1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
রাষ্ট্রবিজ্ঞান আর ডক্টর. এমাজউদ্দীন যেন প্রায় কাছাকাছি | দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ১১:৩১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
পুলিশিংসেবা ডিজিটালাইজেশনে সিএমপির নতুন উদ্যোগ” ‘বডি ওর্ন ক্যামেরা” সাতকানিয়ায় “মদিনা নগর কল্যাণ সোসাইটি”র বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচী যদি করেন ভাই চালাকি, পরে বুঝবেন এর জ্বালা কী! নরসিংদীতে মানব কল্যাণে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে সদর এসিল্যান্ড শাহ আলম মিয়া দেশ সেরা কন্টেন্ট নির্মাতা হলেন চৌদ্দগ্রামের মোহাম্মদ আমির হোসেন বিএনপি নেতা গাজী কবিরের চাচা আবু তাহেরের ইন্তেকাল, দাফন সম্পন্ন রাউজানে এক যুবকের আত্মহত্যা লালমনিরহাটে ঈদুল আজহা উপলক্ষে ২ শতাধিক ছিন্নমূল মানুষের মাঝে খাবার বিতরন করেন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন লালমনিরহাটে তিস্তার ভাঙন ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারে মাঝে খাবার ও মাস্ক বিতরণ মাগুরার শ্রীপুর প্রেস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতির বোনের ইন্তেকাল

রাষ্ট্রবিজ্ঞান আর ডক্টর. এমাজউদ্দীন যেন প্রায় কাছাকাছি

__ লেখকঃ মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার _
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৭ জুলাই, ২০২১
  • ৪২ বার

প্রফেসর ডক্টর. এমাজউদ্দীন আহমদের মৃত্যুর মধ্যদিয়ে জাতি একজন কীর্তিমান মানুষকে হারিয়েছে জাতি। যিনি আজন্ম গণতন্ত্র, ন্যায়বিচার, সুশাসন ও দুর্ণীতিমুক্ত একটি স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য লড়াই করে গেছেন। মূলত তিনি ছিলেন দেশের বরেণ্য ও কীর্তিমান একজন শিক্ষক ও অভিভাবক।

প্রফেসর ডক্টর এমাজউদ্দিন আহমদ দেশের সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রামে শাসক শ্রেণির সকল প্রকার রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে নির্ভয়ে দেশের পক্ষে ও দেশের মানুষের পক্ষে কথা বলেছেন। জনমত গড়তে হাতে কলম ধরেছেন। লিখেছেন মানুষের কথা, দেশের সমৃদ্ধির

প্রফেসর ডক্টর এমাজউদ্দিন আহমদ দেশের সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রামে শাসক শ্রেণির সকল প্রকার রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে নির্ভয়ে দেশের পক্ষে ও দেশের মানুষের পক্ষে কথা বলেছেন। জনমত গড়তে হাতে কলম ধরেছেন। লিখেছেন মানুষের কথা, দেশের সমৃদ্ধির কথা, গণতন্ত্র ও সুশাসনের কথা। দুর্নীতি ও অন্যায়ের বিরুদ্ধে সদাসোচ্চার মানুষটি কোনদিন কোন অন্যায়ের কাছে মাথানত করেননি। সকল প্রকার গণতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রামে জাতির পাশে থেকে সাহস জুগিয়েছেন, উদ্বুদ্ধ করেছেন।

প্রফেসর এমাজউদ্দীন আহমেদ কোন দল বা গোষ্ঠির নয় বরং বাংলাদেশের প্রকৃত অভিভাবক ছিলেন। স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রকামী মানুষের অভিভাবক ছিলেন। তিনি সত্যিকার অর্থেই একজন নিবেদিতপ্রাণ দেশ প্রেমিক ছিলেন। তিনি সবসময় চেয়েছেন বাংলাদেশ সত্যিকার অর্থে একটি উদার গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে পরিণত হোক, বাংলাদেশ সত্যিকার অর্থে একটা উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হোক, জনগণের মুক্তি হোক।

এমাজউদ্দিন আহমেদ সারা জীবন ধরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব ও গণতন্ত্রের জন্য তার লেখনি অব্যাহত রেখেছিলেন। তার জীবনের সমস্ত ভাবনাজুড়ে ছিল দেশ, দেশের মানুষ, গণতন্ত্র অর্থনৈতিক মুক্তি ন্যায়বিচার ও সুশাসন।

১/১১ সরকারের রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে যে কয়জন বুদ্ধিজীবী হাতে কলম ধরেছিলেন তাঁদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন প্রফেসর এমাজ উদ্দীন আহমেদ। দেশ দুর্নীতিমুক্ত হবে, মানুষের বাক- স্বাধীনতা প্রতিষ্ঠিত হবে, ন্যায্যতা ও ন্যায়বিচারের মানদণ্ডে পরিচালিত হবে প্রিয় বাংলাদেশ এমন হাজারো স্বপ্ন দেখতেন এই ক্ষণজন্মা মানুষটি।

বাংলাদেশের জন্য ডক্টর. এমাজউদ্দীন আহমেদ সত্যিকার অর্থে একজন তারকা শিক্ষাবিদ ছিলেন। তিনি ছিলেন সূর্যের মতো আলোকিত একজন মানুষ। সেই আলোতে দেশবাসী আলোকিত হতো।

ড. এমাজউদ্দিন আহমেদকে যথাযথ সম্মান ও মূল্যায়ন করা হয় নাই। তিনি যে রাজনৈতিক আদর্শে বিশ্বাস করতেন দীর্ঘ দিন তারা ক্ষমতায় থাকলেও তারা তাকে যথাযথ মর্যাদা প্রদানে ব্যর্থ হয়। সেই ব্যর্থতার কারণে আজ এই দলের করুণ পরিণতি শিক্ষা উপভোগ করতে হচ্ছে বর্তমানে । যদি এই দল ডক্টর এমাজউদ্দীন আহমদকে তৎকালীন সময়ে মূল্যায়ন করতো তাহলে আজ দেশের অবস্থা ভিন্ন একটা ব্যতিক্রম অব্যাহত থাকতো।

ডক্টর. এমাজউদ্দীন আহমদ দলকানা কোন বুদ্ধিজীবী ছিলেন না। তিনি সদা সত্য বলতেন এবং সত্যের পক্ষে কলম হাতে লড়াই করতেন। সত্যের পক্ষে কথা বলতে তিনি কখনোই কার্পণ্য করতেন না। এই জন্য তিনি বিএনপিকে জামায়াতের সঙ্গ ত্যাগ করার জন্য বিভিন্ন সময় পরামর্শ দিতেও কুণ্ঠাবোধ করেননি।

‘ কর্ম গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের সংগ্রামে এমাজউদ্দীনের ভুমিকা সাহস যোগাবে ”

অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদের কর্ম গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের সংগ্রামে আমাদের শক্তিকে সাহস যোগাবে। প্রফেসর এমাজউদ্দীন আহমদ আমাদের মধ্যে নেই, আর ফিরেও আসবেন না। কিন্তু তার কাজ আমাদের মধ্যে রয়ে গেলো। তার চিন্তা, তার বিশ্বাস, তার কাজ আমাদেরকে আরও শক্তিশালী করবে, সাহস যোগাবে। বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদের একজন দৃঢ় প্রবক্তা, স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের অতন্দ্র প্রহরী, গণতন্ত্রের একজন সাহসী বলিষ্ঠ সংগ্রামী যোদ্ধা অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আমাদের প্রেরণা যুগিয়েছেন এবং যোগাবেন।
তিনি আমাদের সাহস যোগাবেন লড়াই করতে, সংগ্রাম করতে, গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে।

ডক্টর. এমাউদ্দীন আহমদ অত্যন্ত বিনয়ী একজন মানুষ ছিলেন। তিনি ছিলেন সমগ্র জাতির অভিভাবক। তার চলে যাওয়ায় সকলেই বাকরুদ্ধ। তার চলে যাওয়ায় দেশ ও জাতি একজন পরীক্ষিত, মেধাবী, স্পষ্টবাদী দেশপ্রেমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞানীকে হারালো। তার শুন্যতা পুরন হওয়ার নয়। এমাজউদ্দিন আহমেদের মৃত্যু একটি নক্ষত্রের পতন। দেশ ও মানুষের মঙ্গল আকাঙ্ক্ষায় নিমগ্ন হয়েছে ড. এমাউদ্দীন আহমদের তার চিন্তা ও কর্মধারা। মত ও পথের ভিন্নতা আড়াল করেনি মানবিকতা ও ন্যায়ের পথ। আলোকিত মানুষ ছিলেন তিনি। ‘সবার সঙ্গে মিত্রতা, নয় কারও প্রতি শত্রুতা’- এই ছিল তার কর্মধারা। জাতির প্রয়োজনে উদ্যোগ ও উদ্যমে অগ্রসর হয়েছেন স্বকীয় কর্মধারায়, সংযত-সীমিত থেকেছেন নিজ পরিসরে।

রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক হওয়ার সুবাদে গণতন্ত্র, সুশাসন, সমাজ, সংস্কৃতি ও সংকটের কথা বলেছেন। এমাজউদ্দীন আহমদ। এটি কোনো দলীয় অবয়বে বিচার করা যায় না। এটি ছিল তার দেশপ্রেম, আদর্শ ও নীতিবোধের সাহসী প্রকাশ।
ডক্টর. এমাজউদ্দীন আহমদ বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রশ্নে আপোষহীন ছিলেন। তিনি উদার-আধুনিক রাষ্ট্র গঠনের স্বপ্ন দেখেছেন আজীবন। সমাজের বিভক্তি দূর করতে না পারলে বাংলাদেশ রাষ্ট্র নানা দিক থেকে সমস্যায় পড়বে বলে মনে করতেন তিনি।

শিক্ষা এবং রাজনৈতিক অঙ্গনে অধ্যাপক এমাজউদ্দীনের সমঝোতা প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ তাকে নন্দিত পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছিল। তিনি সাধারণভাবে শ্রদ্ধা এবং ভালোবাসার পাত্রে পরিণত হয়েছিলেন। রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দীন আহমদ কেবল একজন শিক্ষাবিদই ছিলেন না, একাধারে তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব ও গণতন্ত্রের প্রতীক ছিলেন ।

আজ আমাদের শ্রদ্ধাভাজন শিক্ষক ও পিতৃতূল্য অভিভাবক অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দীন আহমদকে হারানোর এক বছর। জীবদ্দশায় স্যারকে যেমন মূল্যায়ন করতে আমরা ব্যার্থ হয়েছি, তেমনি মৃত্যুর পর থেকে এ পর্যন্ত কোভিড-১৯ এর কারণে তাঁকে শ্রদ্ধা ও সম্মান জানাতে পারছি না।

প্রফেসর ড. এমাজউদ্দিন আহমদ ১৯৩৩ সালের ১৫ ডিসেম্বর তৎকালীন মালদহ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও ভারতের কিছু অংশ) জেলায় জন্মগ্রহণ করেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদরের ‘গোহাল বাড়ি’ এলাকায় পরিবারসহ দীর্ঘদিন বসবাস করেন প্রফেসর এমাজউদ্দিন। তিনি শিবগঞ্জের আদিনা সরকারি ফজলুল হক কলেজ ও রাজশাহী কলেজের প্রাক্তন ছাত্র।

মহান ভাষা আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে, ১৯৫২ এর পরবর্তী সময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ছাত্রনেতা হিসেবে অধ্যাপক এমাজউদ্দিন আহমেদ কারাবরণও করেন। যুক্তরাষ্ট্র কেন্দ্রিক নব্বই দশকের সর্বাপেক্ষা ‘প্রশংসিত বাঙালি ব্যক্তিত’ ছিলেন।

রাজশাহী কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করার পর তিনি সরকারী কলেজের প্রভাষক হিসাবে সিভিল সার্ভিসে যোগদান করেন। তিনি পরে কলেজের অধ্যক্ষ হন। ১৯৭০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়ে তাকে কানাডার অন্টারিওর কুইন্স বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক বৃত্তি দেওয়া হয়েছিল। সেখানে তিনি রাষ্ট্রবিজ্ঞানে গবেষণার জন্য পিএইচডি লাভ করেন। পরে সেখান থেকে বাংলাদেশে ফিরে এসে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের জ্যেষ্ঠ প্রভাষক হিসাবে যোগদান করেন। পরে তিনি অধ্যাপক হন।

তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য এবং উপাচার্য (১ নভেম্বর ১৯৯২-৩১ আগস্ট ১৯৯৬) হিসেবে দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিভার্সিটি অব ডেভেলপমেন্ট অল্টারনেটিভ (ইউডা) ভিসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া তিনি বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটির সভাপতি ছিলেন।

তিনি দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে তুলনামূলক রাজনীতি, প্রশাসন-ব্যবস্থা, বাংলাদেশের রাজনীতি, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি, দক্ষিণ এশিয়ার সামরিক বাহিনী সম্পর্কে গবেষণা করেছেন। এসব ক্ষেত্রে সমগ্র দক্ষিণ এশিয়ায় তিনি বিশেষজ্ঞ হিসেবেও প্রখ্যাত। তার লিখিত গ্রন্থের সংখ্যা অর্ধশতাধিক। দেশ বিদেশের খ্যাতনামা সাময়িকীতে তার প্রকাশিত গবেষণামূলক প্রবন্ধের সংখ্যা শতাধিক। তার লিখিত গ্রন্থগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল : রাষ্ট্র বিজ্ঞানের কথা(১৯৬৬) ; মধ্যযুগের রাষ্ট্র চিন্তা (১৯৪৫) ; তুলানামূলক রাজনীতি: রাজনৈতিক বিশ্লেষণ (১৯৮২) ; বাংলাদেশে গণতন্ত্র সংকট (১৯৯২) ; সমাজ ও রাজনীতি (১৯৯৩) ; গণতন্ত্রের ভবিষৎ ( ১৯৯৪) ; শান্তি চুক্তি ও অন্যান্য প্রবন্ধ (১৯৯৮) ; আঞ্চলিক সহযোগিতা, জাতীয় নিরাপত্তা (১৯৯৯) ; ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও অন্যান্য প্রবন্ধ (২০০০)। এছাড়াও ইংরেজিতে অনেক মূল্যবান গ্রন্থ রচনা করেছেন তিনি।

২০২০ সালের ১৭ জুলাই মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণজনিত কারণে ঢাকার ল্যাব এইড হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন।

রাষ্ট্রবিজ্ঞান আর এমাজউদ্দীন যেন প্রায় কাছাকাছি:

রাজনীতি,রাষ্ট্রবিজ্ঞান, সমাজ, শিক্ষা ও প্রশাসন নিয়ে প্রফেসর এমাজউদ্দীন আহমদের মতো সুচিন্তক এ দেশে আর জন্মাবে কি-না, সেটা একেবারে ভবিষ্যত। রাষ্ট্রবিজ্ঞান আর এমাজউদ্দীন আহমদ যেন প্রায় কাছাকাছি শব্দ। রাজনীতির লেখা মানে এমাজউদ্দীন আহমদ। কাউকে আহত না করে রাজনীতির গুছানো বক্তৃতা মানেও তিনি। রাজনীতির নানা কথা তিনি আর শোনাবেন না। লিখবেন না। গত বছর ১৭ জুলাই ২০২০ শুক্রবার ৮৭ বছর বয়সে আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন মহান আল্লাহর ডাকে সাড়া দিয়ে। আজ ১৭ জুলাই ২০২১ শনিবার তাহার প্রথম মৃত্যু বার্ষিক । মহান আল্লাহ তায়ালার দরবারে ফরিয়াদ করি মহান আল্লাহ যেন আমার অভিভাবক বাবা সমতুল্য স্যারকে বিনা হিসেবে জান্নাত বাসি করেন আমিন । তিনি আমাকে তাঁহার আপন ছেলেদের মতো করে আমাকে ও ছেলে বলে সম্বোধন করে ডাকতেন। স্যারের অকৃত্রিম স্নেহ আমি পেয়েছি। প্রফেসর ডক্টর এমাজউদ্দীন আহমদ এই দেশ ও জাতিকে আরো অনেক কিছু দেওয়ার মতো ছিল তাঁর মধ্যে। এবং আমরাও তাঁর কাছ থেকে অনেক কিছু শিকার জানার বাকি রয়েছে, তাঁর মৃত্যুতে সেই অপূরণীয় ক্ষতি রয়ে গেছে ।

ডক্টর. এমাউদ্দীন আহমদ অত্যন্ত বিনয়ী একজন মানুষ ছিলেন। তিনি ছিলেন সমগ্র জাতির অভিভাবক ছিলেন । তার চলে যাওয়ায় সকলেই বাকরুদ্ধ। তার চলে যাওয়ায় দেশ ও জাতি একজন পরীক্ষিত, মেধাবী, স্পষ্টবাদী দেশপ্রেমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞানীকে হারালো। তার শুন্যতা পুরন হওয়ার নয়। এমাজউদ্দিন আহমদের মৃত্যু একটি নক্ষত্রের পতন। দেশ ও মানুষের মঙ্গল আকাঙ্ক্ষায় নিমগ্ন হয়েছে ডক্টর. এমাউদ্দীন আহমদের তার চিন্তা ও কর্মধারা। মত ও পথের ভিন্নতা আড়াল করেনি মানবিকতা ও ন্যায়ের পথ। আলোকিত মানুষ ছিলেন তিনি। ‘সবার সঙ্গে মিত্রতা, নয় কারও প্রতি শত্রুতা’- এই ছিল তার কর্মধারা। জাতির প্রয়োজনে উদ্যোগ ও উদ্যমে অগ্রসর হয়েছেন স্বকীয় কর্মধারায়, সংযত-সীমিত থেকেছেন নিজ পরিসরে।

রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক হওয়ার সুবাদে গণতন্ত্র, সুশাসন, সমাজ, সংস্কৃতি ও সংকটের কথা বলেছেন। এমাজউদ্দিন আহমেদ। এটি কোনো দলীয় অবয়বে বিচার করা যায় না। এটি ছিল তার দেশপ্রেম, আদর্শ ও নীতিবোধের সাহসী প্রকাশ।

ডক্টর. এমাজউদ্দিন আহমদ বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রশ্নে আপোষহীন ছিলেন। তিনি উদার-আধুনিক রাষ্ট্র গঠনের স্বপ্ন দেখেছেন আজীবন। সমাজের বিভক্তি দূর করতে না পারলে বাংলাদেশ রাষ্ট্র নানা দিক থেকে সমস্যায় পড়বে বলে মনে করতেন তিনি। শিক্ষা এবং রাজনৈতিক অঙ্গনে অধ্যাপক সমঝোতা প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ তাকে নন্দিত পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছিল। তিনি সাধারণভাবে শ্রদ্ধা এবং ভালোবাসার পাত্রে পরিণত হয়েছিলেন।

লেখকঃ নির্বাহী সম্পাদক দৈনিক আপন আলো | সদস্য ডিইউজে | প্রকাশকঃ বাংলাদেশ জ্ঞান সৃজনশীল প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান |

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম