1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
কবর নিয়ে রাজনীতি - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:০৫ অপরাহ্ন

কবর নিয়ে রাজনীতি

এডভোকেট মতিউর রহমান আকন্দ, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট।
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১৮ বার

কবর নিয়ে কবিতা লিখে পল্লী কবি জসিম উদ্দীন অমর হয়ে আছেন।অত্যন্ত করুনভাবে কবি তার কবিতায় আপনজন হারানোর একটি মর্মান্তিক চিত্র তুলে ধরেছেন যা যুগ যুগ ধরে মানুষের হৃদয়কে নাড়া দিবে।আমরা যে সময়টাতে স্কুলে পড়াশুনা করেছি ঐ সময়ে স্কুলগুলোতে আবৃত্তিসহ নানা সাংস্কৃতিক কার্যক্রম চলতো।,যেদিন আমাদের বাংলা টিচার ক্লাসে কবর কবিতা আবৃত্তি করেন সেদিন আমরা নির্বাক হয়ে অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে ছিলাম।তার ছন্দময় উচ্চারন,অংগভংগী আর চোখের পানি একাকার হয়ে এক সুকরুন দৃশ্যের অবতারনা করেছিল। এরপর একে একে ৪২ টি বছর পেরিয়ে গেছে কিন্তু কবর কবিতা আবৃত্তির সে দৃশ্য, সে অনুভূতি আমরা ভুলিনি।ইতিমধ্যে আমাদের অনেক বন্ধু কবরে চলে গেছেন। আজও আমাদের বন্ধুদের সাথে যখন দেখা হয় তখনও আমরা স্যারের আবৃত্তি স্মরন করে কবর কবিতার কতিপয় পংক্তি

উচ্চারন করি:
“এই খানে তোর দাদির কবর ডালিম-গাছের তলে,
তিরিশ বছর ভিজায়ে রেখেছি দুই নয়নের জলে।
এতটুকু তারে ঘরে এনেছিনু সোনার মতন মুখ,
পুতুলের বিয়ে ভেঙে গেল বলে কেঁদে ভাসাইত বুক।”

কবিতার এ পংক্তিগুলোতে জীবন সংগিনী হারানোর এক বেদনা ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। এর মাঝে যে আবেগ,গাঢ় বেদনা আর ভালোবাসার আকর্ষন এবং বিষাদ লুকিয়ে আছে তা আমাদেরকে গ্রামীন বাংলার মমতা ঘেরা পরিবেশে টেনে নিয়ে যেতো। এর মাধ্যমে এক অপরিসীম ভালোবাসার শক্তি আমাদেরকে করতো রোমাঞ্চিত।
কবর কবিতার শেষ স্তবকটি ছিল আরো মর্মস্পর্শী:
“ওই দূর বনে সন্ধ্যা নামিয়ে ঘন আবিরের রাগে,
অমনি করিয়া লুটায়ে পড়িতে বড় সাধ আজ জাগে।
মজিদ হইতে আযান হাঁকিছে বড় সকরুণ সুরে,
মোর জীবনের রোজকেয়ামত ভাবিতেছি কত দূরে।
জোড়হাত দাদু মোনাজাত কর, আয় খোদা! রহমান।
ভেস্ত নসিব করিও সকল মৃত্যু­ব্যথিত প্রাণ।”
কবর কবিতা আমাদেরকে নিয়ে যায় এক নীরব নিস্তব্ধ পুরীতে যেখানে আমাদের সবাইকে একদিন যেতে হবে। কবর নিয়ে অনেক দু:সহ কাহিনীর বর্ননা শুনেছি কিন্তু কবর নিয়ে রাজনীতি করতে শুনিনি বা দেখিনি।

কবরে কার লাশ আছে বা নেই এ নিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব যারা আছেন তারা যখন বিতর্কের সূচনা করেন তখন তাদের প্রতি আমাদের করুনা হয়।

রাজনীতিবিদগন মানুষের কল্যানের জন্য কাজ করেন।প্রতিটি রাজনৈতিক দলের নিজস্ব লক্ষ্য উদ্যেশ্য ও কর্মসূচী থাকে। লক্ষ্যে পৌঁছার জন্য থাকে কর্মকৌশল।নিজস্ব লক্ষ্য উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের জন্য তারা জনমত তৈরী করেন। জনগন কাদের রাজনৈতিক দর্শনে সাড়া দিবে তা সম্পূর্ন তাদের নিজস্ব পছন্দের বিষয়।আধুনিক গনতান্ত্রিক বিশ্বে মানুষের চিন্তা ও মত প্রকাশের অধিকারের নিশ্চয়তা দেওয়া হয়েছে।বাংলাদেশের সংবিধানে মানুষকে চিন্তার স্বাধীনতা দেয়া আছে।কাউকে হেয় প্রতিপন্ন করে তার সুনাম মর্যাদা বা সম্মান বিনষ্টের অধিকার কারোর নেই।
একটি দেশে বহু ইস্যু থাকে যা নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলো কাজ করতে পারেন। বাংলাদেশ এমন একটি দেশ যেখানে আইনের শাসন, ন্যায় বিচার, মানবাধিকার, বাকস্বাধীনতা,মিছিল সমাবেশের অধিকার সর্বোপরি জনগনের ভোটাধিকার বলে কিছু নেই।যে রাজনৈতিক প্রতিশ্রুতি দিয়ে ২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় এসেছে তা পরিপূর্নভাবে বাস্তবায়ন হয়নি। বাংলাদেশ আজ অর্থ পাচার, দুর্নীতি,গুম আর খুনের রাজ্যে পরিনত হয়েছে। গনমাধ্যমে খবর এসেছে ‘আওয়ামী লীগ নয় দেশ চালাচ্ছে আমলালীগ’। আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ পার্লামেন্টে বক্তব্য দেয়ার সময় বলেছেন এমপিদের হাতে কোন ক্ষমতা নেই।শরীকদের একজন সংসদ সদস্য বলেছেন দেশ চালাচ্ছে জগৎশেঠরা।
দেশের এই কঠিন মূহুর্তে হঠাৎ একটি বক্তব্য রাজনীতির মাঠে ছেড়ে দেয়া হলো চন্দ্রিমা উদ্যানের কবরে জিয়াউর রহমানের লাশ নেই। আবার বলা হলো জিয়াউর রহমান মুক্তিযুদ্ধ করেন নি। এরপর বলা হলো জিয়া পাকিস্তান সৈনিকদের লক্ষ্য করে কোন গুলি ছুড়েন নি।জিয়াউর রহমানের নিহত হবার ৪০ বছর পর বলা হচ্ছে ঐ কবরে জিয়ার লাশ নেই।জিয়াউর রহমান বাংলাদেশের রাজনীতিতে বহু দলীয় গনতন্ত্র ও শাসনতন্ত্রে বিসমিল্লাহ সহ সংবিধানে গুরুত্বপূর্ন ধারায় পরিবর্তন এনে দেশ শাসনে যে সততা স্বচ্ছতা ও সফলতার পরিচয় দিয়েছেন তা এদেশের জনগন কথনো ভুলবে না।জিয়ার কবরে তার লাশ নেই,বলে কি রাজনৈতিক অর্জন হাসিল করতে চায় ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগ তা আমাদের মতো সাধারন মানুষের বোঝার ক্ষমতা নেই।।তবে এতটুকু বুঝি দেশের মানুষের দু:খ দুর্দশা,ন্যায় বিচার-আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা ও করোনায় অর্থনৈতিক ভাবে বিধ্বস্ত বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের কাজকে পিছিয়ে রেখে কবর নিয়ে রাজনীতির নি:সন্দেহে একটা উদ্দেশ্য আছে। সে উদ্দেশ্য ভালো না খারাপ তা জনগনই ভালো বুঝতে পারছে ।সেটা আমার বলার প্রয়োজনও নেই। এধরনের বিতর্ক তৈরী করে কোন লাভ হবেনা। কবরে লাশ নেই বা আছে এটা কোন রাজনীতির বিষয় হতে পারে না।এ বিতর্কের অবতারনার মাধ্যমে প্রকারান্তরে এটাই বুঝানো হচ্ছে প্রকৃতপক্ষে বাংলাদেশের রাজনীতির কবর হয়ে গেছে।একসময় রাজনীতিবিদগন শ্রদ্ধা ও সম্মানের পাত্র ছিলেন। বর্তমান সরকার রাজনীতিবিদদের বিরুদ্ধে

মামলা দিয়ে পুলিশকে দিয়ে পিটিয়ে যেভাবে হেয় প্রতিপন্ন করছেন তা পৃথিবীর আর কোথাও হয়েছে বলে আমাদের জানা নেই।হায় আক্ষেপ বাংলাদেশের রাজনীতি আজ কবর পর্যন্ত পৌছেছে। একজন প্রবাসী কলামিষ্ট ব্যাঙ্গ করে বলেছেন -বিএনপি জামায়াতের গনতন্ত্র পুনরুদ্ধার প্রকল্প।

সবারই মনে রাখা দরকার প্রতিটি রাতের পর একটি করে সকাল হয়। যেদিন দেখবেন সকাল হচ্ছে অথচ বিছানা থেকে অনেকেই উঠছেন না তখন আর তার স্হান বিছানায় হয়না। আমরা তাকে কবরে রেখে আসি।
কবর কবিতা নিয়ে শুর করেছিলাম সর্ব শেষে বলতে চাই ; রাজনীতি কবিতা নয় বিজ্ঞানও নয়।কবিতায় থাকে প্রেম,ভালোবাসা,কল্পনা আবেগ আর স্বপ্ন।আর বিজ্ঞানে আছে যুক্তি। যুক্তি , কারন,বিশ্লেষন পর্যবেক্ষন ছাড়া বিজ্ঞানের অস্তিত্ব নেই। রাজনীতিবিদদের কবিতা ও বিজ্ঞানের শিক্ষা সামনে রাখা প্রয়োজন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম