1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ফিল্ড মার্শাল আইয়ুব খানের পুত্র গওহর আইয়ুব খানের সাথে কিছুক্ষণ ও তার ঢাকার সামরিক জীবন - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:০৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:

ফিল্ড মার্শাল আইয়ুব খানের পুত্র গওহর আইয়ুব খানের সাথে কিছুক্ষণ ও তার ঢাকার সামরিক জীবন

আবু রুশদ, সিনিয়র সাংবাদিক
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৩৪ বার

২৭ নভেম্বর ২০০৬। ইসলামাবাদের পাঁচ তারকা হোটেল মেরিয়ট। স্থানীয় বাংলাদেশ হাইকমিশনের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা ব্রিগেডিয়ার মঞ্জুর কাদের সশস্ত্রবাহিনী দিবস উপলক্ষ্যে এক জমকালো অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন। তারিখ হিসাবে বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনী দিবস ২১ নভেম্বর। কিন্তু আমরা বেশ কিছু বাংলাদেশি সরকারি সফরে পাকিস্তান যাবো বলে ব্রিগেডিয়ার মঞ্জুর সংবর্ধনা অনুষ্ঠানটি পিছিয়ে দেন। মজার ব্যাপার যাওয়ার আগে ২১ নভেম্বর আমি সস্ত্রীক সেনা কুঞ্জে সশস্ত্রবাহিনী দিবসের রিসিপশনে যোগ দিয়েছিলাম।
ওইদিন দুপুরে পাকিস্তানের তদানীন্তন প্রধানমন্ত্রী জনাব শওকত আজিজের দপ্তরে আমাদের আনুষ্ঠানিক সাক্ষাত ছিল। প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর ভিভিআইপি এলাকার এ কে ফজলুল হক রোডে। প্রেসিডেন্ট কার্য়ালয়সহ সুপ্রিম কোর্ট, সংসদ ভবন-সব ওই সড়কে, শেরে বাংলার স্মৃতি পাকিস্তানের রাজধানীর বুকে ধরে রেখেছে। যাহোক, প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে এসে আমাদের তড়িঘড়ি করে ছুটতে হলো বাংলাদেশ হাইকমিশনের রিসিপশনে।
গিয়ে দেখি ইসলামাবাদের গণ্যমান্য ব্যক্তিদের অনেকেই সেখানে এসেছেন। গম গম করছে পুরো হল ঘর। প্রধান অতিথিসহ আরো অনেকের আসার অপেক্ষায় হাইকমিশন কর্মকর্তারা। ব্রিগেডিয়ার মঞ্জুর কাদের বাহারী সামরিক পোশাক পড়ে সবাইকে রিসিভ করছেন। তিনি আমার দীর্ঘদিনের পরিচিত। হ্যান্ডশেক করে কানে কানে বললেন, খবর আছে। সবাইকে রিসিভ করে নেই। তারপর তোমার সাথে আলাপ করবো। তার এই রহস্যমাখা কথায় আমার কৌতুহল বেড়ে গেল। তাও চুপচাপ বিড়ালের মতো রিসিপশনের মধ্যমনিদের খোঁজা শুরু করলাম।
দেখি কয়েকজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী, প্রতিরক্ষা সচিবসহ উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, ইসলামাবাদে দায়িত্বরত অন্যান্য দেশের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টাগন, পাকিস্তানের নামীদামী কূটনীতিক সেখানে আসর জমিয়ে বসেছেন। অন্য দেশ হলে এ্যালকোহলের গ্লাস থাকতো অনেকের হাতে। ওখানে নিরামিষ ফলের জুস! হাইকমিশনের এক কর্তাকে কাছে পেয়ে জিজ্ঞেস করলাম প্রধান অতিথি কে? তিনি সহাস্যে বললেন পাকিস্তানের বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চীফ মার্শাল তানভীর মাহমুদ আহমেদ। এয়ার চীফ কেন? এখানে তো কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের দেখছি! ভদ্রলোক ঠোটের কোণে চিকণ হাসি দিয়ে জানালেন পাকিস্তানের প্রটোকল অনুযায়ী তিন বাহিনী প্রধান ও জয়েন্ট চীফস অফ স্টাফ কমিটির চেয়ারম্যান কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর মর্য়াদা ভোগ করেন। যদি কোথাও কেন্দ্রীয় কোন মন্ত্রী ও উর্দি পড়া ওই চারজনের একজন উপস্থিত থাকেন তখন উর্দি প্রাধিকার পান প্রটোকলে। বলে কি? বিস্মিত হলাম শুনে। যোদ্ধা জাতি বলে কথা!
ঘুরেফিরে এর ওর সাথে পরিচিত হচ্ছি,তার মধ্যে একজন এসে হাত বাড়িয়ে দিয়ে বললেন- আমি কমোডর অমুক, আই এস আই-এর ওই পদে আছি! দুনিয়া কাপানো অন্যতম একটি গুপ্তচর সংস্থা আই এস আই। আমাদের ডিজিএফআই-এর কর্তারা যেমন ঢাকায় দূতাবাসের পার্টিগুলোয় অংশগ্রহন করেন, আই এস আইও তাই করছে ইসলামাবাদে। ওই কমোডর সাহেব এক্স আর্মি ও সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে আমাকে অনেকটা টেনে নিয়ে গেলেন একদিকে। ওমা! এযে গওহর আইয়ুব খান! পাকিস্তানের জাদরেল প্রেসিডেন্ট মরহুম ফিল্ড মার্শাল আইয়ুব খানের দ্বিতীয় ছেলে! পরিচয় করিয়ে দিলেন আই এস আই- এর কমোডর ‘এক্স’। দেখতে অনেকটাই আইয়ুব খানের প্রতিচ্ছবি। তবে উচ্চতায় একটু কম। পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রী ও স্পীকার ছিলেন। হাত বাড়িয়ে উষ্ন করমর্দন করলেন। আভিজাত্য ও ব্যক্তিত্বের সংমিশ্রনে তৈরি একজন মানুষ।
গওহর আইয়ুব খান নিয়েও আইয়ুব খানের মতো আমার আগ্রহ বরাবর। এটা ইতিহাস জানার জন্য। গওহর আইয়ুব খান আবার পাক সেনাবাহিনীর অফিসার ছিলেন। কমিশন পেয়েছেন স্যান্ডহার্স্টের পৃথিবীখ্যাত বৃটিশ মিলিটারি একাডেমি থেকে। সেখানেও বিদেশি হয়ে এপয়েন্টমেন্ট হোল্ডার ছিলেন। মজার বিষয় তাকে যে রুমে রাখা হয় সেই একই রুমে তার পিতা আইয়ুব খানও স্যান্ডহার্স্টে প্রশিক্ষনের সময় অবস্থান করেছিলেন। তাকে দেয়া মিলিটারি একাডেমির ব্যাটম্যান তার বাবারও ব্যাটম্যান ছিল। সেনাবাহিনীতে যতো কোর্স করেছেন তার প্রতিটিতে প্রথম হয়েছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকেও কঠোর প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। কিন্তু ক্যাপ্টেন থাকাবস্থায় হুট করে চাকুরি ছেড়ে দিয়ে ব্যবসা ও রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন।
গওহর আইয়ুব আলাপের শুরুতেই জানতে চাইলেন ঢাকার অবস্থা কেমন? বাংলাদেশের মানুষ কি তার পিতাকে মনে রেখেছে? আমি ঢাকার একটা শর্টকাট বর্ণনা দিলাম। তার বাবার কথা বলতে শুরু করায় তিনি হেসে বললেন, তোমার জন্ম কোন সালে? স্যার, ১৯৬৫ সালের অক্টোবরে।
তাহলে আমার বাবার সম্পর্কে তোমার তো কিছুই জানার কথা না। আমিও হেসে পাল্টা জানিয়ে দিলাম, স্যার প্রশ্ন করুন, আপনাদের পরিবারের প্রকাশ্য বেশিরভাগ তথ্য আমার নখের ডগায়, আপনার আব্বা কখন কমিশন পেয়েছেন, কোথায় কোথায় চাকুরি করেছেন, আপনাদের ভাই বোন কতোজন, ইস্কান্দার মির্জার কাছ থেকে কিভাবে আপনার পিতা ক্ষমতা নিয়েছিলেন, কোন কোন জেনারেল গিয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে, এমনকি আপনার ছেলে যে এখন অর্থ প্রতিমন্ত্রী এসব আমি জানি…
বলো কি? কিভাবে? বিস্মিত দৃষ্টি গওহর আইয়ুবের। বললাম, ছোট বেলা থেকেই আমার ইতিহাসের প্রতি, বিশেষ করে উপমহাদেশের ইতিহাসের দিকে আমার আগ্রহ। আরো আগ্রহ কিভাবে, কেন পাকিস্তান ভেঙ্গে গেল? কেন বাঙ্গালিরা মেজিরিটি হওয়ার পরও অধিকার পেলো না?
ব্যস, ব্যস, বুঝেছি। তা তুমি কি আমার বাবার বই ফ্রেন্ডস নট মাস্টার্স পড়েছো? অবশ্যই, সেই মেট্রিক পরীক্ষা দেয়ার পর ১৯৮১ সালে। আমার আব্বার কালেকশনে ছিল বইটি। আরো কালেকশনে আছে ১৯৬৮ সালে প্রকাশিত ডিকেড অফ রিফর্মস নিয়ে সংকলিত চমতকার একটি সরকারি ডায়েরি। ভালো, গওহর প্রশংসার দৃষ্টিতে তাকালেন। চট করে জিজ্ঞেস করেলন, কিন্তু তুমি বলো দেখি কোথায় আমার প্রথম পোস্টিং ছিল সামরিক অফিসার হিসাবে? এবার ফেঁসে গেলাম। জানি না!
মৃদু হাসলেন গওহর, রহস্য করে বললেন, ঢাকায়। বলে কি? হ্যা, ১৯৫৬ সালের জুলাই মাসে স্যান্ডহার্স্ট থেকে কমিশন পাওয়ার পর আমি সরাসরি ঢাকায় একটি পাঞ্জাব রেজিমেন্টে যোগ দেই। ওটা আমার পিতারও রেজিমেন্ট ছিল। তাই আমার সামরিক জীবন শুরু হয় ঢাকায়! আমি এই তথ্য জানতাম না।
তিনি নস্টালজিক হয়ে পড়লেন। জানালেন কমিশন লাভের পর বৃটিশ প্রিন্সেস মার্গারেট তাকে জিজ্ঞেস করেছিলেন কোন ব্যাটালিয়নে তিনি যাচ্ছেন? পাশে তখন দাড়িয়ে পাক সেনাবাহিনীর কমান্ডার ইন চীফ ও গওহরের বাবা জেনারেল আইয়ুব খান। তিনি পিতার দিকে তাকিয়ে বলেছিলেন আমি আমার বাবার ব্যাটালিয়ন ‘শের দিলে’ যোগ দিতে চাই। তার অনুরোধ সেনাবাহিনী রক্ষা করেছিল। ঢাকায় তিনি ১৯৫৭ সালের সেপ্টেম্বর পর্য়ন্ত চাকুরি করেন। তিনি থাকতে থাকতেই ১৯৫৭ সালের জুলাই মাসে স্যান্ডহার্স্ট থেকে কমিশনে পেয়ে ওই ইউনিটে যোগ দেন পরবর্তিতে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আসিফ নওয়াজ জানজুয়া।
তা, স্যার, ঢাকার কোন দিকটি এখনো আপনার মনে পড়ে? জানতে চাইলাম সঙ্গত কারনেই। তিনি যেন ফিরে গেলেন পুরনো দিনে। বললেন, তখন ঢাকা তো কেবল শহরে পরিণত হচ্ছে,, কোন সুযোগ সুবিধা বলতে ছিল না। আমরা অবসর সময়ে বাসে চড়ে ফার্মগেট হয়ে যেতাম ঢাকা ক্লাবে। মাঝে সাঝে সিনেমা দেখতাম। আর রেজিমেন্টের পাশে তেজগাও এয়ারপোর্টে পিআইএ’র বিমান উঠানাম করতে দেখতাম। ব্যস ওই ছিল আমাদের জীবন। তবে আমার খুব খারাপ লেগেছিল যে পশ্চিম পাকিস্তানীদের বেশিরভাগ বাঙ্গালিদের সাথে মিশতে চাইতো না। বাংলা ভাষা জানতে চাইতো না। আমি কিছু শিখেছিলাম ও চেষ্টা করতাম যতোজনের সাথে পারি মিশতে। তবে বাঙ্গালিরাও আমাদের দেখলে দূরে দূরে থাকতো কেন জানি। এটা আমি আমার আব্বাকে জানিয়েছিলাম পরে।
কথার মাঝে দেখি আমার সফরকারী সঙ্গীদের একাংশ এসে আশপাশে দাড়িয়েছেন। বাংলা ভিশনের উপদেষ্টা আমার সাবেক সিনিয়র সহকর্মী ড. আব্দুল হাই সিদ্দিক, কাজী হাফিজ ও মাহফুজ ভাই । নিবিষ্ট মনে শুনছেন গওহর আইয়ুবের স্মৃতিচারণ। একটা ডিজিটাল ক্যামেরা ছিল সেসময় দৈনিক আমার দেশ-এর বিশেষ সংবাদদাতা (বর্তমানে দৈনিক কালের কন্ঠের চীফ রিপোর্টার) কাজী হাফিজ ভাইয়ের কাছে। আমরা পালাক্রমে ছবি তুললাম। ইতিহাসের একটি অংশের সাথে আমাদের স্মৃতি রয়ে গেল। আবার শুরু হলো নানা বিষয়ে আলাপ। বলা চলে মিনি ইন্টারভিউ।
গওহর আমাদের অবাক করে দিয়ে জানালেন যে তিনি তার পিতার এডিসি’র দায়িত্বও পালন করেছেন। কিভাবে? প্রশ্নের উত্তরে বললেন তিনি তখন কোয়েটায় স্কুল অফ ইনফ্যান্ট্রি এন্ড ট্যাকটিক্স-এ স্মল আর্মসের উপর কোর্স করছেন। সাথে তার বড় ভাই আখতার আইয়ুব খান। তবে দুই ভাইয়ের মধ্যে গওহর ছিলেন চৌকশ। সব কোর্সে তিনি প্রথম হতেন। ওই কোর্স করার সময় একদিন কমান্ডান্ট তাকে ও তার ভাইকে বাসায় ডেকে পাঠান। ভয়ে ভয়ে দুই ভাই কমান্ডান্টের বাসায় যান। মনে করেছিলেন বকা খাবেন কোন দুষ্টামির জন্য। না, তাদের বলা হলো যে জেনারেল আইয়ুব তাদের সাথে কথা বলবেন। ফোন এলো। প্রথমে আখতার আইয়ুবকে চাইলেন সেনাপ্রধান পিতা। যেই শুনলেন আইয়ুব খান এডিসি খুঁজছেন অমনি চড়া স্বরে টু দি পয়েন্ট না করে দিলেন আখতার। কমান্ডান্ট একটু দূরে দাড়ানো। গওহর ভাবছিলেন, কি করা যায়। এরপর এলো তার ডাক। পিতার কথা চিন্তা করে হ্যা বলে দিলেন। জেনারেল আইয়ুব হাফ ছেড়ে বাঁচলেন।
এডিসি তো হলেন, ওই কাজ কেমন লেগেছিল স্যার? আমার উৎসুক প্রশ্ন। আমার বাবাকে তো দেখোনি। জান তামা করে দিতেন। কড়া মানুষ। কোন ছাড় নেই। ইদুরের মতো থাকতে হতো। বলতে পারো ছেলে হওয়ায় আরো বেশি দেখভাল করতে হতো। এটা আনো, রুমাল ধোয়া আছে কিনা, চুলের ক্রিম শেষ হয়েছে না আছে এসবও আমাকে লক্ষ্য রাখতে হতো। আমরা সবাই বেশ মজাই পাচ্ছিলাম তার এসব স্মৃতিচারনে।
এর মধ্যে অনুষ্ঠানস্থলে চলে এসেছেন এয়ার চীফ মার্শাল। আমাদের আলাপচারিতায় তাই ভাটা পড়লো। গওহর আইয়ুব আমার কাছে জানতে চাইলেন তুমি আমার পিতাকে কিভাবে মূল্যায়ন করো? বললাম-স্যার,আপনার বাবাকে সমালোচনা করা যায় তবে ভালো অনেক কাজের জন্য প্রশংসাও তার প্রাপ্য। সবচেয়ে বড় বিষয় তিনি একটি পশ্চাদপদ সমাজকে এগিয়ে নিয়ে একটি আধুনিক মুসলিম দেশ গঠন করতে চেয়েছিলেন। পেরেছেন কতোটুকু তা ইতিহাস বিচার করবে। মাথা ঝাকিয়ে সম্মতি জানালেন তিনি। বললেন, আমার আব্বার গোপন ডায়েরী বের হবে আগামী বছর। সংগ্রহ করে নিও। অনেক গোপন কথা জানতে পারবে। আমি ওটা এতোদিন ধরে সংরক্ষণ করেছি। পড়েছি আর ভেবেছি কেন পাকিস্তান ভেঙ্গে গেল? যাহোক, ওইসব বিতর্ক করে লাভ নেই। চলো, তোমাদের সশস্ত্রবাহিনীকে একজন সাবেক সেনা কর্মকর্তা হিসাবে অভিবাদন, শ্রদ্ধা। ভালো থেকো তোমরা সকলে। স্যার, শেষে ছোট্ট একটা প্রশ্ন- সামরিক জীবন না রাজনীতির জীবন কোনটা আপনার বেশি ভালো লেগেছে? হুম! অবশ্যই সামরিক জীবন!
ততোক্ষনে সাউন্ড সিস্টেমে পাকিস্তানের জাতীয় সঙ্গীত ও বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত বেজে উঠেছে। সবাই চুপ করে দাড়িয়ে। উর্দি পড়া সামরিক কর্তারা এটেনশন হয়ে সম্মান প্রদর্শন করছেন। আমিও এটেনশন হয়ে গেলাম মনের অজান্তে। কারন, অল্প কিছু দিনের জন্য হলেও আমি সৈনিক ছিলাম। দেখি গওহর আইয়ুব খানও এটেনশন হয়ে দাড়িয়ে আছেন।
[ ব্রিগেডিয়ার মঞ্জুর কাদের ঠিকই আমার সাথে অনুষ্ঠান শেষে দীর্ঘক্ষণ আলাপ করেছিলেন। ওটা ছিল ওয়ান ইলেভেনের আগমনী বার্তা সম্পর্কিত। তবে তখনো পুরোটা ঠিক ভেসে উঠেনি। উনি উনার সোর্স দিয়ে ভালোই জানতে পেরেছিলেন। তিনি ঢাকায় কাউকে ওসব নিয়ে রিপোর্টও পাঠাতে পারছিলেন না। কারন, কে যে কোথায় জড়িয়ে গেছেন তখন তা নিয়ে উনার যথেষ্ট সন্দেহ ছিল। আমিও কোনদিন কাউকে ভয়ে কিছু বলিনি নিজের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে। সেসব কিছু এখানে বলা সমীচীন হবে না বলে মনে করছি]

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম