1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
মনপুরার জলবায়ু যোদ্ধা আবিদ হোসেন রাজু। | দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ০৪:৪৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নাঙ্গলকোটের কাকৈরতলা খন্দকার বাড়ির সামনের রাস্তায় জলাবদ্ধতা, চরম দুর্ভুগে জনজীবন ঘরে ঘরে জ্বর সর্দির রোগি, করোনা টেস্টে অনিহা চরম কষ্টে শ্রমজীবী ও নিম্ন আয়ের মানুষ তিনদিনের টানাবৃষ্টিতে শরণখোলার ১৩ হাজার পরিবার পানিবন্দি শিক্ষকতা পেশার সুযোগ-সুবিধা বাড়ানো জরুরি ধর্মপাশায় অগ্নিকান্ডে আড়াই লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি গহিরায় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত ইউনিয়ন ভিক্তিক টিকা প্রদানে উৎসাহিত করণ সভা মাগুরার শ্রীপুরে ২০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার ও ১০টি পালস্ অক্সিমিটার হস্তান্তর মীরসরাইয়ে সামীয়া ট্রেডিং নামে একটি প্রতিষ্ঠানকে ভোক্তা অধিকার আইনে জরিমানা আনোয়ারায় ৩৩৩ নম্বরে ফোনে ত্রাণ সহায়তা পেল কর্মহীন ১৩০ পরিবার ৫০ কেজি গাঁজাসহ পুলিশের এক সদস্য সহ গ্রেফতার ৪

মনপুরার জলবায়ু যোদ্ধা আবিদ হোসেন রাজু।

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১ জুলাই, ২০২১
  • ১৩৮ বার

আমি আবিদে হোসেন রাজু। ভোলা জেলার বিচ্ছিন্ন দ্বীপ মনপুরাতে বাস করি। মনপুরার চার পাশেই মেঘনা নদী দ্বারা আবদ্ধ। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে মনপুরার প্রধান সমস্যা হলো নদী ভাঙ্গন।
একসময় মনপুরার আয়তন ছিলো ৩৭৩. ১৯ বর্গ কিলোমিটার। বর্তামানে তা দাড়িয়েছে ১১৩ বর্গ কিলোমিটারের বা তারও কম। বলা যায় বেশির ভাগই চলে গেছে নদীর গর্ভে।

আমার পরিবার মনপুরাতে ৩ বার নদী ভাঙ্গনের শিখার হওয়ার পর স্থান পরিবর্তন করে মনপুরাতেই বসবাস করি।
২০০৭ সালে আবারো নদী ভাঙ্গনে নিয়ে যায় আমার পরিবারের শেষ সম্বল টুকু ভিটা বাড়ি। দরিদ্রতার কবলে পড়ে আমার পরিবার আশ্রয় নেয় ভাসমান কলাতলীর চরে। যেটা ছিলো জলবায়ূু দুর্গত এলাকা। বন্ধ হয়ে যায় আমার পড়ালেখা। সম্ভবত ২০০৭-২০০৮ সালে ২য় বারের মতো কলাতলীতে বন্যায় আমাদের সব কিছু ভাসিয়ে নিয়ে যায়। নিস্ব হয় আমার পরিবার আবারো।

২০১০ সালে কলাতীতে একটি স্কুল হয় আমি সেখানে ভর্তি হয় আর পড়ালেখা করতে শুরু করি। ২০১২ সালে আমি কলাতলীর চর স্কুল থেকে ৫ শ্রেনীতে পাশ করি।
মাধ্যমিকে পড়ার জন্য আমাকে আবার পিরে আসতে হয় মনপুরায় ২০১৩ সালে আমি মনপুরায় আসি। মনপুরায় ছিলোনা আমার কোনো ঘরবাড়ি তাই নিজের পড়ালেখার জন্য অন্যের বাড়িতে থেকে পড়া লেখা করি।

২০১৪ সালে কোস্ট ট্রাস্টের একটি প্রকল্পের মাধ্যমে আমি জানেতে পারি জলবায়ু পরিবর্তন সম্পর্কে। আমি তাদের সাথে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় কাজ করার জন্য বলি। কারন আমি নিজেই জলবায়ু পরিবর্তনের শিখার হইছি।
সেই থেকেই আমি ইউনিসেফ ও কোস্ট ট্রাস্টের সহযোগিতায় জলবায়ু পরির্তন মোকাবেলায় আমার দ্বীপ মনপুরাকে নিয়ে কাজ করতেছি।
মনপুরাকে নদী ভাঙ্গনের হাত থেকে রক্ষা করতে মনপুরার কিশোর কিশোরীরা মিলে দাবি জানিয়েছি বিশ্বে।
২০১৭ সালে বরিশাল জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে যুব সম্মেলনে যোগদান করে মনপুরার কথা তুলে ধরি তাতে অল্প কিছু সফলতার মুখ দেখি।

পরবর্তীতে ২০১৭ সালের শেষের দিকে মনপুরাকে সারা বিশ্বের কাছে তুলে ধরতে মনপুরার কিশোর কিশোরীরা মিলে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদে জলবায়ু পরিবর্তন উদাহরণ মনপুরা দ্বীপ নিয়ে উপকূলীয় এমপি, মন্ত্রীদের সাথে বৈঠক করি। মনপুরার উপজেলা চেয়ারম্যান সেলিনা আক্তার চৌধুরীও আমাদের সাথে যুক্ত ছিলেন। মনপুরার সকল সমস্যা আর ছবি তুলে ধরি সংসদে মনপুরাকে নদী ভাঙ্গনের হাত থেকে বাঁচাও বলে চিৎকার করে উঠে মনপুরার তরুণ তরুণীরা।
হয়তো বড় সফলতা ছিল ওটা মনপুরার জন্য। বর্তমানেও কাজ করে চলেছি মনপুরা এবং মনপুরার মানুষের জন্য একজন জলবায়ু যোদ্ধা ও সেচ্ছাসেবী হিসাবে। কাজ করে যাবো যতদিন আছি। স্বপ্নের মনপুরাকে বাঁচাতে একসাথে কাজ করবো ইনশাআল্লাহ। আসা করি আমি একদিন সফল হবে মনপুরা আর মনপুরার মানুষ সবার দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করছি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম