1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
- দৈনিক শ্যামল বাংলা
বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০২৩, ০২:২০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
অবরোধের সমর্থনে ঢাকার মালিবাগ চৌধুরীপাড়া আবুল হোটেল এর সামনে সাবেক ছাত্র নেতৃবৃন্দের মিছিল শ্রীপুরে সাংবাদিকের উপর হামলা | ‘২৮ অক্টোবর শাপলা চত্ত্বরে মহা-সমাবেশ বাস্তবায়ন উপ-কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত ফ্যাসিস্ট আওয়ামী সরকারের পতন সময়ের ব্যাপার মাত্র – মেজর জেনারেল অবসরপ্রাপ্ত সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক। সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি অ্যাডভোকেট মতিউর রহমান আকন্দকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে রাজধানীতে ছাত্রশিবিরের বিক্ষোভ মিছিল শ্রীপুরে ইসলামী ব্যাংকের এজেন্ট আউটলেট উদ্বোধন এডিস মশা নিরোধক বিটিআই পণ্যের উদ্বোধন অস্বচ্ছল প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের অনুদান প্রদান – সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী বিনামূল্যের সরকারি বই কেজি দরে বিক্রি। কোটি টাকার বিনিময়ে নাঙ্গলকোট উপজেলা সমিতির কমিটি

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৯ মার্চ, ২০২০
  • ৩৮২ বার

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার :
করোনা সংকটকে পুঁজি করে রাজধানীর বাজারে চাল, ডালসহ নিত্যপণ্যের দাম বাড়ানোর খবর পাওয়া যাচ্ছে। অনেকের অযৌক্তিক বাড়তি কেনাকাটায় সুযোগ নিচ্ছেন একশ্রেণির ব্যবসায়ী। হঠাৎ এভাবে দাম বাড়িয়ে দেয়া কিংবা ভোক্তাদের বাড়তি কেনার প্রবণতা কোনোটিই যৌক্তিক নয় বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। গতকাল একটি সহযোগী দৈনিকের খবরে বলা হয়, রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে খুচরায় কেজিতে ৫ থেকে ৭ টাকা পর্যন্ত বাড়তি দামে চাল বিক্রি হচ্ছে। কেজিতে ৫ টাকা বেড়ে নাহিদের হরিণ ব্র্যান্ডের ভালোমানের নাজিরশাইল ৭৫ থেকে ৭৬ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। একই হারে বেড়ে মানভেদে অন্যান্য নাজিরশাইল চাল ৫৫ থেকে ৭০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। আর মিনিকেটের দাম কেজিতে ৭ টাকা বেড়ে মানভেদে ৫৫ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। দুদিন আগেও মিনিকেটের কেজি ৫২ থেকে ৫৫ টাকা ছিল। কেজিতে ৫ টাকা বেড়ে মোটা (স্বর্ণা ও গুটি) চাল ৩৬ থেকে ৪০ টাকা হয়েছে। প্রায় একই হারে বেড়ে বিআর-২৮, পাইজাম ও লতা (মাঝারি) চাল মানভেদে ৪৫ থেকে ৫২ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। শুধু চাল নয়, ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) হিসাবে গত এক সপ্তাহে আলু, চিনি, ভোজ্যতেল, ডিম, এলাচি ও ময়দার দাম কমবেশি বেড়েছে। ১৮টি নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম গত বছরের এ সময়ের তুলনায় বেশি। কম ৭টির দাম। এর আগে গত বছর অক্টোবরে ভারত আকস্মিকভাবে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দিলে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বাজারে অস্থিরতা দেখা যায়। স্বাভাবিক অবস্থায় যে পেঁয়াজের কেজি ৪০ টাকায় বিক্রি হতো, সেই পেঁয়াজের দাম ২০০ টাকা ছাড়িয়ে যায়। বলা যায় এখন পেঁয়াজের বাজার স্বাভাবিক। নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধিতে হতদরিদ্র মানুষ দিশাহারা হয়ে পড়ে। কাজেই নিত্যপণ্যের বাজারের অস্থিরতা দূর করার জন্য সময়মতো পদক্ষেপ নিতে হবে। ব্যবসা-বাণিজ্য তথা অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের প্রতি ক্ষেত্রেই সিন্ডিকেটের আস্ফালন লক্ষণীয়। তবে এটা নতুন কিছু নয়, সাংবার্ষিক বিষয়ে পরিণত হয়েছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় প্রতিটি পণ্য তো বটেই, সেবা খাতেও সিন্ডিকেটের হস্তক্ষেপ প্রকট। রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় গড়ে ওঠা এ চক্রটি অত্যন্ত শক্তিশালী ও ধরাছোঁয়ার বাইরেই থেকে যাচ্ছে। এরা ইচ্ছামতো বাজার নিয়ন্ত্রণ করে অনায়াসে অন্যায্যভাবে বিপুল মুনাফা লুটে নিচ্ছে। আমরা মনে করি, বাজার পরিস্থিতি পাল্টানোর জন্য সবার আগে প্রয়োজন বিক্রেতাদের অসৎ, লোভী ও প্রতারণামূলক মানসিকতার পরিবর্তন। এই পরিবর্তন কবে ঘটবে তার জন্য অপেক্ষা করে নিষ্ক্রিয় বসে থাকলে চলবে না। এর জন্য রাষ্ট্র-সমাজের সচেতন দায়িত্বশীল মহলকে ভূমিকা রাখতে হবে। সর্বোপরি আমরা বলতে চাই, নিত্যপণ্যের বাজার অস্থির হয়ে ওঠা এবং পাইকারি দামের সঙ্গে খুচরা দামের তফাৎসহ সার্বিক বিষয়গুলো এখনই আমলে নিন।

লেখক : বিশেষ প্রতিবেদক শ্যামল বাংলা | জ্ঞান সৃজনশীল প্রকাশক ও প্রাবন্ধিক | কাউন্সিলর ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে)
১৯ মার্চ অগ্নিঝড়া মাস ২০২০ |
বৃহস্পতিবার | ৫ চৈত্র ১৪২৬ | ২৩ রজব ১৪৪১ |

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম