1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
রাঙ্গাবালীতে দুই বার চাল বিতরনে ২৭,৭০০ কেজি চাল উধাও! - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ০১:৫২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
শিক্ষক হেনস্তায় নিন্দা, প্রতিবাদ ও শাস্তির দাবি কুবি শিক্ষক সমিতির তিতাসে সাংবাদিক শামসুদ্দিন আহমেদ সাগরের জন্মদিন পালন মীরসরাইয়ে অপরিকল্পিত রাস্তা নির্মাণের কারণে পানি বন্দি কয়েক হাজার মানুষ মীরসরাইয়ে প্রথমদিনে ৫ ইউনিয়নে টিসিবির পণ্য বিতরণ সাতকানিয়া পৌরসভায় ৫৮ কোটি ৪৩ লাখ টাকার বাজেট ঘোষণা বাবা-মায়ের কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শা‌য়িত ডাঃ মুমিনুল হক চৌধুরী নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে কাভার্ড ভ্যানের চাপায় নিহত ৫, আহত ৪ সৈয়দপুর পৌরসভার ১৭১ কোটি ২৮ লাখ টাকার বাজেট ঘোষণা করলেন মেয়র রাফিকা আকতার জাহান চন্দনাইশে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে আটক-৪ মান্দায় যুবলীগ নেতার ওপর হামলা, গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ

রাঙ্গাবালীতে দুই বার চাল বিতরনে ২৭,৭০০ কেজি চাল উধাও!

পটুয়াখালী প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৫ জুন, ২০২২
  • ৮৪ বার

গত ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসে আমাদের ৩ জন কে ৩০ কেজি বস্তার ৭ বস্তা চাল দিয়েছে। ৮০ কেজি করে চাল পাওয়ার কথা থাকলেও আমি বাড়িতে গিয়ে চাল ওজন কের দেখি ৭০ কেজি চাল আছে। আবার এ মাসে চালের খরচ বাবদ নাম প্রতি ১০০ করে নিছে যাতে করে ৮০ কেজি থেকে চাল কম না পাই। ৭ নাম্বার ওয়ার্ডের মেম্বার তোস্তাফিজুর রহমান সোহাগ তালুকদারের পক্ষে ওই ওয়ার্ডের মিরাজ সিকদার সকলের কাছ থেকে ১০০ টাকা করে উঠাইছে এবং আমি নিজেও টাকা দিছি, ১০০ টাকা দেওয়ার পরেও ৫ কেজি চাল কম পাইছি এবার পেলাম ৭৫ কেজি একতো সাগরে যাওয়া নিষেধ দ্বিতীয় হচ্ছে চাল কমদিলে পরিবার নিয়ে খাবো কি? একথা বলেছেন বড়বাইশদিয়া ইউনিয়নের ৭ নাম্বার ওয়ার্ডের শুকুর সিকদার সহ অনেক জেলেই।

টাকা উঠানোর বিষয়ে প্রতিবেদক মিরাজ সিকদারের কাছে জানতে চাইলে মিরাজ বলেন, সোহাগ মেম্বার আমারে বলেছে চাল আনতে খরচ আছে মোতর এলাকার সব জেলের কাছ থেকে ১০০ করে টাকা উঠাও আমি টাকা উঠাইয়া সোহাগ মেম্বার কে দিছি। (ভিডিও রেকর্ড প্রতিবেদকের কাছে সংরক্ষিত আছে)
৭ নাম্বার ওয়ার্ডের মেম্বার তোস্তাফিজুর রহমান সোহাগ কে ফোন দিলে সে কল রিসিভ করেনি। (০১৭১৬…৫৯০)
খোজ নিয়ে জানাযায়, রাঙ্গাবালী উপজেলায় জেলেদের মাঝে ভিজিএফের বরাদ্দকৃত চাল বিতরণে এমাসেও অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। জন প্রতি ৮০ কেজি করে চাল বরাদ্দ থাকলেও দেওয়া হয়েছে ৭৫ কেজি চাল। সাগরে মাছ ধরার নিষিদ্ধ সময়ে মানবিক সহায়তা কর্মসূচির আওতায় জেলেদের এই চাল দেয়া হয়েছে। ৬৫ দিন সাগরে সকল প্রকার মাছ ধরা নিষিদ্ধ করেছে সরকার।

উপজেলার বড়বাইশদিয়া ইউনিয়নের ১৭৪০ জন জেলের মাঝে চাল বিতরণের কার্যক্রম শুরু হয়। বড়বাইশদিয়া ইউনিয়নের তুলাতলী লঞ্চঘাট এলাকায় চাল বিতরণ করা হয়েছে।
জেলেরা জানান, এমাসে ২জনকে ৫০ কেজি ওজনের ৩ বস্তা করে চাল দেয়া হয়েছে, এতে জন প্রতি ৭৫ কেজি করে চাল পাইছি। এবার চাল পেয়েছেন বেশ কয়েকজন জেলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রতিবেদককে জানান, আমাদেরকে জন প্রতি ৭৫ কেজি করে চাল দেয়া হচ্ছে, কিন্তু ৭৫ কেজিও পাচ্ছি না, ৫০ কেজির বস্তায় ২/১ কেজি করে চাল কম হয়েছে।

বড়বাইশদিয়া ইউনিয়নের আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের সভাপতি জানান, চেয়ারম্যান জেলেদের কার্ড যাচাই বাছাই ছাড়াই তার ইচ্ছে মত নাম দিয়ে চাল বিতরণ করেছেন। এবিষয়ে আমি চেয়ারম্যানকে যাচাই বাছাই করে অরিজিনাল জেলেদের চাল দেয়ার কথা বলছি হিসাব করলে দেখা যায়,গত ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসে ১৯০০ জন জেলের নামের চাল ১০ কেজি করে কম দিলে ১৯,০০০ কেজি চাল অবশিষ্ট থাকে এবং এপ্রিল ও মে মাসে ১৭৪০ জন জেলের নামের চাল ৫ কেজি করে কম দিলে ৮,৭০০ কেজি চাল অবশিষ্ট থাকে ২ বারের এচাল বিতরনে মোঠ চাল থাকে ২৭,৭০০ কেজি। প্রশ্ন ওঠে কোথায় যায় এ চাল ? নাকি চাল বিক্রি পকেট ভারি করে পরিষদ সংশ্লিষ্টরা জেলেদের এই অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে বড়বাইশদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ ফরহাদ হোসেন মুঠোফোনে ৭৫ কেজি করে চাল দেয়ার কথা শিকার করে বলেন, আমাদের বিভিন্ন খরচা পাতি আছে এজন্য ৭৫ কেজি করে চাল দেয়া হচ্ছে। এবিষয়ে ইউএনও ও মৎস্য অফিস অবগত কিনা প্রতিবেদকের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তারা এ বিষয় অবগত নন ( কল রেকর্ড প্রতিবেদকের কাছে সংরক্ষিত আছে)
নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রতিবেদককে পরিষদের এক সদস্য জানান, চেয়ারম্যান সাহেব বলছে গোডাউনে চাল লোড আনলোড এবং ট্রলার ভারা বাবদ ১,২৬০০০ টাকা খরছ দেয়া লাগে তাই সে প্রতি জনের মাথা থেকে ৫ কেজি করে কম দিচ্ছে।( কল রেকর্ড প্রতিবেদকের কাছে সংরক্ষিত আছে)
এপ্রিল ও মে মাসের, চাল বিতরণ এর সময় ট্যাগ অফিসার অনাদি কুমার বাহাদুর চাল দেয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন না। তার পক্ষে একজন প্রতিনিধি দেয়া হলেও তিনি কিছুক্ষন চাল বিতরণ স্থানে থেকে চলে যান।
ট্যাগ অফিসারের প্রতিনিধিত্ব করা টুংগিবাড়িয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক শুভঙ্কর দাস বলেন, আমি ছিলাম চাল বিতরণের সময়। কত কেজি করে চাল দেয়া হচ্ছে এমন পেশ্নের উত্তরে তিনি বলেন,৭৫ কেজি করে দেয়া হয়েছে।
মৎস্য অফিসের প্রতিনিধি ইমরান বলেন,আমার কাজ পর্যবেক্ষন করা কোন অনিয়ম চচ্ছে কিনা আমি পর্যবেক্ষন করছি , ৮০ কেজি করে চাল দেয়ার কথা সেখানে ৭৫ কেজি করে চাল দেয়া হচ্ছে এমন পেশ্নের উত্তরে তিনি বলেন ৭৫ কেজি দেয়া হচ্ছে। এলাকাবাসীর দাবি তাহলে এখানে অনিয়ম হচ্ছে কিনা?
এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মাশফাকুর রহমান বলেন, চাল ওজনে কম দিতে পারবেনা। কেউ ক্যারিং খরচ দেখাতে পারবেনা। গভরর্মেন্ট থেকে সবাইকে খরচ দিয়ে দেয়া হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম