1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
পাখিমারা বন্দুক দিয়েই পাক বাহিনীদের হামলা করি : বীর মুক্তিযোদ্ধা জোনাস ঢাকী - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৮:০৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
মোটরসাইকেল শোডাউনের মাধ্যমে আ.লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী হারুনুর রশিদ রঙ্গু’র পূজামন্ডপ পরিদর্শন মাগুরায় নির্বাচনী সহিংসতায় দু পক্ষের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ!! নিহত -৪ আহত -২০ লাকসামে রাজনীতির প্রতিহিংসায় গাছের সাথে শত্রুতা! রাউজানে সুষ্ঠ ও শান্তিপুর্ণ ভাবে সনাতনী ধর্মীয় অনুসারীদের শারদীয় দুর্গোৎসব সম্পন্ন নবীনগরে উপজেলা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) উদযাপন কুবির দত্ত হলে জুনিয়র ছাত্রলীগ কর্মীরা মারধর করে সিনয়রকে সাঈদ হাসান,কুবি রাউজানে সব ধর্মের মানুষ অসম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী-পূজা মণ্ডপ পরিদর্শনে এমপি ফজলে করিম নবীগঞ্জে শেখ রাসেল দিবস পালন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত আমিলাইষের পূজামণ্ডপে আলহাজ্ব মোজাম্মেল হক চৌধুরীর আর্থিক অনুদান ও কাপড় বিতরণ রিদওয়ান খালিদ চোধুরীর জন্মদিন আজ

পাখিমারা বন্দুক দিয়েই পাক বাহিনীদের হামলা করি : বীর মুক্তিযোদ্ধা জোনাস ঢাকী

একজন বীরের আত্মকথা

শ্যামল বাংলা
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ২৭ বার

১৯৭১। পরাধীনতার কবল থেকে মুক্ত এক লালসবুজের ভুখন্ড। এই বাংলাদেশ স্বাধীনতার পিছনে অনেক ইতিহাস। মুক্তির ইতিহাস। কিভাবে লাখ লাখ মানুষের প্রাণের বিনিময়ে স্বাধীনতা হয়েছে এ দেশ। আজ এমনই সব স্মৃতিময় গল্প উঠে এসেছে একজন সম্মুখ যোদ্ধার মুখে। তিনি বর্র্ণনা করেছেনে সেসময়ের সব বিভিষিকাময় স্মৃতি।

বীর মুক্তিযোদ্ধা জোনাস ঢাকী। ২৩ বছরের এক টগবগে যুবক। গ্রামের বাড়ি বরিশালের গৌরনদী। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক শ্রেণির প্রথম বর্ষের ছাত্র তখন। ন্যাশনাল ট্রিবিউনের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় উঠে এসেছে মুক্তির গল্প, মুক্তিযুদ্ধের গল্প।

তিনি বলেন, ৭১ এর ফেব্রুয়ারির দিকে যখন দেশে কিছু একটা হতে যাচ্ছে বুঝা যাচ্ছে। তখন থেকেই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস উত্তপ্ত। ক্যাম্পাসে পাক বাহিনী প্রবেশ করে এলোপাতাড়ি গোলাগুলি শুরু করে। তখন ছাত্ররা জীবন বাঁচাতে দিগি¦দিক ছোটাছুটি করছে। এক পর্যায়ে পরিস্থিতি শান্ত হলে অঘোষিতভাবে ক্যাম্পাস বন্ধ হয়ে যায়। ছাত্ররা যার যার বাড়ি চলে যায়। আমিও চলে যাই আমার গ্রামের বাড়ি। মার্চ মাস দেশে যুদ্ধ শুরু। ঢাকা থেকে আমাদের বাড়ি যেতে তখন একমাত্র পথ নদী পথ। রাজশাহী থেকে কোনমতে ঢাকায় পৌঁছালাম। ঢাকার সদরঘাট থেকে লঞ্চে চাঁদপুর হয়ে বাড়ি গেলাম। গ্রামে গিয়ে দেখলাম মুক্তিকামী মানুষগুলো বেরিয়ে পড়েছে রাস্তায়। দেশকে মুক্ত করতেই হবে। বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে যার যা আছে সবাই ঝাঁপিয়ে পড়ে যুদ্ধে।

আমার যেহেতু স্কাউটের অভিজ্ঞতা আছে। সেই অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে কয়েকজনকে নিয়ে বাড়ির পাশে হতাশাগ্রস্ত পথচারিদের জন্য ক্যাম্প করে তাদের শুকনো খাবারের ব্যবস্থা করেছি। কারণ দেশের বিভিন্্নস্থান থেকে মানুষ নিজ নিজ গ্রামের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছে। আমার বাড়ির পাশ দিয়ে যারাই গেছে ক্লান্ত পরিশ্রান্ত পথচারিদের আমি শুকনো খাবার দিতাম। এরমধ্যে কয়েকজনকে আমি স্কাউটের প্রশিক্ষণও দিয়েছি। তাদের মনোবল চাঙ্গা করেছি। যে গৌরনদীতে যদি পাকবাহিনী ঢুকে তাহলে যা কিছু আছে তা দিয়েই তাদের প্রতিরোধ করতে হবে। পাক আর্মিরা যখন বরিশাল ঢুকলো। যে পথ দিয়ে ঢুকলো তখন আমরা খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই একটা ছোট ব্রিজের নিচে আশ্রয় নিলাম। সময়টা তখন খুব ভোরে, অন্ধকারাচ্ছন্ন। পাখিমারা বন্দুক দিয়েই গুলি করা শুরু করি। এরপর তারাও ফায়ার করতে করতে সামনে এগিয়ে যায়।

জোনাস ঢাকী বলেন, আর কোন উপায়ন্তর না দেখে খুব চিন্তিত হয়ে পড়ি। যেভাবেই হোক পাকবাহিনীর বিরুদ্ধে লড়তে হবে। এরপর ছুটে যাই অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য হেমায়েত উদ্দীনের কাছে। তিনি গড়ে তোলেন হেমায়েত বাহিনী। গৌরনদীর জহরেরকান্দি এলাকায় প্রশিক্ষণ ক্যাম্প করেন। প্রশিক্ষণ ক্যাম্প থেকে চার কিলোমিটার দূরত্বে রামশীল এলাকায় ছিল মূল ক্যাম্প। জহরেরকান্দি আর রামশীলের মাঝ শুধু একটা বিল ছিল তখন। এই হেমায়েত বাহিনীতে যারা ছিল এরমধ্যে অন্যতম হল হেমায়েত উদ্দীন। তিনি পরবর্তীতে বীর বিক্রম উপাদী পেয়েছেন। আমি জোনাস ঢাকী, জন ভোষ (বর্তমানে জীবিত), জন পরবর্তীতে কোন এক সময়ে আবদুর রব সেরনিয়াবাতের চীফ সিকিউরিটি অফিসারের দায়িত্ব পালন করেছেন। দিলিপ ব্যাপারি(এখনও জীবিত), ফ্র্যাঞ্চিজ ঢাকী(এখনও জীবতি), শান্তি রঞ্জন কর(এখনও জীবিত), রাফায়েল ব্যাপারি(বর্তমানে মৃত)।

কয়েকদিনের প্রশিক্ষণের পর হেমায়েত সাহেব আমাকে প্রস্তাব দিলেন ইনফরমেশন সেলের প্রধান হতে। তখন বরিশাল অঞ্চল ছিল ৮নং সেক্টরের অধীনে। আমাকে হেমায়েত বাহিনীর ইনফরমেশন সেলের প্রধানের দায়িত্ব দিয়ে বলা হল বরিশাল গিয়ে ৮নং সেক্টরের মেজর জলীলের সঙ্গে দেখা করতে।

জোনাস ঢাকী বলেন, আমি যেহেতু খ্রিস্টান। তাই মেজর জলীল আমাকে খ্রিস্টানদের পরিচালিত আন্তর্জাতিক বেসরকারি সংস্থা কারিতাসে নিয়ে গেলেন। কারিতাস তখন যুদ্ধাহতদের চিকিৎসা এবং যুদ্ধে অংশগ্রহণকারীদের বিভিন্ন সহায়তা দিতেন। আমাকে অর্ন্তভুক্ত করে দিলেন কারিতাসে। কারিতাসে থেকেই যেন মুক্তিযোদ্ধাদের সহযোগিতা করি। কিন্তু আমার মাথায় একটা বিষয় ঘুরপাক করছে। আমিতো হেমায়েত বাহিনীর ইনফরমেশন প্রধান। আমাকে তো পাক বাহিনীর অগ্রীম তথ্য সংগ্রহ করতে হবে। ইেদকে, ৮নং সেক্টরের একজন পাক বেলুচ কর্ণেলের সঙ্গে পরিচয় হয় গির্জায়। তিনি ছিলেন খ্রিস্টান। আমিও গির্জায় যেতাম। তার সঙ্গে পরিচয় হল। এই বেলুচ কর্ণেল তখন বরিশালের ৩২ গোডাউনকে করেছিলেন তাদের হেডকোয়ার্টার। আমার পরিচয় জানতে চাইলে বললাম কারিতাসে কাজ করি। কারিতাস তখন মুক্তিযোদ্ধাদের ট্রান্সপোর্ট এবং চিকিৎসা ও খাদ্য সহায়তা দিতো। আর এই কাজে আমাকে দায়িত্ব দিয়েছেন। এরমধ্যে সেপ্টেম্বর মাসে বরিশালে আসেন সেভ দ্যা চিলড্রেনের ফাউন্ডার এবং কানাডা থেকে প্রকাশিত টরেন্টো পত্রিকার একজন সাংবাদিক। এই দুইজনকে নিয়ে আমি চলে যাই গৌরনদীর রামশীলায় হেমায়েত বাহিনীর কাছে। হেমায়েত বাহিনীকে নিয়ে স্বচিত্র প্রতিবেদন প্রতাশিত হয় টরেন্টো পত্রিকাতে। আমি কারিতাসে আর ফিরে যাইনি। হেমায়েত বাহিনীতেই থেকে যাই। এর তিন দিন পর রামশীলায় আক্রমন করে পাকবাহিনী। অংশগ্রহণ করি সম্মুখ যুদ্ধে। আমরা আহত হই। হেমায়েতের চোয়ালের একপাশে গুলি ঢুকে আরেক পাশ দিয়ে বাহির হয়। এভাবে কয়েকদফায় আমরা হেমায়েত বাহিনী সম্মুখ যুদ্ধে অংশগ্রহণ করি। আমাদের সঙ্গে থাকা অনেকে যুদ্ধে শহীদ হন। অনেকে আহত হন।

এরপর দেশ স্বাধীন হল। মুক্ত হলো হানাদার। বিশ্ব মানচিত্রে ঠাঁই পেল স্বাধীন সার্বভৌমত্ব বাংলাদেশ। বিশ্বের বুকে জেগে উঠল লাল সবুজের বাংলাদেশ। স্বাধীনতার পর আমি রাজশাহী যাইনি আর। চলে আসি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে। তখন ডোসিল সনদ ছাড়া এক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে ট্রান্সফার হওয়া যাবেনা। কিন্তু আমারতো ডেমিসেল সনদ নাই। অনেক বুঝিয়ে বলার পর আমার রেজাল্ট দেখে ভর্তি নেয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। এভাবেই পড়ালেখা শেষ করি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শেষ করি ক্যামিস্ট্রিতে অনার্স ও মাস্টার্স।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম