1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ঠাকুরগাঁওয়ে আশ্রয়ণ প্রকল্পের-২ ব্যাপক অনিয়ম `দেখার কেউ নেই ! - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ১২:৫৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নবীনগরে কোটাপদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল রাউজানে তিনদিন ব্যাপী বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন রাউজানে ৬০ প্রজাতির ১ লাখ ৮০ হাজার ফলজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপন কর্মসূচি উদ্বোধন মাগুরায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শরিয়াতউল্লাহ হোসেন রাজনকে গণসংবর্ধনা প্রদান  *জরুরী রক্ত প্রয়োজন*রক্তের গ্রুপ: AB+ (এবি পজেটিভ) ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে চৌদ্দগ্রামে তিন ছাত্রলীগ নেতার পদত্যাগ কক্সবাজারে সাংবাদিকদের উপর আ’লীগ-ছাত্রলীগের হামলা সারাদেশে ছাত্রসমাজের উপর মর্মান্তিক হামলার প্রতিবাদ ও কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে দোহাজারীতে বিক্ষোভ মিছিল  এমএসআর’র ১ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা লুটপাট সমস্যায় জর্জরিত চট্টগ্রামের চন্দনাইশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-অধিকাংশ চিকিৎসক অনুপস্থিত থাকেন নবীনগরে কুতুবিয়া দরবার শরীফে শাহাদাতে কারবালা মাহফিল অনুষ্ঠিত

ঠাকুরগাঁওয়ে আশ্রয়ণ প্রকল্পের-২ ব্যাপক অনিয়ম `দেখার কেউ নেই !

মোঃ মজিবর রহমান শেখ,,
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৭ মে, ২০২২
  • ১৪৬ বার

মুজিবশতবর্ষে হতদরিদ্র ভূমিহীনদের জন্য বরাদ্দকৃত প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের-২ ঘর ভূমিহীন গরীব দুঃখী ও সাধারণ মানুষের অর্থ ভক্ষণ করে এখন রক্ষক সেজেছে ঠাকুরগাঁও জেলার রুহিয়া থানা ভূমিহীন আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক কুদরত আলী সহ একটি প্রভাবশালী মহলের বিরুদ্ধে। ঠাকুরগাঁও জেলার সদর উপজেলার ২১নং– ঢোলারহাট ইউনিয়ন বরদ্বেশরী বাজার সংল্গন এলাকায় দ্বিতীয় পর্যায়ে ৮৮ টি ঘর বরাদ্দ দেওয়া হয়। গুচ্ছ গ্রামের সেই ঘর হতদরিদ্রকে পেতে হলে ঘর-প্রতি গুনতে হচ্ছে ২০-৫০ হাজার টাকা, টাকা না দিলে ঘর পাবেন না কেউ এমনটিই বলেছেন ঐ ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মো: ইমান আলী সহ কয়েকজন। ভুক্তোভুগী ৪১ নম্বর ঘরের মালিক সুলতান জানান, আমি একজন গরীব অসহায় মানুষ কুদরত আমাকে একটি ঘর দখলে দিয়েছে বলে সে আমাকে সুদের উপর টাকা নেওয়াইয়া আমার কাছ থেকে জোড় করে ২৫ হাজার টাকা নিয়েছে। এখন আমাকে প্রতি সপ্তাহে সুদ দিতে হয় ১০০০/= ( ১ হাজার) টাকা। আমি কুদরতের কাছে টাকা ফেরত চাইলে সে বলে ঘরের বাবদ খরচ হয়েছে ১০ হাজার টাকা। ঘর বাতিল হওয়া এতিম সবুজ জানান, আমার মা-বাবা নাই। অন্যের বাড়ির বারান্দায় রাতে ঘুমাই। ইমান আলী মেম্বার গুচ্ছ গ্রামের আমায় একটা ঘর দেয়। পরে এলাকার মিজান, কুদরত আমার কাছে ২০ হাজার টাকা দাবি করে। মাঠে কাজ করে তাদের ৭ হাজার টাকা দেয় বাকি টাকা দেয়নি বলে ঘর থেকে আমাকে বের করে দেয়।

প্রতিবন্ধী রহিমা অভিযোগ করে বলেন, কুদরত, মিজান আমাদের কাছে ৩০ হাজার টাকা দাবি করে। আমি টাকা দিতে পারিনি বলে তারা আমাদের ঘরের তালা ভেঙ্গে আসবাপত্র বের করে দিয়ে অন্যজনকে তুলে দেয়। আমার ঘর ও গেলে আসবাপত্রও গেলো। আমি এর বিচার চাই। এ সুযোগে সদর উপজেলার ইউএনও, এসিল্যান্ড এর নাম ভাঙ্গিয়ে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল ঘর দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে ভুমিহীনদের কাছে ২০-৫০ হাজার টাকা করে তুলছেন। সম্পূর্ণ টাকা দিতে না পারায় বেশ কয়েকজনকে ঘর থেকে বের করে দিয়ে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে অন্যজনকে ঘর পাইয়ে দেন এ মহলটি। ছাড়া ৬ নম্বর ওয়ার্ডের ধর্মপুর ভদ্রপাড়া এলাকার মা-বাবা হারা ১৮ বছর বয়সী এতিম সবুজ তাদের চাহিদা মত টাকা দিতে না পারায় তাকেও ঘর থেকে বের করে দেয়। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে ঘর বাতিল হওয়া ভুক্তভোগী জনি ইসলাম সদর এসিল্যান্ডকে অভিযোগ করলে তিনি ভুক্তোভুগী জনিকেই পুলিশ দিয়ে আটক করেন এবং বলেন, বেশি কথা বললে, অন্য মামলায় দিয়ে জেল দিয়ে দিবে বলে অভিযোগ করেন জনি । স্থানীয় ইউপি সদস্য ইমান আলী জানান, ৬নং ওয়ার্ডের সাত জনকে গুচ্ছগ্রাম থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে। যাদের বের করে দেওয়া হয়েছে তারা খুবই গরিব, ভূমিহীন। অন্যের বাড়িতে রাত কাটান। এখন শুনতেছি একটি প্রভাবশালী মহল নাকি টাকা দাবি করেন। টাকা দিতে পারেনি বলে তাদের ঘর বাতিল। আমি প্রশাসনের কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি সঠিক তদন্ত করে আইনী ব্যবস্থা নেওয়া ও প্রকৃত ভূমিহীনদের যেন তাদের ঘর বুঝিয়ে দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত কুদরত আলীর সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করলে টাকা লেনদেনের কথা স্বীকার করেন। মিজানুর রহমানের সঙ্গে কথা বললে তিনি জানান, এ আশ্রয়ণ প্রকল্পে যাদের ঘর দেওয়া হয়েছে তার মধ্যে ৭০ ভাগ মানুষ থাকেনা। এসিল্যান্ডের সহকারি এসে তালিকা করে তাদের ঘর বাতিল করেছে। এ সময় এসিল্যান্ড আমাদের ডেকে বলেন ঘর খালী আছে নাম দেন। ভুমিহীনদের নামে বরাদ্দকৃত ঘর গুলো বাতিল কেন করা হলো এ প্রসঙ্গে ঠাকুরগাঁও সদর সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহরিয়ার রহমান এর যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার বলেন, কারো ঘর বাতিল করা হয়নি। যারা অভিযোগ করছে তাদের আমার কাছে পাঠিয়ে দেন। জনি নামে এক যুবককে বিনা কারণে পুলিশ দিয়ে আটক করেছেন এমন প্রশ্নেন করলে তিনি এড়িয়ে যান। ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আবু তাহের মো: সামসুজ্জামান বলেন, আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পেতে কোন টাকা পয়সা লাগে না। কেউ যদি ঘর দেয়ার কথা বলে টাকা নিয়ে থাকে, তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম