1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
চন্দনাইশে বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত। - দৈনিক শ্যামল বাংলা
মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৭:৪৪ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
Tips for choosing the best sugar daddy for you আ’লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বাঁশখালী আ’লীগে ঐক্যের সুর 1win – лучшая букмекерская контора с высокими коэффициентами и широкой линией ставок для азартных игроков ১০৫ জন অধ্যাপক ও সহযোগী অধ্যাপক থাকা স্বত্বেও ডিন হওয়ার অভিযোগ কুবি উপাচার্যের বিরুদ্ধে নকলায় ইউএনওর সাজানো মামলা থেকে সাংবাদিক রানা বেকসুর খালাস ঠাকুরগাঁয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে আওয়ামী লীগের পৃথক পৃথক ভাবে ৭৫ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন। বাস্তব জীবনেও সামাজিক মাধ্যমের প্রভাব স্বাধীন গণমাধ্যমে হুমকি, কণ্ঠ রোধে চেষ্টার প্রতিবাদে রাজশাহীতে মানববন্ধন তিতাসে বিএনপি থেকে পদত্যাগ করলেন সাংবাদিক কবির হোসেন শ্রীপুরে কৃষি মেলার উদ্ধোধন” বয়স্ক জনগোষ্ঠীর আর্থিক সুরক্ষা নিশ্চিত করা একটি কল্যাণমূলক রাষ্ট্রের অন্যতম দায়িত্ব–প্রতিমন্ত্রী টুসি এমপি

চন্দনাইশে বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত।

চন্দনাইশ(চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৮ জুলাই, ২০২১
  • ১৬৪ বার

চট্টগ্রাম উপজেলার চন্দনাইশ পৌরসভা, সাতবাড়িয়া, বৈলতলী, বরমা, বরকল, হাশিমপুর,
দোহাজারী, রায় জোয়ারাসহ বিভিন্ন এলাকা বৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলের পানি শঙ্খ
নদী দিয়ে বিপদ সীমানার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। সে সাথে বরুমতি
খালে পাহাড়ী ঢলে পৌরসভার কয়েকটি এলাকা ভাঙ্গনের ফলে বসতঘরের পাশ দিয়ে
পানি প্রবাহিত হচ্ছে। রাতে বৃষ্টি হলে বন্যার আশংকা করছেন স্থানীয়রা।
সরেজমিনে গিয়ে স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, উপজেলার
চন্দনাইশ পৌরসভা, সাতবাড়িয়া, বৈলতলী, বরমা, বরকল, হাশিমপুর, দোহাজারী,
জোয়ারা এলাকায় গত এক সপ্তাহের বৃষ্টিতে বিভিন্ন অংশে বৃষ্টি ও পাহাড়ী
ঢলে পানি বিপদ সীমানার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এদিকে গত কয়েকদিনের বিরামহীন বৃষ্টির ফলে পাহাড়ী ঢলের পানি শঙ্খ নদীতে থৈ.থৈ করছে
এবং বিপদ সীমানার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। স্থানীয়রা জানান,
সামান্য বৃষ্টি হলে বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়ে বন্যার সম্ভবনা রয়েছে।
অপরিকল্পিতভাবে বিভিন্ন এলাকায় বসত বাড়ি নির্মাণ করার কারণে সড়কের
বিভিন্ন অংশে পানি চলাচলের কালভার্ট গুলি বন্ধ হয়ে পড়ে। ফলে বিভিন্ন বিলে
পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হওয়ার কারণে চাষাবাদও ব্যাহত হচ্ছে। অর্ধ
শতাধিক কালভার্ট বন্ধ হয়ে পড়ার কারণে বিভিন্ন ধানি জমির বিলের পানি
যথাযথভাবে নিষ্কাশন হচ্ছে না। অথচ পাশ্ববর্তী যতখালসহ উপজেলার বেশ
কয়েকটি খাল সংস্কার করে বর্ষা মৌসুমে পানি চলাচলের জন্য কোটি টাকা
ব্যয় করেছেন সরকার।

চন্দনাইশ পৌরসভার বরুমতি খালটি খননের পর থেকে বিভিন্ন অংশে
ভাঙ্গনের কারণে বেশ কয়েকটি বসতঘর ভাঙ্গনের মুখে পড়েছে। চন্দনাইশ
পৌরসভার হারলা দুলার মার বাপের বাড়ি সংলগ্ন বরুমতি খালের একটি অংশ
কয়েকদিনের পাহাড়ি ঢলে ভেঙ্গে যায়। ফলে ঐ বাড়ির ১৫ পরিবারের বসতঘরে রাতের
বেলা জলমগ্ন হয়ে পড়ে।

একইভাবে দক্ষিণ জোয়ারা বড় পাড়া এলাকায় বরুমতি
খালের দক্ষিণ পাড় ভেঙ্গে কয়েক একর রোপা ধান পলির নিচে তলিয়ে যায়,
ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন অনেক কৃষক। একইভাবে দক্ষিণ হারলা বিলের ১টি অংশ
ভেঙ্গে খালটি জমিতে পরিণত হয়ে যায়। অপরদিকে নগরীর কাউন্সিলর মোবারক
আলীর বাড়ি সংলগ্ন খালটি ভাঙ্গনের মুখে। যেকোন সময় খাল ভেঙ্গে
পার্শ্ববর্তী বাড়িঘর ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশংকা করছেন স্থানীয় কাউন্সিলর
মোরশেদ আলম।

পৌর মেয়র মাহবুবুল আলম খোকা বলেছেন, বরুমতি খাল অপরিকল্পিতভাবে
খননের ফলে খালের বিভিন্ন অংশ বার বার ভাঙ্গনের কবলে পড়ছে। খালের পাড়ের চাওড়া
ডিজাইন মতে না করায় খাল ভাঙ্গনের মুখে পড়ছে। ফলে বরুমতি খালের পাড়ের
বাসিন্দরা বর্ষা মৌসুমে আতংকে কাটছে দিন। এ ব্যাপারে পানি উন্নয়ন
বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী ও উপসহকারী প্রকৌশলীকে একাধিকবার বলা
হয়েছে, গত সপ্তাহে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে। ঠিকাদার কতৃক খাল
যথাযথভাবে খনন করা হয়নি বলে তিনি অভিযোগ করেছেন। তারা বলেছেন,
খালের ভাঙ্গন বা অনিয়ম হলে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার তা মেরামত করে দিবেন।
ঠিকদারদের সিকিউরিটির টাকা এখনও দেয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন তারা।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম