1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
রাজশাহীতে আশঙ্কা জনক হারে লাভজনক ফসলের চাষ করছেন কৃষকরা - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:২৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
৫২ তে পা দিলেন সাংবাদিক জ,ই, বুলবুল সোনারগাঁয়ের সেই জি কে শামীমসহ তার সাত দেহরক্ষীর রায় ঘোষণা আজ মাগুরায় নানা কর্মসূচি মধ্য দিয়ে ‘শেখ রাসেল দিবস’ উপলক্ষে প্রতিযোগিতা ও মীনা দিবস পালিত চন্দ্রগঞ্জে সুধীজনদের সঙ্গে মতবিনিময় করলেন লক্ষ্মীপুর পুলিশ সুপার রাউজানে কিডনি রোগে আক্রান্ত রিফাতের জীবন বাঁচতে সাহায্যের আবেদন সিরাজদিখানে রাস্তার নির্মান কাজের অগ্রগতি হয়ায় দোয়া ট্রেনে উঠতে গিয়ে বাবার সামনে প্রাণ গেলো বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রের হালদা-সর্তার খালের চরে উৎপাদ হচ্ছে কোটি টাকার আঁখ,কলা,পেঁপে সবাই কে কাদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন কেপটাউন কমিউনিটির প্রিয় মুখ সোহেল ভাই। গাজীপুরে নানাকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে নাতী আটক

রাজশাহীতে আশঙ্কা জনক হারে লাভজনক ফসলের চাষ করছেন কৃষকরা

টিপু সুলতান, রাজশাহী প্রতিনিধি:
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২২ আগস্ট, ২০২২
  • ৩২ বার

রাজশাহীতে জমির সীমাবদ্ধতায় গত কয়েক বছরের তুলনায় রাজশাহী অঞ্চলে কমেছে ৩৬ হাজার ৩৫১ মেট্রিক টন ভুট্টার উৎপাদন। গত বৃহস্পতিবার এ বিষয়ে কথা হয় রাজশাহী কৃষি সম্প্রাসরণ অধিদফতরের সহকারী উপ পরিচালক মো. তৌফিকুর রহমানের সঙ্গে।
তিনি বলেন, চাষযোগ্য জমির সীমাবদ্ধতায় আবাদ ও উৎপাদন কমার অন্যতম কারণ। তাছাড়া বিগত বছরের তুলনায় চাষিরা আলু, পেঁয়াজ, পাট ও সরিষাসহ অন্যান্য ফসল চাষে লাভবান হওয়ায় নিজ জমিতে ভুট্টার আবাদ কমিয়েছেন।

রাজশাহী কৃষি সম্প্রাসারণ দফতরের তথ্য পর্যালোচনায় দেখা গেছে, ২০১৯-২০ অর্থবছরে রবি ও খরিপ মৌসুমে আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয় ১৯ হাজার ৬১২ হেক্টর সেখানে আবাদ হয় ১৮ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে। লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় এক হাজার ১১২ হেক্টর জমিতে কম আবাদ হয়। অপরদিকে, রবি ও খরিপ মৌসুম মিলিয়ে মোট উৎপাদন হয় এক লাখ ৫৬ হাজার ৪১৬ মেট্রিক টন। গড় ফলন আসে ৭ দশমিক ৯৩ মেট্রিক টন।

পরের বছর (২০২০-২১) রবি-খরিপ মৌসুমে আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয় ২০ হাজার ১৬৫ হেক্টর। কিন্তু আবাদ হয় ২০ হাজার ৭৯০ হেক্টর। এ বছর আবাদ বৃদ্ধি পায় ৬২৫ হেক্টর। দুই মৌসুমে উৎপাদন আসে এক লাখ ৭৬ হাজার ৭১২ মেট্রিক টন যা গত বছরের চেয়ে ২০ হাজার ২৯৬ মেট্রিক টন বেশি ফলন উৎপাদিত হয়।

তবে চলতি বছর (২০২১-২২) দুই মৌসুমে আবাদ লক্ষ্যমাত্রা ২১ হাজার ৮৪০ হেক্টর ধরা হলেও অন্যান্য লাভজনক ফসল চাষের কারণে ভুট্টার আবাদ হয় ১৮ হাজার ২১৬ হেক্টর। এতে লক্ষ্যমাত্রার চেয়েও ৩ হাজার ১২৪ হেক্টর জমিতে ভুট্টার কম আবাদ দেখা যায়। এতে রবি ও খরিপ মিলিয়ে মোট উৎপাদন মেলে এক লাখ ৪০ হাজার ৩৬১ মেট্রিক টন। গত বছরের তুলনায় চলতি বছরে উৎপাদন কমে দাঁড়ায় ৩৬ হাজার ৩৫১ মেট্রিক টন।

রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ সূত্রে জানা গেছে, যেসব জমিতে ভুট্টার আবাদ হতো সেখানে আলু ও পেঁয়াজের চাষ হচ্ছে। বাজারে দাম বেশি পাওয়ায় আশায় চলতি বছরেই রাজশাহী অঞ্চলের চাষিরা ২০০০ হেক্টর জমিতে আলু ও ৩০০০ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ চাষ করছেন। আবার গত বছর থেকে হুট করেই বেড়েছে সয়াবিন তেলসহ সরিষা তেলের মূল্য। আর তাই চাষিরা প্রায় ৫০০ হেক্টর জমিতে চাষ করছেন। সম্প্রতি পাট ও গমের মূল্যও ভালো পাওয়ার কারণে কৃষকরা এসব ফসল চাষ করার জন্য ভুট্টার আবাদ ও উৎপাদন কমেছে।

এছাড়াও উন্নত বীজ, কৃষিতে উন্নত প্রযুক্তির ব্যবহার এবং কৃষি সম্প্রসারণ দফতরের পরামর্শে চাষিরা রবি শস্যসহ গ্রীষ্মকালীন বিভিন্ন ফসলের দিকেও ঝুঁকছেন। এতে একটি নির্দিষ্ট এলাকায় সীমাবদ্ধ জমিতে লাভজনক ফসলের চাষাবাদের কারণে তুলনামূলকভাবে কমেছে ভুট্টার আবাদ ও উৎপাদন।

গোদাগাড়ী গড়ের মাঠের কৃষক মোঃ এনামুল হক নামের এক ভুট্টাচাষি জানান, গেল বছর ৩ বিঘা ৫ কাঠা জমিতে প্রায় ৪০ হাজার টাকা খরচ করে ভুট্টা করেছিলেন। এতে মাড়াই করে ভুট্টা শুকিয়ে ফলন পেয়েছেন প্রায় ১শ’ মণের বেশি। প্রথমে সাড়ে ১১শ’ টাকা মণ বিক্রি করলেও পরে বিক্রি করেছেন সাড়ে ১২শ’ টাকা মণ দরে। মোট এক লাখ ২০ হাজার টাকার ভুট্টা বিক্রি করেছেন। খরচ বাদের লাভ টিকেছে প্রায় ৮০ হাজার।

তবে চলতি মৌসুমে মাত্র দেড় বিঘা জমিতে ভুট্টার আবাদ করেছেন। বাকি জমিতে দ্বিগুণ লাভের আশায় করেছিলেন পাটের আবাদ। তবে এবার গত মৌসুমের তুলনায় মেলেনি কাঙ্খিত ফলন। দেড় বিঘা জমিতে মাত্র ২১ মণ ফলন পেয়েছেন কৃষক আজদার সরদার। তবে পাট চাষে খেয়েছেন ধরা। তাই আগামীতে আবারো ভুট্টা চাষে ফিরবেন বলে জানান তিনি।

এ ব্যাপারে রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মো. মোজাদার হোসেন বলেন, কৃষকরা যখন যে ফসলের দাম ভালো পায় তখন সেই ফসলের চাষাবাদের দিকে ঝুঁকে পড়েন। স্বাভাবিকভাবেই গত দুই-তিন বছরে পেঁয়াজ, আলু, সরিষা, পাট ও গমের দাম বাজারে বেশ চড়া। আর তাই তারাও ভুট্টার বদলে এসব ফলস উৎপাদনে ঝুঁকেছেন। এক্ষেত্রে জমির সীমাবদ্ধতাও ভুট্টা চাষ কমার বড় কারণ।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম