1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
সম্পত্তি রক্ষা ও নিরাপত্তার দাবিতে ভুক্তভোগী পরিবারের সংবাদ সম্মেলন - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৪৫ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
গুইমারাতে ২ দিনব্যাপী বাল্যবিবাহ নিরোধ প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত চট্টগ্রামে সাংবাদিকের উপর সন্ত্রাসী হামলা সাবেক অর্থমন্ত্রী এম. সাইফুর রহমান স্মরণে দোয়া মাহফিল সাতকানিয়ায় পরোয়ানাভুক্ত আসামিসহ ৭ আসামি গ্রেফতার সাতকানিয়ায় ১০ হাজার পিস ইয়াবাসহ ১ মাদকব্যবসায়ী গ্রেফতার কুমিল্লার মনোহরগন্জ দক্ষিণ ইসলামি যুব আন্দোলনের পরিচিতি সভা ও শপথ অনুষ্ঠান রাষ্ট্রের কোন সরকারই সমালোচনা পছন্দ করে না : জেবেল সাতকানিয়ায় আমিলাইষ ফুটবল ফুটসাল টুর্নামেন্ট এর ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত প্রজন্ম মীরসরাইয়ে উদ্যোগে ৩০ নারী উদ্যোক্তার মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ ঠাকুরগাঁওয়ে জামাইকে গাছে বেঁধে নির্যাতনের ঘটনায় শাশুড়ি আটক

সম্পত্তি রক্ষা ও নিরাপত্তার দাবিতে ভুক্তভোগী পরিবারের সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক :
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৫ আগস্ট, ২০২১
  • ২৪ বার

ভূমি দস্যুদের আগ্রাসনে মানসিক অবস্থা, সামাজিক হেয় প্রতিপন্নতা, সবলের হাতে দূর্বলের কথাঘাত, বৈধ সম্পত্তির বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে অবগত করে এবং নিজ পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) বিকাল ৩টায় চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব এস রহমান হলে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নগরির কোতোয়ালী থানাধীন পাথরঘাটা সতীশ বাবু লেইনের বাসিন্দা রত্না চক্রবর্তী।

লিখিত বক্তব্যে রত্না চক্রবর্তী বলেন- বর্ণিত সম্পত্তির আর.এস. মতে মালিক ছিলেন জীবন কৃষ্ণ চক্রবর্তী, পিতা- রাম কুমার চক্রবর্তী নামক ব্যক্তি। তৎ প্রমাণে ভাহার নামে আর এস খতিয়ান চূড়ান্তভাবে প্রচার আছে। উক্ত জীবন কৃষ্ণ চক্রবর্তী তাহার মৃত্যুর পূর্বে তাহার যাবতীয় সম্পত্তি বিগত ৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৯ সালে তাহার দুইপুত্র মোহন লাল চক্রবর্তী ও ধরণী ধর চক্রবর্তীকে উইল করে যান এবং উক্ত পুত্রদ্বয়কে জয়েন্ট এক্সিকিউটর নিযুক্ত করেন। পরবর্তীতে মোহন লাল চক্রবর্তীর এক পুত্র শ্যামল চক্রবর্তী প্রকাশ শ্যামল কুমার চক্রবর্তীকে ওয়ারিশ রেখে মারা যান। বর্ণিত মোহন লাল চক্রবর্তীর মৃত্যুতে তৎ পিতা ধরণী ধর চক্রবর্তী চট্টগ্রাম ডেলিগেট আদালতে বিগত ২৮ আগস্ট ১৯৬৮ সালে আদেশ মতে তৎ নামে লেটার অব এডমিনিষ্ট্রেশন প্রান্তিতে তপশীলে বর্ণিত সম্পত্তিসহ উইলে বর্ণিত অপরাপর সম্পত্তি শাষন, সংরক্ষণ করে আসিতে থাকেন।

পরবর্তীতে শ্যামল চক্রবর্তী স্থায়ী ভাবে ভারতে চলে গেলে তৎ স্বত্বাংশ কাকা ধরণী ধর চক্রবর্তী প্রাপ্ত হন। এমনি ভাবে ধরনী ধর চক্রবর্তী তপশীলোক্ত সম্পত্তিসহ অপরাপর সম্পত্তিতে মালিক স্বত্ববান থাকাবস্থায় স্ত্রী শান্তি চক্রবর্তী, ৩ পুত্র অমল চক্রবর্তী, মিলন চক্রবর্তী, উৎপল চক্রবর্তীকে ওয়ারিশ রেখে মারা যান। পরবর্তীতে শান্তি চক্রবর্তী উক্ত ৩ পুত্র ও ৩ কন্যাকে ওয়ারিশ রেখে মারা যান। তৎপর বর্ণিত মিলন চক্রবর্তী ও উৎপল চক্রবর্তী অবিবাহিত অবস্থায় ভ্রাতা অমল চক্রবর্তীকে ওয়ারিশ রেখে মারা যান।
এমনি ভাবে অমল চক্রবর্তী বর্ণিত অপরাপর সম্পত্তিতে এককভাবে স্বত্ববান হইয়া তাহার ভোগ দখলে থাকাবস্থায় স্ত্রী রত্না চক্রবর্তী ও কন্যা নিপা চক্রবর্তীকে ওয়ারিশ রেখে মারা যান। এমনি ভাবে রত্না চক্রবর্তী অত্র সম্পত্তিতে হিন্দু দায়ভাগ আইনের বিধান মতে এককভাবে স্বত্ববান হইয়ে তথায় ভোগ দখলে নিয়ত আছেন।

বর্তমানে ধরণীধর চক্রবর্তীর ৩ অবিবাহিত কন্যাকে দোকান ভাড়া হইতে রত্না চক্রবর্তী ভরন পোষণের খরচ চালালিয়ে আসিতেছেন।

তিনি আরো বলেন- ধরণীধর চক্রবর্তীর ও অবিবাহিত কন্যাকে তুমি দুস্যুগণ বিভ্রান্ত করে, ফুসলিয়ে, লোভের বশবর্তী করে ২০১৩ সালে আমাকে অস্বীকার করে একটি জাল দলিল সৃজন করেন এবং পরবর্তীতে ২০১৭ সালে দুটি জাল দলিল সৃজন করেন এবং ২০১৯ সালে আবার জাল দলিল দিয়ে ৩২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের যোগসাজসে বি.এস. খতিয়ান সৃজন না হওয়া সত্বেও ভূমি উন্নয়ন চুক্তি সম্পাদন করেন। যেখানে বি.এস. খতিয়ান ব্যতিত দান, হস্তান্তর, বিক্রি কোনটায় করা সম্ভব না। তাই যার বৈধৃতার ন্যূনতম ভিত্তি আইনের চোখে আছে বলে মনে হয় না। এই অবৈধ ভুমি উন্নয়ন দলিলকে পুঁজি করে ভূমি দুস্যগণ স্থানীয় প্রশাসন, আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে নিজেদের অধীনে নিয়েছে বলে প্রচার প্রচারণা অব্যাহত রাখাতে স্থানীয় উঠতি গুণ্ডা বাহিনী পূর্বেও আমাদের উপর হামলা করার পরিকল্পনা করে সদল বলে এসেছিল।

ভূমি দস্যুদের অন্যতম হলঃ ১) রিটু কান্তি দেব ২) শংকর চক্রবর্তী এবং ভূমি উন্নয়ন দলিলের স্বাক্ষী হিসাবে আছেন বাবু জহরলাল হাজারী, ৩২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর। কিন্তু পাড়ার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, লোকনাথ ব্রহ্মচারী সেবাশ্রম কার্যকরী কমিটি সতীশবাবু লেইন ইউনিটের যৌথ প্রচেষ্টায় পূর্বে তাদের রুখে দেয়া গেলেও গত ২২আগস্ট ২০২১ ইং রবিবার ভূমি দস্যুগণ পুনরায় তৎপর হয়ে উঠে এবং চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ৩২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর বাবু জহরলাল হাজারীর প্রচ্ছন্ন ইংগিতে ভূমি দস্যুদের পোষা ও ভাড়া করা পাড়ার উঠতি মাস্তানগণ হুমকী প্রদর্শণ পূর্বক পেশি শক্তির পূর্ণ ব্যবহার করে আমরা দুইজন অবলা নারীর উপর নির্মম অত্যাচার করিতে উদ্যত হয়।

একপর্যায়ে আমাদের ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলেও দেয়। লোকনাথ ব্রহ্মচারী সেবাশ্রম কার্যকরী কমিটি সতীশবাবু লেইন ইউনিটের নেতৃবৃন্দ, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এগিয়ে না এলে আমরা আজ আপনাদের সম্মুখে উপস্থিত হতে পারতাম না। এমনকি আর সম্পত্তিতে আদালত কর্তৃক ১৪৫ ধারা বলবৎ থাকার কারণে থানার নির্দেশ মান্য করে গতবার লোকনাথ বাবার জন্মোৎসব পালন থেকে আমরা বিরত থাকি। কিন্তু তারা ১৪৫ ধারা ভঙ্গ করে গেইটের দরজা ভেঙ্গে অত্র স্থানে প্রবেশ পূর্বক আদালতকে অবমাননা করে। যা আমাদের জন্য খুবই দূর্ভাগ্যজনক এবং উদ্বেগজনক।

বর্তমানে অত্র সম্পত্তির আমরা বৈধ উত্তরাধিকার হয়েও পেশি শক্তির কাছে খুবই অসহায় হয়ে পড়েছি।

আরো উল্লেখ্য যে, দুইটি অবৈধ দানপত্র নিয়ে ১ম যুগ্ম জেলা আদালতে ১৯৬/১৭ নং মামলা চলমান রয়েছে। এছাড়া নালিশী ভূমি নিয়ে অপর ১০৮/১৩ নং মামলা ও অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যার্পণ ট্রাইবুন্যাল ১১১৫/২০১২ এবং আপীল ট্রাইবুন্যালে চলমান ৪৩/১৭ নং মামলা চলমান আছে। এখানে আরো উল্লেখ্য যে, অত্র সম্পত্তি লোকনাথ ব্রহ্মচারী সেবাশ্রম কার্যকরী কমিটি সতীশ বাবু লেইন ইউনিট এর সাথে লোকনাথ ভবন নির্মাণকল্পে নোটারাইজড্ চুক্তিপত্র সম্পাদন করা আছে। উক্ত বিষয়ে স্হানীয় প্রশাসন সহ সরকারের উচ্চ পর্যায়ের সহযোগিতা কামনা করেন

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্হিত ছিলেন- মেয়ে নিপা চক্রবর্তী,উৎপল রক্ষিত সভাপতি বাংলাদেশ লোকনাথ সেবাশ্রম,সুজিত সরকার,দিপক পালিত,দিপকর দাশ।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম