1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
তারেক রহমান ও প্রতিনিধি সভা | দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ০৮:১১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:

তারেক রহমান ও প্রতিনিধি সভা

__ আবদুল কাদের ভুঁইয়া জুয়েল _
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৪ জুলাই, ২০২১
  • ৭১ বার

[ শ্যামল বাংলা ডট নেট এর পক্ষ থেকে বিশেষ প্রতিবেদক মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার – তারেক রহমান ও প্রতিনিধি সভা শিরোনাম লেখাটি তুলে ধরলেন সুপ্রিয় পাঠকদের জন্য। আজ থেকে বিশ বছর আগে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের তৃণমূল প্রতিনিধি সভা ও তারেক রহমানের দিকনির্দেশনা মূলক সংগঠনের সার্বিক কার্যক্রম বিষয়ে লেখাটি তুলে ধরলাম। আশাবাদী এতে জাতীয়তাবাদী সংগঠনের সকল প্রাণ প্রিয় ভাই বন্ধুূরা অনেক উপকৃত হবেন এই লেখাটি থেকে। লেখক খুবই চমৎকারভাবে লেখাটি পরিমার্জিত করে তুলে ধরেছেন। লেখাটি আজ প্রথম পর্ব – চলবে ধারাবাহিক। ]

২০০১ সনে শাহাবুদ্দিন লাল্টুকে আহবায়ক করে ৩১ সদস্য বিশিষ্ট একটি আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয় যেখানে এবিএম মোশারফ হোসেন, আজিজুল বারী হেলাল,মনির হোসেন যুগ্মআহবায়ক ছিলেন বাকী সবাই সদস্য।ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আহবায়ক ছিলেন মরহুম শফিউল বারী বাবু।আমি কেন্দ্রীয় আহবায়ক কমিটির সদস্য ছিলাম।জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল তখন সরাসরি জনাব তারেক রহমানের দিকনির্দেশনা অনুযায়ী পরিচালিত হতো।সাংগঠনিক কর্মকান্ড গতিশীল করার লক্ষ্যে ৬ টি বিভাগায় টিম করা হয় এবং এই টিম গুলোর সাথে সাবেক ছাত্রদলের সভাপতি সাধারন সম্পাদকদের পরামর্শক হিসেবে যুক্ত করে দেওয়া হয়।শুরু হয় তিন মাসের টার্গেট নিয়ে সম্মেলনের মাধ্যমে সারা বাংলাদেশের জেলা কমিটি গঠন পূনর্গঠনের কাজ।আমি রাজশাহী বিভাগীয় টিমের সদস্য হিসেবে কাজ করেছি।আমাদের টিম লিডার ছিলেন ছাত্রদলের তৎকালীন যুগ্মআহবায়ক আজিজুল বারী হেলাল।ফরহাদ হোসেন আজাদ এবং মিজানুর রহমান খোকন ছিল এই টিমের সদস্য।আমাদের অধীনে জেলা ইউনিট ছিল ২০ টি।জনাব তারেক রহমানের নির্দেশনা অনুযায়ী প্রত্যেক জেলায় যেয়ে কর্মীসভার মাধ্যমে সম্মেলন প্রস্তুত কমিটি গঠন করে সম্মেলনের তারিখ আমরা ঠিক করে আসতাম পরবর্তী নির্দিষ্ট তারিখে সম্মেলনের মাধ্যমে প্রত্যক্ষ ভোটে নেতৃত্ব নির্বাচন করে সম্মেলন স্থলেই কমিটি ঘোষনা করা হতো।তিন মাস অর্থাৎ ৯০ দিন সময়ে এক এক টি জেলায় আমরা ২ বার করে গিয়েছি, কয়েকটি জেলার কর্মী সভা করে ঢাকায় এসে কেন্দ্রীয় আহবায়ক যুগ্মআহবায়কদের উপস্হিতিতে দেশনায়ক তারেক রহমানের কাছে রিপোর্ট প্রদান করে প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা নিয়ে আবার জেলা সফরে বের হয়ে যেতাম।তিন মাস ছিল সফর কর্মীসভা সম্মেলন আর জনাব তারেক রহমানের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা অনুযায়ী সংগঠনকে গড়ে তোলার মিশন।কঠোর পরিশ্রম করতে হয়েছে সকল টিমকে।কিন্তু ঢাকায় এসে যখন আমরা ভাইয়ার সাথে মিটিং এ বসতাম উনার স্নেহ উৎসাহব্যঞ্জক দিকনির্দেশনা এবং সঠিক এবং সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা যখন পেতাম শরীর এবং মন জ্যামিতিক হারে রিচার্জ হয়ে যেত এবং কোন কাজকেই কঠিন মনে হতো না।স্বপ্ন এবং লক্ষ্য না থাকলে সফল হওয়া যায়না এটা জনাব তারেক রহমান আমাদের শিখিয়েছেন।দেখিয়েছেন কিভাবে স্বপ্ন এবং লক্ষ্য বাস্তবায়নে কাজ করতে হয়।জেলা কমিটি হওয়ার পর লাল্টু ভাইকে সভাপতি এবং হেলাল ভাইকে সাধারন সম্পাদক করে পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়।আমি সেই কমিটির সহসভাপতি ছিলাম।এবার সম্মেলনের মাধ্যমে থানা কমিটি এবং ইউনিয়ন কমিটি গঠনের কাজ শুরু হয়।সারা বাংলাদেশকে ১১ টি ভাগে ভাগ করা হয়।আমি একটি টিমের টিম লিডার হিসেবে দায়িত্ব পেয়ে আগের মতোই কাজ করতে হয়েছে জনাব তারেক রহমানের দিকনির্দেশনায়।কমিটি গঠনের চলমান কার্যক্রমের মধ্যেই দেশনায়ক তারেক রহমানের নির্দেশনায় শুরু হয় ছাত্রদলের তৃনমূল প্রতিনিধি সভা।প্রত্যেকটি প্রোগ্রামেই প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকেছেন জনাব তারেক রহমান।গতানুগতিক সভার মতো সেগুলো ছিলা না।উনি কর্মীদের মাঝে চলে যেতেন কর্মীদের কথা শুনতেন দেশ এবং দল নিয়ে তাদের ভাবনা জানতে চাইতেন দিতেন প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা।উনি উনার বক্তব্যে একটি বিষয় খুব গুরুত্ব দিতেন তা হচ্ছে গতানুগতিক রাজনিতির বাইরে যেয়ে সময়োপযোগী রাজনিতির চর্চা করা।উনি বলতেন” শুধু মিছিল মিটিং শ্লোগান আর বক্তব্যের মাঝে কর্মকান্ড সীমাবদ্ধ রাখা যাবে না বরং রাষ্ট্রের ইতিহাস ঐতিহ্য সম্পর্কে জানতে হবে।রাষ্টের বিভিন্ন অর্গানগুলো কিভাবে কাজ করে তা সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে হবে।শিক্ষানীতি পররাষ্ট্রনীতি আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক সম্পর্ক এবং অর্থনৈতিক পরিকল্পনা প্রনয়ন এই বিষয়গুলো সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে হবে।বিশ্বায়নের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় আধুনিক জ্ঞান বিজ্ঞানের আলোকে তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশের জন্য করতে নিজেকে তৈরি করতে হবে তবেই বাংলাদেশ ঘুড়ে দাঁড়াবে।কারিগরি শিক্ষার উপরও উনি বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করতেন।তৃনমূল প্রতিনিধি সভার মাধ্যমে সারা বাংলাদেশের ছাত্রসমাজকে উনি ঐক্যবদ্ধ করে জাগিয়ে তুলেছিলেন।সাবেক ছাত্রদল নেতৃত্ব কেন্দ্রীয় সংসদ এবং সকল জেলা নেতৃবৃন্দকে নিয়ে শহীদ জিয়ার হিযবুল বাহারের আদলে তিনি সেন্টমার্টিন সফরে গিয়েছিলেন।বাংলাদেশের সীমানা সম্পদ এবং সম্ভাবনা নিয়ে কথা বলেছেন।সমুদ্র তীর এবং সমুদ্র তলদেশে জলরাশির নিচে যে অফুরন্ত সম্পদ রয়েছে বলেছেন এই অফুরন্ত সম্পদকে আহরন করে দেশের উন্নয়নে কাজে লাগানোর বাস্তবধর্মী পরিকল্পনার কথা।দেশের বিরাট অংশে যে তেল ও গ্যাসের খনি রয়েছে সে বিষয়েও উনি সম্যক ধারনা দিয়েছেন।জনবহুল দেশের জনগনের শক্তিকে কাজে লাগানোই ছিল উনার মূল লক্ষ্য।আমাদের পরীক্ষা নিয়েছেন সময়ানূবর্তিতার শিক্ষা দিয়েছেন এগিয়ে যাওয়ার সাহস দিয়েছেন যেন এক রূপকথার রাখাল রাজা যিনি স্বপ্ন দেখেন স্বপ্ন দেখাতে পারেন স্বপ্ন বাস্তবায়নের পথও জানেন।
উন্নয়নের মহাসড়কে যখন আমাদের বাংলাদেশ শুরু হয় দেশী বিদেশী চক্রান্ত আর ষড়যন্ত্র…

চলবে….

লেখকঃ সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল | সাধারণ সম্পাদক জাতীয়তাবাদী সেচ্ছাসেবক দল কেন্দ্রীয় কমিটি |

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম