1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
রাজধানীতে ঘুরে বেড়াচ্ছে স্বর্নচোরাচলানী ব্যাবসায়ী - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:৩৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
ঠাকুরগাঁওয়ে সীমান্ত হত্যা ও বিদেশী আগ্রাসন বন্ধের দাবীতে লাশের মিছিল ! নবীগঞ্জে শাখা বরাক বাঁচাতে পদযাত্রা পরিবেশ রক্ষায় নাগরিক আন্দোলনে এগিয়ে আসুন গাজীপুরে ১৫ ঘন্টায় তিনজনের আত্মহত্যা গাজীপুরে সিটি কর্পোরেশনের ময়লার গাড়ির ধাক্কায় শ্রমিকের মৃত্যু শ্রীপুরের বরমী থেকে একটি বিদেশি পিস্তল,১ রাউন্ড গুলি ও ১০০পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার-১ বাঁশখালীতে বেকারির শ্রমিক হত্যাকান্ডের আসামী মাহাবুব গ্রেপ্তার কুবিতে বিজ্ঞান উৎসব অনুষ্ঠিত। চৌদ্দগ্রামে সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক এমপিকে মুক্তিযোদ্ধাদের ফুলেল শুভেচ্ছা মাগুরায় সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা, আটক-৩ মাগুরায় শহিদ ও মৃত মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

রাজধানীতে ঘুরে বেড়াচ্ছে স্বর্নচোরাচলানী ব্যাবসায়ী

নিজস্ব প্রতিবেদক ঃ
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ১৩৭ বার

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ধরাছোঁয়া’র বাইরে রাজধানীতে ঘুরে বেড়াচ্ছে স্বর্নচোরাচলানী ব্যাবসায়ী। একটি বেসরকারি ব্যাংকের কর্পোরেট প্রধান হিসেবে কর্মরত জাবেদ ইকবাল নামে ওই স্বর্ন চোরাচালানকারীর সহযোগী একই ব্যাংকের গুলশান শাখার সাবেক কর্মকর্তা ওয়াসিকুল ও তার স্ত্রী শাহরুখ চৌধুরী (লিনা) নামে একাধিক মামলা হলেও ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়ে গেছেন জাবেদ ইকবাল। শাহরুখ-ওয়াসিকুলের দাবি তাদেরকে ফাঁসিয়ে দিয়ে জাবেদ ইকবাল একাই এই অবৈধ ব্যাবসা চালিয়ে যাচ্ছেন।

উল্লেখ্য, রাজধানীর পিংক সিটিতে শাহরুখ চৌধুরীর পরিচালনায় ‘লিনাস থাউজেন্ড থিংস’ নামের একটি বুটিক হাউজ রয়েছে। এই বুটিক হাউজের আড়ালে অনেক দিন ধরেই চক্রটি দুবাই থেকে স্বর্ণ চোরাচালান করে আসছে। আবার পোশাক কেনার নামে কোটি কোটি টাকা পাচারও করে আসছেন চক্রটি। বিষয়টি গোয়েন্দা সংস্থা এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরে আসার পর সম্প্রতি স্বপরিবারে রাতারাতি দেশ ছেড়ে পালিয়ে গেছেন তারা। শাহরুখ চৌধুরীর বিরুদ্ধে রাজধানীর পল্লবী থানার একটি মামলায় গ্রেফতারী পরোয়ানাও রয়েছে।

সূত্র জানায়, ইউসিবি ব্যাংকের সাবেক কর্মকর্তার স্ত্রী শাহরুখ চৌধুরী। গুলশান এলাকায় থাকার সুবাদে রাজধানীর পিংক সিটিতে লীনাস থাউজেন্ড থিংস নামে একটি বুটিক শপ খুলে বসেন। প্রতিষ্ঠানটির কয়েকজন পরিচালকের মধ্যে অন্যতম হলো ইউসিবি ব্যাংকের কর্পোরেট শাখার প্রধান জাবেদ ইকবালের স্ত্রী। অনলাইন কেন্দ্রিক ছিল তার বুটিক শপটি। ফেসবুকে লীনা’স থাউজেন্ডস নামে একটি পেজে রয়েছে। সেখানে দেখা যায়, পোশাক এবং ফ্যাশন নির্ভরতাই তাদের ব্যবসা। যার প্রায় সবগুলো পোশাকই পাকিস্তানী এবং ইন্ডিয়ান। এই পোশাকগুলো কিনতে তারা একাধিকবার স্বপরিবারে দুবাই যেতেন। বিভিন্ন অবৈধ চ্যানেলে শুল্ক ফাকির মাধ্যমে এগুলো দেশে আনতেন।

ঢাকা কাস্টমস হাউসের উপ-কমিশনার মো. সানোয়ারুল কবির জানান, গত ৬ ফেব্রুয়ারি দুবাই থেকে ফেরার পথে বিপুল পরিমাণ স্বর্ণ, বিদেশি মদ এবং ১০ লাখ টাকা মূল্যের ওগেমা ব্রান্ডের ঘড়িসহ ইমিগ্রেশনে আটক হন শাহরুখ চৌধুরীর স্বামী সৈয়দ ওয়াসিকুল হক। পরে বিভিন্ন মহলের সুপারিশে জরিমানা এবং মুচলেকা দিয়ে মুক্তি মিললেও বিষয়টি নিয়ে তৎপরতা চালায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

তিনি আরও বলেন, তার স্বামী সৈয়দ ওয়াসিকুলকে ছেড়ে দেয়া হলেও তার পাসপোর্ট এবং সাথে থাকা ক্রেডিট কার্ড অনুসন্ধান করে নানা তথ্য পেয়েছে শুল্ক বিভাগ। শাহরুখ চৌধুরী সংযুক্ত আরব আমিরাতের পিআর পাসপোর্টের (নং ২৬৭৩৪৮০৮) অধিকারী। পাসপোর্ট পর্যালোচনা করে দেখা যায়, অস্বাভাবিক ঘন ঘন সংযুক্ত আরব আমিরাত যাতায়াত করেন তিনি। প্রতিবারই সেখান থেকে বিপুল পরিমাণ স্বর্ণসহ মূল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে ঢাকায় ফেরেন। যা এতদিন গোয়েন্দাদের চোখ ফাঁকি দিলেও আটকের পর বিষয়টি নিয়ে সকলের নজরে আসে।

গোয়েন্দা শুল্ক সূত্র জানায়, শাহরুখ চৌধুরী ওরফে লীনা বুটিক ব্যবসার অন্তরালে দুবাই থেকে স্বর্ণলংকার এবং মূল্যবান জিনিসপত্র চোরাচালানের মাধ্যমে বাংলাদেশে আনেন। এই কাজ তিনি ২০১৮ সাল থেকে করে আসছেন। মূলত হুন্ডির মাধ্যমে টাকা পাঠানো হয় দুবাইয়ে। তারপর নাম মাত্র সেখান থেকে কিছু বুটিক পণ্য আনলেও বেশীরভাগই বিনিয়োগ করেন সংযুক্ত আরব আমিরাতে। সংযুক্ত আরব আমিরাতে তাদের গুড লুকস রেডিমেট গার্মেন্টস ট্রেডিং নামের একটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানেরও সন্ধান পাওয়া গেছে।

এছাড়াও তার ক্রেডিট কার্ড ও জাতীয় পরিচয়পত্রের মাধ্যমে বেশ কিছু ব্যাংক হিসেবেরও তথ্য বেড়িয়ে এসেছে। বেড়িয়ে এসেছে অস্বাভাবিক লেনদেনেরও চিত্র। ভিসা কার্ডের একটি স্টেটমেন্ট পাওয়া গেছে। সেখানে দেখা যায়, গত ২২ ডিসেম্বর সংযুক্ত আরব আমিরাতে একসঙ্গে ৩৪ লাখ টাকার স্বর্ণ কেনেন শাহরুখ চৌধুরীর স্বামী। বিল পরিশোধ করা হয় কেডিট কার্ডের মাধ্যমে। একসঙ্গে বিপুল পরিমাণ স্বর্ণ কেনায় তার ভিসা কার্ডে নগদ ২ হাজার ৯শ ডলার ৭৭ সেন্ট ট্যাক্স রিফান্ড যোগ হয়।

সূত্র জানায়, ওই দাম্পত্তির ৫০ কোটি টাকারও বেশী সম্পদ রয়েছে। তার উল্লেখযোগ্য সম্পদের মধ্যে রয়েছে মিরপুর ডিওএইচ’র ২ নং রোডের ১৬ নং এভিনিউ রোডের ডুপ্লেক্স একটি ফ্ল্যাট, বনশ্রীতে ফ্ল্যাট এবং নামে বেনামে অনেক সম্পত্তি। বিদেশেও রয়েছে বড় বড় বিনিয়োগ। সংযুক্ত আরব আমিরাতে আজমাইন এলাকায় গুডলাক নামের একটি দোকানও রয়েছে তাদের। বিনিয়োগের সুবাদেই দুবাইয়ে স্থায়ী বসবাসের অনুমতি পান তারা।

এসব বিষয় জানতে চেয়ে ওয়াসিকুলের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি শ্যামল বাংলাকে বলেন, আমি চক্রান্তের শিকার। লিনা বুটিক হাউজটি আমার স্ত্রী পরিচালনা করতেন। আমি ইউসিবি ব্যাংকের গুলশান শাখায় কর্মরত ছিলাম। সেই সুবাধে ইউসিবি ব্যাংকের কর্পোরেট বিভাগের প্রধান জাবেদ ইকবালের সাথে আমার ঘনিষ্ঠতা ছিলো। তার স্ত্রীও এই লীনা বুটিক হাউজের একজন পরিচালক। যেই আরব আমিরাতের পিআর পাসপোর্টের কথা আপনারা বলছেন সেটাতো আমি জাবেদ ইকবালের মাধ্যমেই পেয়েছি। তিনি নিজেও এই পাসপোর্টের অধিকারী। তাহলে আমি যদি অপরাধী হই তারাও তো আমার সাথে জড়িত ছিল। কিন্তু তাদের কোনো নাম আসছে না কেনো? ব্যবসায়িক ঝামেলার কারণে শুধুমাত্র আমাকে ফাঁসানো হচ্ছে।

এবিষয়ে জানতে চেয়ে ফোন দেয়া হলে জাবেদ ইকবাল শ্যামল বাংলাকে বলেন, এই ব্যাপারে তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম