1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
বৃষ্টিতে মুগ ডালের ব্যাপক ক্ষতি, দিশেহারা কৃষক - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ২১ মে ২০২২, ০৫:৪৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন দুর্বার’র নবনির্বাচিত সভাপতি মির্জা মিশকাতের রহমান ও সাধারণ সম্পাদক সৈকত চৌধুরী ৩নং বাঃহাঃ ইউনিয়নবাসী পক্ষ হতে জননেতা বীর বাহাদুর মন্ত্রী কে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। নির্বাচন কমিশনার মোঃ আনিসুর রহমান কে শরীয়তপুরে গণসংবর্ধনা। নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে নবম শ্রেণির ছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু নবীনগরে নারীসহ ৪ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ইনাতগঞ্জে শালিস বৈঠকে পরিকল্পিত হামলা নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতিসহ আহত ৫ :: ২ জনকে ওসমানীতে প্রেরণ রাজবাড়ীতেপ্রাইমারি নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস। যাত্রীদের বাঁচানো সেই এসআই হেলাল উদ্দিন পুরস্কৃত সৈয়দপুরে নদীতে টিকটক করতে গিয়ে যুবকের মৃত্যু জমিজমা নিয়ে পূর্বের জেরে, বৈদ্যুতিক শক দিয়ে যুবককে হত্যার অভিযোগ

বৃষ্টিতে মুগ ডালের ব্যাপক ক্ষতি, দিশেহারা কৃষক

মাহমুদুল হাসান, রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৪ মে, ২০২২
  • ১৮ বার

পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় কয়েক দিনের বৃষ্টিতে মুগ ডালের খেত তলিয়ে যাওয়ায় ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় কৃষকরা। মুগ ডালের পাশাপাশি একই সময়ে কাচা মরিচ, বাদাম, মিষ্টি আলুসহ অন্য রবি সশ্য ফসলেরও ক্ষতি হয়েছে। কিছুদিনের মধ্যে ডালসহ কয়েকটি রবিসশ্য ঘরে তোলার উপযোগী খেতের ডাল বেশি নষ্ট হওয়ায় দিশেহারা রাঙ্গাবালীর কৃষকরা।
উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানাযায়, এবছর উপজেলার ৬ ইউনিয়নে মুগ ডালের আবাদ হয়েছে ১২ হাজার ৯৫০ হেক্টর, এর মধ্যে ৩ হাজার ৮৮৫ হেক্টর প্রবল বৃষ্টির পানিতে আক্রান্ত হয়েছে। আর চিনাবাদাম এক হাজার ৫২০ হেক্টর আবাদ হয়েছে এবং পুরোটাই এখন পানিতে নিমজ্জিত। মরিচ আবাদ হয়েছে এক হাজার ৫৮০ হেক্টর, বৃষ্টির পানিতে আক্রান্ত হয়েছে ৭১১ হেক্টর, তিল ফসল ৪ হেক্টর আবাদ হয়েছে এবার পুরোটাই পানিতে আক্রান্ত হয়েছে। মিষ্টি আলু ২১০ হেক্টরের মধ্যে বৃষ্টির পানিতে আক্রান্ত হয়েছে ১০৫ হেক্টর।

এছাড়া ও শাকসবজি বৃষ্টির পানিতে আক্রান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন কৃষি অফিস।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ছোটবাইশদিয়া, রাঙ্গাবালী, বড়বাইশদিয়া ও মৌডুবী ইউনিয়নের মাঠের পর মাঠ মুগ ডালের খেতে পানি জমে আছে। শুকনো ডাল পানিতে ভিজে ডাল থেকে চারা গজাচ্ছে এবং শিশু কিশোরসহ পরিবারের সবাই তারাহুরা করে ডাল তুলছেন। কেউ আবার তোলা ডাল রোদে শুকানোর জন্য বাসায় নিয়ে যাচ্ছে।
কৃষক আবুল কালাম জানান, মুগডাল পরিপক্ক হয়েছে। ঈদের কারণে ডাল তুলতে লোকজন পাওয়া যাচ্ছে না। ভারী বৃষ্টিতে ডাল খেত নিমজ্জিত হয়ে পড়েছে পানি কমছেনা। তাই ডালসহ গাছ তুলে রোদে শুকানোর ব্যবস্থা করছি। তবে আজও আকাশ মেঘাচ্ছন্ন, যেকোন সময় বৃষ্টি হতে পারে। এখনো মাঠে অনেক ফসল রয়েগেছে শ্রমিক ও পাওয়া যাচ্ছেনা।
তিনি জানান, এবছর ৭৫ শতাংশ জমিতে চিনাবাদাম চাষ করেছেন। খরচ হয়েছে ১৫ হাজার টাকা। কিন্তু প্রবল বৃষ্টির পানিতে তার বাদাম খেত ডুবে গিয়েছিল। নিচু খেত তাই পানি নামাতে অনেক কষ্ট হয়েছে। এদিকে মাঝে মধ্যে প্রচন্ড রোদ উঠায় গাছ মরে যাচ্ছে এবং চিনাবাদার পচে যাচ্ছে। ফসল কিভাবে রক্ষা করবে তা নিয়ে চিন্তায় পরেছেন তিনি।

একই গ্রামের আবদুল কাদের ৪৫ শতাংশ জমিতে মুগ ফসলের আবাদ করেছেন। খরচ হয়েছে সাগে ৭ হাজার টাকা। প্রচন্ড রোদে ডাল পরিপক্ক হয়ে উঠছে। ইতিমধ্যে একবার খেত থেকে ডাল তুলছেন। কিন্তু দ্বিতীয়বার তোলার আগেই প্রবল বৃষ্টি। এখন তার খেতে মুগডালের গাছের প্রায় অর্ধেক অংশই ডুবে যাওয়ায় ডাল নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।
শুধু কৃষক আবুল কালামই নয় উপকূলীয় রাঙ্গাবালী উপজেলায় রবি ফসলের অনেক খেতই ঘূর্নিঝড় অশনির প্রভাবে প্রবল বৃষ্টির পানিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। ডুবে গেছে মুগডাল ফসলসহ চিনাবাদাম, কাচা মরিচসহ বিভিন্ন রবি ফসলের খেত। দ্রুত ফসল ঘরে তুলে রোদে শুকাতে হবে।
উপজেলার মৌডুবী ইউনিয়নের কৃষকরা জানান, আমরা গাছসহ ডাল একেবারে ঘরে তুলি এবছর এই বৃষ্টির কারনে আমাদের ডাল, চিনাবাদাম, মিষ্টিআলু, মরিচসহ অনেক ফসল নষ্ট হয়েছে। এ ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে পারবো কিনা জানিনা। মৌসুমের শুরুতে তরমুজ দিয়েছিলাম ভাইরাসের কারনে তাও খেতে নষ্ট হয়ে গেছে। সেখানে আমরা অনেকেই তরমুজে লসখেয়েছি এবং ডালসহ অন্যঅন্য ফসল বৃষ্টির পানিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে খেতেই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। যার যার ফসল সে সে ঘরে তুলছে তাই শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছেনা।

রাঙ্গাবালী উপজেলার বিভিন্ন ফসলের খেত ঘুরে দেখা গেছে এখনও খেতে বৃষ্টির পানি জমে রয়েছে। ইতিমধ্যে মুগ ডাল রক্ষা করতে খেত থেকে গাছ উপড়ে তুলে নিয়ে সড়কের পাশে শুকানোর চেষ্টা করছে। চিনা বাদাম মিষ্টি আলু খেতেই ডুবে রয়েছে।
মৌডুবী ইউনিয়নের উপ-সহকারি কৃষি র্কমর্কতা হুমায়ন কবির বলেন, মৌডুবী ইউনিয়নের কৃষকরা ডাল একবারে ঘরে তোলেন তাই তাদেও এই বৃষ্টিতে ডালের ক্ষতির পরিমার অন্য এলাকার চেয়ে একটু বেশি। তার পরেও আমরা কৃষকদের মাঠ র্পযায়ে পরার্মশ দিয়ে যাচ্ছি।

রাঙ্গাবালী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান বলেন, ঘূনিঝড় অশনির প্রভাবে ভারী বৃষ্টিপাত হয়েছে। নিচু জমিগুলোতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে ফসলের খেত আক্রান্ত হয়েছে । কৃষকদের ক্ষতি এড়াতে উপজেলা কৃষি বিভাগ থেকে মাঠে কৃষকদের পরামর্শসহ জলাবদ্ধতা থেকে ফসল রক্ষায় কাজ করছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম