1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
রামপাল ও মংলা আসনে নির্বচন পরবর্তী প্রতিহংসার শিকার হচ্ছে সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়। - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:৩২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
ঠাকুরগাঁওয়ে সীমান্ত হত্যা ও বিদেশী আগ্রাসন বন্ধের দাবীতে লাশের মিছিল ! নবীগঞ্জে শাখা বরাক বাঁচাতে পদযাত্রা পরিবেশ রক্ষায় নাগরিক আন্দোলনে এগিয়ে আসুন গাজীপুরে ১৫ ঘন্টায় তিনজনের আত্মহত্যা গাজীপুরে সিটি কর্পোরেশনের ময়লার গাড়ির ধাক্কায় শ্রমিকের মৃত্যু শ্রীপুরের বরমী থেকে একটি বিদেশি পিস্তল,১ রাউন্ড গুলি ও ১০০পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার-১ বাঁশখালীতে বেকারির শ্রমিক হত্যাকান্ডের আসামী মাহাবুব গ্রেপ্তার কুবিতে বিজ্ঞান উৎসব অনুষ্ঠিত। চৌদ্দগ্রামে সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক এমপিকে মুক্তিযোদ্ধাদের ফুলেল শুভেচ্ছা মাগুরায় সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা, আটক-৩ মাগুরায় শহিদ ও মৃত মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

রামপাল ও মংলা আসনে নির্বচন পরবর্তী প্রতিহংসার শিকার হচ্ছে সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়।

এ এইচ মোবারক নিজস্ব প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৩ জানুয়ারি, ২০২৪
  • ৬২ বার

আজ ১৩/০১/২০২৪ ইং জাতীয় প্রেসক্লবে তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে বাগেরহাট-৩ রামপাল ও মংলা বাসীর ব্যানারে সংবাদ সম্মেলন করে স্বতন্ত্র প্রার্থী ইদ্রিস আলী ইজারাদারের নির্যাতিত সমর্থক বৃন্দ।

গত ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট গণনার পর থেকেই বাগেরহাট-৩ আসনের বিশেষ করে পুরো মোংলা উপজেলার ত্রাসের রাম রাজত্ব কায়েম করে চলেছে।
মূল বক্তব্য উত্থাপন করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা কেশব লাল সাধক,
এবং লিখত বক্তব্যে বলেন নবনির্বাচিত এমপি হাবিবুন নাহারের কতিপয় নেতা ও ক্যাডার বাহিনীর সদস্যরদের ধারাবাহিক অন্যায়, জুলুম, অত্যাচার, হামলা, মারধর, ঘের দখল, ভাংচুর ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপে এলাকার সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন জীম্মি হয়ে পড়েছে।
অবরুদ্ধ হয়ে বন্দী জীবন যাপন করছেন বিপুল সংখ্যক হিন্দু পরিবার। ইতিমধ্যে কয়েকশ’ পরিবার ভয়ে আতংকে ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে বাড়ি ঘর ছেড়ে মোংলা থেকে পালিয়ে অন্যত্র বসবাস করছে।
শুধুমাত্র হাবিবুন নাহারকে ভোট না দেওয়ার কারণে এ এলাকায় বর্তমানে এক অস্থিতীশীল ভয়াবহ অবস্থা বিরাজ করছে।
বিগত ৩ বারের সংসদ নির্বাচনে এখানে শক্ত প্রতিদ্বন্ধি না থাকায় হাবিবুন নাহার অনেক সহজেই এমপি নির্বাচিত হয়েছেন। কিন্তু এবার দলীয় কোন বাধা না থাকায় বাগেরহাট জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও মোংলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা বীর মুক্তিযোদ্ধা ইদ্রিস আলী ইজারাদার স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ায় হাবিবুন নাহারকে শক্ত প্রতিদ্বন্ধিতার মধ্যে জয়ী হতে হয়। নির্বাচনের শুরু থেকেই স্বতন্ত্র প্রার্থী ইদ্রিস আলী ইজারাদারের সমর্থক বিশেষ করে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের কর্মী ও নেতাদের উপর হাবিবুন নাহারের লোকজন নানাভাবে হুমকি ধামকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করতে থাকেন।
যার বহিঃপ্রকাশ ঘটে নির্বাচনের দিন থেকেই। ভোট গণনা শেষ হতেই হাবিবুন নাহারের ক্যাডার বাহিনীর সদস্যরা স্বতন্ত্র প্রার্থী ইদ্রিস আলী ইজারাদারের সমর্থক হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতা কর্মীদের টার্গেট করে করে বাড়ি বাড়ি গিয়ে হামলা ও মারধর চালানো হয়। ভাংচুর চালায় বসত ঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও দোকানে।
জবর দখর করে নেওয়া হয় মাছের ঘের। লুটে নেয়া হয় পুকুর ও ঘেরের মাছ। বর্তমানে এদের হাত থেকে রেহাই পাচ্ছে না বাড়ির শিশু থেকে বৃদ্ধ মহিলারা পর্যন্ত।
রাতে দিনে সমান তালে এমপির ক্যাডার বাহিনী বেপরোয়া তান্ডব চালাচ্ছে। শুধুমাত্র হাবিবুন নাহারকে ভোট না দেওয়ার কারণে ক্যাডার বাহিনী প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে এলাকায় চালাচ্ছে সন্ত্রাসের রাম রাজত্ব। ইতিমধ্যে সংখ্যালঘু গরীব হিন্দুদের একমাত্র আয়ের উৎস্য মাছের বেশ কয়েকটি ঘের এরা জবর দখল করে নিয়েছে। কোন কোন ঘের থেকে মাছ লুটপাট করে নিচ্ছে।
এদের ভয় ও অত্যাচারে বিভিন্ন এলাকায় বিপুল সংখ্যক হিন্দু পরিবার বাড়ি ঘর থেকে বের না হয়ে অবরুদ্ধ হয়ে এক প্রকার বন্দি জীবন যাপন করছেন।
মোংলা উপজেলার সোনাইলতলা, মিঠাখালী, সুন্দরবন ও চিলা ইউনিয়নে হাবিবুন নাহারের ক্যাডার বাহিনী সবচেয়ে বেশী তান্ডব চালাচ্ছে।
বক্তব্যে আরও বলেন এসব তান্ডবের নেপথ্যে রয়েছে মোংলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবু তাহের হাওলাদার,
সুন্দরবন ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান কবির হোসেন ও তার সহযোগী আহাদুল মেম্বর, মিঠাখালী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান শেখ ইস্রাফিল হাওলাদার, চিলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গাজী আকবর হোসেন, চাঁদপাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের ভাই হাফিজুল ও তার সহযোগী সেলিম।
এরা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের স্থানীয় বিভিন্ন পর্যায়ের প্রভাবশালী নেতা ও কর্মী।
মুলতঃ এদের ইন্ধনেই ক্যাডার বাহিনীর সদস্যরা ধারাবাহিকভাবে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকদের উপর নানা পন্থায় নিয়াতন ও জুলুম চালিয়ে যাচ্ছে।
এই অবস্থায় আমরা ক্যাডার বাহিনীর তান্ডর থেকে পরিত্রাণ পেতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করে।
সেই সাথে এসব সন্ত্রাসী কার্যকলাপের হোতাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে দ্রুত আইনানুগ পদক্ষেপ গ্রহণের পাশাপাশি দলীয়ভাবে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবি জানান।
এ ব্যাপারে ব্যক্তার জানান থানায় একাধিক জিডি ও মামলা হয়েছে। পুলিশ আন্তরিক সহযোগিতা করলেও পুলিশের অনুপস্থিতিতে তার আরও মারমূখি হয়ে উঠে।

স্থানীয় সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের পক্ষে উৎপল কুমার মন্ডল
চেয়ারম্যান, মিঠাখালী ইউনিয়ন পরিষদ মোংলা, বাগেরহাট, উদয় শংকর বিশ্বাস,
আরও উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা বিধান, এসময় চন্দ্র রায়, মিঠেখালী ইউপি চেয়ারম্যান উৎপল কুমার সর্বন, বুড়ির রডাঙ্গা ভাঙ্গা ইউপি বেশ্যান * N সদস্য আশীষ এ মরম মখম নির্যাতিত এনাবাকী কিংবায় জয় বাছাড়, নির্মল সরকার, :- দেবাশীষ শুল, ঢাকন নয়ন কুমার ফতুল ফাকর, দীপা ফকির শুল, ঢাকন ফকির তাপস সঙ্কার বিষে সবল, অমিত সরকার প্রমূখ।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম