1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
পাট চাষিরা পাট পচানো নিয়ে বিপাকে | দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০২:২৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
হাটহাজারীতে আশ্রয়ণ প্রকল্পে বসবাসকারীদের মাঝে ত্রাণ বিতরণে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক দৈনিক ডাক প্রতিদিনের সম্পাদক আর নেই। বনানীতে টিবিএল ফুডের প্রথম সাধারন সভা অনুষ্ঠিত খুলল শিল্পকারখানা চাপে শ্রমিকরা __ দ্রুত শ্রমিকদের টিকা দিতে হবে শ্রীনগরে মসজিদের টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ সভাপতি’র বিরুদ্ধে সাংবাদিক হাবিব আল জালালের ইন্তেকাল শ্রীনগরে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মসিউর রহমান মামুন আশুরোগ মুক্তি কামনায় বিশেষ দোয়া মাহফিল চৌদ্দগ্রামে সাংবাদিক সিরাজুল ইসলাম ফরায়েজীর ভাই রফিকুল ইসলামের ইন্তেকাল চৌদ্দগ্রামে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে অসহায়দের মাঝে ঢেউটিন ও নগদ অর্থ প্রদান হাটহাজারী গুমানমর্দ্দন ইউনিয়নে নজরুল সংঘ কমিটি গঠন

পাট চাষিরা পাট পচানো নিয়ে বিপাকে

লাভলু শেখ, স্টাফ রিপোর্টার লালমনিরহাট
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১২ জুলাই, ২০২১
  • ৩৩ বার

লালমনিরহাটের পাট চাষিরা পাট পচানো নিয়ে বিপাকে। বিশেষ করে তিস্তা নদীতে পানি থৈ-থৈ করলেও পানির স্রােতে ভেসে যাওয়ার ভয়ে তোষা পাট পচাতে(জাগ দিতে) পারছে না। সে কারনে অনেকে চরের তোষাপাট কেটে ভ্যান যোগে অন্যএ নিয়ে বদ্ধ পুকুরে পচাতে বাধ্য হচ্ছে। আবার কেউ বাঁশের খুটির ঘের দিয়ে তিস্তার নদীর পানিতে পাট পচানোর ব্যবস্হা করছেন। নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় পাট ক্ষেতে পানি ঢুকে যায়। ফলে পাট কাটায় ব্যস্ত সময় পার করছেন পাট চাষিরা। লালমনিরহাট জেলার ৫ উপজেলার উচু অঞ্চল গুলোতে পাট কেটে পাট পচানো নিয়ে বিপাকে পরেছেন, পাট চাষিরা। পাট চাষীরা জানান, বাড়তি দামে পাট বিক্রি করে লাভবান হলেও আগের মতো পাট চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন কৃষকরা। জানা গেছে, সোনালী আঁশখ্যাত পাটের উৎপাদন ধারাবাহিক ভাবে কমছে। পাটের সোনালী অতিত এখন কেবলই ইতিহাস। এর পরেও পুরোনো ঐতিহ্যকে টিকিয়ে রাখতে অবিরাম লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে পাটচাষীরা।

দেশের দ্বিতীয় বৃহৎ রপ্তানি আয়ের এখাত এখন পাট সংকটে ধুঁকছে। কাঁচা পাট সংকটের কারনে দেশের ৫০ টি পাট কল বন্ধ হয়েছে।আর এর পেচনে অন্যতম কারণ হলো পাট পচানোর প্রয়োজনীয় পানির অভাব এবং পাটের দামে মজুূদারদের কারসাজির কারনে কৃষকের লোকসানের শঙ্কা। এছাড়া পাট বীজ আমদানি নির্ভর হওয়ায় প্রতিবছরেই ঝুঁকিতে থাকে উৎপাদন লক্ষ্যমাএা। এর পরেও চলতি মৌসুমে এক বুক সপ্ন নিয়ে পাট চাষ করেছে লালমনিরহাটের কৃষকরা। রোদ-বৃষ্টিতে ভিজে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে সবুজ পাট কে রুপান্তরিত করেন সোনালী বণেঁ। এর পরে বিক্রি করতে গিয়ে পরে দুবিঁপাকে। লালমনিরহাট কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর জানান, চলতি মৌসুমে জেলার ৫উপজেলায় পাট চাষে লক্ষ্যমাএা ধরা হয় ৪হাজার৬৪০ হেক্টর জমিতে এবং আবাদ হয়েছে ৪হাজার ৭৫ হেক্টর জমিতে। অন্যান্য বছরের তুলনায় কম।গত ২ বছরে বাজারে পাটের দাম বেশ ভালো যাচ্ছে। এর পরেও পাট চাষে কৃষকের আগ্রহ দিন দিন কমে যাচ্ছে। কৃষি বিভাগের লোক ও কৃষকের সাথে কথা বলে জানাযায়, প্রতি বছর পাটের দামে অস্বাভাবিক ওঠা-নামার কারনে কৃষকে লোকসানের মুখ দেখতে হয়। ফলে পাট চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন কৃষক। কৃষকরা জানান, চলতি বছর পাটের বাম্পার ফলন হয়েছে। এ ফসল কে ধরে রাখতে কৃষক যেন ন্যায দাম পায় সেদিকে সরকারী ভাবে কঠোর নজরদারী ও পাট খাতে প্রয়োজনীয় সহযোগীতার উপর জোরদাবী জানান, সাধারন কৃষকরা। কৃষি বিভাগ জানান,এবছর দেশী, তোসা ও কেনাপ জাতের পাট চাষ করা হয়েছে। গত বছরের আবাদী পাট প্রতি মন তোসা প্রায় ৬ হাজার, দেশী প্রায় ৫ হাজার এবং মেস জাতের পাট ৫হাজার ৫শত টাকা প্রতি মণ বিক্রি হচ্ছে বলে পাট ব্যবসায়ীরা জানান। চলতি বছর নতুন পাট এখনো বাজারে উঠেনি। আগামী ১ সপ্তাহের মধ্যে নতুন পাট বাজারে উঠবে এবং প্রতি মন কত বিক্রি হবে তা বাজারে মহাজনরা কিনতে আসলে বুঝা যাবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম