1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
তালেবানের পাঞ্জশির চ্যালেঞ্জ, জয় আসবে তবে- দৈনিক শ্যামল বাংলা
বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:১০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নবীগঞ্জে মহিলালীগের উদ্যােগে প্রধানমন্ত্রীর ৭৫ তম জন্মদিনে কেক কাটলেন এমপি মিলাদ গাজী নবীগঞ্জ উপজেলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষ্যে ১৯ হাজার করোনা টিকা প্রদান শেখ হাসিনার জন্ম না হলে বাংলাদেশ উন্নয়নের মডেল হিসেবে স্বীকৃতি পেত না : নজরুল ইসলাম এমপি নবীগঞ্জে সুষ্টভাবে শারদীয় দুর্গাপুজা পালনে থানা পুলিশের বিশেষ আইন শৃংখলা সভা অনুষ্টিত মাগুরার শ্রীপুরে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের উদ্যোগে প্রধান মন্ত্রীর ৭৫তম জন্মদিন পালন প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা যুবলীগের খাবার বিতরণ ও দোয়া মাহফিল নাঙ্গলকোটের বাঙ্গড্ডা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রীর ৭৫তম জন্মদিন পালিত রাঙ্গুনিয়া কলেজে ছাত্রলীগের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালন চট্টগ্রাম চন্দনাইশে প্রধানমন্ত্রীর জন্ম দিবস উপলক্ষে যুবলীগের র‍্যালি চট্টগ্রাম চন্দনাইশে জ্বর ও নিউমোনিয়ার প্রাদুভার্ব

তালেবানের পাঞ্জশির চ্যালেঞ্জ, জয় আসবে তবে-

|| মাসুম খলিলী ||
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১৮ বার

আফগানিস্তানের পাঞ্জশির নিয়ে তালিবান সত্যিকারের চ্যালেঞ্জে পড়েছে বলে মনে হচ্ছে। পাঞ্জশিরের প্রতিরোধ মিলিশিয়া প্রধান আহমদ মাসুদ এবং সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট আমরুল্লাহ সালেহর বক্তব্য অনুসারে সেখানকার যোদ্ধারা এখনো তালিবান আক্রমণকে প্রতিহত করার খবর পাওয়া যাচ্ছে। তারা এমনও দাবি করছেন যে, কৌশলগত পশ্চাতপসারণ করে প্রতিরোধ বাহিনী তালেবানের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি করেছে। অন্য দিকে তালেবান সূত্রগুলো এক পর্যায়ে পাঞ্জশিরকে নিজেদের দখলে চলে আসার খবর দিলেও এখন মনে হচ্ছে বিভিন্ন স্থানে খন্ড যুদ্ধ চলছে এবং রক্তক্ষয় অব্যাহত রয়েছে।

আহমদ মাসুদ ও আমরুল্লাহ সালেহর টুইট বার্তায় যেসব তথ্য ও ফুটেজ দেয়া হচ্ছে তাতে স্পষ্টতই অতিরঞ্জন ও বিভ্রান্তি রয়েছে বলে মনে হয়। অন্য দিকে তালিবানের পক্ষ থেকে বা এর সমর্থকরা পাঞ্জশিরের যুদ্ধের ব্যাপারে আনুষ্ঠানিকভাবে স্পষ্ট কোন আপডেট দিচ্ছে না। তবে তালিবানের সরকার গঠন এক সপ্তাহ পিছিয়ে দেওয়ায় মনে হচ্ছে পাঞ্জশিরের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নিতে তালেবানের কিছুটা সময় লেগে যেতে পারে। তালেবান প্রধান হাইবাতুল্লাহ আখুনজাদা আফগানিস্তানের পুরো ভূমিতে তালেবান নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা ছাড়া সরকার গঠনের ঘোষণা দিতে চাইছেন না বলে আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

আহমদ মাসুদ ও তার সমর্থকদের টুইট বার্তাগুলো পাঠ করলে মনে হবে, প্রথম তালেবান সরকারের মতো তার দল তাজিক উজবেক ও হাজারা সমন্বিত পূরণো নর্দার্ণ এলায়েন্স জাতীয়তা জাগিয়ে তালিবান বিরোধি একটি ব্যাপকভিত্তিক প্রতিরোধ তৈরি করতে চাইছেন। যদিও আগের তালেবানরা পশতুন কেন্দ্রীক হলেও এখনকার তালেবানের নেতৃত্বে সব জাতিগোষ্ঠির গভীর প্রতিনিধিত্ব রয়েছে।

অবশ্য পাঞ্জশিরের যুদ্ধ জয় তালিবানের জন্য কঠিন হয়ে উঠলেও সেখানে চূড়ান্তভাবে তালেবানের বিজয় হবে বলে মনে হয়। যদিও এখানে যে প্রতিরোধ দানা বেধে উঠেছে এবং আহমদ মাসুদের সাথে আমরুল্লাহ সালেহ এবং সাবেক প্রতিরক্ষা মন্ত্রী বিসমিল্লাহ মোহাম্মদীর যোগসূত্র কিছুটা জটিল সংকেত দান করে। সেটি হলো বাইরের কোন শক্তি এখানকার প্রতিরোধ মিলিশিয়াদের ইন্ধন দিয়েছে। সেটি আমেরিকা না হলেও তার সহযোগি বড় কোন দেশ হতে পারে।

তবে আফগানিস্তানে এখন যে পরিস্থিতি তাতে বড় কোন শক্তি এখনই সেখানে গৃহযুদ্ধ বা অস্থিরতা তৈরি করতে চাইবে বলে মনে হয় না। ফলে শেষ পর্যন্ত গোটা আফগানিস্তানের উপর তালেবান নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠিত হয়ে তালিবানের সরকার গঠন হবার সম্ভাবনা রয়েছে। কোন কারণে সেটি না হলে এটি হতে পারে আফগানিস্তানে নতুন অস্থিরতার সুতিকাগার।

পাঞ্জশির উপত্যকা আফগানিস্তানের শেষ অবশিষ্ট জায়গা যেখানে তালেবানবিরোধী শক্তিগুলো প্রতিরোধ তৈরির জন্য একটি গেরিলা আন্দোলন গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ করে। আফগানিস্তানে তালেবানের দ্রুত ক্ষমতা দখলের পর পাঞ্জশির উপত্যকায় তালিবান বিরোধিরা প্রকৃত প্রতিরোধ গড়ে তুলতে চেষ্টা করছে।

রাজধানী কাবুল থেকে ১৫০ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে অবস্থিত এই অঞ্চলটি পদচ্যুত ভাইস প্রেসিডেন্ট আমরুল্লাহ সালেহ এবং সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী বিসমিল্লাহ মোহাম্মদীসহ ক্ষমতাচ্যুত সরকারের কিছু সিনিয়র সদস্যের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে মনে হয়। এই নেতারা শারিরীকভাবে পাঞ্জশিরে রয়েছেন কিনা তা নিশ্চিত নয় যদিও তারা টুইটারে তেমন বার্তা দিতে চেষ্টা করেন। ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি দেশ ছেড়ে পালানোর পর সালেহ নিজেকে তত্ত্বাবধায়ক রাষ্ট্রপতি ঘোষণা করেছেন।

সালেহ টুইটারে লিখেছেন, ‘আমি কখনই এবং কোন অবস্থাতেই তালেবান সন্ত্রাসীদের কাছে মাথা নত করব না। আমি আমার নায়ক সেনাপতি, কিংবদন্তি এবং গাইড আহমদ শাহ মাসুদের আত্মা এবং উত্তরাধিকারের সাথে কখনও বিশ্বাসঘাতকতা করব না।’

আফগানিস্তানের সামরিক ইতিহাসে পাঞ্জশির উপত্যকা বারবার একটি নির্ণায়ক ভূমিকা পালন করেছে। এর ভৌগোলিক অবস্থান এটিকে দেশের অন্যান্য অংশ থেকে প্রায় সম্পূর্ণভাবে বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে। এই অঞ্চলের একমাত্র অ্যাক্সেস পয়েন্ট হল পাঞ্জশির নদীর তৈরি একটি সরু পথ, যা সহজেই সামরিকভাবে প্রতিরক্ষা করা যায়।

প্রাকৃতিক প্রতিরক্ষার জন্য বিখ্যাত হিন্দু কুশ পর্বতমালায় আবদ্ধ এই অঞ্চলটি তালেবানের প্রথম সরকারের সময় নিয়ন্ত্রণে যায়নি। সোভিয়েতরা এটি জয় করতে পারেনি। তালেবানদের অধিকাংশই পশতুন হলেও এই উপত্যকার দেড় লাখ বাসিন্দার অধিকাংশ তাজিক নৃগোষ্ঠীর। উপত্যকাটি পান্নার জন্যও বিশেষভাবে পরিচিত, যা অতীতে ক্ষমতাসীনদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ আন্দোলনের অর্থায়নের জন্য ব্যবহৃত হয়েছিল। তালিবান ক্ষমতা দখলের আগে, পাঞ্জশির প্রদেশ কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আরো স্বায়ত্তশাসনের দাবি করেছিল।

এবারের আলোচনায় আহমদ মাসুদ কাবুল সরকারের ৩০ শতাংশ প্রতিনিধিত্ব¡ দাবি করে বলে জানা যায়। তালেবানরা তাদের প্রতিনিধিত্বের ব্যাপারে একমত হলেও তাদের দাবিকে যৌক্তিক মনে করেনি। পরে তালেবান আলোচক দলের একজন সিনিয়র সদস্যকে মাসুদ বাহিনী পেছন থেকে গুলি করে হত্যা করলে আর আলোচনা সামনে অগ্রসর হয়নি। এর পরই কার্যত দু’পক্ষের মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়।

২০০১ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত ন্যাটো সমর্থিত সরকারের আমলে পাঞ্জশির উপত্যকা ছিল দেশের সবচেয়ে নিরাপদ অঞ্চল। উপত্যকার ইতিহাস ঘনিষ্ঠভাবে যুক্ত হয়েছে আফগানিস্তানের সবচেয়ে বিখ্যাত তালেবান বিরোধী যোদ্ধা আহমদ শাহ মাসুদের সাথে, যিনি ২০০১ সালে তার হত্যাকাণ্ড পর্যন্ত উপত্যকায় তার ঘাঁটি থেকে তালেবানের বিরুদ্ধে সবচেয়ে শক্তিশালী প্রতিরোধের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।

১৯৫৩ সালে উপত্যকায় জন্মগ্রহণকারী, আহমদ শাহ ১৯৭৯ সালে নিজেকে ‘মাসুদ’ (ভাগ্যবান) নাম দিয়েছিলেন। পরে দেশের অন্যতম প্রভাবশালী মুজাহিদীন কমান্ডার হয়ে ওঠেন। ১৯৮৯ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রত্যাহারের পর, আফগানিস্তানে গৃহযুদ্ধ শুরু হয়, যাতে শেষ পর্যন্ত তালেবান জয়ী হয়। এ সময় মাসুদ এবং তার নর্দার্ণ এলায়েন্স পাঞ্জশির উপত্যকা ছাড়াও চীন ও তাজিকিস্তানের সীমানা পর্যন্ত প্রায় সমস্ত উত্তর -পূর্ব আফগানিস্তানকে নিয়ন্ত্রণ করতে সফল হয়। এইভাবে এই অঞ্চলটি তালেবানদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে থেকে যায়।

মাসুদ ছিলেন জমিয়তে ইসলামী প্রধান ও সাবেক প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক বুরহান উদ্দিন রাব্বানির দলের নেতা। তবে তিনি ইসলামের উদার ধারার সমর্থক হিসাবে পরিচিত ছিলেন। যদিও হিউম্যান রাইটস ওয়াচ গৃহযুদ্ধের সময় কাবুলের যুদ্ধে মাসুদের সৈন্যদের ব্যাপক মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য অভিযুক্ত করেছে। ২০০১ সালে আল-কায়েদার সন্দেহভাজন উগ্রপন্থীরা মাসুদকে হত্যা করে।

এখন আহমদ শাহ মাসুদের পুত্র আহমদ মাসুদ বলেছেন যে তিনি তার ‘পিতার পদাঙ্ক’ অনুসরণ করার আশা করছেন। চেহারা এবং অভ্যাসে তার বাবার সাথে ঘনিষ্ঠভাবে সাদৃশ্যপূর্ণ মাসুদ উপত্যকায় একটি মিলিশিয়া গঠন করে তার নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তিনি দাবি করেন যে, দেশের বিশেষ বাহিনীর প্রাক্তন সদস্য এবং আফগান সেনাবাহিনীর সৈন্যরা তার সাথে যোগ দিয়েছেন। সোশ্যাল মিডিয়ার ছবিতে দেখা যায়, ক্ষমতাচ্যুত ভাইস প্রেসিডেন্ট সালেহ মাসুদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করছেন এবং তারা দুজনই তালেবানদের মোকাবেলায় গেরিলা আন্দোলন সংগঠিত করছেন। মাসুদ তার মিলিশিয়াকে অস্ত্র ও গোলাবারুদ সরবরাহের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহ্বান জানান।

সম্প্রতি ওয়াশিংটন পোস্টে প্রকাশিত এক মতামত কলামে আহমদ মাসুদ বলেন, ‘আমেরিকা এখনও তার গণযোদ্ধাদের সমর্থন করে একটি বড় ঘাঁটি বানাতে পারে’ । তিনি আরো বলেন, ‘আমি আজ পাঞ্জশির উপত্যকা থেকে লিখছি, আমার বাবার পদাঙ্ক অনুসরণ করার জন্য আমি প্রস্তুত, মুজাহিদিন যোদ্ধাদের সাথে যারা আছেন তারা আবার তালেবানদের মোকাবেলা করতে প্রস্তুত।’

রাশিয়াও জোর দিয়ে বলেছিল যে, সালেহ এবং মাসুদের নেতৃত্বে পাঞ্জশির উপত্যকায় একটি প্রতিরোধ আন্দোলন গড়ে উঠছে। রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ বলেন, তালেবান আফগানিস্তানের পুরো ভূখন্ড নিয়ন্ত্রণ করে না।

তবে এটা স্পষ্ট নয় যে, এই নতুন তালেবান বিরোধী প্রতিরোধ আন্দোলন কতটা শক্তিশালী। ওয়াশিংটন ভিত্তিক উইলসন সেন্টারের দক্ষিণ এশিয়া বিশেষজ্ঞ মাইকেল কুগেলম্যান ডয়েস ভ্যালিকে বলেন, ‘কিন্তু যদি এই অঞ্চলে একটি সংগঠিত সামরিক প্রতিরোধ গড়েও ওঠে, তাহলে আমি মনে করি না যে এটি তালেবানদের বিরুদ্ধে যাবে। আর যদি তারা তা করে তবে তালেবানরা দ্রুত এবং সহজেই জয়লাভ করবে।’

তালেবানরা হয়তো কিছুটা রক্তক্ষয় হলেও পাঞ্জশির নিয়ন্ত্রণে নেবে। তালেবান সূত্রের সর্বশেষ বক্তব্য অনুসারে, এখন পাঞ্জশিরের প্রায় পুরো এলাকা তালেবানের দখলে চলে এসেছে। রাজধানীর পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত গভর্ণর হাউসে আহমদ মাসুদ ও প্রতিরোধ বাহিনীর সর্বশেষ অবস্থান রয়েছে। যুদ্ধে আহত মাসুদ আত্মসমর্পন করতে পারেন বলেও উল্লেখ করা হচ্ছে। এর আগে উপত্যকার দেড়শত ট্যাঙ্ক, ২৫০ হাউটজার ও বড় সংখ্যক ক্যানন/মেশিনগান তালেবানের দখল চলে গেছে। এ তথ্য ঠিক হলে আজ রোববারের মধ্যে পাঞ্জশির চূড়ান্তভাবে তালেবানের নিয়ন্ত্রণে চলে যেতে পারে।

তবে তালেবানের বিরুদ্ধে পাঞ্জশিরের প্রতিরোধ একটি বার্তা বহন করে। সেটি হলো তালেবানরা সব পক্ষকে সমন্বিত করে সুশাসন দিতে না পারলে তাদের বিরুদ্ধে সৃষ্ট ক্ষোভ পরে যে কোন সময় সংগঠিত প্রতিরোধে পরিণত হতে পারে। এটি আফগানিস্তানে বাইরের শক্তিকে হস্তক্ষেপের অবকাশ এনে দিতে পারে। যদিও আমেরিকান গভীর ক্ষমতা বলয়ের নীতি সম্ভবত এই সময়ে আফগনিস্তানে স্থিতি আনতে সহায়তা করা। চীন রাশিয়াও কোন অস্থিরতা চাইছে বলে মনে হয় না।
#

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম