1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
পরাধীনতাকে বলছি স্বাধীনতা - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৩:২৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
অ্যাডভোকেট রহমত আলীর চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী পালিত! সন্তানকে ভালো মানুষ হিসাবে তৈরি করুন,তাহলেই দেশটা ভালো হয়ে যাবে-ডঃ তাপস সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভাণ্ডারী ট্রাস্ট ৪৫৭ জন শিক্ষার্থীকে ২৬ লক্ষ টাকার বৃত্তির অর্থ প্রদান নদী গুলো খনন করা হলে বদলে যাবে দৃশ্যপট লালমনিরহাটসহ বৃহত্তর রংপুর অঞ্চল দিয়ে বয়ে যাওয়া নদীর চর গুলো সবুজে ঢাকা শোক সংবাদ মানবিকতার অনন্য নির্দশন চন্দনাইশে ২ জুটির বিয়ে দিলেন জেসিকা গ্রুপের জসিম। নবীগঞ্জ শহরে ভয়াবহ সংঘর্ষের ঘটনায় ৩০ জনের নাম উল্লেখ করে ২০০/২৫০জনকে অজ্ঞাত করে পুলিশ এসল্ট মামলা দায়ের মীরসরাইয়ে হরিহরপুর গ্রামে ২৮ তম অষ্টপ্রহর ব্যাপী মহোৎসব শ্রীপুরে বেতন বাড়ানোর দাবিতে মহাসড়ক অবরোধ করে শ্রমিকদের বিক্ষোভ শ্রীপুরে পুলিশী বাধায় বিএনপি’র অনুষ্ঠান পন্ড বন্ধ হওয়া রেল ষ্ট্রেশন দ্রুততম সময়ে চালু করা হবে। রেল মন্ত্রী

পরাধীনতাকে বলছি স্বাধীনতা

আরিফুল হক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০২৪
  • ৪৯ বার
পরাধীনতাকে বলছি স্বাধ
আর চুপ থাকতে পারছিনা। চাপা নিশ্বাসে বুকটা ফেটে যাচ্ছে। চল্লিশ বছর ধরে অকপটে চিৎকার করছি, স্মৃতিতে, সম্বিতে, মননে ফিরে এস। লোভী প্রত্যাশার অন্ধকার আঁকড়ে পড়ে থেকোনা। তোমরা ঘূর্ণিপাকে পড়েছ, ক্রমশ ডুবে যাচ্ছ, অন্ধকারে হারিয়ে যাচ্ছ, ইতিহাস তোমাকে বারবার পথ বলে দিচ্ছে, বাঁচতে আহ্বান জানাচ্ছে, তুমি উপেক্ষার হাসি হাসছো। তুমি বিভ্রান্ত, পথভ্রষ্ট , পরাধীনতাকে বলছ স্বাধীনতা, শিকল বাঁধা হাত পা ‘কে বলছ মুক্তির আশ্বাস। অর্ধশতাব্দী ব্যাপী সচেতন ভাবে তোমাদের শিক্ষাব্যবস্থাকে ধংস করা হয়েছে, এমনকি তোমাদের পরিচয়, ইতিহাস সংস্কৃতি সবকিছু ইরেজ করে মুছে ফেলা হয়েছে, তোমাদের অতীত কুয়াশাঢাকা, ভবিষ্যৎ অন্ধকার, বর্তমান বলে কিছু নেই। তোমাদের ইতিহাস নেই, তোমাদের কোন গুণী মানুষ নেই ,তোমাদের কোন সৃষ্টি নেই। তোমাদের একমাত্র সৃষ্টি, ‘৭১, হাজার বছরের বাঙালী, আর বঙ্গবন্ধু।
হজরত আলী (রা:)বলেছিলেন “হীনব্যক্তির সম্মান করা ও সম্মানীয় ব্যক্তির অপমান করা একই প্রকার দোষের। “ ডঃ মহম্মদ শহীদুল্লাহ বলেছিলেন, “যে দেশে গুনীর কদর নেই সে দেশে গুনীর জন্ম হয়না”।
ইতিহাস বিস্মৃত এই দেশে মানুষ পিটালে বঙ্গবন্ধু হয়। আইন করে, মানুষ জেলে ভরে জাতির পিতা বানাতে হয়। আর কাড়িকাড়ি টাকা ঢেলে ডক্টরেটের ঝুড়ি কিনে নিজেকে সম্মানিত করে তুলতে হয়।
প্রকৃত সম্মানিত ব্যক্তির নাম মর্যাদা বাংলাদেশের ইতিহাসে নেই, মানুষের প্রতি সম্মান ভালবাসা, জাতীয় উন্নতি, দেশের সুশাসন, বা দেশে শান্তিশৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা প্রভৃতি সদগুনের দ্বারা স্মরনীয় হয়েছে এমন মানুষদের ইতিহাসের আঁধারে চাপা দিয়ে, স্খলিত চরিত্রদের ইতিহাসের হিরো সাজিয়ে অর্চনা চলছে।
আপন যোগ্যতায় নিজের প্রতিমূর্তি বা ইমেজ সৃষ্টি করেছেন, তেমন মানুষ বাংলাদেশে সম্মানিত নয়! এখানে কীর্তি বাইরে থেকে চাপিয়ে দেয়া হয়। এখানে মীরজাফর হয় মহানায়ক, আর সিরাজের ফাঁসি হয় দেশদ্রোহী হিসাবে।
দেশের মানুষ ১৭৫৭ সালের মীরজাফর, ঘষেটি বেগমদের বেইমানি ভুলে গেছে। ১৭৯২ সালে মহীশুর-পতি শের ই মহীশুর ফতে আলি টিপুর সেনাপতি মীর সাদিকের বেইমানির কথা ভুলে গেছে, যার জন্য বীর যোদ্ধা টিপু নিহত এবং মহীশুর রাজ্যের পতন হয়েছিল। ওরা ১৮৫৭ সালের মহান সিপাহী বিপ্লবের বেইমান ,মোহনলাল, গোবিন্দ দাস, আগাজান দের ষড়যন্ত্রের কথা ভুলে গেছে, যার ফলে ভারতের স্বাধীনতার শেষ প্রদীপ-বাহাদুর শাহ জাফরকে স্বপরিবারে নিদারুণ যন্ত্রণায় ধুকেধুকে প্রাণ দিতে হয়েছিল। দেশের জন্য এইসব মহান আত্মত্যাগীদের ইতিহাস কেউ মনে রাখেনি।
কে মনে রেখেছে, ২০০ বছরের গোলামীর ইতিহাস, শোষনের ইতিহাস, ইঙ্গ-হিন্দু নির্যাতনের ইতিহাস, দূর্ভিক্ষের ইতিহাস, মুসলমানদের ইজারাদারী, জমি জিরাত, তালুকদারি, চিরস্থায়ী বন্দবস্ত, সূর্যাস্ত আইনের মাধ্যমে ছিনতাই করে সহযোগী হিন্দুদের মধ্যে বিলিবন্টন করে দেয়ার ইতিহাস।
কে মনে রেখেছে ১৯৪৭ সালের স্বাধীনতার জন্য আত্মত্যাগী নেতাদের কথা, যার বদৌলতে আজ অনেক মূর্খ অযোগ্যরা রাজাসনে বসেছেন। তাদের নান্দীপাঠ হচ্ছে। একবার ভেবেও দেখছেনা ‘৪৭ না হলে এই হীরক রাজার সিংহাসন লাভ, এই হাই প্রোফাইল স্ট্যাটাস কোনটারই যোগ্য তারা ছিলনা।
১৯৪৭ সালের পাকিস্তান সৃষ্টির স্বাধীনতা মোয়ার নাড়ুর মত টুপকরে মুসলমানদের হাতে এসে পড়েনি। এরজন্য মুসলিম মুজাহিদরা ১৯০বছর ধরে বুকের খুন ঝরিয়েছে। বাংলাদেশের মুসলমানরা জানেনা ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান সৃষ্টি না হলে, মুসলমানদের ভারতে থাকার অধিকারটুকু পর্যন্ত ছিনিয়ে নেয়ার চক্রান্ত হয়েছিল। কয়েকটি উদাহরণ দিয়ে ইতিহাস অজ্ঞ দের স্মরণ করিয়ে দেয়ার প্রয়োজন মনেকরছি ১) রবার্ট বায়রন তাঁর ‘ দি ষ্টেটম্যান অফ ইন্ডিয়া ‘ গ্রন্থে বলেছেন -“ বাল গঙ্গাধর তিলক (১৮৯৫) বলেছেন, এই উপমহাদেশের মুসলমান অধিবাসীরা হল বিদেশি দখলদার। কাজেই তাদের শারীরিকভাবে নির্মূল করতে হবে।”
২) ১৯২০ সালে কংগ্রেসের প্রভাবশালী নেতা ও হিন্দুমহাসভার প্রেসিডেন্ট ডঃ বি এস মুঞ্জে ১৯২০ সালে বলেছিলেন, ‘ ইংল্যান্ড যেমন ইংরেজ জাতির, জার্মান যেমন জার্মানিদের তেমন ভারতবর্ষ হল একমাত্র হিন্দুর’।
৩) ১৯২৫ সালে আর্যসমাজ রেভেল্যুশনারি লাল-হরদয়াল বলেছিলেন আমি ঘোষণা করছি যে, হিন্দুজাতি তথা হিন্দুস্থানের ভবিষ্যৎ ৪টি নীতির উপর -ক) হিন্দুস্থানের সামগ্রিক অর্থনীতি ।খ) হিন্দু রাজ্য প্রতিষ্ঠা। গ) ম্লেচ্ছদের শুদ্ধিকরণ বা মুসলমানদের হিন্দুকরন। ঘ) আফগান দেশ জয়করে ভারতভূক্ত করা ও তাদের শুদ্ধি করা।
শুধু এই কজনাই নয়, গান্ধী, নেহেরু, তিলক, প্যাটেল, কৃপালনী, সাভারকর, শ্যামাপ্রসাদ, ভূদেব মুখার্জি, সুরেন্দ্রনাথ সহ প্রায় সকল হিন্দু নেতারা হিন্দুভারতের কথাই ভাবতেন। আজকের ভারতে রামরাজ্য গঠনের প্রচেষ্টায় যে মুসলমান হত্যা অব্যাহত আছে তা অতীতেরই ধারাবাহিকতা।
সেজন্যই গান্ধী যেদিন জিন্নাসাহেবের সামনে অখন্ডভারতের কথা বলেছিলেন, জিন্না সাহেব উত্তর দিয়েছিলেন ,-“ I do not want to be ruled by you. We are a nation with our own distinctive culture, and civilization, language and literature, art and nomenclature, sense of value and proportion, legal laws and moral codes, custom and traditions. In short we have our own distinctive outlook on like and life. By all canons of International laws we are a Nation.
বাংলাদেশের মানুষ আজ এই মহান মানুষটির নাম ভুলে গেছে। ভুলে গেছে জিন্নাসাহেবের “we are a nation” উচ্চারণই তাদের দেশদিয়েছিল, স্বাধীনতা দিয়েছিল। বাংলার মানুষ জিন্না সাহেবকে স্মরণ না করলে তাঁর কোন ক্ষতি হবেনা, তবে চক্রান্তকারী ভারতের হাতে নিজস্ব স্বাধীনতা খুইয়ে বসতে পারে। জিন্নাসাহেব একজন বিচক্ষণ দূরদর্শী নেতা ছিলেন।
জিন্না সাহেব সম্বন্ধে William Hunter বলেছিলেন “কলকাতায় এমন সরকারি অফিসের সংখ্যা ছিলনা বললেই চলে যেখানে একজন মুসলিম পিওন, আর্দালি, দোয়াত ভরা বা পেন্সিল কাটার কাজের চাইতে বড় কোন কাজ আশা করতে পারতেন”। জিন্না সাহেব বাঙালী মুসলমানদের এই অবমাননা অমর্যাদার লানত থেকে মুক্ত করেছিল। এটা সাহস সাধ্য কাজ ছিলনা। এজন্য তাকে কম কষ্টস্বীকার করতে হয়নি। মরণব্যাধি ক্ষয়রোগ আক্রান্ত রোগী, কাশিতে রক্ত পড়ে, তাই নিয়ে দিনের পর দিন মিটিং করেছেন। কাউকে জানতেও দেননি যে তিনি যক্ষ্মা রোগ গ্রস্ত। তাঁর মৃত্যুর পর মাউন্টব্যটন আক্ষেপ করে বলেছিলেন, আমি যদি ঘুণাক্ষরেও জানতে পারতাম জিন্না টিউবারকুলোসিস রোগে আক্রান্ত তাহলে ভারতের স্বাধীনতা আরও কিছুদিন পিছিয়ে দিতাম ।
বাংলাদেশের মানুষ ইঙ্গ-হিন্দু চক্রান্তের অনেক কিছুই জানেনা, তাদের জানতে দেয়া হয়নি ।
বাংলাতো মুসলিম সংখ্যা গুরু প্রদেশ ছিল। এই প্রদেশ বরাবর মুসলিম মন্ত্রীসভা দ্বারা শাসিত হয়েছে। বাংলাতো দুখণ্ড হওয়ার কথা ছিলনা। এটাও হিন্দু নেতাদের কারসাজি।
বাংলাদেশের মানুষ জানেনা, ১৯৪৭ সালের ২০জুন তৎকালীন বঙ্গীয় বিধায় সভার যৌথসভায় ১২০ জন সদস্য অখন্ডবাংলা রাখার পক্ষে ভোট দিয়েছিলেন, মাত্র ৫৮ জন হিন্দু সদস্য বাংলা ভাগ করতে চাইলে বাংলাদেশকে দুভাগ করে বৃটিশদের ভাষায় রুরাল স্লাম অঞ্চলটি পাকিস্তানকে দেয়া হয়েছিল, যাতে পূর্বপাকিস্তান ৬মাস ও না টিকে থাকতে পারে কাদের চক্রান্তে? ঐ নেহেরু প্যাটেল দের।
পূর্ব পাকিস্তান যদি হয়েই যায়, তাহলে কি ভাবে তাকে ভাঙ্গতে হবে সেই চক্রান্তও তারা আগে থেকে ঠিক করে রাখে। ১৯৪৭ সালের ৫ই এপ্রিল তারকেশ্বরে বঙ্গীয় প্রাদেশিক হিন্দু সম্মেলনে সর্বভারতীয় হিন্দু নেতা ভি আর সাভারকর এক বানীতে বলেছিলেন, প্রধানত পশ্চিমবঙ্গে একটা হিন্দুপ্রদেশ কায়েম করতে হবে। দ্বিতীয়ত যেকোন মূল্যে আসাম থেকে মুসলিম অনধিকার প্রবেশকারীদের বিতাড়ন করে এই দুই হিন্দু প্রদেশের মাঝে ফেলে পূর্ব পাকিস্তানকে পিষে মারতে হবে। সেই কুমতলব নিয়েই ১৯৪৭ সালে ওরা মুসলমান সংখ্যাগুরু বাংলাকে অন্যায় ভাবে ভাগকরে হিন্দু পশ্চিমবঙ্গ তৈরি করে এবং ১৯৪৭ থেকে আসামের মুসলমানদের নির্যাতন করে দেশছাড়া করে।
সকল চক্রান্ত ধূলিসাৎ করে, রুরাল স্লাম নামে অবহেলিত পূর্বপাকিস্তান যখন টিকেই গেল, শুধু টিকলো নয়, বিস্ময়করভাবে উন্নয়ন সাধন করতে লাগল-জেলাশহর ঢাকা ঐশ্বর্যময়ী রাজধানী রূপে ঝলমল করে উঠলো। ৭৮টা পাটকল, ৬৩টা কাপড়ের কল, ১৬টা চিনির কল, ৩টি কাগজের কল, ১০টি বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র, নৌবন্দর, অর্ডিন্যান্স ফ্যাক্টরি, মেশিনটুলস ফ্যাক্টরি, মোটরগাড়ি সংযোগ কারখানা, জাহাজ নির্মাণ কারখানা, আবহাওয়া কেন্দ্র, মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র, এ্যাটোমিট এনার্জি সেন্টার, টেলিভিশন নেট ওয়ার্কস, সহ প্রতিটি প্রয়োজনীয় সামগ্রী উৎপাদনে দেশ যখন স্বাবলম্বী হয়ে উঠলো, যে দেশের মানুষকে লাঙ্গলের পিছনের মানুষ বলে ঘৃণা করা হত। প্যাটেল বলেছিল যেভাবে বাংলা ভাগ করা হয়েছে এরা ছয় মাসের মধ্যে পা’য়ে এসে পড়বে। প্যাটেল গং দের সেই স্বপ্ন ভেঙে দিয়ে ১৯৬৫ সালের পাক ভারত যুদ্ধে বাঙালী বিমান সৈনিক, লিটিল ড্রাগন নামে খ্যাত এম এম আলম আকাশ যুদ্ধে মাত্র ৩০ সেকেন্ডে ভারতের ৫ টি প্লেন ধরাশায়ী করে যখন বীরত্ব দেখাল তখনই ভারতীয় নেতারা তাদের স্ট্র্যাটেজি বা কৌশল পরিবর্তন করার সিদ্ধান্ত নিল। তারা ঘরভেদী বিভীষণ অর্থাৎ আর একজন মীরজাফর তালাশের সিদ্ধান্ত নিল।
বাংলাদেশে যেমন ধান পাটের সাথে আগাছা জন্মায়, তেমনি জানবাজ দেশপ্রেমিকের সাথে মীরজাফর মীরন, ঘষেটি বেগম,আগাজানদের জন্মও কম হয়নি। সুতরাং ভারতীয় নেতাদের বাংলাদেশি বিভীষণ খুঁজে পেতে দেরি হলনা। তারা অচিরেই পেয়ে গেল এমন একজনকে যে নাকি ১৯৪৭ সাল থেকে পৃথিবীর বৃহত্তম মুসলিম রাষ্ট্র পাকিস্তান কে দ্বিখন্ডিত করে শক্তিহীন করার কাজে নিয়োজিত আছে। আজ অনেকে ভুলে গেছে, পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশে ফিরে এসে ১৯৭২ সালের ১০জানুয়ারী শেখ মুজিব সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে যে ভাষণ দিয়েছিলেন সেখানে তিনি বলেছিলেন পাকিস্তান ভেঙ্গে বাংলাদেশ সৃষ্টির লক্ষে কাজ তিনি ৭১সালে এ শুরু করেননি, শুরু করেছিলেন ১৯৪৭ সাল থেকেই। সোহরাওয়ার্দী জীবিত থাকা কালে মুজিবের বদমতলব বুঝতে পেরে কয়েকবার তাকে সাবধান করেছিল। শেখ মুজিব এবং তার আওয়ামীলীগ দলটি যে ভারতের রিক্রুটিং দল হিসাবে এদেশে সংখ্যাগুরু মুসলমানদের ক্ষতি সাধন করার ভারতীয় এজেন্ডাই বাস্তবায়ন করছে সেটা তার কার্যকলাপ বিশ্লেষণ করলে সহজে বোঝা যায়।
পাকিস্তান ভেঙে কার লাভ হল!
মুজিব এবং তার দল দেশটা দ্বিখন্ডিত করে এই উপমহাদেশের ৬০কোটির মত মুসলমানকে দূর্বল করে ফেলেছে। বাংলাদেশের ১৭কোটি মুসলমান ভারতের কৃপাদাস হয়ে বাস করছে। দেশের শিল্পকারখানা ধংস করে স্বনির্ভর দেশটাকে ভারত নির্ভর করেছে। দেশের বীর সেনাবাহিনীকে ধংস করে বাংলাদেশের জনগণকে ভারতের টার্গেট প্র্যাকটিসের বস্তুতে পরিণত করেছে। দেশের সবকটা নদীর পানির অধিকার, বন্দর ব্যবহারের অধিকার, রাস্তাঘাট ব্যবহারের অধিকার ভারতের হাতে তুলে দিয়েছে। ভারতে যেমন মুসলমান নিধন চলছে ঠিক একইভাবে রাজাকার নাম দিয়ে, সন্ত্রাসী নামদিয়ে, আরও বিভিন্ন ভাবে বাংলাদেশে মুসলমান নিধন চলছে। দেশে ইসলামী শিক্ষা, ইসলামী সংস্কৃতি ধংস করে ফেলা হয়েছে। মুজিবের মৃত্যুবার্ষিকীর দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠান করা হচ্ছে নাচের মাধ্যমে। বাংলাদেশের মানুষের মানুষের ভোটের অধিকার নেই, অভাব যন্ত্রণার কথা বলার অধিকার নেই। ১৮ কোটি মানুষ আজ কারাবন্দী। সেই কারার কারাধ্যক্ষ ভারত। পাহারাদার হিসাবে বসানো আছে হাসিনা ওয়াজেদের ফ্যাসিবাদী শাসন। হাসিনা ভারতীয় হিন্দুত্ববাদী নেতাদের অপূরণীয় মনোবাঞ্ছা পূরণ করে চলেছেন। দেশের কিছুই বাংলাদেশের মানুষ নয়। ১৭ কোটি মানুষ এখন বিদেশের দাস।
একটা মানুষ হত্যা করলে ফাসির বিধান আছে, অথচ একটা দেশ হত্যা করেও এদেশে পূজনীয় হয়ে যায়!
লেখক: বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও বহু গ্রন্থের লেখক

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম