1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
মাগুরায় পাট নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছে কৃষক, হঠাৎ দাম কমে যাওয়ায় হতাশ!! | দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ০৪:০৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নাঙ্গলকোটের কাকৈরতলা খন্দকার বাড়ির সামনের রাস্তায় জলাবদ্ধতা, চরম দুর্ভুগে জনজীবন ঘরে ঘরে জ্বর সর্দির রোগি, করোনা টেস্টে অনিহা চরম কষ্টে শ্রমজীবী ও নিম্ন আয়ের মানুষ তিনদিনের টানাবৃষ্টিতে শরণখোলার ১৩ হাজার পরিবার পানিবন্দি শিক্ষকতা পেশার সুযোগ-সুবিধা বাড়ানো জরুরি ধর্মপাশায় অগ্নিকান্ডে আড়াই লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি গহিরায় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত ইউনিয়ন ভিক্তিক টিকা প্রদানে উৎসাহিত করণ সভা মাগুরার শ্রীপুরে ২০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার ও ১০টি পালস্ অক্সিমিটার হস্তান্তর মীরসরাইয়ে সামীয়া ট্রেডিং নামে একটি প্রতিষ্ঠানকে ভোক্তা অধিকার আইনে জরিমানা আনোয়ারায় ৩৩৩ নম্বরে ফোনে ত্রাণ সহায়তা পেল কর্মহীন ১৩০ পরিবার ৫০ কেজি গাঁজাসহ পুলিশের এক সদস্য সহ গ্রেফতার ৪

মাগুরায় পাট নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছে কৃষক, হঠাৎ দাম কমে যাওয়ায় হতাশ!!

মোঃসাইফুল্লাহ/ মাগুরা;
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৯ জুলাই, ২০২১
  • ৮৪ বার

মাগুরায় সোনালী আঁশ পাট নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছে কৃষক! হঠাৎ করে এলাকার বাজার গুলোতে দাম কমে যাওয়ায় হতাশা ব্যক্ত করেছেন তাঁরা।

মাগুরা জেলায় এবার পাটের বাম্পার ফলন হয়েছে। চলতি মৌসুমের শুরুতে দাম ভালো হওয়ায় পাট চাষিরা খুব খুশি ছিলো। কিন্তু হঠাৎ করেই এলাকার বাজার গুলোতে পাটের দাম কমে যাওয়ার কারণে হতাশা ব্যক্ত করছেন পাট চাষিরা।
বর্তমানে পাট কাটা, পাট পঁচানো এবং পাটের আঁশ ছড়ানো ও শুকানো নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন তাঁরা।

তবে এ বছরের প্রথম দিকে পর্যাপ্ত বৃষ্টি না হলেও পরবর্তিতে পর্যাপ্ত বৃষ্টি হওয়ায় পাটের ভালো ফলন হবে বলে আশা করছেন অনেকেই।
মাগুরা জেলা কৃষি অফিসের তথ্য মতে, এ বছর জেলায় ৩৫ হাজার ৮২০ হেক্টর জমিতে পাট চাষ হয়েছে। এর মধ্যে মাগুরা সদর উপজেলায় ১১ হাজার ৫০ হেক্টর,শ্রীপুর উপজেলায় ১০হাজার ৮৫ হেক্টর,মহম্মদপুর উপজেলায়১০হাজার ৮০০হেক্টর ও শালিখা উপজেলা ৩ হাজার ৮০০ হেক্টর।

যেখানে জেলায় গত বছর চাষ হয়েছিলো ৩৫ হাজার ৪৭৫ হেক্টর জমিতে, যা গত বছরের তুলনায় এবছর ৩৪৫ হেক্টর জমিতে বেশি চাষ হয়েছে। তাছাড়া এ বছর পর্যাপ্ত বৃষ্টির কারনে গত বছরের তুলনায় এ বছরধ ফলনও অনেক বেশি হবে।

উপজেলা উপসহকারী কৃষি অফিসার শ্যামল কুমার বিশ্বাস বলেন, প্রতিটা মাঠেই পর্যাপ্ত পানি থাকায় পাট পঁচানোর জন্য কৃষকদের কোন সমস্যা হচ্ছে না। ইতিমধ্যে উপজেলার বিভিন্ন মাঠে পাট কাটা শুরু হয়েছে। তবে শ্রমিকের দাম বেশি এবং মাঠ থেকে পাট বহনের খরচ বেশি হওয়ার সমস্যায় পড়ছে কৃষকেরা। গত সপ্তাহে পাটের দাম ছিল প্রতিমন ৩৫শ টাকা থেকে ৩৮শ বর্তমানে তা বিক্রি হচ্ছে প্রতিমন ২২’শ থেকে ২৫শ । পাটের মন ৩৫শ টাকা দরে বিক্রি করতে পারলে কৃষকরা লাভবান হবেন।

শ্রীপুর উপজেলার বরিশাট গ্রামের কৃষক মুন্নাফ শেখ বলেন, প্রতি বছরই আমি পাট বোপন করি, এইবারও বোপন করেছি আল্লাহ দিলে ফলন ভালো হইছে। জাগ দেওয়ার পানিও আছে। গত সপ্তাহে যে দাম ছিলো ভালোই ছিলো,কিন্তু বর্তমানে বাজারে যে দাম যাচ্ছে তাতে কৃষক লাভবান হতে পারবেনা।

গয়েশপুর ইউনিয়নের চরজোকা গ্রামের আকরাম হোসেন জানান এ বছর দেড়বিঘা জমিতে পাট চাষ করেছি,পাট খুব ভালো হয়েছে দামও ভালো ছিলো কিন্তু হঠাৎ করেই বাজারে পাটের কমে যাওয়ায় হতাশায় ভুগছি।

শ্রীপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ও পাটচাষি ইদরিস আলী বলেন গত বছরের শেষের দিকে পাটদাম অনেক বেশী থাকায় এবছর বেশী করে পাটচাষ করেছিলাম, কিন্তু হঠাৎ করেই বাজারে পাটের দাম কমে যাওয়ার কারণে হতাশা ফিল করছি, যদি পাটের বাজার এই রকমই থাকে তাহলে লাভ তো পরে থাক খরচের টাকাও উঠবে না।
মাগুরা সদর উপজেলার রামনগর গ্রামের পাটচাষি সাধন চন্দ্র জোয়ার্দার বলেন এবার পাট ফলন বেশ ভালো হয়েছে,কিন্তু পাটের বর্তমান যে দাম ২২শ থেকে ২৪শ,টাকা মন আর শ্রমিকের যে দাম তাতে একমন পাট উৎপাদন করতেই ২ হাজার থেকে ২২শ টাকা খরচ হচ্ছে,তাহলে লাভ থাকছে কোথায়? প্রতিমন পাট ৩হাজার টাকার উপরে হওয়া উচিত।

খামারপাড়া বাজারে বিশিষ্ট ব্যবসায়ি শিকদার মিলন কুমার চিন্তা জানান গত সপ্তাহে যে আমরা ক্রয় করেছি ৩৫শ টাকা থেকে৩৮শ টাকায় সেই পাট বর্তমানে ২২শ থেকে২৪শ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে,আমার বেশ কিছু পাট কেনা আছে, বর্তমান বাজারে বিক্রি করলে আমার অনেক টাকা লোকসান হবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন – সরকার এখনো পাট কেনা শুরু করেনি তাই হয়তো পাটের দাম কমে গেছে, সরকার পাট কেনা শুরু করলে দাম বৃদ্ধি পাবে বলে আমরা আশা করছি।

এ বিষয়ে শ্রীপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সালমা জাহান নিপা বলেন, ভাল দাম পাওয়ার জন্য সঠিক নিয়মে পাট পঁচানোর বিভিন্ন পদ্ধতি সম্পর্কে কৃষকদের অবহিত করছি। করোনা কালীন সময়েও মাঠ পর্যায়ে আমাদের সেবা অব্যাহত রয়েছে। তবে এ বছর সোনালী আঁশ পাটের বাম্পার ফলন হবে, ফিরে আসবে অতীতের সোনালী আঁশের ঐতিহ্য–এমনটাই আশা করছি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম