1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
সরকারের কথা ও কাজে কতটা মিল আছে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা | দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ০৫:৩৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
চৌদ্দগ্রামের কাশিনগরে ভূমিহীনদের মাঝে ১১টি ঘর হস্তান্তর খুটাখালীর বৃহত্তর ৬ নং ওয়ার্ডে এবার মেম্বার প্রার্থী হচ্ছেন শাহাব উদ্দীন আরমান নোয়াখালীর ঐতিহ্য নোয়াখালী টাউনহলের আধুনিকীকরনের জোর দাবী জেলার বাসিন্দাদের ঝিনাইদহে দু’পক্ষের সংঘর্ষে ১ জন নিহত, আহত-৫ নাঙ্গলকোটের কাকৈরতলা খন্দকার বাড়ির সামনের রাস্তায় জলাবদ্ধতা, চরম দুর্ভুগে জনজীবন ঘরে ঘরে জ্বর সর্দির রোগি, করোনা টেস্টে অনিহা চরম কষ্টে শ্রমজীবী ও নিম্ন আয়ের মানুষ তিনদিনের টানাবৃষ্টিতে শরণখোলার ১৩ হাজার পরিবার পানিবন্দি শিক্ষকতা পেশার সুযোগ-সুবিধা বাড়ানো জরুরি ধর্মপাশায় অগ্নিকান্ডে আড়াই লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি গহিরায় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত ইউনিয়ন ভিক্তিক টিকা প্রদানে উৎসাহিত করণ সভা

সরকারের কথা ও কাজে কতটা মিল আছে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা

__ মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার ___
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৪ জুলাই, ২০২১
  • ২৮ বার

তথ্যপ্রযুক্তি আইন না মানলে সংবাদ সম্প্রচারকারী সংস্থার বিরুদ্ধে কোনো কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া যাবে না বলে শুক্রবার কেরালা হাইকোর্ট নির্দেশনা দিয়েছেন। নিউজ ব্রডকাস্টার অ্যাসোসিয়েশনের (এনবিএ) করা মামলার পরিপ্রেক্ষিতে আদালত এ রায় দিয়েছেন। ভারতের নিউজ ব্রডকাস্টার অ্যাসোসিয়েশন দেশটির তথ্যপ্রযুক্তি আইনকে গণমাধ্যমের বাক্‌স্বাধীনতা ও মতপ্রকাশের অধিকার হরণকারী হিসেবে অভিহিত করেছে।

এ মামলার বাদী–বিবাদী ও প্রেক্ষাপট ভারতীয় হলেও পৃথিবীর সব দেশের সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতার জন্য সমানভাবে প্রযোজ্য। বিশেষ করে যেসব দেশে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা হরণকারী নানা কালাকানুন জারি আছে। উল্লেখ করা প্রয়োজন যে বাংলাদেশে ২০১৮ সালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নামে যে আইনটি জারি করা হয়েছে, তা ভারতের তথ্যপ্রযুক্তি আইনের চেয়েও বিপজ্জনক। ভারতে মোদি সরকার তথ্যপ্রযুক্তি আইন সংশোধন করলেও এর অধীনে কোনো সাংবাদিকের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে পারেনি। কিন্তু বাংলাদেশে গত আড়াই বছরে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করে অনেক সাংবাদিককে কারাগারে নিক্ষেপ করা হয়েছে।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক আর্টিকেল ১৯-এর তথ্য অনুযায়ী, ২০২০ সালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ১৯৮টি মামলায় ৪৫৭ জনকে বিচারের আওতায় আনা ও গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এই ৪৫৭ জনের মধ্যে ৭৫ জন সাংবাদিক। এমনকি করোনাকালেও অনেক সাংবাদিককে এ আইনে মামলা দিয়ে হয়রানি ও গ্রেপ্তার করা হচ্ছে।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটি প্রণয়নের সময়ই সাংবাদিক সমাজ প্রতিবাদ জানিয়েছিল। তখন সরকারের মন্ত্রীরা আইনটি সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হবে না বলে প্রতিশ্রুতি দিলেও তা রক্ষা করা হয়নি। বরং আমরা উদ্বেগের সঙ্গে দেখলাম ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীরা যথেচ্ছভাবে আইনটির অপব্যবহার করেছেন, যার প্রকৃষ্ট উদাহরণ সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম ওরফে কাজল। ১০ মাস পর তিনি জামিন পেয়েছেন। কিন্তু লেখক মুশতাক আহমেদ জামিন পাননি। অসুস্থ অবস্থায় কারাগারেই তিনি মারা গেছেন।

সে সময় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রতিবাদ হলে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এটি পর্যালোচনা করা হবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। কিন্তু গত তিন মাসেও সরকারের পক্ষ থেকে আইনটি সংশোধন বা পর্যালোচনা করার কোনো উদ্যোগ না নেওয়া অত্যন্ত উদ্বেগজনক।

সরকারের নীতিনির্ধারকেরা প্রায়ই বলে থাকেন দেশে অবাধ তথ্যপ্রবাহ আছে। কিন্তু বিভিন্ন সময় সরকারের নেওয়া পদক্ষেপগুলো কেবল স্বাধীন সাংবাদিকতার অন্তরায় নয়, তাদের কণ্ঠরোধের শামিল। সম্প্রতি ঢাকার সিভিল সার্জন প্রজ্ঞাপন জারি করে বলেছেন, তাঁর অধীন কোনো হাসপাতাল বা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সাংবাদিকদের কোনো তথ্য দিতে পারবে না। করোনাকালে যখন মানুষ এর সংক্রমণ ও গতিবিধি সম্পর্কে জানতে উদ্‌গ্রীব, তখন এ ধরনের নিষেধাজ্ঞা কিসের আলামত? এ ঔদ্ধত্য তিনি কোথায় পেলেন? একজন সিভিল সার্জন সরকারের নীতিনির্ধারণ করেন না। তাঁর কাজ হলো সরকার যে নীতি নেবে, সেটি বাস্তবায়ন করা। আমাদের দাবি, ঢাকা সিভিল সার্জনের প্রজ্ঞাপন অবিলম্বে প্রত্যাহার করা হোক।

দেশে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা আছে—এ আপ্তবাক্য মুখে আওড়ালেই সংবাদমাধ্যম স্বাধীন হয়ে যায় না। সরকারকে কাজ দিয়েই তা প্রমাণ করতে হবে। আমাদের মন্ত্রীরা যখন সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়ে জোর আওয়াজ তুলছেন, তখন সাংবাদিকদের স্বাধীনতা রক্ষার কাজে নিয়োজিত আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর জরিপ কী বলছে, তা–ও তাঁরা একবার পরখ করে দেখতে পারেন।

আইনমন্ত্রী যে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন পর্যালোচনার কথা বলেছিলেন, তার অগ্রগতিও সাংবাদিক সমাজ জানতে চায়। সরকারের কথা ও কাজে কতটা মিল আছে?

লেখকঃ বিশেষ প্রতিবেদক শ্যামল বাংলা ডট নেট | সদস্য ডিইউজে | প্রকাশকঃ বাংলাদেশ জ্ঞান সৃজনশীল প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান |

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম