1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
বাংলার মুসলমানদের অবিসংবাদিত নেতা নবাব স্যার সলিমুল্লাহ বাহাদুরের ১০৯ তম মৃত্যুবার্ষিকী, - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:২০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
শ্রেণীকক্ষ সংকটে পাঠদান ব্যাহত, জরুরি ভিত্তিতে ভবন প্রয়োজন নোয়াখালীতে ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে জখম, প্রতিষ্ঠান ভাঙচুর ও লুট দেশে মেডিকেল ডিভাইস তৈরি করলে তা সাধারণ মানুষের কাছে সহজলভ্য হবে’ -স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন নবীগঞ্জ শহরের রাজা কমপ্লেক্সে হামলা ভাংচুর ও ৪ ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষ! শহর রণক্ষেত্র- আহত অর্ধশতাধিক৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশের টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ৷ লালমনি এক্সপ্রেস ট্রেনে যাত্রী ভোগান্তির শিকার দেখার কেউ নেই। চৌদ্দগ্রামে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে ট্রাই সাইকেল বিতরণ চৌদ্দগ্রামের বাতিসায় জাতীয় পার্টির উদ্যোগে ইফতার সামগ্রী বিতরণ ব্যবসায়ী হাবিবুর রহমান হাবিবের ১৮তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন ঠাকুরগাঁও জমে উঠেছে জেলা পরিষদ নির্বাচন ! মোঃ মজিবর রহমান শেখ,

বাংলার মুসলমানদের অবিসংবাদিত নেতা নবাব স্যার সলিমুল্লাহ বাহাদুরের ১০৯ তম মৃত্যুবার্ষিকী,

এ এইচ মোবারক
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারি, ২০২৪
  • ৪৭ বার
আজ ১৬ই জানুজারী সমবার ২০২৪ ইং খাজা সলিমুল্লাহ বা নবাব স্যার  সলিমুল্লাহ’র ১০৯ তম মূত্য বার্ষিকী  তিনি ঢাকার চতুর্থ নবাব, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, নিখিল ভারত মুসলিম লীগ,ও আধুনিক ঢাকার রচয়িতা ছিলেন।

বঙ্গভঙ্গ রহিত হওয়ার পর থেকেই নবাব সলিমুল্লাহ স্বপ্ন ভঙ্গের ব্যাধিতে ভুগতে থাকেন। এ কে ফজলুল হককে বঙ্গীয় মুসলিম লীগের নেতৃত্বে অধিষ্ঠিত করে তিনি সক্রিয় রাজনীতি থেকে অবসর নেন।
১৯১৫ সালের ১৬ জানুয়ারি কলকাতা থেকে তার ঢাকা ফেরার কথা ছিল। কিন্তু তাঁর আর  ফিরা হলো না তিনি  সকলকে কাদিয়ে মৃত্য অবস্থায় ঢাকায় আসলেন  ।
১৬ জানুয়ারি রাত ২-৩০ মিনিটে তার কলকাতার চোরঙ্গী রোডস্থ ৫৩ নম্বর বাড়িতে ৪৩ বছরে হৃদরোগ আক্রান্ত হয়ে  ইন্তেকাল করেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া লিল্লাহি রাজিউন
১৬ জানুয়ারি বিকেল ৪টায় কলকাতায় আলিয়া মাদরাসা সংলগ্ন ওয়েলসলি স্কোয়ার পার্কে নামাজে জানাজা শেষে ১৭ জানুয়ারি নবাব সলিমুল্লাহর লাশ ঢাকায় আনা হয়।
ঢাকায় দুটি জানাজা শেষে নবাবকে  বেগম বাজার পারিবারিক গোরস্তানে দাফন করা হয়।
আল্লাহ উনকে  জান্নাতের সর্বউচ্চ স্থান দন করুন। আমিন
নবাবের মৃত্যু আজও রহস্যে ঘেরা।
লেখক, গবেষকদের ইতিহাসবিদরা  অন্য এক মতে  নবাব স্যার সলিমুল্লাহ’র মৃত্যু প্রসঙ্গে বলেন  ঢাকায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা নিয়ে বড়লাটের সঙ্গে নবাবের মতবিরোধ দেখা দেয় এবং উত্তপ্ত  বাগ-বিতণ্ড  হয়।
এক পর্যায়ে বড়লাট নবাবকে অপমানজনক কথা বলেন। যা তিনি সহ্য করতে পারেননি,  নবাবের সঙ্গে থাকা হাতের ছড়ি টি দিয়ে নবাব বড়লাটের টেবিলে আঘাত করেন।
এ নিয়ে চরম মতদ্বৈধতা ঝগড়াঝাটি  শুরু হয়। এক পর্যায়ে বড়লাটের ইঙ্গিতে তার দেহরক্ষী নবাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়েন এবং গুরুতর আহত হন।
এবং নবাবের মৃত্যু কোলে ঢলে পড়েন  পড়েন।
পরের দিন ১৭ জানুয়ারী  তাঁর মৃত্যদেহ কঠোর নিরাপত্তায় মধ্য দিয়ে,  নিশ্ছিদ্র সেনা প্রহরার মাঝে নবাবের মৃত্যুদেহ  ঢাকায় আনা হয় ।
নবাবের মৃত্যদেহ তাঁর নিকট আত্মীয় স্বজনকেও মৃত্যদেহ দেখতে দেওয়া হয় নাই ।
১৯১৫ সালের ১৭ জানুয়ারি সামরিক নিরাপত্তা  প্রহরায় বেগম বাজারে পারিবারিক গোরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।  (সরকার শাহাবুদ্দিন আহমদ: আত্মঘাতী রাজনীতির তিনকাল; প্রথম খণ্ড, পৃ. ২২১)।

মহান এই নেতার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকায় বিভিন্ন সংগঠন তাঁর বর্ণাঢ্য জীবন সম্পর্কিত আচার অনুষ্ঠান পালন করে থাকে।
এই কিংবদন্তি  মহাপুরুষের জন্ম হয়  ৭ জুন ১৮৭১ আহসান  মঞ্জিল ঢাকা নিখিল ভারত। পিতা নবাব আহসান উল্লাহ ব্রিটিশ, জার্মান, ফার্সি ও উর্দু গৃহশিক্ষকদের তত্তাবধানে সলিমুল্লাহর শিক্ষা সম্পন্ন করেন।

নবাব তাঁর বিচক্ষণতায়  পূর্ববঙ্গ বাসীর স্বার্থ আদায়ে বিশ শতকের গোড়ার দিকে তিনি  নেতৃত্বের প্রধান চরিত্রে উপনিত হন।

অন্য  নবাবেরাও ছিলেন ধর্মভীরু,  আধুনিক ও কু-সংস্কারমুক্ত, অসাম্প্রদায়িক  হিন্দুদের প্রতি বন্ধুভাবাপন্ন থাকায়,  সেই সময় বড় বড় হিন্দু নেতা ও নগরের সর্বজন হিন্দু সম্প্রদায় নবাবদের নেতৃত্ব মেনে নিয়ে ছিলেন।’
তাঁর পূর্বসরী ছিলেন পিতা নবাব খাজা আহসান উল্লাহ ও পিতামহ নবাব খাজা আব্দুল গনি। তাঁর পিতা নওয়াব স্যার খাজা আহসানউল্লা (১৮৪৬-১৯০১), দাদা নওয়াব স্যার খাজা আবদুল গণি (১৮১৩-৯৬)। এই দুজনই ঊনবিংশ শতকের  বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি, নিখল ভারতের রাজনীতি ও সমাজে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব ছিলেন।
ব্রিটিশ বাংলার সবচেয়ে বড় মুসলিম জমিদার পরিবার ছিলেন নবাব পরিবার এবং ব্রিটিশ রাজ কর্তৃক ভূষিত ঢাকার প্রথম নবাব ছিলেন খাজা আলীমুল্লাহ।
নবাবদের  ব্রিটিশদের সাথে সু সম্পর্কে থাকায় ব্রিটিশ রাজা তাদের  নবাব উপাধিতে ভূষিত করে।
নবাব পরিবারটি ভারতবর্ষের রাজনীতিতে অনেক গুরুত্বপূর্ণ  ছিলেন,
ঢাকার বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে অবস্থিতি   আহসান মঞ্জিলে  ছিল নবাব বাড়ী বা রাজবাড়ী, এখন থেকে জমিদারী পরিচালনা করা হতো  রাজনৈতিক অর্থনৈতিক সামাজিক তথা বাংলার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠে ছিল এই ভবন টি ঘিরেই এবং  পরিবারের বা জমিদারির প্রধানকে উপাধি ছিল নবাব । খাজা হাবিবুল্লাহ ছিলেন নবাবদের শেষ জমিদার।
পূর্ববঙ্গীয় রাষ্ট্রীয় অধিগ্রহণ ও প্রজাস্বত্ব আইন, ১৯৫০ অনুযায়ী জমিদারি বিলুপ্ত হয়ে যায়।
বাংলার মানুষের প্রতি এই পরিবারটির অবদান স্মরণীয়। তাঁরই মাঝে নবাব স্যার সলিমুল্লাহ অবদান বাংলার মানুষের কাছে অবিস্মরণীয়।
খাজা সলিমুল্লাহ ছিলেন ঢাকার এক নবাব, তথা মুসলিম জাতীয়তাবাদী, এবং নিখিল ভারতীয় মুসলিম লীগের স্থপতি। সলিমুল্লাহ ১৯০৩-১৯০৪ সালে বঙ্গভঙ্গের আন্দোলনের সময় সরকারের পরিকল্পনার বিষয়ে মতামত দেওয়ার মাধ্যমে রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। ভারতের মুসলিম রাজনীতিতে তাঁর অবদান ছিল সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য।পূর্বপুরুষের আর্থিক স্থিতিশীলতা নওয়াব স্যার  সলিমুল্লাহর সময়ে এসে ব্যাহত হয়েছিল।
১৮৯৩ সালে তিনি ডিপুটি ম্যাজিস্ট্রেট পদে নিযুক্ত হয়ে ময়মনসিংহে এবং ১৮৯৫ সালে বিহারের মুজাফফরাবাদে ও কিছুদিন ত্রিপুরায় দায়িত্ব পালন করে ইস্তফা দেন। এরপর তিনি ময়মনসিংহে অবস্থান করেন। ১৯০১ সালের ১৬ ডিসেম্বর  পিতা নবাব আহসান উল্লাহর ইন্তেকালের খবর পেয়ে বিশেষ ট্রেনযোগে ঢাকায় ফিরে আসেন। দুই দিন পর বড় ছেলে  হওয়ার  তিনি নবাব পদে অধিষ্ঠিত হন এবং  ১৯০১ সালে পিতার মৃত্যুর করনে নওয়াব এস্টেটের দায়িত্ব  লাভ করে।
নবাব হওয়ার পর তিনি শিক্ষা বিস্তরের প্রথম ভূমিকা হিসেবে, তিনি  দায়িত্ব পালনের শুরু থেকেই, ঢাকার সব মহল্লায় প্রতিষ্ঠা করে ছিলেন নৈশ বিদ্যালয়। নবাব সলিমুল্লাহর প্রাথমিক তথা গণশিক্ষার প্রয়োজনীয়তা গভীরভাবে উপলব্ধি করতেন। ইম্পেরিয়াল লেজিসলেটিভ কাউন্সিলে কংগ্রেস নেতা গোপালকৃষ্ণ গোখলে ১৯১১ সালে ‘বাধ্যতামূলক অবৈতনিক প্রাথমিক শিক্ষা বিল’ উত্থাপন করে। ১৯১২ সালের ৩ মার্চ কলকাতায় অনুষ্ঠিত নিখিল ভারত মুসলিম লীগের পঞ্চম অধিবেশনে সভাপতির ভাষণে নবাব সলিমুল্লাহ তার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ গোখলের বিলকে সমর্থন করে বক্তব্য রাখেন। বিলটি অনুমোদিত না হওয়ায় তা কার্যকর হয়নি।

ঢাকার মতো অবহেলিত ও অনগ্রসর জনপদ  প্রাচীন নগরীতে একটি আধুনিক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবি তখন অনেকের কাছেই  মনে হয়ে ছিল অযৌক্তিক শিল্পী, সাহিত্যিক কবি, , শিক্ষাবিদ, বিজ্ঞানী,  রাজনীতিক, বুদ্ধিজীবী, সমাজ সংস্কারক, প্রশাসনিক কর্মকর্তারা মনে করতেন  যে বিদ্বৎসমাজ তৈরি হয়েছে, এই দাবী অযৌক্তিক।
এ জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বপ্নদ্রষ্টা নওয়াব স্যার  সলিমুল্লাহর অবদান অনস্বীকার্য।

১৯০৩ সালে বড় লাট লর্ড কার্জন ঢাকায় সফরে এলে নবাব স্যার সলিমূল্লাহ যিনি  আহসান মঞ্জিলে অনুষ্ঠিত দীর্ঘ বৈঠকে তার নিকট পূর্ব বাংলার সমস্যাগুলো বুঝাতে সক্ষম হন । এবং  ঢাকাকে কেন্দ্র করে পূর্ববঙ্গ ও আসাম নামে একটি নতুন প্রদেশ গঠনের বিষয়ে ইংরেজরা সম্মত হন।
নবাব সলিমূল্লাহ যিনি ১৯১১ সালের ২৯ আগস্ট ঢাকায় কার্জন হলে ল্যান্সলট হেয়ারের বিদায় এবং চার্লস বেইলির যোগদান উপলক্ষে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে নওয়াব আলী চৌধুরীকে নিয়ে পৃথক দুটি মানপত্র নিয়ে ঢাকায় একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবি জানান।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায়  তিনি  জমিই শুধু দানই করেন নাই , প্রচুর অর্থও দান করে  ছিলেন।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার জন্য সলিমুল্লাহ ৬০০ একর জমি দান করেছেন
এতে তাঁর অর্থনৈতিক টানা পূরণ দেখা দেয়। অর্থনৈতিক উত্তোলনের জন্য ব্রিটিশ সরকারের কাছে কাছ থেকে লোন নেন এবং  মহাজনদের কাছ থেকে নেওয়া ঋণর টাকা পরিশোধ করন।
তিনি ব্রিটিশ আমলে স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি বন্ধক রেখে সরকারের কাছ থেকে ঋণ নিয়েছিলেন ঢাকার নবাব স্যার সলিমুল্লাহ। ব্রিটিশ যুগ গেছে, পাকিস্তানি আমল পেরিয়ে বাংলাদেশেরও প্রায় অর্ধশতাব্দী ছুঁই ছুঁই। ঋণ শোধ হয়নি। দেনার দায়ে সরকারের হেফাজতে এসেছিল হীরক খণ্ড ‘দরিয়া-এ নূর’ ও আরো ১০৯ প্রকার স্বর্ণালংকারসহ নবাবদের ভূসম্পদ।
নবাবের সম্পত্তি হিসেবে হীরা ও স্বর্ণালংকারগুলো এখন ভূমি মন্ত্রণালয়ের অধীন রক্ষিত আছে সরকারি মালিকানাধীন সোনালী ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের ভল্টে। জানা যায়, শুধু ‘দরিয়া এ নূর’ এসব সম্পদের দাম হাজার কোটি টাকারও বেশি। তার পরেও ঢাকা গড়ায় অবদান রাখা নবাব সলিমুল্লাহ ১১০ বছরেও ঋণমুক্ত হতে পারেননি।

নবাব সলিমুল্লাহ পানীয় জল, ইলেকট্রিসিটি এবং টেলিফোন ব্যবস্থা চালুর মাধ্যমে আধুনিক ঢাকার জন্ম দেন।

বর্তমান প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় তথা বুয়েটের শুরু ১৮৭৬ সালে ঢাকা সার্ভে স্কুলের মাধ্যমে। ১৯০২ সালে তৎকালীন সরকার সার্ভে স্কুলকে ইঞ্জিনিয়ারিং স্কুলে রূপান্তরের পরিকল্পনা নিলে অর্থাভাবে তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হচ্ছিল না। নওয়াব আহসানুল্লাহ সে সময় ১ লক্ষ ১২ হাজার টাকা দানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। কিন্তু ইতিমধ্যে তিনি ইন্তেকাল করলে পরবর্তী সময়ে নওয়াব সলিমুল্লাহ সেই অর্থ পরিশোধ করেন। বিদ্যালয়টির নামকরণ করা হয় ‘আহসানউল্লাহ ইঞ্জিনিয়ারিং স্কুল’। ১৯৪৭ সালে এটি কলেজে উন্নীত করা হয়। ১৯৬২ সালে একটি পূর্ণাঙ্গ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে নাম দেওয়া হয় ‘পূর্ব পাকিস্তান প্রকৌশল ও কারিগরি বিশ্ববিদ্যালয়’। মহান মুক্তিযুদ্ধের পরে নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় ‘বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়’।

মিডফোর্ড হাসপাতালের সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে এই মেডিকেলে স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের অধ্যয়ন চলমান থাকে। ১৯৬২ সালে স্কুলটিকে কলেজে রূপান্তর করা হয়। নামকরণ করা হয় ‘মিটফোর্ড মেডিকেল কলেজ’। পরবর্তীতে নাম বদলে রাখা হয় ‘স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ’। বর্তমানে হাসপাতাল ও কলেজ মিলে পূর্ণ নাম ‘স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ মিটফোর্ড হাসপাতাল’।

পূর্ব বাংলার মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে নওয়াব সলিমু্ল্লাহর নানামুখী অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ বিশ্ববিদ্যালয়ের মুসলিম ছাত্রদের প্রথম ছাত্রাবাসের নাম রাখা হয় ‘সলিমুল্লাহ মুসলিম হল’। সলিমুল্লাহ কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত ইসলামিয়া এতিমখানাটি তাঁর মৃত্যুর পর নামকরণ করা হয় ‘সলিমুল্লাহ এতিমখানা’। এতিম মুসলিম ছেলেমেয়েদের লেখাপড়ার জন্য ১৯০৮ সালে আজিমপুরে ২৮ বিঘা জমি দান করে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন ‘নবাব সলিমুল্লাহ মুসলিম এতিমখানা’। লেখাপড়ার জন্য এতিমখানায় ছেলেদের জন্য একটি এবং মেয়েদের জন্য একটি করে দুটি স্কুল রয়েছে। শত শত এতিম ছেলেমেয়ের থাকা-খাওয়া, চিকিৎসা, পোশাক-পরিচ্ছদ ও লেখাপড়ার যাবতীয় ব্যয় নবাব সলিমুল্লাহ মৃত্যু পর্যন্ত নিজের পকেট থেকে খরচ করেছেন। বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ এই এতিমখানাটি বর্তমানে বিভিন্ন মানুষের দান করা অর্থে পরিচালিত হচ্ছে।
নওয়াব সলিমুল্লাহ ১৯০৮ সালে পূর্ববঙ্গ ও আসাম সরকারের নারী শিক্ষা কমিটির সদস্য এবং মুসলিম নারী শিক্ষা সাব-কমিটির সভাপতি মনোনীত হন। ১৯১৪ সালে মুসলিমদের শিক্ষা বিষয়ে গঠিত হার্ণেল কমিটিরও তিনি সদস্য ছিলেন। ১৯০৬ সালে প্রাদেশিক শিক্ষা সমিতির মাধ্যমে মাদ্রাসা শিক্ষা সংস্কারের লক্ষ্যে তিনি একটি যুগান্তকারী রিপোর্ট সরকারকে দেন। ১৯০৯ সালে মাদ্রাসা শিক্ষা সংস্কারের জন্য সরকারের গঠিত কমিটিতেও তিনি সদস্য ছিলেন। ওই কমিটির সুপারিশ এবং তাঁর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ১৯১৫ সালে সরকার আধুনিক শিক্ষা পদ্ধতি সম্বলিত পরিকল্পিত মাদ্রাসা শিক্ষা চালু করে।

নবাব স্যার সলিমুল্লাহ ছিলেন একজন পরমহিতোষী  ব্যক্তি  যিনি আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন জন্য আন্তরিকভাবে  অবদান রাখেন ।ঢাকার সমাজ জীবন পঞ্চায়েত পদ্ধতিকে সুসংগঠিত করার ক্ষেত্রে নওয়াব সলিমুল্লাহর অবদান অনস্বীকার্য। তিনি খেলাধুলার পৃষ্ঠপোষকতা যেমন করতেন, তেমনি করতেন গান-বাজনা, বায়োস্কোপ প্রদর্শনী, নাট্যাভিনয় প্রভৃতির পৃষ্ঠপোষকতাও। ঈদ, ফাতেহা-ই-ইয়াজদাহম প্রভৃতি ধর্মীয় অনুষ্ঠানে তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করে গেছেন।
এই অঞ্চলে শিক্ষা, সমাজ, জনকল্যাণমূলক কাজের সঙ্গে নানা ধরনের সাংস্কৃতিক চিন্তা ও কর্ম ছিল নবাব স্যার সলিমুল্লাহর জীবনের অপরিহার্য অংশ। তার পৃষ্ঠপোষকতার ফলে উনিশ শতকের শেষ ভাগ থেকে বিশ শতকের প্রায় দেড় দশক পর্যন্ত শাহবাগের নওয়াব বাড়ি শুধু রাজনৈতিক বা সামাজিক কর্মস্থলই নয়, নাটক, সঙ্গীত, চিত্রকলা, ক্রীড়া তথা দেশের প্রধান সংস্কৃতি চর্চার কেন্দ্রে পরিণত হয়েছিল।

পূর্ববাংলার মানুষের অধিকার ও স্বার্থ আদায়ে বিশ শতকের গোঁড়ার দিকে যিনি নেতৃত্বের হাল ধরেন, তিনি হলেন নওয়াব স্যার সলিমুল্লাহ
১৯০৪ সালের ১১ জানুয়ারি আহসান মঞ্জিলে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় নবাব সলিমুল্লাহর দেয়া আসাম প্রদেশ, ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগ এবং দার্জিলিং, জলপাইগুঁড়ি ও কুচবিহার নিয়ে নতুন প্রদেশ গঠনের প্রস্তাবটি মেনে নিয়ে ব্রিটিশ সরকার ১৯০৫ সালের ১৬ অক্টোবর গঠন করে ‘পূর্ব বাংলা ও আসাম প্রদেশ’। নতুন প্রদেশের অবিসংবাদীত নেতা নবাব সলিমুল্লাহ
এবং ১৯১১ সালের ১২ ডিসেম্বর দিল্লির দরবার হলে বঙ্গভঙ্গ রহিত করেন। এতে বাংলার মুসলমানরা আশাহত হয়ে পড়ে, আর উল্লসিত হয় বাংলার বর্ণবাদী হিন্দু নেতারা।

ব্রিটিশ ভারতের অধিকারবঞ্চিত মুসলমানদের জন্য তার সবচেয়ে বড় অবদান ‘নিখিল ভারত মুসলম লীগ’। রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে শত বছরের শোষণের ফলে তলানীতে পৌঁছে যাওয়া ভারতীয় মুসলমানদের ঐক্যবদ্ধ করেছে মুসলিম লীগ। ১৯০৬ সালের ৩০ ডিসেম্বর ঢাকার শাহবাগের বাগানবাড়িতে গঠিত হওয়ার পর থেকে ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত এই দলের পতাকা নিয়ে মুসলিম স্বার্থ রক্ষায় রাজনীতি করেছেন : মহামান্য আগাখান (১৮৭৭-১৯৫৭), কংগ্রেসের সাবেক নেতা কায়েদে আযম মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ (১৮৭৬-১৯৪৮), নবাবজাদা লিয়াকত আলী খান (১৮৯৫-১৯৫১), শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হক (১৮৭৩-১৯৬২), হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী (১৮৯২-১৯৬৩), খাজা নাজিমউদ্দীন (১৮৯৪-১৯৬৪), মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী (১৮৮০-১৯৭৬), পন্ডিত আবুল হাশিম (১৯০৫-১৯৭৪), ফজলুল কাদের চৌধুরী (১৯১৯-১৯৭৩), খান এ সবুর (১৯০৮-১৯৮২), শেখ মুজিবুর রহমান (১৯২০-১৯৭৫) প্রমুখ নেতৃবৃন্দ। উপমহাদেশে মুসলিম রাজনীতিবিদ সৃষ্টির পেছনে রয়েছে নবাব সলিমুল্লাহ ও তার গঠিত মুসলিম লীগের ঐতিহাসিক অবদান।

নবাব সলিমুল্লাহ তিনি পাঁচ পুত্র ও পাঁচ কন্যার জনক ছিলেন । পুত্ররা হলেনঃ
১) খাজা আহসানুল্লাহ ২) খাজা হাবিবুল্লাহ ৩) খাজা আলিমুল্লাহ
৪) খাজা হাফিযুল্লাহ ৫) খাজা নাসরুল্লাহ।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম