1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
আফগানিস্তান ও বিশ্ব রাজনীতির ভবিষ্যৎ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৪৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নবীগঞ্জে মহিলালীগের উদ্যােগে প্রধানমন্ত্রীর ৭৫ তম জন্মদিনে কেক কাটলেন এমপি মিলাদ গাজী নবীগঞ্জ উপজেলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষ্যে ১৯ হাজার করোনা টিকা প্রদান শেখ হাসিনার জন্ম না হলে বাংলাদেশ উন্নয়নের মডেল হিসেবে স্বীকৃতি পেত না : নজরুল ইসলাম এমপি নবীগঞ্জে সুষ্টভাবে শারদীয় দুর্গাপুজা পালনে থানা পুলিশের বিশেষ আইন শৃংখলা সভা অনুষ্টিত মাগুরার শ্রীপুরে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের উদ্যোগে প্রধান মন্ত্রীর ৭৫তম জন্মদিন পালন প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা যুবলীগের খাবার বিতরণ ও দোয়া মাহফিল নাঙ্গলকোটের বাঙ্গড্ডা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রীর ৭৫তম জন্মদিন পালিত রাঙ্গুনিয়া কলেজে ছাত্রলীগের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালন চট্টগ্রাম চন্দনাইশে প্রধানমন্ত্রীর জন্ম দিবস উপলক্ষে যুবলীগের র‍্যালি চট্টগ্রাম চন্দনাইশে জ্বর ও নিউমোনিয়ার প্রাদুভার্ব

আফগানিস্তান ও বিশ্ব রাজনীতির ভবিষ্যৎ

এডভোকেট মতিউর রহমান আকন্দ, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট।
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১৯ বার

কোন মানুষই ভবিষ্যৎ দ্রষ্টা নন।কেবল আল্লাহই জানেন ভবিষ্যতে কোথায় কি ঘটবে।তাই আফগানিস্তানে ভবিষ্যতে কি ঘটবে তা কেউ বলতে পারবে না।যারা আমেরিকার পরাজয় , সৈন্য প্রত্যাহার ও তালেবানদের ক্ষমতায় ফিরে আসা এবং ইসলামী শক্তির উথ্যানে দিশেহারা হয়ে নানা ধরনের ভবিষযৎ বানী করছেন তার কোন ভিত্তি নেই।আফগানিস্তানের বর্তমান প্রেক্ষাপটকে বিভিন্ন ব্যক্তি
বিভিন্নভাবে মূল্যায়ন ও ব্যাখ্যা করছেন। অনেকে মানবাধিকার, নারী অধিকার, মিডিয়া ও রাষ্ট্র পরিচালনার বিষয়ে নানা সংশয়, আশংকা প্রকাশ করেছেন।বাংলাদেশের কতিপয় মিডিয়া সহ বিভিন্ন দেশের মিডিয়া চরম পন্থার উথ্যানের বিষয়ে আশংকা ব্যক্ত করেছেন।অনেকেই তালেবানরা ভারত, পাকিস্তান অভিযান শেষ করে বাংলাদেশে ঢোকার এবং বাংলাদেশের বৃহৎ ইসলামী দল তাদেরকে স্বাগত জানানোর কল্প কাহিনীও তৈরী করে ফেলেছেন । যে দলের প্রতি ইংগিত করা হয়েছে আমার জানামতে ঐ দলের এ ধরনের কোন কর্মসূচী নেই থাকার কোন সম্ভাবনাও নেই।
আফগানিস্তানে গত ২০ বছর যাবৎ যা ঘটেছে তা পৃথিবীর কোন্ সংবিধান, গনতন্ত্র ও মানবাধিকারের সংজ্ঞায় ঘটানো হয়েছে ? তালেবানরা বিশ্বের পরাশক্তির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিল।সে প্রতিরোধ যুদ্ধে তারা বিজয়ী হয়েছে।কেউ কেউ বলেছেন তালেবানদের স্বীকৃতি, সমর্থন দিলে নাকি চরম পন্থাকে উৎসাহিত করা হবে।যারা এ আশংকা করছেন তাদের উচিৎ চরম পন্থার সংজ্ঞা নির্ধারন করা।এটাও সুস্পষ্ট করতে হবে মানুষের অধিকার নিয়ে রাষ্ট্র বা বিদেশী শক্তি যদি ছিনিমিনি খেলে, অন্যায়ভাবে মানুষ হত্যা করে তাহলে সেটা কোন্ পন্থায় পড়বে।
কোন দেশে গনতান্ত্রিক ভাবে নির্বাচিত প্রেসিডেন্টকে উৎখাৎ করে ঐ দলের নেতা কর্মীদের গণহারে গ্রেফতার ও ফাঁসি দেয়া হয় সেটা কোন্ পন্থা হিসেবে ধরা হবে।
বাস্তবতা হলো আফগানিস্তানে বিশ্বের একক সুপার পাওয়ার আমেরিকার পরাজয় ঘটেছে।মার্কিন প্রেসিড্ন্ট জো বাইডেন এ পরাজয় স্বীকার করে নিয়েছেন।

তালেবানের কাছে মার্কিন সমর্থিত আফগান সরকারের পতনের পরে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন জাতির উদ্দেশে এক ভাষণে বলেছেন, ‘আমাদের সত্য স্বীকার করতে হবে। গত দুই দশকে আফগানিস্তানে বহু ভুল পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। ’ ১৬ আগষ্ট সোমবার হোয়াইট হাউসে তিনি এই ভাষণ দেন।
আফগানিস্তানে গত ২০ বছরে মার্কিন সামরিক উপস্থিতির সময় তার দেশ অসংখ্য ভুল করেছে।
আফগানিস্তানের বর্তমান পরিস্থিতির জন্য যে আমেরিকা দায়ী সে কথাও মেনে নেন জো বাইডেন। গত দুই দশকে আফগানিস্তানের ওপর মার্কিন দখলদারির ব্যাপারে অনুশোচনা প্রকাশ করে বাইডেন বলেন, ‘আর কিছুদিন আফগানিস্তানে সেনা মোতায়েন করে রাখলে সবকিছু ঠিক হয়ে যেত- এমন দাবি করে আমি আমেরিকার জনগণকে বিভ্রান্ত করতে চাই না। একই সঙ্গে আজ আমরা যে জায়গায় দাঁড়িয়ে আছি, তার এবং এখান থেকে কীভাবে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়া যাবে, তার দায়িত্ব নিতেও আমি পিছপা হব না। ’ মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আফগানিস্তানে বর্তমানে যে পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে সে জন্য আমি অত্যন্ত মর্মাহত। কিন্তু তাই বলে আফগানিস্তান থেকে সেনা সরিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নিয়ে অনুতপ্ত নই। ’ তিনি বলেন, ‘আরও বহুদিনও যদি সেনা মোতায়েন রাখা হতো এবং তারপর যেদিনই সেনা প্রত্যাহার করা হতো, সেদিনই আজকের পরিস্থিতি তৈরি হতো। ’ এ বক্তব্যের মাধ্যমে প্রকারান্তরে আফগানিস্তান যুদ্ধে মার্কিন বাহিনীর পরাজয়ের কথা স্বীকার করে নেন জো বাইডেন।

১৫ আগস্ট তালেবানরা আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে প্রবেশ করে এবং একই সময়ে প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি দেশ থেকে পালিয়ে যান। তার পালিয়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আফগান সরকারের পতন ঘটে।তালেবানরা কাবুলে প্রবেশের দিন আবেগ আপ্লুত হয়ে মহান আল্লাহকে সিজদা করেছেন, সে দৃশ্য বিশ্বের অগনিত মানুষকে উজ্জীবিত করেছে। তারা সাধারন ক্ষমা ঘোষনা করে এক অনন্য নজির স্হাপন করেছে। একমাত্র মক্কা বিজয়ের অনুসরন ও অনুকরনের মাধ্যমেই এ উদারতা প্রদর্শন সম্ভব।অন্ধভাবে কাউকে সমর্থন বা কারও বিরোধিতা কাম্য নয়।আমরা নিয়মতান্ত্রিক ও সাংবিধানিক ভাবে পরিবর্তনকে স্বাগত জানাই।
আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন যে সত্য উচ্চারন করেছেন এ জন্য তাকে ধন্যবাদ।যে যাই বলুন আফগানিস্তানের ঘটনা বিশ্ব রাজনীতি বিশেষ করে দক্ষিন পূর্ব এশিয়ার রাজনীতিতে পরিবর্তনের সূচনা করবে।আমরা চাই প্রতিটি দেশে শান্তি স্হিতিশীলতা প্রতিষ্ঠিত হোক। প্রতিটি দেশের নাগরিক নিরাপদ থাকুক।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম