1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
নিরাপত্তা উপকরণের অভাবে ভরসা পাচ্ছেন না চিকিৎসাকর্মীরা! - দৈনিক শ্যামল বাংলা
মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ১১:১৬ পূর্বাহ্ন

নিরাপত্তা উপকরণের অভাবে ভরসা পাচ্ছেন না চিকিৎসাকর্মীরা!

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৮ মার্চ, ২০২০
  • ১৬৯ বার

অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার :
ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে কানাডাফেরত এক রোগীর মৃত্যু নিয়ে কয়েক দিন ধরেই বিভিন্ন মহলে চলছে ব্যাপক আলোচনা। ওই রোগীর পরিবারের ভাষ্য অনুযায়ী, মৃত্যুর আগে তাঁকে রাজধানীর পাঁচ-ছয়টি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।
একেক হাসপাতাল একেক ধরনের অজুহাত দিয়ে তাঁকে ফিরিয়ে দেয়। শেষ পর্যন্ত ঢাকা মেডিক্যালে এনে চিকিৎসা শুরুর একপর্যায়ে রোগী করোনাভাইরাস আক্রান্ত বলে তাঁর কাছ থেকে দূরে সরে যান চিকিৎসাকর্মীরা। পরিবারের অভিযোগ, করোনার ভয়ে চিকিৎসার অভাবে মেয়েটি (রোগী) বাবার চোখের সামনে মারা গেছেন। যদিও শেষ পর্যন্ত পরীক্ষার ফলাফলে নিশ্চিত হওয়া গেছে যে মেয়েটি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন না।
কেবল এই ঘটনাই নয়, এর আগে থেকেই বিভিন্ন হাসপাতালে করোনাভাইরাস নিয়ে চিকিৎসক, নার্স ও অন্যদের মধ্যে বিরাজ করছে উৎকণ্ঠা ও উদ্বেগ। বিভিন্ন জায়গা থেকে বলা হয়, পর্যাপ্ত ব্যক্তিগত প্রতিরক্ষামূলক সরঞ্জাম (পার্সোনাল প্রটেকটিভ ইকুইপমেন্ট-পিপিই) পাওয়া যায়নি এখন পর্যন্ত। যদিও ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষ জানিয়ে আসছিল যে তাদের হাসপাতালে পর্যাপ্ত পিপিই আছে। তবে এগুলোর সঠিক ব্যবহার নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে অনেকের মধ্যে। আবার কোনো কোনো হাসপাতালে ভিজিটর গাউনকে এ ধরনের উচ্চমাত্রার ভাইরাসপ্রতিরোধী পিপিই বলে চালিয়ে দেওয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।
তবে সারা দেশের সব ধরনের চিকিৎসাকর্মীদের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ রয়েছে চিকিৎসকদের বিভিন্ন সংগঠনসহ জনস্বাস্থ্যবিদদের মধ্যেও।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা অনুসারে কভিড-১৯ (করোনাভাইরাস) সংক্রমণ থেকে নিজেদের রক্ষার জন্য স্বাস্থ্যকর্মীদের বিভিন্ন ক্যাটাগরির পিপিই ব্যবহার করা জরুরি। ঘাটতি পূরণে এখন স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আরো পাঁচ লাখ পিপিই সাহায্য চেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কাছে।
প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ বলেন, ‘চিকিৎসকদের যদি উপযুক্ত মানের নিরাপত্তামূলক উপকরণ না দেওয়া হয় বা তাঁরা যদি এগুলো সঠিকভাবে ব্যবহার না করেন তবে তো করোনার ভয় কাটবে না। সন্দেহজনক রোগী এলে তাঁরা রোগী ফেলে পালিয়ে যাবেন। এটা কোনোভাবেই কাম্য হতে পারে না। ’
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. সানিয়া তহমিনা জানান, পিপিই নিয়েও সাধারণ মানুষের মতো চিকিৎসাকর্মীদের মধ্যেও কিছুটা ভ্রান্ত ধারণা রয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা অনুসারে সন্দেহজনক রোগীদের বা বিদেশ থেকে আগতদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা কিংবা তাপমাত্রা দেখার সময় বিশেষ পোশাক পরার দরকার নেই। তবে মেডিক্যাল মাস্ক পরে কমপক্ষে এক মিটার দূরত্বে অবস্থান করতে হবে। এ ছাড়া হাসপাতালেও প্রাথমিক পর্যায়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষার সময় একই ধরনের ব্যবস্থা নিলেই চলে। কেবল আইসিইউ আইসোলেশনে থাকা রোগীদের কাছে গিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষার সময় পূর্ণাঙ্গ পিপিই বা বিশেষ প্লাস্টিক গাউন, বিশেষ মেডিক্যাল মাস্ক, চশমা, জুতা পরা দরকার। পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের এমন পিপিই বেশি জরুরি।
ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘আমাদের পিপিই মজুদ যা ছিল সব বিতরণ করা হয়েছে বিভিন্ন হাসপাতালের চাহিদা অনুসারে। এখন স্থানীয় একটি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে দেশেই তা তৈরি করে আগেভাগে বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে। এককালীন সব জায়গায় পাঠানোর মতো সক্ষমতা আমাদের ছিল না। তবে এখন আমরা এই ঘাটতি দূর করছি। এ ছাড়া করোনাভাইরাসের জন্য এবোলা পিপিইর দরকার নেই। এবোলা আউটব্রেকের সময় বিশ্ব শ্বাস্থ্য সংস্থা সারা বিশ্বে এই পোশাক সরবরাহ করেছিল। কিন্তু এবোলায় মৃত্যু হার ছিল ৯০ শতাংশ। এটা করোনাভাইরাসের চেয়ে আরো মারাত্মক ছিল। ’ তিনি মনে করেন, করোনার জন্য অত ভারী পোশাকের দরকার নেই। ফলে যাদের হাতে ভিজিটর পিপিই আছে, সেগুলো ব্যবহার করা যায়।
কিন্তু চিকিৎসকদের সংগঠন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সলান বলেন, কিছু কিছু জায়গায় চিকিৎসাকর্মীদের পার্সোনাল প্রটেকশনের নামে অ্যাটেনডেন্স ড্রেস দেওয়া হচ্ছে। এসব অ্যাটেনডেন্ট ড্রেস কোনো অবস্থায়ই করোনাভাইরাসের মতো উচ্চমাত্রার সংক্রামক ভাইরাস প্রতিরোধে সক্ষম নয়। এ ক্ষেত্রে ওয়েল প্রটেকটেড পার্সোনাল প্রটেকটিভ ইকুইপমেন্ট অপরিহার্য। তা না হলে চিকিৎসক, নার্স বা অন্যরা শঙ্কামুক্ত হতে পারছেন না। তাঁরা যাতে শঙ্কামুক্তভাবে সেবা দিতে পারেস সে ব্যবস্থা থাকা দরকার। ’
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (রোগ নিয়ন্ত্রণ) অধ্যাপক ডা. শাহনীলা ফেরদৌস বলেন, ‘আগেই বিভিন্ন হাসপাতালে কিছু কিছু পিপিই ছিল। এখনো আমরা আমাদের মজুদ থেকে কিছু কিছু দিচ্ছি। স্থানীয়ভাবেও কিছু সংগ্রহ করছি। তার পরও আমাদের প্রায় ১০ লাখের মতো পিপিই সংগ্রহে রাখার পরিকল্পনা আছে। এই পর্যায়ে আমরা পাঁচ লাখের জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কাছে একটি চাহিদা দিয়েছি। দেখি কতটা পাওয়া যায়। ’
কোনো কোনো হাসপাতালে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মেডিসিন ইউনিটের বা সংক্রামক রোগ সংক্রান্ত ইউনিটের দায়িত্বপ্রাপ্ত অনেকেই ছুটিতে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। কেউ কেউ মনে করছেন যে এর পেছনে ভয় বিষয়টি রয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে জানান, বিমানবন্দরে বা অন্য বন্দরগুলোতে স্বাস্থ্যকর্মীরা যেভাবে শুধু অ্যাপ্রোন পরে বাইরে থেকে আগত যাত্রীদের তাপমাত্রা পরীক্ষা করেন, তাতে করে কোনো যাত্রীর দেহে সুপ্ত অবস্থায় করোনাভাইরাস থাকলে ওই স্বাস্থ্যকর্মীদের আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থেকে যায়। বিষয়টি নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হলেও যাঁরা মাঠপর্যায়ে এটি বাস্তবায়ন করছেন তাঁরা বিষয়টি আমলে নেননি।
আরেক কর্মকর্তা উদাহরণ তুলে ধরে বলেন, দেশে এ পর্যন্ত যে ১০ জন আক্রান্ত হয়েছে তাদের মধ্যে ছয়জনই এসেছেন বাইরে থেকে। যাঁরা বিমানবন্দরে তাঁদের দেহের তাপমাত্রা পরীক্ষা করেছেন বা শনাক্ত হওয়ার আগে পর্যন্ত বিভিন্ন পর্যায়ে যে স্বাস্থ্যকর্মীরা তাঁদের সংস্পর্শে ছিলেন, তাঁদের এখন কী হবে। তাঁদের শরীরেও এই ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটেছে কি না সেটা কিভাবে জানা যাবে।
এসব ক্ষেত্রে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) আরো দায়িত্বশীল ও কার্যকর নির্দেশনা দেওয়া উচিত ছিল। কারণ সবাই জানে, এখন এই বিষয়গুলো আইইডিসিআর দেখছে। ফলে এ ধরনের অব্যবস্থাপনার দায় কিন্তু সবাই তাদের ওপরই চাপাবে। তার চেয়ে বড় কথা, এসব স্বাস্থ্যকর্মীকে এখন কিভাবে শনাক্ত করা যাবে সেটাও বড় এক জটিল ব্যাপার।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান বলেন, প্রতিটি হাসপাতালে উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তা, চিকিৎসক থেকে শুরু করে একদম পরিচ্ছন্নতাকর্মী পর্যন্ত সবারই নিরাপদ হয়ে রোগীর সেবায় নিয়োজিত থাকতে হবে।

বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী বলেন, ‘করোনাভাইরাস প্রতিরোধে শুরু থেকেই আমরা সাধারণ মানুষের জন্য সতর্কতার কথা যেমন বলছি, তেমনি সারা দেশের হাসপাতাল বা সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রগুলোতে দায়িত্ব পালনকারী চিকিৎসক, নার্সসহ সব ধরনের স্বাস্থ্যকর্মীর নিরাপত্তার বিষয়টির ওপর গুরুত্ব দিচ্ছি। এটা করতে হবে।’ তিনি আরো বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের সেবা দিতে গিয়ে চিকিৎসক-নার্সদের মৃত্যুর ঘটনা আছে; যা নিয়ে দেশের চিকিৎসাকর্মীদের মধ্যেও ভীতি আছে। তাদের সরকারের পক্ষ থেকে নানাভাবে আশ্বস্ত করা হচ্ছে। কিন্তু মুখের কথায় আশ্বস্ত করার পাশাপাশি এসব চিকিৎসাকর্মী যাতে নিজেদের নিরাপদে রেখে সেবা দিতে পারেন, সেটা করতে হবে। আর হাসপাতালে দায়িত্ব পালনকারী সবাইকেই এই নিরাপত্তা উপকরণ ব্যবহার জরুরি। কারণ শনাক্ত না হওয়া পর্যন্ত কেউ বুঝতে পারবে না কোনো রোগীর মধ্যে করোনাভাইরাস আছে কি নেই।

ডা. এহতেশামুল হক বলেন, কেউ আক্রান্ত হলে বা সন্দেহজনকভাবেও যদি কেউ হাসপাতালে কিংবা চিকিৎসাকর্মীদের কাছে আসে, তখন যদি ওই চিকিৎসাকর্মী নিজেকে নিরাপদ মনে না করেন তবে তো তাঁরা রোগীর কাছে যাবেন না, যেতে চাইবেন না—এটাই স্বাভাবিক। চিকিৎসকরা যদি রোগীর কাছ থেকে ভয়ে দূরে থাকেন, তবে তো রোগীর বিপদ হবেই।

এদিকে গতকাল সকালে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে সোহরাব উদ্দিন নামের ষাটোর্ধ্ব বয়সী এক রোগীর মৃত্যু ঘটেছে। পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়, নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত অবস্থায় প্রথমে তাঁকে একাধিক বেসরকারি হাসপাতালে নেওয়া হলে করোনাভাইরাসের ভয়ে তাঁকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। পরে কুর্মিটোলা হাসপাতালে এনে ভর্তি করা হয়। ওই ব্যক্তির মৃত্যুর পরপরই গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে করোনাভাইরাসে তাঁর মৃত্যু হয়েছে বলে। আইইডিসিআরের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. এ এস এম আলমগীর বলেন, ওই ব্যক্তির নমুনায় করোনাভাইরাস পাওয়া যায়নি।

লেখকঃ সম্পাদকীয় বিশেষ প্রতিবেদক শ্যামল বাংলা | প্রকাশক ও প্রাবন্ধিক | সদস্য ডিইউজে |
১৮ মার্চ ২০২০ | ৪ চৈত্র ১৪২৬ | ২২ রজব ১৪৪১ | বুধবার |

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম