গাইবান্ধায় আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত

আনোয়ার হোসেন শামীম গাইবান্ধা প্রতিনিধি

আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ নারীমুক্তি কেন্দ্র গাইবান্ধা জেলা শাখার উদ্যোগে রোববার শহরে র‌্যালি ও পৌর শহীদ মিনার চত্বরে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের জেলা সভাপতি সুভাসিনী দেবীর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাসদ মার্কসবাদী গাইবান্ধা জেলার আহবায়ক কমরেড আহসানুল হাবীব সাঈদ, সংগঠনের কেন্দ্রীয় অর্থ স¤পাদক নাঈমা খালেদ মনিকা, সাধারণ স¤পাদক নিলুফার ইয়াসমিন শিল্পী, একুশে টেলিভিশন জেলা প্রতিনিধি আফোজা লুনা, রাহেলা সিদ্দিকা, লিজা উল্যাহ প্রমুখ। সমাবেশ শেসে একটি র‌্যালী বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

বক্তারা বলেন, সারা পৃথিবীর শ্রমজীবি নারীসহ গোটা নারী সমাজ এই দিনটিতে তাদের সমঅধিকার, মর্যাদা ও
শ্রম ঘন্টা কমানো, কর্ম পরিবেশের উন্নতি, কাজের ন্যায্যতা প্রতিষ্ঠার দাবীতে আন্দোলন করে। পরবর্তীতে ১৯১০ সালের ডেনমার্কে কোপেনহেগেনে দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক সম্মেলনে সমাজতান্ত্রিক নারী নেত্রী ক্লারা জেৎকিন ৮ মার্চ নারী দিবস ঘোষণার প্রস্তাব করেন এবং তা গৃহীত হয়। বক্তারা আরও বলেন, নারী দিবস উদযাপন হচ্ছে কিন্তু নারী আজও তার মর্যাদা-অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পারেনি। তাই নারী দিবসের চেতনাকে ধারণ করে শোষিত ও নিপীড়িত নারীর মুক্তির আন্দোলনকে সমাজতান্ত্রিক তথা সাম্যবাদী চেতনায় এগিয়ে নেয়ার আহবান জানান। সেইসাথে অপসংস্কৃতি-অশ্লীলতা, মাদক-জুয়া, নারী-শিশু নির্যাতন-ধর্ষণ, পর্নোগ্রাফি বন্ধ সহ মৌলবাদ-সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে গণআন্দোলন গড়ে তোলারও আহবান জানান।

এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশ নারীমুক্তি কেন্দ্র জেলা শাখার অপর আরেকটি গ্রুপ শহরে র‌্যালী ও স্থানীয় গানাসাস মিলনায়তনে আলোচনা সভার আয়োজন করে। সভা শেষে একটি র‌্যালী বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। অধ্যাপক রোকেয়া খাতুনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বাসদ (মার্কসবাদী) গাইবান্ধা জেলা পাঠচক্র ফোরামের সদস্য সচিব মনজুর আলম মিঠু, নারীনেত্রী প্রভাষক হালিমা খাতুন, পারুল বেগম, কল্পনা বেগম, কলেজিয়েট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক আফরোজা বেগম লিলি, সাংস্কৃতিক সংগঠক শাহনাজ আমিন মুন্নি প্রমুখ।

নেতৃবৃন্দ বলেন নারীদিবসের ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিয়ে আজকের সময়ে নারীমুক্তি আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। নারীরা চরম বৈষম্যের শিকার, সমকাজে সমমজুরী পায়না, স¤পত্তিতে সমঅধিকার নেই। ঘরে-বাইরে প্রতিনিয়ত নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। মৌলবাদীরা প্রতিমুহূর্তে নারীদের অপমানিত করছে, সিনেমা-নাটকে-বিজ্ঞাপনে ভোগ্যপণ্য হিসেবে উপস্থাপন করা হচ্ছে। এ অবস্থা থেকে বাঁচতে হলে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। তারা বলেন, নারী-পুরুষের মিলিত সমাজে নারীদের পেছনে রেখে সমাজ-সভ্যতার বিকাশ সম্ভব না। ফলে নারীমুক্তির আন্দোলনে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.