1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
কেমন আছে দৌলতদিয়ার যৌনকর্মীরা - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৬:১৫ অপরাহ্ন

কেমন আছে দৌলতদিয়ার যৌনকর্মীরা

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৬ মে, ২০২৪
  • ২৯ বার

নেহাল আহমেদ:

ভাই আসেন ভালো ব্যবহার পাবেন।
২৪ বছরের একটি রুপবর্তী মেয়ের এমন আকুতি তার কন্ঠে।এমন ও শত শত নারী মানবেতর জীবন কাটাচ্ছে দেশের সব চেয়ে বৃহৎ যৌন পল্লী রাজবাড়ী জেলার দৌলতদিয়া যৌন পল্লীতে। পদ্মা সেতু হওয়ার কারনে দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে যাতায়াতের সংখ্যা কমে গেছে। ভাটা পড়েছে যৌন কর্মিদের চাহিদা। তিনবেলা পেট পুরে খাবার অনিশ্চয়তার সাথে বাসা ভাড়া দেওয়ার দুচিন্তার তাদের রাতদিন কাটছে।তাদের সন্তানদের নিয়ে পড়েছে বিপাকে।

যে বয়সে শিশুরা মায়ের কোলে বসে ঘুম পাড়ানি গান শুনে ঘুমিয়ে যায় সেই বয়সে অনেক কে আশ্রয় নিতে হয় আশ্রয়ন কোন প্রকল্পে বা মায়ের অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো হলে রেখে দেন যৌনপল্লীর বাহিরে কারো বাড়িতে। মা বাবা থাকার পর থাকতে হয় অভিভাবকহীন,অবহেলায়। এতে শিশু বয়সেই মনস্তাত্ত্বিক প্রভাব পরে।জীবন এখানে মলিন আর অনিশ্চয়তায় ভরা। এখানে তাদের জন্ম হয় অন্ধকার কুঠরীতে। জন্মের পর বেড়ে উঠে সেই অন্ধকার গলিতে। এখানে মায়া নেই, মাঝো মাঝে দুধের পরিবর্তে শৈশবে মুখে ঢেলে দেওয়া হয় মদ। জীবনের গল্পটা শুধুই অন্ধকারে ভরা।

যৌনকর্মি সন্তানদের নিয়ে কে কে এস আয়োজনে দেখতে এসেছিলাম রাজবাড়ী শিল্পকলা একাডেমির। চিত্রকর্ম প্রদর্শনীতে।

যৌন কর্মিদের কর্মজীবন ও সংসার জীবনের ব্যস্ততার ফাঁকে তাদের সন্তানরা ছবি আঁকেন, এমন একঝাঁক ক্ষুদে শিল্পীর আঁকা ছবি নিয়ে প্রদর্শনীটি আয়োজিত হচ্ছে।

এই প্রদর্শনীতে সব শিল্পিই অপেশাদার। ৬৫ শিল্পির ছবিও স্থান পেয়েছে এ প্রদর্শনীতে।কে কে এস নামে একটি সংগঠন আয়োজন করছে এই প্রদর্শনীর। কে কে এস কার্যক্রমের উল্লেখযোগ্য অংশ হলো যৌন কর্মিদের সন্তানদের সু রক্ষা দেয়া প্রতিষ্ঠিত করার সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়া। শিশুদের স্বাধীন ও সুন্দর মননশীলতার পরিস্ফুটন ঘটানো।

কে কে এস এর অধীনে পরিচালিত সেফ হোম ড্রইং সেন্টারে যেসব শিক্ষার্থী ছবি আঁকা শিখেছে তাদের মধ্যে ৬৬ জন শিক্ষার্থীর চিত্রকর্ম স্থান পেয়েছে এ প্রদর্শনীতে।

ছবি গুলো দেখে ধারনা করা যায় এ সব সুবিধা বঞ্চিত শিশু শিল্পী শুধু একটি শিল্পকর্মই তৈরি করে নাই, সে তার পরিবার এবং তার জীবনের কর্ম ফুটিয়ে তুলেছে। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তাদের অধিকার এবং মর্যাদার কথা মনে করিয়ে দেয়। এই আর্ট প্রদর্শনী তাদের মেধা মনন এবং চিন্তার চিত্র কে এই সব সুবিধা বঞ্চিত সন্তানদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করছি।’
দেশের বৃহত্তম রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে বড়দের পাশাপাশি শিশু-কিশোররা মাদক ব্যবসা ও সেবনের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ছে। বাবা মায়ের আদর বঞ্চিত এসব শিশুরা এই পরিবেশে বড় হওয়ার কারণেই মূলত তারা এসব পেশায় জড়িয়ে পড়েছে। তাছাড়া বাইরের জগতের কাজের ধারণা তাদের কম। তাছাড়া শটকার্ট টাকা উপার্জনের কারণে ও অনেকেই জড়িয়ে পড়ে এই পেশায়।

বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, যৌনপল্লীতে জন্ম নেয়া বেশির ভাগ শিশু-কিশোররাই বর্তমানে মাদকাসক্ত হয়ে পড়েছে। এছাড়া চুরি, ছিনতাই, নারী পাচারসহ বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ছে তারা। বাইরের প্রভাবশালী মাদক ব্যবসায়ী ও নারী পাচারকারীরা তাদের এ ব্যবসায় নামিয়ে নিজেরা ফায়দা লুটছে বলেও একাধিক সূত্রে জানা যায়।

যৌন পল্লীরর ভিতরে বর্তমানে প্রায় অর্ধশত মদের দোকান, শতাধিক গাঁজার দোকান ও ভাসমান হেরোইন, ফেনসিডিল ব্যবসায়ী প্রশাসনের চোখের সামনেই চালিয়ে যাচ্ছে তাদের ব্যবসা। পাশাপাশি অনেক প্রভাবশালী বাড়িওয়ালারাও মাদক বাণিজ্যে পল্লীর শিশু-কিশোরদের ব্যবহার করে টাকার পাহাড় গড়ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে প্রতিদিন সড়ক ও রেলপথে নানা ধরনের মাদক দ্রব্য যৌনপল্লীতে চলে আসে। এর বাইরে স্থানীয় সরকারি লাইসেন্সধারী মদের ডিলার হিসেবের মারপ্যাঁচে প্রতিদিন শত শত লিটার মদ যৌনপল্লীতে সরবরাহ করছে। স্থানীয় একটি চক্র এ ব্যবসা থেকে প্রতিমাসে কয়েক লাখ টাকার মাসোহারা আদায় করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আর এভাবে বৈধ দোকানে অবৈধ মদ সরবরাহের কারণে পল্লীর ভেতরে অন্তত শতাধিক শিশু-কিশোর মাদক সেবন, পরিবহন ও ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত হয়ে পড়েছে। অনেক সংস্থ্যা এই সব সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের নিয়ে কাজ করছেন। তাদের উন্নত জীবন স্বাভাবিক জীবন ফিরিয়ে দেয়া রাষ্ট্রের দায়িত্ব,নাগরিকদের দায়িত্ব বলে মনে করি। আসুন আমরা সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেই।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম