1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
অপহরণের ৫ দিন পর মুন্সীগঞ্জের যুবককে রক্তাক্ত অবস্থায় কুমিল্লায় উদ্ধার - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২, ০৯:২৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
মানিকছড়ি উপজেলা বিএনপি কাউন্সিল-২০২২অনুষ্ঠিত সৈয়দপুরে থানা ওপেন হাউস ডে অনুষ্ঠিত রাউজানে কৃষক-কৃষাণি’র মুখে হাসি ফোটাতে ধান কেটে দিলো কৃষক লীগ আনোয়ারায় তোষামোদকারী সাংবাদিকতা ছেড়ে আপোষহীন সাংবাদিকতার আহবান ঠাকুরগাঁওয়ে বিনামূল্যে চক্ষু শিবির । ঠাকুরগাঁওয়ে রাণীশংকৈল ও বালিয়াডাঙ্গী ৪৭ টি ভাটাতে ইট পোড়ানো প্রস্তুতি সম্পন্ন হলেও আগুন জ্বালানো অনিশ্চিত ! নোয়াখালীতে ৯ টি শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম হচ্ছে- যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বাঁশখালীতে মধ্যরাতের অগ্নিকান্ডে পুড়ল ২ দোকান ষড়যন্ত্র করছে বিএনপি ক্ষমতায় আসতে চায় : আসাদুজ্জামান খান কামাল। সমমনা পরিষদ বনশ্রীর বার্ষিক বনভোজন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

অপহরণের ৫ দিন পর মুন্সীগঞ্জের যুবককে রক্তাক্ত অবস্থায় কুমিল্লায় উদ্ধার

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ৭৩ বার

নিজস্ব প্রতিবেদক : অপহরণের ৫ দিন পর মুন্সীগঞ্জের মিরকাদিমের আবু সালেহ জুয়েল নামের এব যুবককে রক্তাক্ত অবস্থায় কুমিল্লা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। জুয়েল মিরকাদিম পৌরসভার উত্তর কাগজীপাড়া এলাকার সালাউদ্দিন আহম্মেদের পুত্র।

গত ১১ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জের পাগলা জনতা ব্যাংক থেকে ২ লক্ষ টাকা উত্তোলন করে বের হয়ে ব্যাটারি চালিত অটো গাড়িতে উঠলে অপহরণের শিকার হয় জুয়েল। পরে ১৭ ডিসেম্বর কুমিল্লা জেলার হক সিএনজি ফিলিং স্টেশন থেকে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে কুমিল্লা জেনারেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। বর্তমানে জুয়েল মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এ ব্যাপারে জুয়েলের বক্তব্য, “আমি ব্যাংক থেকে টাকা নিয়ে বের হয়ে তারপর রাস্তায় অটোতে উঠলাম, এরপর আর কিছুই মনে নেই। চোঁখ খুলে দেখি একটা অন্ধকার রুমে আমাকে বন্দি করে রাখা হয়েছে। আমার সাথে থাকা টাকা নেই।”

জুয়েল অারও বলেন, “পাচঁদিন আমাকে আটকে রাখে মারধর করে কিছু লোকজন। তাদের মুখ কাপর দিয়ে বাঁধা ছিলো। পরের দিন আমাকে চোঁখ বেঁধে একটি গাড়িতে উঠানো হয়। তখন আমি মনে করেছি আমাকে ওরা মেরেই ফেলবে। আনুমাণিক কয়েক ঘণ্টা পরে আমাকে গাড়ি থেকে নামানো হয়। এসময় আমার চোঁখ খুলে দেওয়া হলে একটি নির্জন রাস্তায় দূরে একটি বাতি জ্বলছিল দেখতে পাই। হঠাৎ অপহরণকারীদের একজন ছুরি বের করে আমার পেটে মারতে নিলে আমি বাম হাত দিয়ে রক্ষার চেষ্টা করলে ছুরির আঘাত আমার বাম হাতে লাগে। আমি জীবন বাঁচাতে লাইটের দিকে দৌঁড় দিলে ওরা তখন গাড়ি ঘুরিয়ে চলে যায়। পরে হক ফিলিং ষ্টেশনে পৌঁছালে একজন লোকের মোবাইল দিয়ে প্রথমে মা, পরে বৌকে কল করি কিন্তু কেউ ফোন ধরেনি। পরে ওই লোকের মোবাইল দিয়ে চাচাতো ভাইয়ের মোবাইল নম্বর নিয়ে কল করি। ভাইকে আমার ঠিকানা দেই। বেশ কিছুক্ষণ পরে পুলিশ এসে আমাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়।”

এর অাগে জুয়েলের সন্ধান না পেয়ে ফতুলা থানায় স্ত্রী হাবীবা ও কর্মরত প্রতিষ্ঠান সাজু এন্টারপ্রাইজ থেকে পৃথক দু’টি সাধারণ ডায়েরি করেছিলো বলে জানা যায়।

এ ব্যাপারে জুয়েলের চাচা ডিউ অামাদের প্রতিবেদককে জানান, অপহরণকারীরা জুয়েলের টাকাই ছিনতাই করেনি। জুয়েলকে মেরে ফেলতে উদ্ধত হয়েছিল। অাল্লাহ্ সহায় ছিলেন বলেই জুয়েল অল্পের জন্য জানে বেঁচে গেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম