1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
- দৈনিক শ্যামল বাংলা
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৩৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
ফাঁসিয়াখালী-মেদাকচ্ছপিয়া পিপলস ফোরাম (পিএফ) সাধারণ কমিটির সভা সম্পন্ন চৌদ্দগ্রামে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উদযাপন চৌদ্দগ্রামে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ৩ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা ফের ৩দিন ক্লাস বর্জনের ঘোষণা কুবি শিক্ষক সমিতির নবীনগরে পৃথক মোবাইল কোর্ট অভিযানে সাড়ে ৪ লাখ টাকা জরিমানা দৈনিক আমাদের চট্টগ্রামের সম্পাদক মিজানুর রহমান চৌধুরী উপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈলে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মাঠে নেমেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা তিতাসে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা শেরপুরে আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত ঘুমন্ত স্বামীর পুরুষাঙ্গ কেটে নিয়ে স্ত্রীর পলায়ন

ঘুরে ঘুরে মামলা করেন তিনি!

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২৯ মার্চ, ২০২৪
  • ২১ বার

কুমিল্লা প্রতিনিধি।।

শাহ আলম।

কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার আড্ডা ইউনিয়নের ছোটপুটিয়া গ্রামের বাসিন্দা। আড্ডা ইউনিয়নে এই শাহ আলমের নাম শুনলেই আঁতকে উঠে সাধারণ মানুষ। তাকে এখন মামলা শাহ আলম নামেই জানে স্থানীয়রা। কারণ, তার কাজই মামলা করা বা কাউকে দিয়ে মামলা করিয়ে হয়রানি করা।

স্থানীয় বিভিন্ন সূত্রে খবর পেয়ে এই প্রতিবেদক আড্ডা ইউনিয়নে যান সরেজমিনে খবর নিতে। কিন্তু শাহ আলম সম্পর্কে কেউই কথা বলতে নারাজ। কারণ যে প্রতিবাদ করবে তাকেও হয়রানি করে এই শাহ আলম। যেকারণে শাহ আলমের আছে দীর্ঘ মামলার আমলনামা।

জানা গেছে, এই শাহ আলমের মামলার অভিষেক হয় ২০২০ সালের ২৬ ডিসেম্বর। ওমানে তার ব্যবসায়িক পার্টনার খালেদ হামেদ সাদী আল সিনানিকে দিয়ে হাবিবুর রহমান নামের (তারেক রাইহান) এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা করান শাহ আলম।
পরবর্তীতে ঐ মামলায় ওমানের পুলিশ প্রশাসন হাবিবুর রহমানকে (তারেক রাইহান) গ্রেফতার করে। ৪দিন জেল খেটে বের হন হাবিবুর রহমান। পুলিশ উক্ত মামলা তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা না পেয়ে চুড়ান্ত রিপোর্ট প্রদান করলে ঐ মামলা ডিসমিস করে দেন আদালত। তারপর হাবিবুর রহমান দেশে চলে আসেন।

ঢাকার সিএমএম আদালতে ঢাকা জেলার কেরানিগঞ্জ উপজেলার কলাতিয়া গ্রামের জামাল হোসেনের মেয়ে তানজিলা আক্তার ঝুমাকে তারেকের বউ সাজিয়ে ২০২২ সালের ২৭ জুন যৌতুক আইনের ৩ ধারায় ৬৫০/২০২২ মামলা দায়ের করান হাবিবুর রহমান (মতারেক রাইহান) (৩৫) বিরুদ্ধে। পরবর্তী বরুড়া থানা পুলিশ আসামিকে ধরতে তার নিজ বাড়িতে আসেন। কিন্তু আসামিকে পাননি। এই মামলা আদালতের মাধ্যমে মোকাবেলা করেন হাবিবুর রহমান। মামলার বাদী কয়েক তারিখ আদালতে হাজির না হওয়াই এবং মুঠোফোনে না পাওয়াই মামলা খারিজ করে দেন আদালত।

এই দুই মামলার আসামি হাবিবুর রহমান বরুড়া উপজেলা আড্ডা ইউনিয়নের ছোটপুটিয়া গ্রামের শামছুল হকের ছেলে।

কুমিল্লার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী ৭ নম্বর আদালতে ২০২৪ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি হাবিবুরের বাবা ও স্ত্রী ফারহানা আক্তার রুমার নামে একটি মামলা দায়ের করা হয়। এই মামলায় আদালতে থেকে আসামীরা জামিন। এই মামলার বাদী কুমিল্লা জেলা বরুড়া উপজেলা আড্ডা ইউনিয়নের ছোট পুটিয়া গ্রামের মৃত দুধ মিয়ার ছেলে স্বয়ং শাহ আলম। যিনি ঐ গ্রামে অধিকাংশ মানুষের আতঙ্কের নাম। তিনজনকে আসামী করে মামলা করা হয়। মামলার কার্যক্রম শুরুর আগে হাবিবুরকে কোনভাবেই মামলায় যুক্ত করার সুযোগ না পেয়ে হাবিবুর রহমান (তারেক রাইহান) এর নাম কেটে দেন। এই মামলায় অভিযোগ দেওয়া হয় তারেকের পিতা ‍ও স্ত্রীকে সে তাদের ঘরে গিয়ে ৩৫ লক্ষ টাকা ক্যাশ দিয়েছে। এই মামলাটি চলমান।

কুমিল্লা জেলা বরুড়া উপজেলা গালিমপুর ইউনিয়নের রাঢ়ী গ্রামের আরিফুর রহমানের ছেলে নাজমুল হাসান রিয়াজ (৩৮) বাদী হয়ে হাবিবুর রহমানের (তারেক রাইহান) স্ত্রী ফারহানা আক্তার (৩০), তার বাবা সামছুল হক (৬০) এবং তার চাচা মোতালেব হোসেনকে (৫৬) ৭ লক্ষ টাকা পাওনা বলে আরেকটি মামলা করেন। কুমিল্লার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ৭ নম্বর আমলী আদালতে এই মামলা দায়ের করা হয়।

এই মামলাও শাহ আলম নিজে করিয়েছে বলে স্বীকার করে। যার একটি ভিডিও ফুটেজও রয়েছে। এ মামলায় আসামীরা আদালাত থেকে জামিন পান। এ মামলায় শাহ আলম তারেকের স্ত্রী বাবা, চাচাকে জেল হাজতে দিতে ব্যর্থ হয়ে মামলার বাদী নাজমুল হাসান রিয়াজের নেতৃত্বে ১০/১৫ জন ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী নিয়ে আদালত থেকে বের হওয়ার সাথে সাথে অতর্কিত হামলা করে। বেদম মারধর করে মহিলাদের গলার চেইন, কানের দুল, স্মার্ট ফোন, নগদ টাকা ছিনিয়ে নেয়। সড়ক পথে মানুষের ধাওয়া খেয়ে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। গুরতর আহত হয়ে হসপিটালে চিকিৎসা নেন হাবিবুর রহমানের পরিবার।

এঘটনার পর হাবিবুর রহমানের চাচা মো. মোতালেব বাদী হয়ে ১২ মার্চ কুমিল্লার কোতোয়ালি থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

এদিকে ৭০ বছর বয়োষোর্ধ হাবিবুরের বাবা শামছুল হকের বিরুদ্ধে ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ২নং ট্রাইব্যুনাল থেকে গায়েবীভাবে একটি ওয়ারেন্ট আসে। পরে মামলার আইন ও ধারা দেখে সন্দেহ প্রকাশ করে উক্ত মামলা চ্যালেঞ্জ করেন তিনি। পরবর্তীতে থানা কতৃপক্ষ যাচাই বাচাই করে ওয়ারেন্ট ভূয়া বলে নিশ্চিত হয়। এবং তাকে ছেড়ে দেন।

এভাবে টানা মামলা করার কারণ জানতে চাইলে ভুক্তভোগী হাবিবুর রহমান বলেন, ২০২০ সালের ডিসেম্বরে শাহ আলমকে বলি আপনার চাকরি আর করবো না। তখনই ক্ষিপ্ত হয়ে সে আমার উপর বিভিন্নভাবে মামলা, হামলা করার শুরু করে। একটা সময় দুই পরিবার উভয় পরিবারের বিরুদ্ধে কোন আইনগত পদক্ষেপ নিবেনা সেই আলোচনার প্রেক্ষিতে তাদের কাছ থেকে ৩০০ টাকার খালি ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেয়। শর্তের প্রেক্ষিতে শাহ আলম তার এজেন্ট ব্যাংক (ব্যাংক এশিয়া একাউন্ট- ১০৮৩৪১৯০৭৮২৬৫) নাম্বারে ৫লক্ষ টাকাও নেয়।

স্থানীয় সূত্র জানায়, শুধুমাত্র হাবিবুর রহমান পরিবার নয়। আরও বহু ভুক্তভোগী রয়েছে। কিন্তু কেউ মুখ খোলতে চাচ্ছে না। মুখ খুললে হাবিবুর রহমানের পরিবারের মত হবে। এটি উদাহরণ মনে করছেন অন্যান্যরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন বলেন, আমার জমি দখল করে নিয়ে গেছে। আমার জমি উপরে রাস্তা তৈরি করে বাড়ির সৌন্দর্য বৃদ্ধি করেছে।

অন্যদিকে আড্ডা দক্ষিণ পাড়া খোকন মিয়া বলেন, শাহ আলম আমাকে বিদেশ নিয়ে যায়। আমাকে যে কাজে দেওয়ার কথা সে কাজ দেয়নি এবং বেতন আটকে রেখেছে। পরবর্তী আমি তার বিরুদ্ধে মামলা করে পক্ষে রায় পেয়ে দেশে চলে আসি। শাহ আলম মূলত আদম ও ট্রাভেলস ব্যবসায়ী।

আরেকজন প্রবাসী রহিম মিয়া বলেন, আড্ডা ইউনিয়নের খাটলা গ্রামের আঃ রহিম বলেন, তার পরিবারের সাথে আমার পারিবারিক সম্পর্ক ছিলো। আমার কাতারের ২৫ বছর আয়, শাহ আলমের কথা শোনে ২০১৭-১৮ সালে তার সাথে ওমানে ব্যবসা করতে যাই। সেখানে গিয়ে ব্যবসা করতে গিয়ে দেখি তার আসল রূপ। আমার অর্থনৈতিকভাবে ৪৫-৫০ লক্ষ টাকার ক্ষতি। আমার ওপরে শারীরিক ও মানসিক অত্যাচার। শেষ পর্যায় না টিকতে পেরে আবার কাতার চলে যাই। এলাকার অনেক মানুষের উপর অত্যচার করেছে। যেমন- ছোট পুটিয়া আলী আজ্জম মেকানিককে মারধর, লতিফ মিয়া মারা গেছে, তার ঘরে মদ ডুকিয়ে পুলিশ আনে।

বিভিন্ন জায়গায় তার সন্ত্রাসী বাহিনী আছে, এই ভয়ে কেউ মুখ খুলতে চাই না।

একই ইউনিয়নের পোম্বাইশ গ্রামের ফারুক হোসেন বলেন, তাকে বিশ্বাস করে আমার জীবন শেষ। সে আমাকে বিদেশ নিয়ে যে কাজে দেওয়ার কথা সে কাজ দেয়নি। মাসে ৫০ হাজার টাকা বেতন ধরে সেখানে গিয়ে মাসে বেতন দিতো ১০ হাজার। আমার ৫ থেকে ৮ লাখ টাকা নষ্ট হয়েছে।

এই বিষয়ে স্থানীয় ফারুক মেম্বার বলেন, মামলা হয়েছে। স্থানীয়রা চেষ্টা করেছে, সমাধান হয়নি। অনেকের সাথে রাফ ব্যবহার করেছে, এতটুকু জানি।

এই বিষয়ে শাহ আলম বলেন, আমার বড় ভাই হলো স্থানীয় জেলা সাংবাদিক। উনার সাথে কথা বলেন। আপনার যদি কোন কথা বলার থাকে প্লিজ উনার সাথে কথা বলেন। এটি বলে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।

 

বিভিন্ন জায়গায় তার সন্ত্রাসী বাহিনী আছে, এই ভয়ে কেউ মুখ খুলতে চাই না।

একই ইউনিয়নের পোম্বাইশ গ্রামের ফারুক হোসেন বলেন, তাকে বিশ্বাস করে আমার জীবন শেষ। সে আমাকে বিদেশ নিয়ে যে কাজে দেওয়ার কথা সে কাজ দেয়নি। মাসে ৫০ হাজার টাকা বেতন ধরে সেখানে গিয়ে মাসে বেতন দিতো ১০ হাজার। আমার ৫ থেকে ৮ লাখ টাকা নষ্ট হয়েছে।

এই বিষয়ে স্থানীয় ফারুক মেম্বার বলেন, মামলা হয়েছে। স্থানীয়রা চেষ্টা করেছে, সমাধান হয়নি। অনেকের সাথে রাফ ব্যবহার করেছে, এতটুকু জানি।

এই বিষয়ে শাহ আলম বলেন, আমার বড় ভাই হলো স্থানীয় জেলা সাংবাদিক। উনার সাথে কথা বলেন। আপনার যদি কোন কথা বলার থাকে প্লিজ উনার সাথে কথা বলেন। এটি বলে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।

এই বিষয়ে বরুড়া থানা ওসি রিয়াজ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, এই বিষয়ে আমি অবগত নয়, শাহ আলমকে আমি চিনি না। তবে বিষয়টি মাথায় নিচ্ছি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম