1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
উপাচার্যের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় রোষানলে প্রতিবেদক - দৈনিক শ্যামল বাংলা
মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ০৯:৩৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
সৈয়দপুরে এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ বদলে গেছে লালমনিরহাটের তিন বিঘা করিডোর ও দহগ্রাম-আঙ্গরপোতা ছিটমহল চৌদ্দগ্রাম প্রেসক্লাবের উদ্যোগে ৩ দিন ব্যাপী বার্ষিক আনন্দ ভ্রমণ সম্পন্ন চৌদ্দগ্রামে শুভ সংঘের উদ্যোগে অস্বচ্ছল নারীদের সেলাই প্রশিক্ষণের উদ্বোধন ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চললে কেউ অপরাধ করতে পারে না নবীগঞ্জে ঠাকু অনুকূল চন্দ্রের জন্মোৎসবে এসপিআর কালী চরন মন্ডল Pilot video game in Kenya ঠাকুরগাঁওয়ের বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ বীর মুক্তিযোদ্ধা তৈমুর রহমানের ইন্তেকাল ! সুবর্ণজয়ন্তী রোভার মুটে কুবি রোভার স্কাউটদের অংশগ্রহণ ঠাকুরগাঁওয়ে ২৫০কোটি টাকা ঋণের বোঝা ও শতকোটি লোকসান নিয়ে দীর্ঘদিন চালু ছিল চিনিকল দেশসেরা ক্যাডেট ইনসেন্টিভ এওয়ার্ড পেলেন কুবি বিএনসিসির সিইউও সাদী

উপাচার্যের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় রোষানলে প্রতিবেদক

সাঈদ হাসান, কুবি
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ১১১ বার

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সান্ধ্যকালীন কোর্স বন্ধের নির্দেশনা দিলেও নাম পাল্টে উইকেন্ড প্রোগ্রাম চালু রেখেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়। সেখানে খোদ উপাচার্য ক্লাস নেন। এ সংক্রান্ত সংবাদ প্রকাশ করার জেরে এক সাংবাদিক উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এফ এম আবদুল মঈনের রোষানলের শিকার হয়েছেন। এসময় তিনি সংবাদকর্মীকে ধমক দিয়ে সংবাদের জন্য কোনো বক্তব্য দেবেন না বলে জানান।

বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) উপাচার্যের কার্যালয়ে অন্য একটি সংবাদের বিষয়ে তাঁর বক্তব্য নিতে গেলে দেশ রূপান্তর পত্রিকার কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি নাঈমুর রহমান রিজভীকে বিভিন্ন তীর্যক মন্তব্য করেন তিনি।

এসময় উপাচার্য প্রতিবেদককে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘তুমি এটা কী রিপোর্ট করেছো, বলো আমাকে? কীসের জন্য করেছো এই রিপোর্ট? কোনো অসুবিধা হইছে বিশ্ববিদ্যালয়ের? তোমাদের পারপাস (উদ্দেশ্য) কী? বিশ্ববিদ্যালয়র সুনাম নষ্ট করা? তোমরা বসে আছো বিশ্ববিদ্যালয়র মান সম্মান নষ্ট করার জন্য।’

পাশে থাকা অন্যান্য প্রতিবেদকদের উদ্দেশ্য করে উপাচার্য বলেন, ‘তোমরা একটি নিউজ করেছো, উপাচার্য সদুত্তর দিতে পারে নাই। আমি তো সব উত্তর দিয়েছি, তোমরা বলেছো সুদুত্তর দেয়নি। হাউ ডিয়ারিং দিস গাইস আর (এদের কত বড় সাহস)। হু পেইস ইউ ফর দিস (এসবের জন্য কে তোমাদের টাকা দেয়)? আমি তোমাদর কোনো ইটারভিউ দেব না। তোমাদের কোনো প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার সময় নাই।’

এসময় সংবাদের বিষয়ে প্রতিবেদকদের বক্তব্য না দিয়ে এসব বলে নিজের কার্যালয় থেকে বেরিয়ে যান উপাচার্য।

এ বিষয়ে সংবাদকর্মী নাঈমুর রহমান রিজভী বলেন, ‘একটি সংবাদের বক্তব্য নিতে উপাচার্যের কার্যালয়ে গেলে তিনি প্রকাশিত সংবাদের প্রসঙ্গ টেনে বলেন, ‘তোমাদের কে পেমেন্ট করে? তোমাদের কে চালাচ্ছে? তোমাদের এত সাহস?’

এর আগে গত ১০ সেপ্টেম্বর দেশ রূপান্তর পত্রিকায় ‘নাম বদলে সান্ধ্যকালীন কোর্স’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। ইউজিসি থেকে এসব প্রোগ্রাম বন্ধ রাখার নির্দেশনা থাকলেও নাম বদল করে ‘উইকেন্ড প্রোগ্রাম’ নামে কোর্স চালু রেখেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগে। এর মধ্যে ব্যবস্থাপনা শিক্ষা বিভাগের উইকেন্ড ১৮তম ব্যাচর এমজিটি-৫০৭ কোডের এন্ট্রারপ্রেনিউর ডেভেলপমেন্ট কোর্সের ক্লাস নিয়েছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মঈন। ইউজিসির নির্দেশনাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে খোদ বিশ্ববিদ্যালয়েরই উপাচার্যই এসব প্রোগ্রামে ক্লাস নেওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়জুড়ে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়।

সাংবাদিকদের সাথে এমন আচরণের বিষয়ে উপাচার্যের মন্তব্য জানতে তাঁর মুঠোফোনে একাধিকবার কল করেও কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির বলেন, ‘সাংবাদিকদের উচিত সংবাদ প্রকাশের ক্ষেত্রে পেশাদারিত্ব বজায় রাখা এবং উপাচার্যের উচিত আচরণে পেশাদারিত্ব সমুন্নত রাখা।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম