1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ঠাকুরগাঁওয়ে মিল বন্ধ রেখেও সরকারি বরাদ্দ নিচ্ছেন চালকল মালিকরা । - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:৫৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
৫২ তে পা দিলেন সাংবাদিক জ,ই, বুলবুল সোনারগাঁয়ের সেই জি কে শামীমসহ তার সাত দেহরক্ষীর রায় ঘোষণা আজ মাগুরায় নানা কর্মসূচি মধ্য দিয়ে ‘শেখ রাসেল দিবস’ উপলক্ষে প্রতিযোগিতা ও মীনা দিবস পালিত চন্দ্রগঞ্জে সুধীজনদের সঙ্গে মতবিনিময় করলেন লক্ষ্মীপুর পুলিশ সুপার রাউজানে কিডনি রোগে আক্রান্ত রিফাতের জীবন বাঁচতে সাহায্যের আবেদন সিরাজদিখানে রাস্তার নির্মান কাজের অগ্রগতি হয়ায় দোয়া ট্রেনে উঠতে গিয়ে বাবার সামনে প্রাণ গেলো বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রের হালদা-সর্তার খালের চরে উৎপাদ হচ্ছে কোটি টাকার আঁখ,কলা,পেঁপে সবাই কে কাদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন কেপটাউন কমিউনিটির প্রিয় মুখ সোহেল ভাই। গাজীপুরে নানাকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে নাতী আটক

ঠাকুরগাঁওয়ে মিল বন্ধ রেখেও সরকারি বরাদ্দ নিচ্ছেন চালকল মালিকরা ।

মোঃ মজিবর রহমান শেখ,,
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৬ বার

সারা বছর ঠাকুরগাঁও জেলায় হাস্কিং মিলগুলো বন্ধ থাকলেও মৌসুমে ঠিকই পাচ্ছে গুদামে সরবরাহের সরকারি বরাদ্দ। আর বিষয়টি জেনেও ঠাকুরগাঁও জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কার্যালয় কর্তৃপক্ষ বন্ধ থাকা মিল মালিকদের দিচ্ছে সরকারি সুযোগ সুবিধা।

জানা গেছে, ঠাকুরগাঁও জেলায় হাতেগোনা দু-একটি হাস্কিং মিল ছাড়া সবগুলোই বন্ধ হয়ে গেছে। চালকলে স্থাপন করা ধান ভাঙার উপকরণগুলো হয়ে পড়েছে অকার্যকর। পরিত্যক্ত হয়ে পড়ে আছে শত শত একর জমি। উত্তরের ঠাকুরগাঁও এ জেলায় এক সময়ে গড়ে ওঠা দেড় হাজারের বেশি হাস্কিং মিলে গড়ে প্রতিদিন সহস্রাধিক শ্রমিক কাজ করলেও এখন বেকার হয়ে পড়েছেন। অটোমিল মালিকদের উৎপাদিত চকচকে চালের বাজারে টিকে থাকতে না পারায় একে একে বন্ধ হয়েছে ঠাকুরগাঁও জেলার হাস্কিং মিলগুলো। তবে সারা বছর বন্ধ থাকলেও বছরের বোরো ও আমন মৌসুমে দু-একটি মিল চালু দেখালেও বেশিরভাগ মিল মালিকরা কৌশলে নিচ্ছেন সরকারি গুদামে চাল সরবরাহের বরাদ্দ। এ অবস্থায় কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন বলে মনে করছেন সবাই। চালকল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সন্তোষ কুমার আগরওয়ালা জানান, সরকারের নীতিমালায় যদি যোগ করা হয় সারা বছর মিল চালু রেখে কতটুকু বিদ্যুৎ খরচ হয়েছে। তাহলে মিল বন্ধ রেখে বরাদ্দ নিচ্ছে নাকি খোলা থাকছে এটি পরিষ্কারভাবে উঠে আসবে।

এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মনিরুল ইসলাম জানান, সারা বছর মিলগুলো বন্ধ থাকে এটা সত্য। তবে মৌসুমে মিলগুলো চালু থাকে বলে দাবি তার। তবে সারা বছর কীভাবে মিলগুলো চালু রাখা যায় সে বিষয়ে মিলারদের সঙ্গে আলোচনা চলছে।

ঠাকুরগাঁও জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কার্যালয়ের তথ্য মতে, চলতি বোরো মৌসুমে ৩২ হাজার ৭১৩ মেট্রিকটন চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে ২২টি অটো রাইসমিল ও ৮৯৪টি হাস্কিং মিল মালিককে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম