1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
মোবাইল নম্বর বদলিয়ে অর্থ আত্মসাৎ, তদন্তের নির্দেশ আদালতের | দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ০৪:৪৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নাঙ্গলকোটের কাকৈরতলা খন্দকার বাড়ির সামনের রাস্তায় জলাবদ্ধতা, চরম দুর্ভুগে জনজীবন ঘরে ঘরে জ্বর সর্দির রোগি, করোনা টেস্টে অনিহা চরম কষ্টে শ্রমজীবী ও নিম্ন আয়ের মানুষ তিনদিনের টানাবৃষ্টিতে শরণখোলার ১৩ হাজার পরিবার পানিবন্দি শিক্ষকতা পেশার সুযোগ-সুবিধা বাড়ানো জরুরি ধর্মপাশায় অগ্নিকান্ডে আড়াই লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি গহিরায় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত ইউনিয়ন ভিক্তিক টিকা প্রদানে উৎসাহিত করণ সভা মাগুরার শ্রীপুরে ২০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার ও ১০টি পালস্ অক্সিমিটার হস্তান্তর মীরসরাইয়ে সামীয়া ট্রেডিং নামে একটি প্রতিষ্ঠানকে ভোক্তা অধিকার আইনে জরিমানা আনোয়ারায় ৩৩৩ নম্বরে ফোনে ত্রাণ সহায়তা পেল কর্মহীন ১৩০ পরিবার ৫০ কেজি গাঁজাসহ পুলিশের এক সদস্য সহ গ্রেফতার ৪

মোবাইল নম্বর বদলিয়ে অর্থ আত্মসাৎ, তদন্তের নির্দেশ আদালতের

আনোয়ার হোসেন শামীম, গাইবান্ধা
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২১ জুলাই, ২০২১
  • ২৩ বার

গাইবান্ধায় মোবাইল নম্বর বদলিয়ে অভিনব কায়দায় অসহায় প্রতিবন্ধী, বয়স্ক ও বিধবাদের ভাতার অর্থ আত্নসাতের খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ গনমাধ্যমে প্রচারের পর বিষয়টি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য পিবিআইকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট উপেন্দ্র চন্দ্র দাসের আদালত এ আদেশ দেন বলে মঙ্গলবার বিকেলে নিশ্চিত করা হয়।

প্রতিবন্ধী, বয়স্ক ও বিধবাদের ভাতার অর্থ আত্নসাতের বিষয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ গনমাধ্যমে প্রকাশ সংবাদটি আদালতের গোচরিভূত হলে এমন ঘটনা খুবই দু:খজনক, অমানবিক ও ঘৃণ্য অপরাধ ও সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠণ বিরোধী কাজ উল্লেখ করে আদালত বিষয়টি তদন্ত করে কেন, কারা, কিভাবে এ অপরাধ সংঘটন করে তা খতিয়ে দেখে আগামী ২৩আগষ্টের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য পিবিআইকে নির্দেশ দেন আদালত।

গাইবান্ধায় ভাতার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এক চক্র, অসহায় প্রতিবন্ধীরা
হাজার হাজার ভাতাভোগীর মোবাইল ফোন নম্বর বদলে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির টাকা তুলে নিচ্ছে একটি চক্র। এমন ঘটনা ঘটেছে গাইবান্ধায়। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ নিবন্ধন কাজে জড়িত মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসের এজেন্ট ও সমাজসেবা অধিদপ্তর। দায়ীদের শাস্তির আওতায় আনা হবে বলে আশ্বাস উপজেলা প্রশাসনের। সদর উপজেলার
খোলাহাটির ইউনিয়নের বাক-প্রতিবন্ধী মাজেদার ভাতার টাকা চলে গেছে স্থানীয় ইউপি সদস্য আবুল কালাম আজাদের মোবাইলে। প্রতিবন্ধী মাসুদসহ আরও অনেকের টাকাও যাচ্ছে অন্য কোনো মোবাইল নম্বরে। সমাজসেবা থেকে বিতাড়িত হয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করেন তারা। টাকার জন্য ইউএনও অফিসেও ধরনা দেন এসব অসহায় মানুষ।
ভুক্তভোগীরা জানান, যে মোবাইল ফোনে টাকা গেছে সেটি এখন বন্ধ। মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসের এজেন্ট ও সমাজসেবা অধিদপ্তর বলেছে, যে মোবাইল ফোনে টাকা পাঠানো হয়েছে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে।
আরেকজন জানান, মিয়াপাড়ার মেম্বার কালাম তার কাছে গেছে টাকা। তাকে ফোন করলে তিনি হুমকি দেন।
তাদের কথার সূত্র ধরে খোলাহাটির মিয়াপাড়ায় গিয়ে জানা গেল ভয়ংকর তথ্য বেরিয়ে আসে। প্রত্যেকের মোবাইল নম্বর পরিবর্তন করে ডিজিটাল কায়দায় চুরি হচ্ছে গরিব-দুঃখীর প্রাপ্য অর্থ।
ভুক্তভোগীরা জানান, টাকা পাইনি, উপজেলায় গিয়ে অভিযোগ জানানোর পর কর্মকর্তা বলেন দেখছি ব্যাপারটা।

এক বৃদ্ধ বলেন, যারা এ কাজে জড়িত তাদের আমরা শাস্তি চাই।
জড়িতদের শাস্তি চাইলেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আর তদন্তের আশ্বাস উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।
গাইবান্ধা সদরের খোলাহাটি ইউনিয়ন চেয়ারম্যান শেখ সামাদ আজাদ বলেন, আমি এ ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।
গাইবান্ধা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুর রাফিউল আলম বলেন, কেউ যদি ইচ্ছাকৃতভাবে কাজগুলো করে থাকে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুসারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
জেলায় ২ লাখ ৪০ হাজার ভাতাভোগীর মধ্যে লক্ষাধিক মোবাইল নম্বর নিবন্ধন করে নগদ আর বাকিটা নিবন্ধন করে সমাজেসেবা অধিদপ্তর। এ ব্যাপারে পাশ কাটিয়ে যান নগদের কর্মকর্তা আর ত্রুটি চিহ্নিত করা হচ্ছে বলে দাবি সমাজসেবা কর্মকর্তার।
গাইবান্ধা সমাজ সেবা অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত উপপরিচালক মো. কামরুল হাসান সরকার বলেন, ইচ্ছাকৃত ভুল না অন্যকিছু তদন্ত হচ্ছে।
গাইবান্ধা নগদ লিমিটেডের আঞ্চলিক কর্মকর্তা আসিফ অয়ন বলেন, ফোনে বলতে পারব না, এটার জন্য আমাদের লাইন ম্যানেজার আছেন।
সদরের খোলাহাটি ইউনিয়নেই ৫ শতাধিক অসহায় মানুষ ভাতার টাকা পায়নি। জেলার সাত উপজেলায় হাজার হাজার ভাতাভোগীর মোবাইল নম্বর বদলে টাকা তুলে নিচ্ছে একটি চক্র।

আদালতের আদেশে বলা হয়, প্রকাশিত সংবাদের ঘটনা সত্য হলে তাতে প্রতারণা, জ্বালিয়াতি, চুরি ও অর্থ আত্নসাৎ সংক্রান্ত আমলযোগ্য অপরাধ সংঘটনের উপাদান রয়েছে। আদালত বলেন, সরকার সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচীর আওতায় দেশের প্রতিবন্ধীসহ দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য ভাতা চালু করেছে। উপকারভোগীদের সুবিধার্থে ভাতা প্রাপ্তি সহজীকরণের লক্ষে ডিজিটাল পদ্ধতি চালু করা হয়েছে। সেখানে একটা ইউনিয়নেই পাঁচ শতাধিক উপকারভোগীর ভাতা বঞ্চিত হওয়ার ঘটনা খুবই এলার্মিং। ভাতার টাকা আত্নসাত/চুরির মাধ্যমে অপরাধীরা প্রতিবন্ধী ও দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচীর আওতায় ভাতা প্রাপ্তির অধিকার থেকে বঞ্চিত করছে যা খুবই অমানবিক ও ঘৃণ্য অপরাধ।
আদালত আদেশে আরো বলেন, অপরাধীদের উক্তরুপ কার্য সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচী ও ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠণ বিরোধী কাজ। শুরুতেই রোধ করা না গেলে দিনে দিনে এরুপ অপরাধ বৃদ্ধি পাবে যাতে দেশের ভাবমূর্তিও ক্ষুন্ন হবার আশঙ্কা রয়েছে। সংগত কারনেই অপরাধীদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি নিশ্চিত করা সমীচীন।

আদালত দি কোড অব ক্রিমিনাল প্রোসিডিউর ১৯৯৮ এর ধারা ১৯০ (১) (সি) অনুযায়ী আমলে গ্রহণ করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)কে গাইবান্ধাকে প্রচারিত সংবাদের সত্যতা ও তাতে বর্ণিত বিস্তারিত তদন্ত পূর্বক ২৩ আগষ্টের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।

আদেশে তদন্তকারী কর্মকর্তাকে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচীর তালিকাভূক্তদের দাবীমতে প্রকৃত পক্ষেই জ্বাল জ্বালিয়াতির মাধ্যমে মোবাইল নম্বর পরিবর্তন করে বা অন্য কোন উপায়ে অন্য কোন ব্যাক্তি বা ব্যক্তিরা উত্তোলন করে নিয়েছে কিনা, উত্তোলন করে থাকলে কতজনের, কি পরিমাণ ভাতা উত্তোলন করে নেয়া হয়েছে তার পরিমাণ সুষ্পষ্টভাবে নির্ধারণ করে তদন্ত করে প্রতিবেদনে উল্লেখের নির্দেশ দেন আদালত।
একই সাথে প্রতিবেদনে বর্ণিত ঘটনার সত্যতা পেলে সংশ্লিষ্ট অপরাধের সাথে জড়িত অভিযুক্তদের নাম, ঠিকানা এবং অপরাধ সংঘটনে অভিযুক্তদের ভূমিকাসহ ঘটনার তারিখ, সময় ও স্থান বিস্তারিত প্রতিবেদনে উল্লেখ করতে আদেশে বলা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম