1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
করোনায় বেঁচে থাকবার ভাবনা এবং স্বাস্থ্য কার্ড - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:৪৬ অপরাহ্ন

করোনায় বেঁচে থাকবার ভাবনা এবং স্বাস্থ্য কার্ড

____ মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার ____
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১
  • ৫৪ বার

শিরোনামে মনে হতে পারে জীবনে বেঁচে থাকার কথা বলছি,। আসলে জীবন তো এমন একটি বিষয় যে যখন জন্ম নিয়েছি তখন থেকেই মৃত্যুর দিকে এগুচ্ছি। কখন শেষ ডাক আসবে তা আসলে অনিশ্চিত ।অতীতের মতো বর্তমান এবং অনন্তকাল এই চলে যাওয়া এবং আসার ধারা হয়ত চলবে। আমি বা অন্য যে কেউ চাইলেই মৃত্যুর অমোঘ ডাক থেকে নিস্তার পাবার কোন সুযোগ নেই। মৃত্যুর হীম শীতল বাস্তবতায় সমর্পিত হতেই হবে । তাই জীবনে বেঁচে থাকার প্রাণান্ত আ্কুতি নিয়ে এ লেখা নয়। প্রশ্ন হচ্ছে বেঁচে থেকে মরে যাওয়া মরে গিয়ে বেঁচে যাওয়া । অর্থনীতি তত্ত্বতর্ক কিছুই করার প্রয়োজন নেই। সোজা কথায় বলা যায়, কাজ না থাকলে বেঁচে থাকার কোন সুযোগ নেই ।কারণ বাঁচতে টাকা লাগে। অন্য প্রবাদে বলা আছে,বসে খেলে রাজার গোলায়ও টান পরে। আমরা এখন কোথায় অাছি? ব্যাপারটা যে শুধু আমাদের তা তো নয়- গোটা বিশ্ব জুড়েই এক মহাসংকটকাল। সাধারণভাবে তাদের সাথে আমাদের পার্থক্য এই যে,। অর্থনৈতিকভাবে উন্নত বলে এখনো পরিচিত দেশগুলোতে কাউকে অর্থনৈতিকভাকে দরিদ্র থাকতে হলে সিদ্ধান্ত নিতে হয়। কারণ রাষ্ট্র তাদের অর্থনৈতিক দায়িত্ব পালন করে। এ কারণে তারা আমাদের মতো অর্থনৈতিকভাবে অনুন্নত দেশগুলো থেকে অভিবাশী নেয় কাজ করাতে। সে যাই হোক, আমাদের অবস্থা তো এটাই যে আমরা কাজ করি খাই। দেশের একটি বড় অংশ যারা দিন আনে দিন খায়।

করোনা বিশেষকরে ভারতীয় করোনা ছড়িয়ে পরার পরিস্থিতি এখন মারাত্মক আকার ধারণ করেছে । প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, বিশ্বের ১১১টি দেশে এটি ভয়ারহ রূপ নিয়েছে। কোথাও কোথাও এখন করোনার চতুর্থ ঠেউ চলছে । আমাদের দেশে তৃতীয় পর্যায়ের চলছে বলে বলা হচ্ছে । সুতরাং শেষ পরিণতি কোথায় গিয়ে দাড়াবে বোধকরি সেটি এখনো ভাববার মত অবস্থাতেই আসেনি। একটি সচল কার্যকর বিশ্ব এখন কার্যত অচল । নিরলস গবেষণা অব্যাহত রয়েছে । কোরআনের ভাষায় , মহামারি যেহেতু আল্লার বিশেষ পরীক্ষা। তাই দোয়া মেনাজাত এবং তওবার কোন বিকল্প নেই । সে কথা বাদ দিলেও গত কদিনে একটি ইতিবাচক খবর বেড়িয়েছে । মনে করা হচ্ছে ,ভ্যাকসিনের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব । গবেষণায় বলা হচ্ছে ,যারা ভ্যাকসিন নিয়েছেন তারা কম আক্রান্ত হচ্ছেন। সিঙ্গাপুরের এক গবেষণায় বলা হয়েছে, এটি আসলে একটি ব্যকটেরিয়া। চীন আগে থেকেই এসব জানে ।যাইহোক, এসব বিষয় চলছে অব্যাহত থাকবে । একসময় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ভূমিকা নিয়ে যে আশাবাদ করা হোত তারাই এখন অর্থ নৈতিক দৈণ্যদশায় রয়েছে । সে বিবেচনায় লড়াইটা প্রত্যেকের নিজস্ব। নাগরিকদের স্বাবলম্বী করতে না পারলে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন কোনভাবেই সম্ভব নয় । এজন্য কাজের কোন বিকল্প নেই ।বিদ্যমান পরিস্থিতিতে কিভাবে বিশ্বকে কর্মমুখী করা যায় সে ভাবনাকে সক্রীয় বিবেচনায় নেয়া জরুরি। একটি রিপোর্টে দেখলাম কেউ কেউ ভাবছেন স্বাস্থ্য কার্ড চালু করা নিয়ে। তারা বলছেন ,যারা ভ্যাকসিন নিয়েছেন তাদের এই কার্ডের আওতায় নিয়ে কিভাবে স্বাস্থ্য কার্ড চালুকরা যায় সেটি কার্যকর বিবেচনায় নেয়া হচ্ছে ।নিঃসন্দেহে এটি একটি ভাল উদ্যোগ এবং যৌক্তিক ভাবনা। সাধারণভাবে যেহেতু স্বাস্থ্য বিধি মানাকেই গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে তাই ভ্যাকসিন সম্বলিত স্বাস্থ্য কার্ড ধারীদের কাজে আসতে বারণ করার পিছনে কোন যুক্তি নেই । ঢালাও লকডাউনের পরিবর্তে স্বাস্থ্য কার্ড ইস্যুকরে তার যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত করলে হয়ত বিদ্যমান সংকটের একটা আপত সমাধান খুঁজে পাওয়া যেতেপারে।

আমাদের বাংলাদেশের বহুমানুষ ভ্যাকসিন নিয়েছেন এবং নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। আইডি কার্ডের মত সঠিকভাবে জাতীয় পরিচিতি নম্বর সম্বলিত কার্ড চালুকরে স্বাস্থ্য বিধি মেনে দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং অফিস চালু করা যায় কিনা সে ভাবনায় দৃষ্টি দেবার সময় এসে গেছে।

‘করোনার তাণ্ডব শেষ হবেই একদিন। আগেও এমন তাণ্ডব চলেছে। যুগে যুগে মহামারি বহু এসেছে। মানুষ তা মোকাবিলা করে ফের ঘুরে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু এবারের পরিস্থিতি একেবারেই ভিন্ন। পরিমার্জিত পৃথিবীতে অসৎ মানুষ ধ্বংস হয়ে যাবে।’

করোনা মহামারি নতুন নতুন চ্যালেঞ্জ সামনে নিয়ে আসছে। মানুষ মরছে। এটি প্রধানতম সমস্যা হিসেবে দেখা হচ্ছে। কিন্তু অদৃশ্য এমন কিছু সমস্যা হাজির হবে করোনা পরবর্তী সময়ে, যা মানুষ হয়তো ভাবতে পারছে না। সাতশ কোটি মানুষের মধ্যে অল্পসংখ্যক মানুষ মারা যাবে হয়তো। এই মৃত্যু গাণিতিক হারে ঘটছে। কিন্তু অর্থনৈতিক ক্ষতি হচ্ছে জ্যামিতিক হারে।’
অর্থনীতির চ্যালেঞ্জ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘হয়তো তিন কি ছয় মাস পর পৃথিবী নতুন করে চলবে। এই চলা আগের মতো হবে না। যারা এতদিন পৃথিবীকে বিষিয়ে তুলেছে, মানুষের ক্ষতি করেছে, পৃথিবীর ক্ষতি করেছে তারা ধ্বংস হয়ে যাবে। আমি একেবারে নিষ্ঠুরভাবে বলছি। যেমন- যারা ব্যাংক ঋণখেলাপি আছেন, ব্যাংকিং ব্যবস্থা স্বাভাবিক হলে তাদের বাদ দিয়ে কার্যক্রম শুরু করতে হবে। আবার যেমন, জলাশয় বা ভূমিদস্যু যারা, তারাও আর টিকতে পারবে না। অসৎ, দুর্নীতিবাজরা পরিত্যাজ্য হবেই। রাষ্ট্র, সমাজ চলবে ভালো মানুষ দ্বারা। অন্যরা মিথ্যুক প্রমাণিত হবেন এবং এটিই করোনার বিশেষ শিক্ষা বলে মনে করি।’
তিনি বলেন, ‘আগামী বিশ্ব হবে দক্ষদের। দুর্বলরা হারিয়ে যাবে নির্মমভাবে। এটি বাংলাদেশ এবং বিশ্বের জন্য বিশেষ বার্তা। প্রযুক্তিতে হয়তো আরও উৎকর্ষ সাধিত হবে। কিন্তু মানুষের বেঁচে থাকার জন্য উৎপাদনে আরও উন্নয়ন ঘটবে এবং ঘটাতে হবে। বিশেষ করে খাদ্য উৎপাদন এবং খাদ্য নিরাপত্তায় যারা বিশেষ দক্ষতার পরিচয় দেখাতে পারবে, তারাই বিশ্বকে নেতৃত্ব দেবে। এটি যারা দ্রুত বুঝতে পারবে, তারাই প্রস্তুতি নিতে থাকবে। মনে রাখতে হবে করোনায় মানুষ বেশি মরবে না। যদি দুর্ভিক্ষ দেখা দেয়, তখন মৃত্যুর মিছিল আর ঠেকানো যাবে না।’

লেখকঃ বিশেষ প্রতিবেদক শ্যামল বাংলা ডট নেট | সাবেক কাউন্সিলরঃ বিএফইউজে-বাংলাদেশ | ও সদস্য ডিইউজে |

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম