1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
কদলপুরে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ১৩০টি ঘরের মধ্যে ৫০টি ঘর বিক্রি করলেন বরাদ্দপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ১০:৫২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নবীনগরে কোটাপদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল রাউজানে তিনদিন ব্যাপী বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন রাউজানে ৬০ প্রজাতির ১ লাখ ৮০ হাজার ফলজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপন কর্মসূচি উদ্বোধন মাগুরায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শরিয়াতউল্লাহ হোসেন রাজনকে গণসংবর্ধনা প্রদান  *জরুরী রক্ত প্রয়োজন*রক্তের গ্রুপ: AB+ (এবি পজেটিভ) ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে চৌদ্দগ্রামে তিন ছাত্রলীগ নেতার পদত্যাগ কক্সবাজারে সাংবাদিকদের উপর আ’লীগ-ছাত্রলীগের হামলা সারাদেশে ছাত্রসমাজের উপর মর্মান্তিক হামলার প্রতিবাদ ও কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে দোহাজারীতে বিক্ষোভ মিছিল  এমএসআর’র ১ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা লুটপাট সমস্যায় জর্জরিত চট্টগ্রামের চন্দনাইশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-অধিকাংশ চিকিৎসক অনুপস্থিত থাকেন নবীনগরে কুতুবিয়া দরবার শরীফে শাহাদাতে কারবালা মাহফিল অনুষ্ঠিত

কদলপুরে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ১৩০টি ঘরের মধ্যে ৫০টি ঘর বিক্রি করলেন বরাদ্দপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন, ২০২৪
  • ৩৪ বার

রাউজান (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি:

রাউজানের ৮নং কদলপুর ইউনিয়নের শমশের নগর পাহাড়ী এলাকায় আশ্রয়ণ প্রকল্পের ১৩০টি পাকা ঘরের মধ্যে ৫০টি ঘর অন্যের কাছে বিক্রি করে দিয়েছে বরাদ্দপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা। কিনে নেওয়া ব্যক্তিরা এখন ওইসব ঘরে বসবাস করছে। ঘর বিক্রির পাশাপাশি বরাদ্দ পাওয়া ঘরে পরিবার-পরিজন নিয়ে বসবাস না করে ঘরগুলো ভাড়া দিয়েছে অনেকেই। জানা যায়, স্ট্যাম্পের মাধ্যমে একেকটি ঘর বিক্রি করেছে ১ লাখ টাকায়। আশ্রয়ন প্রকল্পে সরেজমিন পরিদর্শনকালে দেখা যায়, সরকার কর্তৃক নির্মাণ করা পাকা ঘরগুলোর অধিকাংশ দরজায় তালা লাগানো। দরজায় তালা লাগানো ঘরগুলো সম্পর্কে আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দাদের কাছে জানতে চাইলে তারা জানান, তারা আশ্রয়ন প্রকল্পে আসে না। রাউজান উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা আসার সংবাদ পেলে তারা দ্রুত এসে ঘরের দরজার তালা খুলে ঘরে বসবাস করে। রাউজান উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা চলে গেলে দরজায় তালা লাগিয়ে তাদের বাড়িতে চলে যায়।  পরিদর্শনকালে দেখা গেছে , আশ্রয়ন প্রকল্পের পাকা ঘরে বসবাসকারী অনেকেই বাহিরের। স্থানীয় লোক কম।কেউ বাড়ি নোয়াখালী, আবার কেউ  বাড়ি বার্ম ও কুমিল্লায়।আশ্রয়ণ প্রকল্পে ২২ নং ঘরটি বরাদ্দ পেয়েছেন

রাউজানের নোয়াপাড়ার মাহবুল আলম। কিন্তু এ ঘর ১লাখ টাকায় কিনে সেখানে বসবাস করছেন চাঁদপুরের বাসিন্দা তাজুল ইসলাম ও তাঁর স্ত্রী, ছেলে সন্তান। তাজুল ইসলাম চট্টগ্রাম নগরীর বায়োজিদ থানার বার্মা কলোনিতে তার পরিবার পরিজন নিয়ে বাসবাস করতো । গত দেড় বছর পুর্বে কদলপুর আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দা আনোয়ার ও বাদশার সহায়তায় আশ্রয়ন প্রকল্পের ২২ নং ঘরটি  মাহবুল আলম থেকে ১লাখ টাকা দিয়ে স্ট্যাম্পের মাধ্যমে কাগজ করে ক্রয় করে নিয়ে তার পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করে আসছেন বলে তিনি জানান। জানা যায়, ২০১২ সালে রাউজানে সংসদ সদস্য  এ.বি .এম ফজলে করিম চৌধুরীর ঐকান্তি প্রচেষ্টায় ৮ নং কদলপুর ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডে ৩.৫০ একর সরকারী খাস জমির উপর সরকারী অর্থে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সার্বিক তত্ত্বাবধানে আশ্রয়ন প্রকল্পের নির্মিত ১৩০ টি ঘর এলাকার ভূমিহীনদের মাঝে বরাদ্দ দেওয়া হয়। বরাদ্দ পাওয়া ঘরের মধ্যে অনেকে টাকার লোভে বিক্রি করে দিয়েছে।  বরাদ্দ পাওয়া আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দাদের ব্যবহারের জন্য পুকুর খনন. ও বিশুদ্ব পানি ব্যবহারের জন্য টিউবওয়েল, গভীর নলকুপ বসানো হয়। আশ্রয়ন প্রকল্পে বিদ্যুৎ লাইন নির্মান করা হয়। আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দা কুলসুম বেগম বলেন, ১শত ৩০ ঘরের মধ্যে ৪০টি পরিবার বসাবাস করছেন।অবশিষ্ট ৯০ টি ঘরের মধ্যে ৪০টি ঘর তালাবদ্ধ থাকে সবসময়। বরাদ্দ পাওয়া ব্যক্তিরা মাঝে মধ্যে এসে ঘর দেখে চলে যায় । সরকারী বরাদ্দপ্রাপ্ত ঘর বিক্রি করার কোন আইন না থাকলেও ৫০টি ঘর বিক্রি করে দিয়েছে বরাদ্দপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা। এব্যাপারে রাউজান উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার নিয়াজ মোরশেদ বলেন, সরকারি বরাদ্দ পাওয়া ঘর যাদের নামে দেওয়া হয়েছে কেবল তারাই ওই ঘরে বসবাস করতে পারবেন। আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর বিক্রি করার কোন সুযোগ নেই। বা হস্তান্তরের সুযোগ নেই। সরকারি আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর বিক্রি করা আইনত অপরাধ।তবে তদন্ত করে তার সত্যতা পাওয়া গেলে ঘর বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম