1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
মাগুরার গড়াই নদীর ভাঙ্গনে ঈদগাঁসহ বিলিন ১৫শ একর ফসলী জমি ও বসতভিটা!!! | দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ০৮:৩০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নরসিংদীতে মানব কল্যাণে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে সদর এসিল্যান্ড শাহ আলম মিয়া দেশ সেরা কন্টেন্ট নির্মাতা হলেন চৌদ্দগ্রামের মোহাম্মদ আমির হোসেন বিএনপি নেতা গাজী কবিরের চাচা আবু তাহেরের ইন্তেকাল, দাফন সম্পন্ন রাউজানে এক যুবকের আত্মহত্যা লালমনিরহাটে ঈদুল আজহা উপলক্ষে ২ শতাধিক ছিন্নমূল মানুষের মাঝে খাবার বিতরন করেন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন লালমনিরহাটে তিস্তার ভাঙন ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারে মাঝে খাবার ও মাস্ক বিতরণ শ্রীপুর প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতার ইন্তেকাল ভোলায় ঝড়ের কবলে ট্রলার ডুবি, ১৬জেলে উদ্ধার লকডাউন বাস্তবায়নে চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশের বিশেষ মহড়া সুরক্ষিত হলো সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নিস্পতি হলো ভূমি বিরোধ

মাগুরার গড়াই নদীর ভাঙ্গনে ঈদগাঁসহ বিলিন ১৫শ একর ফসলী জমি ও বসতভিটা!!!

মাগুরা থেকে মোঃসাইফুল্লাহ ;
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৯ জুন, ২০২১
  • ৭৩ বার

মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার দারিয়াপুর ইউনিয়নের ঘসিয়াল মৌজার ১৫ শ একর ফসলী জমি, বসতভিটা, ঘর-বাড়ি, গাছ-পালা ও দুইটা ঈদগাহ সহ অনেক স্হাপনা গড়াই নদী গর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। অনেকেই নিরুপায় হয়ে জেলার বিভিন্ন অঞ্চলে বসতি স্হাপন করেছেন। অর্ধশত বছর ধরে চলমান নদী ভাঙ্গনে ঘসিয়াল মৌজার অজিত শেখের একমাত্র বসত ভিটাটি অবশিষ্ঠ রয়েছে,সেটাও যেকোনো মূহুর্তে নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যেতে পারে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়ে রশিদ বিশ্বাস, শাহীন শেখ, ইদ্রিস শেখ, মুক্তিযোদ্ধা রুস্তম বিশ্বাস, রসুল বিশ্বাস, বিপ্লব শেখ সহ ইতোমধ্যে ৩৫ টি বসতভিটার কোন চিহ্নই চোঁখে পড়ে না। হুমকির মুখে রয়েছে চর-চৌগাচী গ্রামের শতাধিক বসতভিটা।

তবে আশার কথা অনেক দেরিতে হলেও ইতিমধ্যে ১৫ হাজার জিও ব্যাগ প্রস্তুত করে নদীতে ফেলা শুরু হয়েছে।

গড়াই নদীর উত্তাল স্রোতে এখনো ভাঙ্গছে নদীর পাড়। এলাকাবাসির অভিযোগ, গেল অর্ধশত বছরেও নদী ভাঙ্গনরোঁধে নেওয়া হয়নি তেমন কোন উদ্যোগ। দ্রুত নদী ভাঙ্গন রোধে বাঁধ দেওয়ার দাবি এলাকাবাসির দীর্ঘদিনের।

ভুক্তভোগি বীর মুক্তিযোদ্ধা রুস্তম বিশ্বাস জানান, গত পঞ্চাশ বছরে ঘসিয়াল মৌজার প্রায় সকল অংশটুকু নদী গর্ভে বিলিন হয়ে গিয়েছে। এখনো নদী ভাঙ্গন অব্যাহত রয়েছে। নদীতে দ্রুত বাঁধ না দিলে আমাদের আরো বড় ধরনের ক্ষতি হবে,তাই আমাদের দাবী দ্রুত বাঁধ নির্মাণ করে দিতে হবে।

জিও ব্যাগ ভরাটের সাব-কন্টাক্টার আনোয়ার হোসেন জানান, ইতিমধ্যে নদীর ভাঙ্গন রোধে বাঁধ নির্রমাণের কাজ শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যে ১৫ হাজার জিও ব্যাগ প্রস্তুত করে তা নদীতে ফেলা শুরু হয়েছে।

নদী ভাঙ্গন রোধ কমিটির সভাপতি সোলাইমান মোল্যা জানান, নদী ভাঙ্গন রোধে পঞ্চাশ বছরের মধ্যে এবারই প্রথম জিও ব্যাগ দিয়ে বাঁধ নির্মানের কাজ শুরু হয়েছে। এর আগেও কাজ এসেছিল কিন্তু কোন কাজ হয়নি। ২৮ জুন সোমবার সকালে মাগুরা-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এ্যাড. সাইফুজ্জামান শিখর নদী ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শন করেছেন এবং দ্রুত জিও ব্যাগের মাধ্যমে বাঁধ নির্মানের আশ্বাস দিয়েছেন।

দারিয়াপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ জাকির হোসেন কানন জানান, ইতিমধ্যে ড্রেজিং ও বালু ভর্তির কাজ সম্পন্ন হয়েছে। সকাল থেকেই নদী ভাঙ্গন রোধে বাঁধে জিও ব্যাগ ফেলা শুরু হয়েছে। আমি এই কাজের জন্য মাগুরা-১ আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড. সাইফুজ্জামান শিখর ভাইকে দারিয়াপুর ইউনিয়নবাসির পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানাই।

এ বিষয়ে জানতে মাগুরা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী গোলাম সরোয়ার জাহান জানান, ইতিমধ্যে ১৫ হাজার জিও ব্যাগ পাঁচশত মিটারের মধ্যে ফেলা শুরু হয়েছে। মাগুরা জেলা প্রশাসক একটি কমিটি গঠন করে দিবেন এ মর্মে সভায় সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। যতগুলো জিও ব্যাগ ফেলা প্রয়োজন হবে, আমরা ততোগুলো জিও ব্যাগ পর্যায়ক্রমে ফেলবো বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম