাজারীতে আশ্রয়ণ প্রকল্পে বসবাসকারীদের মাঝে ত্রাণ বিতরণে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক দৈনিক ডাক প্রতিদিনের সম্পাদক আর নেই। বনানীতে টিবিএল ফুডের প্রথম সাধারন সভা অনুষ্ঠিত খুলল শিল্পকারখানা চাপে শ্রমিকরা __ দ্রুত শ্রমিকদের টিকা দিতে হবে শ্রীনগরে মসজিদের টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ সভাপতি’র বিরুদ্ধে সাংবাদিক হাবিব আল জালালের ইন্তেকাল শ্রীনগরে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মসিউর রহমান মামুন আশুরোগ মুক্তি কামনায় বিশেষ দোয়া মাহফিল চৌদ্দগ্রামে সাংবাদিক সিরাজুল ইসলাম ফরায়েজীর ভাই রফিকুল ইসলামের ইন্তেকাল চৌদ্দগ্রামে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে অসহায়দের মাঝে ঢেউটিন ও নগদ অর্থ প্রদান হাটহাজারী গুমানমর্দ্দন ইউনিয়নে নজরুল সংঘ কমিটি গঠন

জিয়ার বড় কীর্তি তিনি একটি বিভক্ত জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করতে পেরেছিলেনঃ নজরুল ইসলাম খান

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২৫ জুন, ২০২১
  • ৪১ বার

বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, একাত্তরের রণাঙ্গনে জিয়াউর রহমান একজন সাধারণ মুক্তিযোদ্ধাই ছিলেন না, মুক্তিযুদ্ধের তিনি ছিলেন অন্যতম সংগঠক, একজন সেক্টর কমান্ডার ও জেড ফোর্সের প্রধান। একাত্তরের ২৬ মার্চের সূচনায় তিনিই প্রথম পাকিস্তান সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে ‘উই রিভোল্ট’ বলে বিদ্রোহ এবং মুক্তিযুদ্ধ শুরুর ঘোষণা দেন।

এরপর কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে ‘আমি মেজর জিয়া বলছি’ বলে স্বাধীনতা ঘোষণার ঐতিহাসিক ভাষণ দিয়ে মানুষকে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে উদ্দীপ্ত করেন। তবে জিয়ার সবচেয়ে বড় কৃতিত্ব হচ্ছে তিনি বিভক্ত জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করতে পেরেছিলেন।
আজ শুক্রবার বিকেলে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৪০ তম শাহদাত বার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয়তাবাদী টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারর্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-জেটেব আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ সব বলেন।

জেটেব সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার ফখরুল আলমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, বিএনপি যুগ্মমহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কাদের গনি চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের সংগঠন সাদা দলের সভাপতি প্রফেসর ড. এবিএম ওবায়দুল ইসলাম, এ্যাবের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার রিয়াজুল ইসলাম রিজু, বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম বাবুল,অধ্যক্ষ শফিউল্লাহ শফি,জেটেব সেক্রেটারি ইঞ্জিনিয়ার এবিএম রুহুল আমিন আকন্দ, ইঞ্জিনিয়ার সাখাওয়াত হোসেন প্রমুখ।
নজরুল ইসলাম খান বলেন, শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের সততার তুলনা হয় না। স্বজনপ্রীতি শব্দটা রাষ্ট্রপতি জিয়ার অভিধানে ছিল না। দুর্নীতি সংক্রান্ত কোনো কাজকে তিনি কখনও প্রশ্রয় দেননি। রাষ্ট্রপতির মতো এত বড় একটি পদে থেকেও তিনি অতি সাধারণ জীবনযাপন করতেন। তার কৃচ্ছ্রতা সাধন করার দৃষ্টান্ত বিরল। নিজের পরিবারের জন্য তিনি কিছুই করেননি। নিজের জন্য তো করেনইনি। আত্মীয়স্বজনদের কেউ কোনো তদবিরের জন্য বঙ্গভবনে বা তার বাসভবনে সাক্ষাত করতে আসবেন, সেটা ছিল অকল্পনীয় ব্যাপার। তেমন সাহস কারও ছিল না। আত্মীয় -স্বজনদের কাউকে তিনি তার কাছে ঘেঁষতে দিতেন না।
তিনি বলেন, শহীদ জিয়ার অম্লান আদর্শ, দর্শন ও কর্মসূচি আমাদের স্বাধীনতা রক্ষা, বহুদলীয় গণতন্ত্র এবং দেশীয় উন্নয়ন ও অগ্রগতির রক্ষাকবচ। জিয়া দেশ ও দেশের মানুষকে ভালোবাসতেন। তাই তো জাতির চরম দুঃসময়গুলোতে জিয়াউর রহমান দেশ ও জনগণের পক্ষে অবস্থান গ্রহণ করেন। মহান স্বাধীনতার বীরোচিত ঘোষণা, স্বাধীনতাযুদ্ধে অসামান্য ভূমিকা এবং রাষ্ট্র গঠনে তার অনন্য কৃতিত্বের কথা আমি বাংলাদেশের মানুষ কখনো ভুলবে না।
তিনি বলেন, ’৭১ সালে সারা জাতি যখন স্বাধীনতাযুদ্ধের জন্য প্রস্তুত, অথচ রাজনৈতিক নেতৃত্বের সিদ্ধান্তহীনতায় দেশের মানুষ দিশাহারা, ঠিক সেই মুহূর্তে ২৬ মার্চ মেজর জিয়ার কালুরঘাট বেতার কেন্দ্রে স্বাধীনতার ঘোষণা সারা জাতিকে স্বাধীনতাযুদ্ধের অভয়মন্ত্রে উজ্জীবিত করে। এরই ফলশ্রুতিতে দেশের তরুণ, ছাত্র, যুবকসহ নানা স্তরের মানুষ যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে।
বিএনপির এ নেতা বলেন, পরবর্তীতে স্বাধীনতাত্তোর শাসকগোষ্ঠী দেশে একদলীয় একনায়কতান্ত্রিক শাসন কায়েম করেন। সেই সময় দেশের সর্বত্র ভয়াবহ নৈরাজ্য নেমে আসে। ঠিক সেই সময় রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বপ্রাপ্ত হয়ে ফিরিয়ে দেন বহুদলীয় গণতন্ত্র এবং সংবাদপত্র ও নাগরিক স্বাধীনতা।

তিনি দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব সুরক্ষা করেন। উৎপাদনের রাজনীতির মাধ্যমে দেশীয় অর্থনীতিকে সমৃদ্ধশালী করেন। বাংলাদেশকে তলাবিহীন ঝুড়ির আখ্যা থেকে খাদ্য রপ্তানীকারক দেশে পরিণত করেন। তার অর্থনৈতিক সংস্কারের কারনেই বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ভিত্তি মজবুত হয়।
তিনি বলেন, এই মহান জাতীয়তাবাদী নেতার জনপ্রিয়তা দেশি-বিদেশি চক্রান্তকারী শক্তি কখনই মেনে নিতে পারেনি। আর তাই চক্রান্তকারীরা ১৯৮১ সালের ৩০ মে রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে হত্যা করে। এ মর্মান্তিক হত্যাকাণ্ডের মধ্য দিয়ে একজন মহান দেশপ্রেমিককে হারায় দেশবাসী।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম বলেন,শহীদ জিয়াউর রহমান অর্থনৈতিক, সামাজিক, কৃষি, শিল্প, সংস্কৃৃতির যে সংস্কার করেন, তা বাংলাদেশের ইতিহাসে স্বর্ণযুগ হিসেবে চিহ্নিত। তিনি কিছু গণমুখী সামাজিক ও অর্থনৈতিক কর্মসূচি গ্রহণ করেন, যা জনসাধারণকে আকৃষ্ট করেছিল। খাল খনন কর্মসূচি এর অন্যতম। ওই সময় তিনি দেড় হাজারের বেশি খাল খনন ও পুনর্খনন করেছিলেন। যার অর্থনৈতিক সুফল জনসাধারণ পেয়েছে। ১৯৭৭-৭৮ সালে খাদ্যশস্য রেকর্ড পরিমাণ উৎপাদিত হয়। ১৯৭৪ সালের ভয়াবহ দুর্ভিক্ষের পর জিয়াউর রহমানের সঠিক নেতৃত্বে প্রথম খাদ্য রপ্তানি করে বাংলাদেশ। সে সময় প্রবৃদ্ধির হার ছিল ৬ দশমিক ৪ শতাংশ। এ ছাড়া গণশিক্ষা কার্যক্রম, গ্রাম সরকার, গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী গঠনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেন। তিনি জনসাধারণকে ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করেন- রাষ্ট্র পরিচালনায় তাদেরও শরিকানা রয়েছে। তৃণমূলকে জাগিয়ে তুলতে পেরেছিলেন তিনি।
খায়রুল কবির খোকন বলেন, বলেন, বর্তমান অগণতান্ত্রিক সরকার বিরোধী দলের অধিকার, চিন্তা ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা ভূলুণ্ঠিত করে গণতন্ত্রকে হত্যা করে ফ্যাসিবাদী শাসন কায়েম করেছে।
সে জন্য দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে মিথ্যা তথ্যের ওপর ভিত্তি করে সাজানো মামলায় অন্যায়ভাবে সাজা দিয়ে কারাগারে বন্দি করে রাখা হয়েছে। এ যেন গণতন্ত্রকেই কারাগারে আটকিয়ে রাখা।
তিনি বলেন, খালেদা জিয়া খুবই অসুস্থ। পরিবার ও দলের পক্ষ থেকে সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেয়ার অনুমতি চাওয়া হয়েছে। কিন্তু ফ্যাসিস্ট সরকার অত্যন্ত অমানবিক ভাবে খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসায় বাধা দিচ্ছে। এসরকার চায় রাজনীতির ময়দান থেকে প্রধান প্রতিপক্ষকে সরিয়ে দিয়ে দুঃশাসনকে প্রলম্বিত করতে।
শহিদুল ইসলাম বাবুল বলেন, বলেন, জাতীয় জীবনের চলমান সংকটে শহীদ জিয়ার প্রদর্শিত পথ ও আদর্শ বুকে ধারণ করেই আমাদের সামনে এগিয়ে যেতে হবে। জাতীয় স্বার্থ, বহুমাত্রিক গণতন্ত্র এবং জনগণের অধিকার সুরক্ষায় ইস্পাতকঠিন গণঐক্য গড়ে তুলতে হবে।

কাদের গনি চৌধুরী বলেন,দেশের অর্থনীতির ভিত গড়ে দিয়েছিলেন জিয়াউর রহমান। তিনি সমাজতান্ত্রিক অর্থনীতি থেকে মুক্তবাজার অর্থনীতির পথ সৃষ্টি করেছেন। তিনি প্রথম বিদেশে জনশক্তি রপ্তানি শুরু করেছিলেন। মধ্যপ্রাচ্যে শ্রমিক পাঠানোর উদ্যোগ জিয়া সরকারের আমলেই নেওয়া হয়। সেই জনশক্তি আজ আমাদের অর্থনীতির মূল স্তম্ভ। যে পোশাকশিল্প ও রেমিট্যান্সের ওপর দেশের অর্থনীতি দাঁড়িয়ে আছে, তার সূচনা হয়েছিল জিয়াউর রহমানের আমলেই। তিনি পোশাক রপ্তানির উদ্যোগ নিয়েছিলেন। তরুণ উদ্যোক্তাদের ধরে ধরে এনে জামানত ছাড়া ব্যাংকের লোন দিয়ে গার্মেন্ট ব্যবসা শুরু করেন। সেই গার্মেন্ট এখন বাংলাদেশের প্রধান বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনকারী খাত।
জিয়াউর রহমান এ দেশে স্বাধীনতা পুরস্কার ও একুশে পদক প্রচলন করেছেন। পরিবার পরিকল্পনা কর্মসূচি তার আমলেই শুরু হয়। তার সময়ে নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ প্রকৃতপক্ষেই জনসাধারণের জন্য সুফল এনেছিল। এখন দেশে বৃহৎ ওয়াটার রিজার্ভার বা পানি সংরক্ষণাগারের কথা বলা হয়। খাল খনন এই ওয়াটার রিজার্ভারেরই ৭০ দশকের রূপ।
ড. ওবায়দুল ইসলাম বলেন,শহীদ জিয়া মনে করতেন একটি পশ্চাৎপদ দেশ ও জাতির সার্বিক উন্নতির জন্য প্রয়োজন সে দেশের সকল জনগণের মধ্যে জাতীয় চেতনার উম্মেষ, প্রতিটি নাগরিকের মধ্যে সামাজিক কর্তব্য, নাগরিক দায়িত্ব, জাতীয়তাবোধ ও দেশাত্ববোধ সম্বন্ধে ¯পষ্ট ধারণা তৈরি একান্ত প্রয়োজন। আর এর জন্য প্রয়োজন জনগণের মধ্যে দ্রুত শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দেয়া। শিশু, তরুণ ও যুবাদের জন্য প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার ব্যবস্থা আছে। জিয়া সরকার প্রতিটি শিশুকে স্কুলে নেয়ার জন্য বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষার ব্যবস্থা করেছিলেন। মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়নে নানামুখী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছিল।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম