অবাধে পকুর ভরাট চলছে পৌরশহরে

এম,এ মান্নান কুমিল্লা বিশেষ প্রতিনিধি

প্রাকৃতিক জলাধার সংরক্ষণ আইন-২০০০ অনুযায়ী, কোনো পুকুর-জলাশয়, নদী-খাল ইত্যাদি ভরাট করা বেআইনি। বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন-২০১০ অনুযায়ী, জাতীয় অপরিহার্য স্বার্থ ছাড়া কোনো ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান কর্তৃক সরকারি বা আধা সরকারি, এমনকি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের বা ব্যক্তি মালিকানাধীন পুকুর বা জলাধার ভরাট করা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। কিন্তু এসব আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে লাকসামে একের পর এক পুকুর ভরাট করা হচ্ছে, যা খুবই উদ্বেগের। পুকুর, ডোবা ও নিচু জলাশয় ভরাটের হিড়িক এখন পুরো পৌরশহরে। কে শুনেছে কার কথা আইনের তোয়াক্কা না করে প্রভাবশালী ব্যক্তিরা ক্ষমতাসীন দলের পরিচয় দিয়ে এসব ভরাট করছে। এতে এলাকায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আগুন নেভানোর কাজে ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের পানি সংকটসহ নানা সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। বসতবাড়ি বা বাণিজ্যিক জমির চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় ভূমি ব্যবসায়ীদের নজর পড়ছে কম দামের পুকুর ও জলাশয়ের ওপর। অবাধে পুকুর-দীঘি ও বিভিন্ন জলাশয় ভরাটের কারণে পরিবেশের ভারসাম্য যেমন নষ্ট হচ্ছে তেমনি মানুষ দৈনন্দিন জীবনে পানি সংকটে পড়ছে মারাত্মকভাবে।

জানাজায়, গত ৭-৮ বছরে উপজেলার বিভিন্ন ছোটবড় প্রায় শতাধিক জলাশয় ভরাট হয়েছে। পৌর শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে গত ৫ বছরে পরিবেশ অধিদফতরের অনুমতি ছাড়াই বেশ কয়েকটি পুকুর, ডোবা ভরাট করে বহু ভবন নির্মাণের কাজ চলছে। গত কয়েকদিন ধরে পৌরশহরে ৮ নং ওয়ার্ডে সোহাগ মস্য খামারে (দঃ) দিকে ফতেপুর এলাকায় একটি পুকুর ভরাট করা হচ্ছে। পুকুরটির দৈর্ঘ্য প্রায় ২৫০ ফুট ও প্রস্থ ২০০ ফুট। এর মালিক সাবেক মেয়র মজির আহমদ মার্কেট করার জন্য এক মাস ধরে বালু ফেলে পুকুরটি ভরাট করছেন তিনি। অপরদিকে গন্ডামারা(পূর্ব লাকসাম) আবদুর রহমান ভরাট করছে তার পকুর। এছাড়াও চৌদ্দগ্রাম রোড মৈশান বাড়ীর এলাকায় ভরাট করেছে স্বর্ন ব্যবসায়ী প্রবীর সাহা, ৪ নং ওয়ার্ডে ফেয়ারাপুর এলাকায় সুভাষ বাবু ভরাট করছে তার ডোবা।
প্রশাসনের লোকজন চলাচলের রাস্তার পাশে ভরাট কাজ চললেও দেখেও না দেখার ভান করছেন তারা। এ বিষয়ে ভরাটকারীরা বলেন, আমাদের নিজস্ব পুকুর বালু দিয়ে ভরাট করছি। সরকারি জায়গা ভরাট করছি না। বিভিন্ন মন্ত্রণালয় থেকে ছাড়পত্র আনতে গেলে অনেক সময় লাগে আর এগুলো কেউ করেনা।

অপরদিকে জানা যায়, মিয়াপাড়া এলাকায়ও দু’মাসে আরও একটি পুকুর ভরাট করেছে প্রভাবশালীরা। দুই বছর আগে পৌর এলাকার ফায়ার সার্ভিস সংলগ্ন ৩টি পুকুর ভরাট করেছেন প্রভাবশালীরা। এছাড়াও বণিক্য বাড়ির পুকুর, কুমারপট্টি পুকুর, রাজঘাট, সাহাপাড়া পুকুরসহ অসংখ্য পুকুর ভরাট করে ওই স্থানে গড়ে তুলেছে বাণিজ্যিক ও আবাসিক ভবন।
জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এ কে এম সাইফুল আলম বলেন, প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া পুকুর বা জলাশয় ভরাট করা নিষিদ্ধ। পুকুর বা জলাশয় ভরাট করা বা যেকোনো জায়গার শ্রেণি পরিবর্তন করতে হলে অবশ্যই প্রশাসনের অনুমতি নিতে হবে। প্রশাসনের বিনা অনুমতিতে পুকুর ভরাটের বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। সত্যতা পাওয়া গেলেপ্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.