1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
খুলল শিল্পকারখানা চাপে শ্রমিকরা __ দ্রুত শ্রমিকদের টিকা দিতে হবে - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:২২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:

খুলল শিল্পকারখানা চাপে শ্রমিকরা __ দ্রুত শ্রমিকদের টিকা দিতে হবে

____ মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার ___
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১
  • ৪৬ বার

দেশের সব শিল্প ও কলকারখানায় কর্মরত শ্রমিক-কর্মচারীদের শতভাগ টিকা প্রদানের আওতায় নিয়ে আসার আহ্বান। শিল্প ও কলকারখানার শ্রমিকদের যাতায়াতের জন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে আন্তজেলা পরিবহন চালু করতে হবে। হেঁটে শ্রমিকদের আসার দরকার নেই। কিন্তু যেভাবে শ্রমিকরা ঢাকায় আসছেন, তাতে ক্ষতি বাড়বে।

এখন পরিবহন খুলে দেওয়া উচিত। প্রয়োজনে শ্রমিকদের ঢাকায় এনে আবার লকডাউন দিতে পারে সরকার। রপ্তানি খাতের পর এবার সারা দেশের উৎপাদনমুখী সব ধরনের স্থানীয় শিল্প ও কলকারখানা খুলে দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানাই।শিল্প ও কলকারখানা চলাকালীন ব্যাংকিং সেবার প্রয়োজনীয়তা অনুধাবন করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সব ব্যাংকিং সেবা সপ্তাহে পাঁচ দিন চালু রাখতে হবে। এ ছাড়া ১ আগস্ট থেকে রপ্তানিমুখী সব শিল্প ও কলকারখানা বিধিনিষেধের আওতাবহির্ভূত রাখার সিদ্ধান্তে সরকারকে স্বাগত জানাই।
কভিডজনিত বিধিনিষেধের আওতায় সব ধরনের শিল্পকারখানা বন্ধ রাখায় অর্থনৈতিক কার্যক্রমের প্রাণশক্তি উৎপাদন কার্যক্রম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

ফলে সাপ্লাই চেন (সরবরাহ ব্যবস্থা) সম্পূর্ণভাবে বিঘিœত হওয়ার উপক্রম। এতে উৎপাদন থেকে ভোক্তা পর্যন্ত প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে জড়িত সবাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আগামীতে পণ্যসামগ্রী সঠিকভাবে সরবরাহ ও বাজারজাত না হলে পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি পাবে। এতে স্বল্পআয়ের ক্রেতারা ভোগান্তির শিকার হবেন।
পাশাপাশি রপ্তানি খাতের উৎপাদন ব্যবস্থা বন্ধ থাকলে সময় মতো পরবর্তী রপ্তানি অর্ডার অনুযায়ী সাপ্লাই দেওয়া সম্ভব হবে না। এতে রপ্তানি অর্ডার বাতিল হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

কভিড পরিস্থিতিতে জীবন রক্ষাকে অবশ্যই অগ্রাধিকার দিতে হবে। এ প্রেক্ষাপটে শিল্পকারখানাকে বিধিনিষেধের আওতার বাইরে রেখে উৎপাদন প্রক্রিয়াকে সচল রাখতে হবে। ক্ষুদ্র ও ছোট কারখানাসমূহ বন্ধ রাখায় উদ্যোক্তাগণ আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। কারখানাসমূহ পুনরায় চালু রাখা অসম্ভব হয়ে পড়তে পারে।

কাজে না এলে চাকরি যাবে না

তৈরি পোশাকশিল্প কারখানার যেসব শ্রমিক লকডাউন ও ঈদের ছুটিতে বাড়ি গেছেন, তারা আগামী ৫ আগস্টের মধ্যে কাজে না এলে তাদের চাকরি যাবে না বলে জানিয়েছেন বিজিএমইএ সভাপতি মো. ফারুক হাসান। সরকার ইতিমধ্যে শনিবার রাত (গতকাল) থেকে রবিবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত সব ধরনের গণপরিবহন চালু রাখছে। কারখানার আশপাশে অবস্থানরত শ্রমিকদের নিয়ে উৎপাদন কার্যক্রম পরিচালনার জন্য মালিকদের প্রতি আহ্বান জানাই। মহামারী করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে চলমান লকডাউন পুরোপুরি প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত গ্রামে অবস্থানরত কোনো পোশাক শ্রমিক-কর্মচারী নিজ নিজ কারখানায় কাজে যোগ দিতে না পারলেও তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে না বলে পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক সমিতি- বিজিএমইএ সভাপতি মো. ফারুক হাসান গতকাল জানিয়েছেন । এদিকে ১ আগস্ট রবিবার থেকে কারখানা খুলে দেওয়ার খবরে অনেক শ্রমিক কর্মস্থলে ফেরার চেষ্টা করছেন। ফেরিতে এবং মহাসড়কে বিভিন্ন পয়েন্টে শহরমুখী শ্রমিকরা ভিড় করছেন। লকডাউনে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় শহরে ফিরতে বিড়ম্বনার মধ্যে পড়েছেন তারা। দেশের অর্থনীতির স্বার্থে সরকার শিল্প কলকারখানার মালিকদের অনুরোধে ১ আগস্ট থেকে কারখানা খোলার অনুমতি দিয়েছে। অন্যদিকে করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে বিজিএমইএর সব সদস্যকে চিঠি দিয়ে বলা হয়েছে, আগের মতোই যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে কারখানায় উৎপাদন কর্মকান্ড চালাবেন।

লেখকঃ নির্বাহী সম্পাদক দৈনিক আপন আলো | সাবেক কাউন্সিলরঃ বিএফইউজে-বাংলাদেশ |ও _সদস্য ডিইউজে |

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম