1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ভালোবাসা বিনোদন নয়; একটা আত্মার সম্পর্ক - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০১:১১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
ফাঁসিয়াখালী-মেদাকচ্ছপিয়া পিপলস ফোরাম (পিএফ) সাধারণ কমিটির সভা সম্পন্ন চৌদ্দগ্রামে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উদযাপন চৌদ্দগ্রামে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ৩ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা ফের ৩দিন ক্লাস বর্জনের ঘোষণা কুবি শিক্ষক সমিতির নবীনগরে পৃথক মোবাইল কোর্ট অভিযানে সাড়ে ৪ লাখ টাকা জরিমানা দৈনিক আমাদের চট্টগ্রামের সম্পাদক মিজানুর রহমান চৌধুরী উপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈলে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মাঠে নেমেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা তিতাসে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা শেরপুরে আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত ঘুমন্ত স্বামীর পুরুষাঙ্গ কেটে নিয়ে স্ত্রীর পলায়ন

ভালোবাসা বিনোদন নয়; একটা আত্মার সম্পর্ক

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪
  • ১১৫ বার

সৈয়দা তানজিনা আজিজ এশা

আজকাল সড়ক অবরোধ করে মানুষ ভালোবাসা দিবস পালন করে। কারণ তারা ভালোবাসাকে একটা বিনোদন ভাবে। আসলে কিন্তু সেটা। এটা আত্মার সম্পর্ক। সেদিন অফিস থেকে বের হয়েছি ৬:৩০ মি. আর বাসায় পৌঁছেছি ঠিক ১০:৩০ এ। অর্থাৎ গুণে গুণে ৪ ঘণ্টা পার। রাস্তার জ্যাম ঢাকা শহরে নতুন কিছু না। তার ওপর যদি সেটা নিজেরা তৈরি করে নেয়; সেটা তো আমাদের মত খেটে খাওয়া মানুষদের জন্য কঠিন হয়ে যায়। সারাদিনের ক্লান্তির পর এভাবে দীর্ঘ সময় রাস্তায় বসে থেকে, পরের দিন সময় মত অফিস ধরা সত্যিই কষ্টসাধ্য।

ঠিক আগের দিন অফিস থেকে বাসায় ফিরেই জাস্ট ল্যাপটপের ব্যাগটা ঘরে রেখে, কাঁধের ব্যাগটা নিয়ে আবার ছুটলাম আম্মুকে নিয়ে ডাক্তারের কাছে। কারণ আগে থেকে অ্যাপয়েন্টমেন্ট করা ছিল।তখন আম্মু বলছিল কাল তো ছুটি! অন্তত রেস্ট পাচ্ছো, দেখে তো মনে হচ্ছে সারাদিন কিছু খাওয়াও হয়নি। আমি মোটামুটি ভ্রু কুচকে উত্তর দিলাম, কাল বুধবার ছুটি কেন হবে? আম্মু বলল নিউজপেপার, টেলিভিশন সব জায়গায় ই তো দেখছি মানুষ ফাল্গুন আর ভালোবাসা দিবসের প্রস্তুতি নিচ্ছে। আমি বললাম, ফাল্গুন সুন্দর একটা ব্যাপার, ব্যক্তিগতভাবে এই ঋতু আমার খুব পছন্দের, বাঙালি সংস্কৃতির একটা অংশ। কাউকে বিরক্ত না করে সেটা পালন করাই যায়। তাই বলে কথায় কথায় বিভিন্ন দিবসে যদি ব্যাংক বন্ধ দিয়ে দেয়, তাহলে এই দুর্বল অর্থনীতি কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে বুঝতে পারছো! তোমার ত্রিশ বছরের শিক্ষকতা জীবনে কখনো এমন হয়েছে, যে তোমরা এইসব দিবসে ছুটি পেয়েছো! এই বলে হেসে উড়িয়ে দিলাম।

কিন্তু জ্যাম এ বসে থেকে উপলব্ধি করলাম সত্যিই তো, এই সব দিবসে যখন মানুষ এতো বাড়াবাড়ি করে, তখন সব ধরনের প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা উচিত। যাতে করে সারাদিন কাজ করে রাস্তার এভাবে লেস প্রোডাক্টিভ হয়ে বসে থাকা না লাগে। আর এটা প্রতি বছরের একটা কমন চিত্র হয়ে গেছে দেখছি।

আচ্ছা, ভালোবাসা কি বিনোদনমূলক কোন কাজ! যে রাস্তায় বের হয়ে যেতে হবে দলবদ্ধ হয়ে, অবশ্যই না। এটা আত্মিক বিষয়। আরেকটা কথা না বল্লেই নয়। আসলে ভালোবাসা দিবস কি? কেন বা কোথা থেকে এর উৎপত্তি। আমার ধারণা, বেশিরভাগ মানুষ এটা জানেই না। সেইন্ট ভ্যালেন্টাইন নামের এক লোকের ভালোবাসার প্রতি তীব্র ডেডিকেশন দেখে সেই সময়কার একজন পোপ দিনটিকে ভালোবাসা দিবস হিসেবে ঘোষণা করেন। খুবই ভাল কথা, সেইন্ট ভ্যালেন্টাইন নামক সেই ভদ্রলোক অবশ্যই শ্রদ্ধা পাবার যোগ্য। কারণ সে সত্যিকার ভালোবাসতে পেরেছে। ইতিহাস নাড়া দিলে দেখা যায়। সেইন্ট ভ্যালেন্টাইন ছিলেন একজন খ্রীষ্ট ধর্মপ্রচারক ও মানবপ্রেমিক। খ্রীষ্ট ধর্ম ত্যাগ না করায় সেই সময়ের এক ক্ষমতাধর ব্যক্তি রাষ্ট্রীয় আদেশ ভঙ্গের কারণে তাকে ১৪ ই ফেব্রয়ারি মৃত্যুদণ্ড দেয়ার নির্দেশ দেন। অর্থাৎ ভালোবাসার পরীক্ষায় তিনি জয়ী।সেই সাথে আরও একটি ইতিহাস আছে এই সেইন্ট ভ্যালেন্টাইনকে নিয়ে। সেই সময়ের অনেক তরুণ তরুণীর কাছে অধিক জনপ্রিয় ও পছন্দের পাত্র হবার পরও তিনি এক দৃষ্টিশক্তিহীন যুবতীর প্রেমে সাড়া দিয়েছিলেন। সেই সাথে তিনি নিজেও এতো মানুষের ভিড়ে, এতো অপশনের ভিড়ে সেই অন্ধ যুবতীর প্রেমে পড়েছিলেন। সেটা ঘটেছিল তার কথা ও জীবন সংগ্রামে মুগ্ধ হয়ে। তাই তার ভালোবাসার এসব নিদর্শন দেখে দিনটিকে ভালোবাসা দিবস বলে ঘোষণা করা হয়। অথচ এখনকার বেশিরভাগ মানুষ মূল ব্যাপারটাই জানে না। জানে শুধু ভালোবাসা দিবস পালন করতে হবে। আর টার্গেট করে রাখে আশেপাশে দেখা সব থেকে সুন্দরী হরিণ চোখের তরুণীটিকে কী করে প্রপোজ ডে তে প্রপোজ করা যায়! কোন শিল্পপতি বা পাওয়ারফুল লোকের কন্যাটিকে এই ভালোবাসা দিবসকে উপলক্ষ্য করে একটু পটিয়ে নেয়া যায়। রঙ বেরঙের কাপড় পড়ে কীভাবে গার্লফ্রেন্ড বা বয়ফ্রেন্ড নিয়ে একটু বিনোদনে ভরপুর একটি দিন উদযাপন করা যায়! এইসবই হচ্ছে এখনকার ভালোবাসা।

আসলে একজন মানুষ, তার ভালোবাসার নিদর্শন যতই মনোমুগ্ধকর হোক না কেন! নিজের ব্যক্তিজীবনে সেটা কীভাবে টেনে আনা যায়! প্রতিটা মানুষই তার জায়গা থেকে আলাদা এবং গুরুত্বপূর্ণ। কত লোকের প্রাণ গেছে, মন গেছে, একটা জীবন পার হয়ে গেছে ভালোবাসতে গিয়ে। একজনকে ভালোবেসে সেই ভালোবাসা না পেয়ে কত আত্মা হাহাকার করে প্রতিদিন। কাউকে ভালোবেসে, সেই ভালোবাসা না পেয়ে অন্য কাউকে কোনভাবেই সেই জায়গায় বসাতে পারে না। এমনকি নিজের বস্তুগত স্বার্থ, জৈবিক, মানসিক সবকিছু বিসর্জন দিয়েও কত মানুষ জীবন পার করছে। এটা কি প্রকৃত ভালোবাসা নয় কি! নাকি ভালোবাসা দিবসই আসল ভালোবাসা!

আসলে আমাদের মুখস্থ বিদ্যা আর পুঁথিগত বিদ্যার অভ্যাস এখন ভালোবাসার মত অনুভূতিপ্রবণ ব্যাপারেও প্রভাব ফেলেছে। ১৪ই ফেব্রয়ারি তেই প্রপোজ করতে হবে। তাও আবার ডায়মন্ডের রিং সহ অর্থাৎ টাকা ও সামাজিক মান- মর্যাদার দিক থেকে যে এগিয়ে থাকবে, সেই ততো বেশি ভালবাসার যোগ্য দাবিদার হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাবে।

মানুষটা লম্বা হতে হবে, দেখতে ভালো হতে হবে, সুঠাম দেহের অধিকারী হতে হবে। সেই সাথে পরিবারের সুনামের পাশাপাশি টাকা পয়সার দিক থেকেও ধনী হতে হবে। যাতে করে ফ্যামিলি বলে বাহ বেশ ভালো চয়েস করেছিস তো। আর এই সবকিছু একসাথে মেচিং হলে তবেই প্রেম বা ভালোবাসা হয়ে যায়। ঠিক সব কিছুকে একটা ক্রাইটেরিয়ায় ফেলে মেচ করলেই প্রেম হয়ে যায়।আর আয়োজন করে ১৪ই ফেব্রয়ারিতে সেটা উজাড় করে প্রপোজ করতে হবে। কারণ সবাই করছে, আমাকেও করতে হবে। ব্যাপারটা এমনি দাঁড়ায়

আমার কাছে প্রতিটা দিনই ভালোবাসা দিবস। যেহেতু আমি কাউকে ভালোবাসি। আমি ভালোবাসার ব্যাপারে দিবসে বিশ্বাসী নই। কারণ আমি একদিনের জন্য ভালোবাসিনি।তারপরও যাদের এতো দিবস পালনের ইচ্ছা। যেদিন নিশ্চিতভাবে জানলাম, মানুষটিকে ভালোবাসি কিংবা যেদিন মানুষটাও আমাকে বললো, তুমি কি আমাকে ভালোবাসো! আসলে আমাদের নিজের ওপর, এমন কি নিজের ভালোবাসার ওপর কোন আস্থা নেই। আসলে যেইসব লোভনীয় উপহারসামগ্রী টাইপের ভালোবাসাগুলো একটা সময় ভিড়ের মাঝে হারিয়েও যায়….

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম