1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
মুক্তিযোদ্ধা মজিবুরের নাম গেজেটে অর্ন্তভুক্ত করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৫:০১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
শরীয়তপুরে মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে কৃষকদের মানববন্ধন খুটাখালীতে স্বাধীনতা উৎসব উদযাপন পরিষদের মতবিনিময় সভা সম্পন্ন বাঁশখালীতে ওয়াজের দাওয়াত দিয়ে ডেকে নিয়ে মাওলানাকে মারধরের অভিযোগ দেলোয়ার সভাপতি-এরশাদ সম্পাদক চন্দনাইশ প্রেস ক্লাবের কমিটি গঠন ক্ষয়ক্ষতি ৫ লাখ টাকা, চন্দনাইশে দূর্বৃত্তদের আগুনে পুড়েছে ঘর ও দোকান। রাস্তা-ঘাটে কোনো ময়লা আবর্জনা ফেলা যাবে না- এমপি ফজলে করিম লালমনিরহাটে স্কুল ছাত্র সিক্তসহ সকল ছাত্র-ছাত্রীর উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে নিন্দা ও প্রতিবাদ সভা পাঠ্যপুস্তকে ভারতীয় আধিপত্যবাদ স্থান পেয়েছে তা বাতিল করতে হবে – আ ন ম এহসানুল হক মিলন জাতিকে ধর্মহীন করার জন্যই পাঠ্যপুস্তক থেকে মুসলমানদের ধর্ম বিশ্বাসকে বাদ দেওয়া হয়েছে- প্রফেসর চৌধুরী মাহমুদ হাসান লালমনিরহাটের বুড়িমারীস্হল বন্দরের শ্রমিকদের ন্যায্য ৭-দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে ধর্মঘট-সড়ক অবরোধ

মুক্তিযোদ্ধা মজিবুরের নাম গেজেটে অর্ন্তভুক্ত করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ

মোঃ জুয়েল রানা, তিতাস প্রতিনিধি.
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ৯ বার

কুমিল্লা তিতাসে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের হালনাগাদ তালিকায় যোগ করে গেজেটে অর্ন্তভুক্তির জন্য প্রধানমন্ত্রীর ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্টদের বরাবর দৃষ্টি আকর্ষণ করে আকুল আবেদন জানিয়েছেন উপজেলার দক্ষিণ আকালিয়া গ্রামের মৃত সৈয়দ বজলুর রহমানের ছেলে বীর মুক্তিযোদ্ধা মজিবুর রহমান।

আবেদনে তিনি বলেন, ১৯৭১ সালে ৭ ইং মার্চ ঢাকা রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষনের মাধ্যমে স্বাধীনতার দিক নির্দেশনা দেন। ২৫শে মার্চ রাত্রে পাকহানাদার বাহিনী নিরহ বাঙ্গালিদের গুলি করে হত্যা করে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে ২৬ শে মার্চ স্বাধীনতার যুদ্ধ শুরু হয়। উপজেলা বাতাকান্দি গ্রামের মরহুম আবুল বাশার, গাজিপুর গ্রামের মরহুম শফিক মাষ্টার, কদমতলির মরহুম মো. সেলিম, জিয়ারকান্দি গ্রামের মরহুম ওহাব সরকার, দক্ষিণ আকালিয়ার আ. ছালাম ও আমিসহ বাতাকান্দি বাজারে মরহুম আবুল বাশারের নেতৃত্বে অস্থায়ী মুক্তিযোদ্ধা অফিস করেন। সে অফিসের, ভারতে যাবার ও মুক্তিযোদ্ধাদের খরচ বহন করতেন মরহুম বেলায়েত হোসেন সরকার। আমি এবং আমার বন্ধু ছালামসহ কায়েকজন ছাত্র এক সাথে সে সময়ের জুন মাসের প্রথম সপ্তাহে ভারতে গিয়ে হাতিমারা ক্যাম্পে নাম লিখিয়ে গ্রেনেড ও রাইফেল ট্রেনিং নিয়ে দেশে চলে এসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র নেতা নুরে আলম সিদ্দিক হাতিমারা ক্যাম্পে যুদ্ধের বক্তব্য শুনি।

১৯৭১ সালে জুলাই মাসে উপজেলা দক্ষিণ আকালিয়া শিকদার বাড়িতে মুজিব বাহিনীর কমান্ডার শহিদ নজরুল ইসলাম দাউদকান্দি উত্তরের দায়িত্ব নেন এবং ৭ জন মুক্তিযোদ্ধাকে সাথে নিয়ে শহিদ আবুল কাসেম শিকদার বাড়িতে আসেন। তাদের সাথে আমাকে কাসেম সিকদার নজরুল ভাইয়ের গ্রুপে নিলেন এবং ভারতে কি কি ট্রেনিং নিয়েছি তা জানলেন। আগষ্ট মাসে ক্যাপ্টেন গিয়াস ৪০ থেকে ৪৫ জন মুক্তিযোদ্ধা নিয়ে শহিদ আবুল কাসেম শিকদারের বাড়িতে ক্যাম্প করেন। শহিদ নজরুল ও শহিদ আবুল কাসেম এর মধ্যে ক্যাপ্টেন গিয়াস এর যুদ্ধ করার বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে নজরুল আমাদের ক্যাম্পে এক্স সহকারী কমান্ডার মো. বদরুজ্জামান ভাইকে দায়িত্ব বুঝিয়ে দিয়ে শহিদ আবুল কাসেম শিকদারকে সাথে নিয়ে ভারতের উদ্দেশ্যে রওনা হন। এরপর কসবা নামক স্থানে নজরুল ভাই ও কাসেম চাচা সহ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা পাক বাহিনীর হাতে ধরা পরেন এবং পাক বাহিনীরা তাদেরকে হত্যা করেন। অক্টোবর মাসে দাউদকান্দি থানার পাক বাহিনীরা লঞ্চ নিয়ে হোমনা থানার জয়পুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মাহফুজুর রহমানের বাড়িতে আগুন দেয়। তারপর আমাদের গ্রাম দক্ষিণ আকালিয়ার উত্তরের নদী দিয়ে যাওয়ার সময় মজিব বাহিনীর সহকারী কমান্ডার মো. বদরুজ্জামান ভাইয়ের নির্দেশে কমান্ডার মনোয়ার শিকদার গ্রুপ (এফ এফ) এক সাথে লঞ্চটিতে আক্রমন করি। এবং ক্যাপ্টেন গিয়াস উদ্দিনের গ্রুপ হোমনা থানার মুক্তিযোদ্ধারাও লঞ্চটিতে আক্রমন করে। পরবর্তীতে পাকহানাদার বাহিনীদের লঞ্চটি পঞ্চবটি নামক স্থানে আটক করে মুজিব বাহিনী ও মুক্তিযোদ্ধা (এফ এফ) লঞ্চটিতে আক্রমন করি। সে যুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধা মুনিরুল ইসলামের মাথায় গুলি লাগলে তিনি শহিদ হন।

১৯৭১ সালে ১৬ ই ডিসেম্বর বাংলাদেশ বিজয় লাভ করে। ১৯৭২ সালের ১০ই জানুয়ারী আমার প্রিয় নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহামন ঢাকায় আসেন। পরবর্তীতে মুজিব বাহিনী (বি এস এফ) এবং মুক্তিযোদ্ধাদের (এফ এফ) ঢাকা জাতীয় স্টেডিয়ামে বঙ্গবন্ধুর নিকট অস্ত্র জমা দিয়েছি। ১৯৮৫ সালে চালনা কর্তৃপক্ষ বর্তমানে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের জুন মাসে চাকরিতে যোগদান করি। একই শাখায় কর্মরত মরহুম হাবিবুর রহমান ২০০২ সালে ঢাকায় মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রনালয়ে গিয়ে মুক্তিযোদ্ধার সার্টিফিকেট জমা দেন। কিন্তু তখন আমি চাকরি করি বলে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রনালয়ে কোন যোগাযোগ করতে পারায় আমি পাকবাহিনীর সাথে সম্মুখ যোদ্ধা হয়েও বাংলাদেশ সরকার হতে স্বীকৃতি প্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা সনদ ও গেজেট ভুক্ত না থাকায় চাকরিরত অবস্থায় কোন সুযোগ সুবিধা পাইনি।

পরে আমি ২০১৪ ডিসেম্বর মাসে চাকরি থেকে অবসর গ্রহন করে ১১/১২/২০১৯ইং তারিখে মুজিব বাহিনীর সনদ ও অন্যান্য কাগজপত্রসহ মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রনালয়ে জমা দিলেও এখন পর্যন্ত কোন খবর না হওয়ায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী, স্থানীয় সংসদ সদস্য, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা চেয়ারম্যান এর দৃষ্টি আকর্ষন করে অনুরোধ জানিয়েছেন, তার নাম মুক্তিযোদ্ধাদের হালনাগাদ তালিকায় অর্ন্তভুক্ত করে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার সম্মান দেওয়া হয়।
মো. মজিবুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা (বি.এল.এফ) সনদ নং-৩৫৩৮০, ৩১/১২/১৯৫৫ ইং।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম