1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
প্রত্যেক খাদ্য-পণ্যের মান শতভাগ নিশ্চিত করতে হবে : অতি. বিভাগীয় কমিশনার - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০৬:১৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
পিরোজপুরের নেছারাবাদে বিধবা নারীকে জুতা পিটার অভিযোগ ক্ষতি ১৫ কোটি টাকা, লালমনিরহাটে তিস্তার পানি কমেছে কুবিতে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষায় ‘খ’ ইউনিটে উপস্থিতি ৯৫.৪৪ শতাংশ জনপ্রিয় অভিনেতা ওয়ালিউল হক রুমির জন্মদিন আজ রংপুরে ধর্মপ্রাণ ও পরোপকারী নারী মরহুমা অজুবা বেগমের স্মরণে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল নেককার সন্তান আল্লাহর কাছে চেয়ে নিতে হয় সোনারগাঁয়ের ৮ ইউনিয়নে নৌকার মাঝি হলেন যারা কোরআন জিম্মি করে দেশে সাম্প্রদায়িক অস্থিরতা সৃষ্টির অপপ্রয়াসে উদ্বেগ লালমনিরহাটে খুচরা মাছ ব্যবসায়ীর ছেলে নব্যকোটিপতি বিজিবি’র গরুর লাইনম্যানীর অন্তরালে হুন্ডী ও মাদক পাচার পায়রা সেতুর উদ্বোধন

প্রত্যেক খাদ্য-পণ্যের মান শতভাগ নিশ্চিত করতে হবে : অতি. বিভাগীয় কমিশনার

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৪ অক্টোবর, ২০২১
  • ১২ বার

চট্টগ্রাম বিভাগের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) ড. প্রকাশ কান্তি চৌধুরী বলেছেন, মানসম্মত পণ্য আমাদের সকলের কাম্য। মানহীন পণ্য বিক্রয় করা অত্যন্ত অপরাধ। সকলে সচেতন না হলে শুধু মোবাইল কোর্ট পরিচালনার মাধ্যমে খাদ্য ও পণ্যের মান নির্ধারণ সম্ভব নয়।

মান জিনিষটা হচ্ছে আপেক্ষিক। এসডিজির ১৭টি গোলের মধ্যে ১১টি গোল মান নিয়ে সরাসরি সম্পৃক্ত। এসডিজি’র গোল অর্জনসহ উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মিাণে প্রত্যেক খাদ্য ও পণ্যের মান শতভাগ নিশ্চিত করতে হবে। বিএসটিআই’র অনুমোদিত ১২৯টি পণ্য থাকলেও অনুনোমোদিত রয়েছে আরও চার হাজারের অধিক পণ্য। এগুলোর মান কেমন তা ল্যাবে পরীক্ষা না করলে জানা যাবেনা।

এসব পণ্যের মান যাচাই করে লাইসেন্সের আওতায় আনা জরুরী। নিজে, পরিবার, সমাজ, দেশ ও পৃথিবীকে বাঁচাতে মানসম্মত পণ্যের কোন বিকল্প নেই। এজন্য সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টি করা অত্যন্ত জরুরী। প্রত্যেক পণ্য মানসম্মতভাবে উৎপাদন ও বাজারজাতকরণে ব্যবসায়ী মহলকে আন্তরিক হতে হবে।

১৪ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় বিশ্ব মান দিবস-২০২১ উপলক্ষে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস এন্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন (বিএসটিআই) চট্টগ্রাম বিভাগীয় অফিস কর্তৃক চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে “ সমন্বিত উদ্যোগে টেকসই উন্নত বিশ্ব বিনির্মাণে-মান”।

তিনি বলেন, এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী বিএসটিআই’র লোগো ব্যবহারের মাধ্যমে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে নকল পণ্য বিক্রয় করছে। আমরা সকলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়নের সহযাত্রী হতে চাই। এ জন্য এখন থেকে সমন্বিত উদ্যোগের মাধ্যমে মানসম্মত ও গুনগত পণ্যের মান নিশ্চিতে কাজ করতে হবে।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) আ.স.ম জামশেদ খোন্দকার বলেন, আমরা সকলেই ভোক্তা। খাদ্য-পণ্যের মান নিয়ে কোন ধরণের আপোষ নয়।

অসাধু ব্যবসায়ীরা মানহীন পণ্য উৎপাদন ও বাজারজাত কওে ভোক্তাদের ঠকাচ্ছে। এব্যাপারে প্রত্যেককে সচেতন থাকতে হবে। পণ্য ক্রয়ের পূর্বে মানের বিষয়টি অবশ্যই দেখতে হবে। পণ্যের লেবেল বা মোড়কে বিএসটিআই’র মান চিহ্ন দেখে নিতে হবে। ভেজাল প্রতিরোধে জনমত সৃষ্টি করতে হবে। এব্যাপারে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বিক সহযোগিতা করা হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে দি চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম বলেন, ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রাণকেন্দ্র চট্টগ্রাম। এখান থেকে অধিকাংশ রাজস্ব সরকারের কোষাগারে জমা হয়। এখানে বিএসটিআই’র স্বয়ং সম্পূর্ণ ল্যাব না থাকার কারণে অনেক পণ্যের লাইসেন্স পেতে ঢাকায় নমুনা পাঠাতে হয়, ব্যবসায়ীদেরকে ভোগান্তিতেও পড়তে হয়।

তাই চট্টগ্রামে বিএসটিআই’র উন্নতমানের ল্যাব স্থাপনসহ নির্মণাধীন নতুন ভবনের কাজ দ্রæত সম্পন্ন করতে সরকারের হস্তক্ষেপ জরুরী। পাশাপাশি যাদের লাইসেন্স নেই তাদেরকে লাইসেন্সের আওতায় এনে দুর্নীতি ও হয়রানিমুক্ত সেবা প্রদান করতে বিএসটিআই কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানান তিনি।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কনজুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) চট্টগ্রামের সভাপতি এস.এম নাজের হোসাইন বলেন, বিএসটিআই’র অনুমোদন ছাড়া কোন খাদ্য বা পণ্য উৎপাদন ও বাজারজাত করতে পারবেনা। বর্তমান বাজারে বিভিন্ন ধরণের চার হাজারের অধিক পণ্য থাকলে বিএসটিআই’র লাইসেন্স আছে মাত্র ২২৯টির। ভেজাল ও মানহীন পণ্যে বাজার সয়লাব। যেসব পণ্যের লাইসেন্স আছে সেগুলো নিয়মিত তদারকির মাধ্যমে মান নিশ্চিত করতে হবে।

আবার বিএসটিআই’র লাইসেন্স বিহিন যেসব খাদ্য-পণ্য বাজারে রয়েছে সেগুলোর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। নানা অজুহাতে যেসব ব্যবসায়ীরা লাফিয়ে লাফিয়ে পণ্যের দাম বৃদ্ধি করে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে হবে। যার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে তাকে ফলোআপ করতে হবে।
দি চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সাবেক পরিচালক মাহফুজুল হক শাহ বলেন, যে কোন পণ্য বাজারজাতকরণের পূর্বে বিএসটিআই’র লাইসেন্স থাকা বাধ্যতামূলক।

জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছি। আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে এসডিজি’র গোল অর্জন ও ২০৪১ সালে উন্নত বাংলাদেশ গড়ড়ে হলে প্রত্যেক পণ্যের মান শতভাগ নিশ্চিত করতে হবে।

বিএসটিআই চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ-পরিচালক (মেট) ও চট্টগ্রাম প্রধান মোঃ শওকত ওসমান বলেন, শিল্পোন্নয়ন ছাড়া দেশের রফতানি আয় বাড়ানো সম্ভব নয়। চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে দেশের বেশিরভাগ আমদানি-রপ্তানী হয়ে থাকে। লোকবল সংকট থাকা সত্তেও বিএসটিআই আন্তরিকভাবে সেবা দিয়ে যাচ্ছে। চট্টগ্রামের গুরুত্ব বিবেচনায় এখানে একটি স্বয়ং সম্পূর্ণ ল্যাব অত্যন্ত জরুরী। শুধু আইন নয়, পণ্যের মান শতভাগ নিশ্চিত করতে সামাজিক সচেতনতা তৈরি করতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম