দিলরুবা খানম ছুটি চট্টগ্রামের জনপ্রিয় আবৃত্তি শিল্পী ও উপস্থাপক - শ্যামল বাংলা ডট নেট

দিলরুবা খানম ছুটি চট্টগ্রামের জনপ্রিয় আবৃত্তি শিল্পী ও উপস্থাপক

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

দিলরুবা খানম (ছুটি) চট্টগ্রামের জনপ্রিয় আবৃত্তি শিল্পী ও উপস্থাপক।
তিনি দীর্ঘদিন যাবৎ আবৃত্তি ও উপস্থাপনার সাথে জড়িত। দিলরুবা খানম ছুটি এখন পযন্ত প্রায় ৪২টি সম্মাননা পেয়েছেন । তিনি ৩৫ টি আবৃত্ত সংগঠনে ক্লাস নিয়েছেন। মঞ্চে হাজার হাজার অনুষ্ঠানের সফল উপস্থাপক। তালিকাভূক্ত উপস্থাপক বাংলাদেশ বেতার ও বাংলাদেশ টেলিভিশনের। সুন্দর বাচনভঙ্গি,সুললিত কন্ঠ, স্বভাবসুলভ বিনয় ও আশ্চর্য কথার জাদুতে উপস্থাপনায় তিনি জীবন্ত কিংবদন্তিতে পরিনত হয়েছেন। পেয়েছেন কোটি মানুষের শ্রদ্ধা,ভালবাাসা,নির্ভরতা,
সম্মাননা,দোয়া। চট্টগ্রামে থাকেন বলেই হয়তো মিডিয়ায় তেমন হৈচৈ হয়নি তাকে নিয়ে।থেকেছেন প্রচারের নেপথ‍্যে।কাজ তথা উপস্থাপনাই তার ধ‍্যান-জ্ঞান।তিনি মঞ্চ উপস্থাপনায় আইকন জননন্দিত উপস্থাপক দিলরূবা খানম (ছুটি)।বাংলাদেশে তিনি একমাত্র উপস্থাপক যিনি মঞ্চ উপস্থাপনাকে পেশা হিসেবে নিয়েছেন। আড়াই বছর ছিলেন একটি জাতীয় দৈনিকে স্টাফ রিপোর্টার। ২০০৭ সালে আজাদীর এইডস বিষয়ক রিপোর্টিয়ে পেয়েছেন প‍্যানোজ মিডিয়া অ‍্যাওয়ার্ড। কিন্তু উপস্থিপনার টানে ছেড়ে দিলেন রিপোর্টিংমঞ্চে ৫০০টাকা সম্মানিতে ১৯৯৪ সাল থেকে পড়াশুনার সাথে পেশাদারি উপস্থাপনা শুরু। ১৯৯৮ সাল থেকে ২০২০ পর্যন্ত প্রতি অনুষ্ঠানে সম্মানি নিয়েছেন তিন হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত। তবে ৫ থেকে ১০ হাজার টাকার সম্মানিত করা অনুষ্ঠানের সংখ্যাকয়েক হাজার, ৪০ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা সম্মানি পেয়েছেন ৫২ টি অনুষ্ঠানে।সংগীতশিল্পীদের পাশাপাপাশি উপস্থাপকদের সম্মান ও সম্মানি বৃদ্ধিতে আয়োজকদের সাথে যুদ্ধ করে যাচ্ছেন দুযুগ ধরে।একজন সফল ও জনপ্রিয় উপস্থাপক হিসেবে ৪২টি সংগ্রহ থেকে পেয়েছেন সম্মাননা। উপস্থাপনার সূখ‍্যাতি রয়েছে ভারতে ও একই সাথে তিনি প্রতিষ্ঠিত বাচিকশিল্পী,উচ্চারণ প্রশিক্ষক ও মানবতাবাদি লেখক। প্রকাশিত বই তিনটি। কন্ঠ দিয়েছন শত শত বিজ্ঞাপন-ডকুমেন্টারিতে। দিলরুবা খানম ছুটি’র সাক্ষাৎকার নিলেন এম. এইচ সোহেল।
শ্যামল বাংলাঃ আপনি একজন অত‍্যন্ত জনপ্রিয় ও সফল উপস্থাপক।স্বনামধন‍্য আবৃত্তিশিল্পী। তো আবৃত্তি -উপস্থাপনা কখন থেকে?
দিলরুবা : ছোটবেলা থেকে। সাংগঠনিক আবৃত্তি চর্চা ১৯৯৫ সাল থেকে।কয়েকজন বন্ধুরা মিলে শব্দনোঙর গঠন করি। পরে অবশ‍্য কিছুদিন আবৃত্তি একাডেমিতে যুক্ত হয়েছিলাম।
শ্যামল বাংলা : আপনার আবৃত্তি ও উপস্থাপনায় জনপ্রিয়তা আকাশচুম্মী তার কারণ কি?
দিলরুবাঃ কাজের প্রতি নিষ্ঠা। আবৃত্তি-উপস্থাপনার জন‍্য কিছু ব‍্যক্তিগত অনুশীলন দরকার।কিন্তু দর্শক-শ্রোতার ভালোবাসা পেতে আরো অনেক বিষয়ে সচেতন থাকতে হয়। মানুষকে শ্রদ্ধা করা,অনুষ্ঠান ও শ্রোতার মন বোঝা,প্রচুর পড়া,মাতৃভূমির প্রতি দায়বদ্ধতা,ভাষা জ্ঞান,সবার থেকে শেখার মানসিকতা,নিজেকে পরিশুদ্ধ করা।তখন কাজ হয়ে যায় মিশন। প্রকৃতির প্রতিদান হিসেবে মানুষের ভালবাসা মিলে।

শ্যামল বাংলা : আপনি টেলিভিশন ও বেতারে উপস্থাপনা করছেন দীর্ঘদিন যাবৎ। এই বিষয় কিছু বলুন?
দিলরুবাঃ টিভি দৃশ‍্য নির্ভর। বেতার কেবল শ্রুতি মাধ‍্যম।টিভিতে যোগতার পাশাপাশি মেকআপ -গেটআপে যত্নশীল হতে হয়। রেডিওত‍ে কন্ঠের কারিশমা বেশি। আর মঞ্চ সব কিছুর সম্মিলন।মঞ্চে কাজ করতে পারাটাই একজন শিল্পীর আসল সফলতা।
শ্যামল বাংলা : আবৃত্তিচর্চা এখনো শহর কেন্দিক বলে মনে করেন?
দিলরুবাঃ শহরে বেশি চর্চা। বিভাগীয় শহরে ও হচে্ছ। একেবারার গ্রামে আবৃত্তির চর্চা কম।
শ্যামল বাংলাঃ আপনি ভারতে অনেক অনুষ্ঠানে ইনভাইট পেয়েছেন, কলকাতায় আবৃত্তি-উপস্থাপনা করেছেন, সে সর্ম্পকে কিছু বলুন?
দিলরুবাঃ এক দেশ থেকে অন্য দেশে গেলে অভিজ্ঞতা বাড়ে। ভারত সংস্কৃতিতে অনেক এগিয়ে। আবৃত্তির হাজার হাজার সংগঠন। তবে ওরা শ্রুতি নাটক বেশি করে।ওদের গুরু ভক্তি বেশি।বাংলাদেশে একক ও বৃন্দ আবৃত্তি বেশি হয়।

ভারতর বন্ধুদের আমন্ত্রণে আবৃত্তি -উপস্থাপনা দুটোই করা হয়েছে। উপ্হাপনায় বেশি সাড়া ও ভালোবাসা পেয়েছি। বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানে দর্শক শ্রোতারা ভেবেছিল আমি ভারতের।এ নিয়ে আয়োজকরাও মজা পেয়েছিল ও খুশি হয়েছিল।একজন উপস্থাপক তথা শিল্পীর স্বার্থকতা শ্রতার মন জয়ে।
শ্যামল বাংলাঃ যারা ভালো আবৃত্তি শিল্পী বা উপস্থাপক হতে চায়। তাদের জন্য আপনার পরামর্শ কি?
দিলরুবাঃ ভাল আবৃত্তি শিল্পী হতে হলে সাহিত্য পাঠসহ প্রচুর কবিতা পড়তে হয়। অনুষঠানের ধরন অনূযায়ী কবিতা নির্বাচন করা এবং কাউকেই অনুকরন না করা।মূখস্ত পড়া ভাল তাত চেয়েও জরুরি কবিতা বুঝে পড়া। উপস্থাপনা অনেক বড় শিল্প। এ শিল্পে দায়িত্ব বেশি।বেতার,টিভি,মঞ্চ তিনটি আলাদা মাধ্যম বুঝতে হয়।উচ্চারণ,সময়জ্ঞান,সৎসাহস,ভাষার পারঙ্গমতাসহ স্থান,কাল,পাত্র বিবেচনায় আনতে হয়।মানুষে সম্মান করার কোন বিকল্প নেই।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.