1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
বালু বিক্রির টাকা নিয়ে বিতন্ডা শ্রীপুরে পিটিয়ে হত্যার পর গাছে ঝুলানো হয় এনামুলের দেহ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:৩৪ অপরাহ্ন

বালু বিক্রির টাকা নিয়ে বিতন্ডা শ্রীপুরে পিটিয়ে হত্যার পর গাছে ঝুলানো হয় এনামুলের দেহ

শ্রীপুর (গাজীপুর) থেকে ফজলে মমিনঃ
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২২
  • ১২৭ বার

গাজীপুরের শ্রীপুরে লিচু গাছে যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় তিনজনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। বালু বিক্রি টাকা নিয়ে দ্বন্ধের জেরেই ওই যুবককে পিটিয়ে হত্যার পর মরদেহ গাছে ঝুলিয়ে রাখা হয় বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

বৃহস্পতিবার (১৩ অক্টোবর) সকালে র‌্যাব-১ পোড়াবাড়ি ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার এ এস এম মাঈদুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

এঘটনায় গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার বেড়াইদেরচালা গ্রামের মৃত ছিদ্দিক গাজী ছেলে আবুল কাশেম গাজী (৩৩), একই গ্রামের মৃত ইদ্রিস আলীর চেলে মো. ফখরুল ইসলাম (৫০) ও ওই এলাকার ভাড়াটিয়া ময়মনসিংহ জেলার পাগলা থানার চাকুয়া গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে মো. ফালান (৪০) কে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ভিকটিম নিহত যুবক মো. এনামুল হক (৩৭) ময়মনসিংহ জেলার শম্ভুগঞ্জ চর লক্ষীপুর ইসলাম উদ্দিনের ছেলে, সে পেশায় বালু ব্যবসায়ী।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর জেলার শ্রীপুরের টেপিরবাড়ি গ্রামের ইসমাইল মৃধার লিচু বাগান থেকে ঝুলন্ত অজ্ঞাত যুবকের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায় পুলিশ। পরদিন পুলিশ শ্রীপুর থানায় অজ্ঞাত আসামীর নামে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরবর্তী তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় নিহত যুবকের পরিচয় নিশ্চিত করে এবং হত্যার রহস্য উদঘাটনে পুলিশ ও র‌্যাব কাজ শুরু করে।

র‌্যাব জানায়, তদন্তে তথ্যপ্রযুক্তি ও বিভিন্ন সোর্সদের দেয়া তথ্যমতে, পৃথক পৃথক অভিযানে বুধবার (১২ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১১টায় ময়মনসিংহের গৌরীপুর থেকে আবুল কাশেম গাজী, ময়মনসিংহের পাগলা থানার দত্তেরবাজার ঘাট পাগলীরচর এলাকার বালু ট্রলার থেকে ফালান ও একই দিন শ্রীপুরের বেড়াইদেরচালা গ্রামের দুখলা এলাকা থেকে ফখরুল ইসলাম মাষ্টারকে গ্রেফতার করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে তিনটি মোবাইল ফোন ও নগদ উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাবের কাছে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আবুল কাশেম গাজী ও ফালান জানায়, নিহত এনামুল হক একজন বালু ব্যবসায়ী। গত ২৯ সেপ্টেম্বর সকালে বালু বিক্রি টাকা আনতে ফখরুল ইসলামের কাছে যান এনামুল হক। এসময় তাদের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয় এবং এনামুলকে মারধর করে। মারধরের এক পর্যায়ে এনামুল পালিয়ে স্থানীয় খোরশেদ আলমের দোকানের সামনে আসলে আবুল কাশেম গাজী ও ফালান আটকিয়ে এনামুলের কাছে থাকা নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন কেড়ে নিয়ে ফের ফখরুল ইসলাম মাষ্টারের কাছে নিয়ে যান। সেখানে নিয়ে এনামুলকে মারধর করা হয়। এক পর্যায়ে এনামুল অচেতন হয়ে পড়লে তারা তার মৃত্যু হয়েছে বলে নিশ্চিত হন। পরে ওই (২৯ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাতে এনামুলকে চিকিৎসা করানোর কথা বলে পিক আপে তুলে নেয়। পরে তাকে হাসপাতালে না নিয়ে টেপিরবাড়ি গ্রামের ইসমাইল মৃধার লিচু বাগানের লিচু মরদেহ গলায় কাপড় বেঁধে ঝুলিয়ে রাখে।

র‌্যাব কমান্ডার জানান, আসামী আবুল কাশেম গাজীর বাড়ি থেকে ভিকটিম এনামুলের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন ও জাতীয় পরিচয় পত্র পাওয়া গেছে। এব্যাপারে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন আছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম