1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
কুষ্টিয়ায় ধান-চাল সংগ্রহের লক্ষমাত্রা পূরণে শঙ্কা - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:৩৪ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
৫২ তে পা দিলেন সাংবাদিক জ,ই, বুলবুল সোনারগাঁয়ের সেই জি কে শামীমসহ তার সাত দেহরক্ষীর রায় ঘোষণা আজ মাগুরায় নানা কর্মসূচি মধ্য দিয়ে ‘শেখ রাসেল দিবস’ উপলক্ষে প্রতিযোগিতা ও মীনা দিবস পালিত চন্দ্রগঞ্জে সুধীজনদের সঙ্গে মতবিনিময় করলেন লক্ষ্মীপুর পুলিশ সুপার রাউজানে কিডনি রোগে আক্রান্ত রিফাতের জীবন বাঁচতে সাহায্যের আবেদন সিরাজদিখানে রাস্তার নির্মান কাজের অগ্রগতি হয়ায় দোয়া ট্রেনে উঠতে গিয়ে বাবার সামনে প্রাণ গেলো বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রের হালদা-সর্তার খালের চরে উৎপাদ হচ্ছে কোটি টাকার আঁখ,কলা,পেঁপে সবাই কে কাদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন কেপটাউন কমিউনিটির প্রিয় মুখ সোহেল ভাই। গাজীপুরে নানাকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে নাতী আটক

কুষ্টিয়ায় ধান-চাল সংগ্রহের লক্ষমাত্রা পূরণে শঙ্কা

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৩০ আগস্ট, ২০২২
  • ১৭ বার

কুষ্টিয়ায় চলতি মৌসুমের ধান চাল সংগ্রহ অভিযানের লক্ষমাত্রা অর্জন করতে পারছে না খাদ্য বিভাগ । সরকার নির্ধারিত ধামের চাইতে খুচরা বাজারে ধান এবং চালের মুল্য বেশি থাকায় এই অবস্থা বলে দাবী করছে খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তাসহ সংস্লিষ্টরা। এর আগে প্রায় প্রতি বছর চাল সংগ্রহ অভিযান শতভাগ সফল হলেও চলতি খাদ্য সংগ্রহ অভিযানে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত না হওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে। জেলা খাদ্য বিভাগের দেওয়া তথ্য মতে, বোরো মৌসুমে ৪০ টাকা কেজি দরে ৪২ হাজার ৬৭৪ মেট্রিকটন চাল এবং ২৭ টাকা কেজি দরে ৪হাজার ৮৩৫ মেট্রিকটন ধান কেনার লক্ষমাত্রা নির্ধারন করা হয়। চলতি বছরের ১২ মে তারিখে শুরু হওয়া এই খাদ্য সংগ্রহ অভিযান চলবে ৩১ আগষ্ট পর্যন্ত। সময় প্রায় শেষ হয়ে গেলেও এখনো লক্ষ মাত্রা অর্জনে অনেকটাই পিছিয়ে আছে জেলা খাদ্য বিভাগ। আর এই চিত্র দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম চালের মোকাম বলে পরিচিত কুষ্টিয়া জেলার। কুষ্টিয়া জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় এবং জেলার দুটি খাদ্য গুদাম থেকে পাওয়া তথ্য মতে জানাযায়. চলতি বছরের মে মাস থেকে কুষ্টিয়াসহ সারা দেশে মিল মালিকদের নিকট হতে সরকারিভাবে একযোগে চাল সংগ্রহ অভিযান শুরু হয়। এ বছর কুষ্টিয়া জেলায় চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ৪২ হাজার ৬৭৪ মেট্রিকটন । এর মধ্যে কুষ্টিয়া সদর উপজেলায়ই চাল সংগ্রহের টার্গেট নির্ধারণ করা হয় ৩৭ হাজার ৪৯৪ মেট্রিক টন। এরমধ্যে কুষ্টিয়া সদর বড়বাজার খাদ্যগুদামে ১৮,৯০০ মেট্রিক টন, জগতি খাদ্যগুদামে ১৮, ৫৯৫ মেট্রিক টন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। কুমারখালীত খাদ্যগুদামে ১১৬৯ মেট্রিক টন ও খোকসা খাদ্যগুদামে ১৮১ মেট্রিক টন, মিরপুর খাদ্যগুদামে ১২২০ মেট্রিক টন, হালসা খাদ্যগুদামে ৯৯৪, দৌলতপুর খাদ্যগুদামে ১৫৫৫ মেট্রিক টন ও ভেড়ামারা খাদ্যগুদামে ৬১মেট্রিক টন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়।

জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় থেকে এ বছর চাল সংগ্রহ অভিযানের জন্য জেলার ৪৬৯ মিল মালিকের সাথে লিখিত চুক্তি করা হয়। কিন্তু চাল সংগ্রহ অভিযানের শুরুতেই সরকার নির্ধারিত দরের চেয়ে চালের বাজার মূল্য বেশি হওয়ায় সংগ্রহ অভিযানের শুরুতেই প্রচন্ড বেগ পেতে হয়। খাদ্য বিভাগের পক্ষ থেকে দফায় দফায় তাগাদা প্রদানের পরও মিলারদের মধ্যে চাল সরবরাহে অনীহা দেখা যায়। চলতি বছরের ৩১ আগষ্ট চাল সংগ্রহ অভিযান শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। জেলার সাতটি খাদ্য গুদাম বড় বাজার, জগতি, কুমারখালী, খোকসা, মিরপুর, হালসা এবং দৌলতপুর খাদ্য গুদামে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এখন পর্যন্ত ৮২ দশমিক ৭৬ ভাগ চাল সংগ্রহ করা সম্ভব হয়েছে। এর মধ্যে বড় বাজার খাদ্য গুদামে ১৮ হাজার ৯শ মে: টন লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে সংগ্রহ করা গেছে ১৬ হাজার ৫৫৬শ মেট্রিক টন । আর জগতি খাদ্য গুদামে ১৮ হাজার ৫শ ৯৫ মেট্রিক টন লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে সংগ্রহ হয়েছে ১৫ হাজার মেট্রিক টন । মিরপুর খাদ্য গুদামে ১ হাজার ২শ ২০ মেট্রিক টন লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে সংগ্রহ হয়েছে ৯শ ৯৫ মেট্রিক টন । হালসা খাদ্য গুদামে ৯শ ৯৪ মেট্রিক টন লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে সংগ্রহ হয়েছে ৬শ ৮৬ মেট্রিক টন। কুমারখালী খাদ্য গুদামে ১ হাজার ১শ ৬৯ মেট্রিক টন লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে সংগ্রহ হয়েছে ১ হাজার ৮৯ মেট্রিক টন। খোকসা খাদ্য গুদামে ১শ ৮১ মেট্রিক টন লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে সংগ্রহ হয়েছে ১শ ৬১ মেট্রিক টন। দৌলতপুর খাদ্য গুদামে ১ হাজার ৫শ ৫৫ মেট্রিক টন লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে সংগ্রহ হয়েছে ১ হাজার ৭১ মেট্রিক টন। ভেড়ামারা খাদ্য গুদামে ৬১ মেট্রিক টন লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে সংগ্রহ হয়েছে ০০ মেট্রিক টন। খাদ্য গুদামের কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে জানাযায়, বিগত বছরগুলোতে কুষ্টিয়া জেলায় সরকারিভাবে চাল সংগ্রহ অভিযান শত ভাগ সফল হয়ে আসছে। কিন্তু এ বছর কোন ভাবেই শত ভাগ লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হওয়ার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না। এদিকে চলতি বছরে ৪হাজার ৮৩৫ মেট্রিক টন ধান কেনার লক্ষমাত্রা নির্ধারন করা হলেও এখন পর্যযন্ত মাত্র ১৪ শ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহ হয়েছে। যা মোট লক্ষ মাত্রার ২৯ ভাগ। জ্বালানী তেলের মূল্য বৃদ্ধির পর থেকেই সংগ্রহ অভিযানে স্থবিরতা নেমে এসেছে। দফায় দফায় তাগাদা দেয়া সত্বেও মিলাররা কোন ভাবেই চাল সরবরাহ করছে না জানান সংস্লিষ্টরা । ৪৬৯ জন মিল মালিকের মধ্যে ২৫ টি হাসকিং মিল মালিক একেবারেই চাল সরবরাহ করেনি বলে জানা গেছে। এসব বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ অটো মেজর এন্ড হাসকিং মিল মালিক সমিতি কুষ্টিয়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন প্রধান বলেন, মিলগেটে বর্তমানে স্বর্ণা মোটা চাল ৫০ থেকে ৫১ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। আর খুচরা বাজারে এই স্বর্ণা চাল ৫২ থেকে ৫৩ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়াও বাজারে বর্তমানে ধানের দামও বেশ চড়া। বাজারে মোটা ধান ১১শ থেকে ১২শ টাকা মণ দরে বিক্রি হচ্ছে। লোকসান হওয়ার কারণে মিলাররা চাল সরবরাহ করতে চাচ্ছে না। তিনি আরো বলেন, সরকারের উচিত ছিল দাম সমন্বয় করা। তাহলে মিলারদের এত লোকসানের মুখে পড়তে হতো না। ধানের ক্ষেত্রেও অভিযোগ। গোডাউনে ধান দিতে বিভিন্ন রকমের ভোগান্তি এবং খুচরা বাজারে ধানের দাম বেশি থাকায় সরকারের কাছে ধান বিক্রিতে অনিহা দেখাচ্ছে কৃষকরা।

ধান এবং চাল সংগ্রহ অভিযান প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কুষ্টিয়া জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক সুবীর নাথ চৌধুরী বলেন, তেলের মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে চালের দামও বেড়ে গেছে। যে কারণে মিলারদের লোকসান হওয়ায় সরকারিভাবে চাল সংগ্রহ অভিযানে আগ্রহ দেখাচ্ছে না। সংগ্রহ অভিযানের গতি কমে গেছে। তবে পরিবেশ-পরিস্থিতি অনুকূলে না থাকলেও ইতোমধ্যেই ৮২.৭৬ শতাংশ চাল সংগ্রহ করা সম্ভব হয়েছে। আশা করছি নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই ৯০ থেকে ৯২ ভাগ চাল সংগ্রহ করা সম্ভব হবে। যে সমস্ত মিলাররা চাল সংগ্রহ করা থেকে বিরত থাকবে তাদের মোট বরাদ্দের যে ২ পার্সেন্ট হারে সিডি জামানত রয়েছে তা বাজেয়াপ্ত ঘোষণাসহ তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের অংশ হিসেবে কালো তালিকাভুক্ত করে ২ থেকে ৪ মৌসুমের জন্য বরাদ্দ বাতিল ঘোষণা করা হবে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম