প্রধান সেনাপতির পদ থেকে খালিদকে বরখাস্ত

সাহাদত হোসেন খান

শেয়ার করুন
  • 4
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    4
    Shares

খালিদ বিন ওয়ালিদ খ্যতির শীর্ষে আরোহণ করলেও অসম্মান থেকে রক্ষা পাননি। প্রথমে তাকে সিরিয়ার গভর্নর এবং পরে তাকে মুসলিম বাহিনীর কমান্ডার-ইন-চিফ পদ থেকে অপসারণ করা হয়। খালিদের পতন বা পদচ্যুতির জন্য খুব বেশি কারণ খুঁজে পাওয়া যায় না। হযরত উমর (রা.) খলিফা না হলে হয়তো খালিদের ভাগ্য বিপর্যয় ঘটতো না। ৬৩৪ সালের ২২ আগস্ট খলিফা আবু বকর (রা.) খালিদের চাচাতো ভাই উমর ইবনুল খাত্তাবকে তার উত্তরাধিকারী হিসেবে মনোনীত করেন। একইদিন নয়া খলিফা হিসেবে উমর তার প্রথম নির্দেশে খালিদকে সিরিয়ায় মুসলিম বাহিনীর কমান্ড থেকে অব্যাহতি এবং আবু ওবায়দাকে খোলাফায়ে রাশেদীনের নয়া কমান্ডার-ইন-চিফ হিসেবে নিয়োগ দেন।

মুসলমানদের মধ্যে এমন একটি ধারণা গড়ে উঠেছিল যে, খালিদের বাহুবলে মুসলমানরা যুদ্ধে বিজয়ী হয়। হযরত উমর এ ধারণা ভেঙ্গে দেয়ার জন্য খালিদকে পদচ্যুত করেন। হযরত উমর নিজে তার সিদ্ধান্তের যৌক্তিকতা প্রমাণের চেষ্টা করেছেন। এ ব্যাপারে ড. আলী মোহাম্মদ আস-সালাবি উমর ইবনে আল-খাত্তাব: হিজ লাইফ এন্ড টাইমস (দ্বিতীয় খ-) শিরোনামে গ্রন্থের ১১১ নম্বর পৃষ্ঠায় লিখেছেন:(Omar) wanted people to know that Allah is the One who brings victory, so that they would not be confused about this fact. ৷

মালিক ইবনে নুওয়ারাহর হত্যাকা- থেকে খালিদ ও উমরের সম্পর্ক ছিল উত্তেজনাপূর্ণ। রিদ্দা যুদ্ধকালে খলিফা আবু বকর নজদের আশপাশের বিদ্রোহী গোত্রগুলোকে দমনে চার হাজার সৈন্যসহ খালিদকে পাঠান। বিশ্বনবীর (সা.) ওফাতের পর মালিক ইবনে নুওয়ারাহ মদিনার ইসলামী রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে বিদ্রোহ করেন। বিশ্বনবীর আমলে তিনি বানু তামিম গোত্রের কর সংগ্রহকারী হিসেবে কাজ করতেন। খলিফা হিসেবে আবু বকরের নিযুক্তির কথা শোনা মাত্র তিনি সংগৃহীত কর তার গোত্রের কাছে ফিরিয়ে দেন। শক্তিশালী আরব গোত্রগুলোর বিরুদ্ধে যুদ্ধে খালিদের বিজয় লাভের সংবাদ শুনে মালিক তার বিরুদ্ধে সংঘর্ষে লিপ্ত না হতে তার গোত্রের লোকদের নির্দেশ দেন। মালিক দৃশ্যত তার পরিবার নিয়ে মরুভূমির ওপারে স্থানান্তরিত হন। বাট্টাহ শহরে খালিদের সৈন্যরা তার অশ্বারোহীদের থামতে বাধ্য করে। খালিদ ভ-নবী সাজ্জাহর সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরের কারণ সম্পর্কে তাদের কাছে জানতে চান। তারা জানায়, তাদের ভয়ঙ্কর শত্রুর ওপর প্রতিশোধ গ্রহণে তারা এ চুক্তি করেছিল। খালিদ নজদে কোনো প্রতিপক্ষ বাহিনী দেখতে না পেয়ে তার অশ্বারোহী সৈন্যদের নিকটবর্তী গ্রামে পাঠান এবং আজান দেয়ার জন্য গ্রামবাসীদের নির্দেশ দেন। দারার বিন আল-আজওয়ার মালিকের পরিবারকে গ্রেফতার করেন এবং দাবি করেন যে, তারা আজানের কোনো জবাব দেয়নি। গ্রেফতার করা হলে খালিদ মালিকের অপরাধ সম্পর্কে জানতে চান। বিশ্বনবীর (সা.) প্রতি ইঙ্গিত করে মালিক জবাব দিচ্ছিলেন: আপনার প্রভু এটা বলেছেন, আপনার প্রভু ঐটা বলেছেন। খালিদ প্রশ্ন করেন: তিনি কি তোমার প্রভু নন? তিনি মালিককে একজন ধর্মত্যাগী বিদ্রোহী হিসেবে ঘোষণা করেন এবং তার প্রাণদ-ের নির্দেশ দেন। দারার কিছুদূরে নিয়ে তার মৃত্যুদ- কার্যকর করেন। একইরাতে খালিদ তার বিধবা স্ত্রী লায়লা বিনতে আল-মিনহালকে বিয়ে করেন। লায়লা স্বামীর জন্য শোক প্রকাশের সময় পাননি। তার আগে তিনি নিজেকে কনে হিসেবে দেখতে পান। খালিদ ইদ্দত পালন করা ছাড়া লায়লাকে বিয়ে করায় তার বিরুদ্ধে ধিক্কার ধ্বনি ওঠে। এ বিয়ে একটি বিতর্কের বিষয়ে পরিণত হয়। অনেকে মনে করতেন যে, অপ্সরী সুন্দরী লায়লাকে বিয়ে করার জন্য খালিদ তার স্বামী মালিককে হত্যা করেন। খালিদের চাচাতো ভাই ও পরবর্তীতে ইসলামী সাম্রাজ্যের খলিফা হযরত উমর খালিদের সীমালংঘনকে বরদাস্ত করতে পারেননি। উমর অবিলম্বে খালিদকে বরখাস্ত করার জন্য আবু বকরের কাছে দাবি জানান। তিনি বলেন, হত্যা ও ব্যভিচার- এ দুটি অপরাধে খালিদের বিচার করা উচিত। শরিয়াহ অনুযায়ী পাথর মেরে খালিদকে হত্যা করতে হবে। কিন্তু আবু বকর খালিদকে সমর্থন করে বলেন, এটা তার একটি ভুল। বিশিষ্ট সাহাবী আবু কাতাদা আল-আনসারী মদিনা থেকে খালিদের সঙ্গী হয়েছিলেন। মালিকের হত্যাকা-ে কাতাদা এত ব্যথিত হন যে, তিনি অবিলম্বে মদিনায় ফিরে এসে খলিফাকে বলেন, তিনি একজন মুসলিম হত্যাকারীর অধীনে চাকরি করবেন না।

খলিফা উমর তার নির্দেশে বলেন: পরম করুণাময় মহান আল্লাহর নামে। আমি আল্লাহকে ভয় করার জন্য আপনার প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি। তিনি চিরঞ্জীব এবং তিনি ছাড়া সবকিছু ধ্বংস হয়ে যাবে। আল্লাহ আমাদেরকে সৎ পথের নির্দেশনা দিচ্ছেন এবং আমাদেরকে অন্ধকার থেকে আলোয় নিয়ে এসেছেন। আমি আপনাকে খালিদ বিন আল-ওয়ালিদের বাহিনীর কমান্ডার হিসেবে নিযুক্ত করছি। সুতরাং কর্তব্য হিসেবে আপনি এ নিযুক্তি গ্রহণ করুন। লুণ্ঠনের স্বার্থে মুসলমানদের ধ্বংসের পথে ঠেলে দেবেন না। পর্যবেক্ষণ না করে এবং খোঁজ খবর না নিয়ে কোনো তাঁবুতে মুসলমানদের অবস্থান করতে দেবেন না। ইউনিটগুলোকে যথাযথ সংগঠিত করা ছাড়া কোনো অভিযানে পাঠাবেন না। মুসলমানরা নির্মূল হয়ে যেতে পারে এমন কোনো পদক্ষেপ গ্রহণের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকুন। আল্লাহ আমাকে দিয়ে আপনাকে এবং আপনাকে দিয়ে আমাকে পরীক্ষা করছেন। পৃথিবীর প্রলোভন সম্পর্কে সাবধান হোন। প্রলোভন আপনার আগে অন্যদের ধ্বংস করেছে।
একজন বার্তাবাহককে সিরিয়া ছুটে যেতে এবং আবু ওবায়দার কাছে ব্যক্তিগতভাবে এ চিঠি হস্তান্তরের নির্দেশ দেয়া হয়। পরদিন খলিফা হযরত উমর মসজিদে নববীতে জুম্মার নামাজে ইমামতি করেন। জুম্মার নামাজ শেষে তিনি খুৎবা দেন। এটা ছিল তার খিলাফতের প্রথম খুৎবা। খুৎবায় তিনি আল্লাহ ও তার রসূলের প্রশংসা করে বলেন: শোন, আরবরা হলো একটি উটের মতো। উট তার প্রভুকে অনুসরণ করে এবং বসার প্রয়োজন হলে প্রভুর জন্য অপেক্ষা করে। কাবার প্রভুর ইচ্ছায় আমি আপনাদের সঠিক পথে পরিচালনা করবো।
তিনি তার খুৎবার শেষাংশে মুসলমানদের বিভিন্ন গুণ ও কর্তব্যের প্রতি জোর দেন। তিনি ইসলামের স্বার্থকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সর্বোত্তম প্রচেষ্টা চালানোর অঙ্গীকার করেন। খুৎবা শেষ করার আগে তিনি মুছল্লিদের অবহিত করেন যে, তিনি সিরিয়ায় সৈন্যবাহিনীর কমান্ড থেকে খালিদ বিন ওয়ালিদকে বরখাস্ত করেছেন এবং আবু ওবায়দাকে তার স্থলে নিয়োগ দিয়েছেন। মুসলমানরা নীরবে এ ঘোষণা শোনে। প্রত্যেকে জানতো যে, উমরের হৃদয়ে খালিদের প্রতি দরদ খুব সামান্য। তবে কেউ প্রত্যাশা করেননি যে, বিগত তিন বছরে ইসলামের জন্য বড় বড় যুদ্ধগুলোতে বিজয় লাভের পর এত দ্রুত তিনি আল্লাহর তরবারির বিরুদ্ধে এমন কঠোর ব্যবস্থা নেবেন। উমর ছিলেন অত্যন্ত সম্মানিত ব্যক্তি। তাকে সবাই সমীহ করতো। তার সঙ্গে তর্ক করার সাহস ছিল খুব কম লোকের। খলিফা হিসেবে পছন্দ অনুযায়ী কমান্ডার নিয়োগ ও বরখাস্ত করার কর্তৃত্ব তার ছিল এবং তার সিদ্ধান্ত অমান্য করার কোনো সুযোগ ছিল না। সবাই নীরবতা পালন করেন। তবে খালিদের নিজ গোত্র বনি মাখদুমের এক যুবক উমরের সামনে প্রতিবাদ করে বললেন: আপনি কি সেই লোককে বরখাস্ত করেছেন যার হাতে আল্লাহ বিজয়ের তরবারি তুলে দিয়েছেন এবং যার মাধ্যমে আল্লাহ তার দ্বীনকে শক্তিশালী করেছেন? আল্লাহর মনোনীত কমান্ডারকে বরখাস্ত এবং তার তরবারিকে কোষবদ্ধ করার জন্য আল্লাহ ও মুসলমানরা কখনো আপনাকে ক্ষমা করবেন না।

উমর যুবকটিকে চিনতেন। তিনি সমবেত মুছল্লিদের ইতিবাচক মনোভাব আঁচ করতে পেরেছিলেন। তিনি তখন এ বিষয়ে আর বেশি কিছু বলতে চাননি। তিনি যুবকটিকে লক্ষ্য করে বললেন: তার (খালিদের) চাচার পুত্র হওয়ায় যুবকটি ক্রুদ্ধ। হযরত উমর নীরবে মসজিদে নববী থেকে বের হয়ে যান। সারাদিন তিনি বিষয়টি নিয়ে গভীরভাবে চিন্তা করেন। তিনি এই উপসংহারে পৌঁছান যে, তাকে মুসলমানদের সামনে তার কাজের ব্যাখ্যা দিতে হবে। খালিদের মতো উজ্জ্বল নক্ষত্রকে ব্যাখ্যা দেয়া ছাড়া পদচ্যুত করা যায় না। পরদিন হযরত উমর পুনরায় মুসলমানদের উদ্দেশে বলেন: আমি খালিদের নেতৃত্বে অসন্তুষ্ট নই। তবে তিনি কবি ও যোদ্ধাদের পেছনে অপ্রয়োজনীয় অর্থ ব্যয় করেছেন। তাদেরকে প্রয়োজনের চেয়ে বেশি অর্থ দিয়েছেন। এ অর্থ দরিদ্র ও দুঃস্থ মুসলমানদের কল্যাণে ব্যয় করা যেতো। কেউ যেন একথা না বলে যে, আমি একজন শক্তিশালী ব্যক্তিকে বরখাস্ত করেছি এবং তার স্থলে একজন মোলায়েম চরিত্রের লোককে নিয়োগ দিয়েছি। আল্লাহ তার (আবু ওবায়দা) সঙ্গে আছেন এবং তাকে সাহায্য করবেন।

এবার কেউ উমরের ঘোষণার বিরোধিতা করেনি। বাইত লাহিয়ায় বাইজান্টাইন উদ্ধারকারী বহরের বিরুদ্ধে খালিদের ব্যবস্থা গ্রহণের কয়েকদিন আগে বার্তাবাহক এ গুরুত্বপূর্ণ চিঠি নিয়ে দামেস্কে গিয়ে পৌছান। সে সময় দামেস্ক অবরোধ এগিয়ে চলছিল। বার্তাবাহক চিঠির বিষয়বস্তু জানতেন এবং বুদ্ধিমান ব্যক্তি হিসেবে তিনি অনুমান করতে পারছিলেন যে, যুদ্ধরত মুসলিম বাহিনীর ওপর এ চিঠির প্রভাব হবে মারাত্মক। তাই যার সঙ্গে তার দেখা হতো তাকেই তিনি বলতেন, সবকিছু ঠিকঠাক মতো এগিয়ে চলছে এবং মদিনা থেকে প্রেরিত অতিরিক্ত সৈন্য দামেস্কের পথে রয়েছে। আবুু ওবায়দার তাঁবুতে প্রবেশ করে তিনি তার কাছে চিঠি হস্তান্তর করেন। তিনি তখন তাঁবুতে একা অবস্থান করছিলেন। আবু ওবায়দা চিঠি পাঠ করে বিস্মিত হয়ে যান। তিনি খালিদের পদচ্যুতি কামনা করেননি।

তিনি জানতেন, খালিদ হলেন সৈন্যবাহিনীর একজন আইডল এবং সি-ইন-সি হিসেবে যুদ্ধক্ষেত্রে তার উপস্থিতি ছিল শত প্রতিকূলতার ভেতর মুসলমানদের বিজয়ের চাবিকাঠি। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে, কমান্ড পরিবর্তনের ফল হবে বিপর্যয়কর বিশেষ করে মুসলমানরা যখন একটি অনমনৗয় অবরো:ে জড়িত সে সময়। খালিদকে বরখাস্ত করার ন্যায্যতা এবং সময়ের যথার্থতা মুসলমানদের বুঝানো কঠিন বলে তার কাছে প্রতীয়মান হচ্ছিল। আবুু ওবায়দা দামেস্ক অবরোধ চলাকালে সৈন্যবাহিনীর কমান্ড গ্রহণে আগ্রহী ছিলেন না। কেননা খালিদ অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে অবরোধ চালিয়ে যাচ্ছিলেন। আবুু ওবায়দা দামেস্ক অবরোধ শেষ হওয়া নাগাদ খলিফা আবু বকরের ইন্তেকাল এবং কমান্ড পরিবর্তন সম্পর্কে কোনো কিছু প্রকাশ না করার সিদ্ধান্ত নেন। বার্তাবাহক তাকে আশ্বস্ত করেন যে, তিনি খলিফার চিঠির বিষয়বস্তু কারো কাছে প্রকাশ করবেন না। আবুু ওবায়দা তাকে চিঠির বিষয়বস্তু গোপন রাখার জন্য সতর্ক করে দেন।
অবরোধের বাদবাকি দিনগুলোতে দামেস্কের মুসলমানরা কমান্ডে রদবদল সম্পর্কে ছিল অন্ধকারে। এমনকি দামেস্ক বিজয়ের দিনও আবু ওবায়দা খালিদের সঙ্গে তার বাকবিত-ার সময় এ ব্যাপারে নীরবতা পালন করেন। এ তথ্য প্রকাশ করা হলে খালিদ শত্রু-মিত্র সবার সামনে খাটো হতেন। এছাড়া খালিদ দামেস্কবাসীদের সঙ্গে সন্ধিতে স্বাক্ষর দিয়েছিলেন, আবু ওবায়দা নয়। মীডো অব ব্রোকেডে অভিযান চালিয়ে ফিরে আসার কয়েক ঘণ্টা পর আবু ওবায়দা খালিদকে একপাশে ডেকে নিয়ে যান এবং আবু বকরের মৃত্যু এনং নয়্ াখলিফার নিযুক্তি সম্পর্কে তাকে অবহিত করেন এবং পাঠ করার জন্য তার কাছে উমরের চিঠি হস্তান্তর করেন। খালিদ ধীরে ধীরে চিঠি পাঠ করেন। তার কাছে স্পষ্ট হয়ে যায় যে, তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে এবং আবু ওবায়দাকে নয়া কমান্ডার-ইন-চিফ হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। খালিদ আশঙ্কা করতেন যে, উমর নয়া খলিফা হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করলে তাকে বরখাস্ত করতে পারেন। তবে তিনি এত দ্রুত আবু বকরের মৃত্যু ও খলিফা হিসেবে উমরের নিযুক্তি প্রত্যাশা করতে পারেননি। চিঠির তারিখ থেকে খালিদ দেখতে পান যে, চিঠিটি এক মাসের বেশি পুরনো এবং অন্তত তিন সপ্তাহ আগে আবু ওবায়দা চিঠিটি পেয়েছেন। তিনি আবু ওবায়দার দিকে তাকিয়ে বললেন: আপনি এ সংবাদ আমার কাছ থেকে গোপন রাখলেন কেন? আল্লাহ আপনার ওপর রহমত বর্ষণ করুন। আবু ওবায়দা জবাবে বলেন: আপনি যখন শত্রুদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে লিপ্ত তখন আমি আপনার কর্তৃত্ব খর্ব করতে চাইনি। কয়েক মুহূর্ত খালিদ নিজের চিন্তায় ডুবে যান। তিনি তার বন্ধু, হিতাকাঙ্খী ও পথপ্রদর্শক আবু বকরের কথা ভাবেন। আবু ওবায়দা সহানুভূতির দৃষ্টিতে তার প্রতি তাকিয়ে থাকেন। তারপর খালিদ মন্তব্য করেন: আল্লাহ আবু বকরের ওপর রহমত বর্ষণ করুন। তিনি জীবিত থাকলে আমাকে কখনো কমান্ড থেকে অব্যাহতি দিতেন না। একথা বলে অবনত মস্তকে সাইফুল্লাহ তার তাঁবুর পথে পা বাড়ান। রাতে খালিদ আবু বকরের জন্য কাঁদেন। পরদিন ৬৩৪ সালের ২ অক্টোবর সকালে সৈন্যবাহিনী সমবেত হয় এবং তাদেরকে খিলাফত ও সিরিয়ায় সৈন্যবাহিনীর কমান্ডে পরিবর্তন সম্পর্কে অবহিত করা হয়।

সেদিন দামেস্কের মুসলমানরা নয়া খলিফার প্রতি আনুগত্যের শপথ গ্রহণ করে। খালিদ তার অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেননি। তিনি তার বন্ধুদের কাছে মন্তব্য করেছিলেন: আবু বকর মৃত এবং উমর খলিফা হয়ে থাকলে তাকে আমাদের মান্য করতে হবে এবং তার নির্দেশ পালন করতে হবে। মুসলিম সৈন্যবাহিনী এবং সিরিয়ায় মুসলিম স্বার্থের গুরুতর ক্ষতি না করে খালিদ তার ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটাতে পারতেন না। কেননা উমর বিরোধী যেকোনো কার্যকলাপে মুসলিম সৈন্যবাহিনী দ্বিধাবিভক্ত হয়ে যেতো। নেতৃত্ব থেকে সি-ইন-সিকে অপসারণ করা হলে তিনি সাধারণত চাকরি করেন না। তিনি অবসর গ্রহণ করেন অথবা তাকে অন্য কোথাও বদলি করা হয়। কিন্তু প্রথম সহ¯্রাব্দের শ্রেষ্ঠতম সেনাপতি খালিদ সৈন্যবাহিনীতে নিচুপদে এমনকি সাধারণ সৈনিক হিসেবে চাকরি করার জন্য প্রস্তুত ছিলেন। সি-ইন-সি হিসেবে তিনি যে চেতনা ও মনোভাব তিনি লড়াই করেছিলেন, নিচু পদেও তিনি একই চেতনার পরিচয় দেন। একপক্ষকালের মধ্যে আবুল কুদজ বা আবু আল-কুদস সংকটে তার স্পষ্ট নজির খুঁজে পাওয়া যায়।

আবু ওবায়দা সৈন্যবাহিনীর কমান্ড গ্রহণ করার এক সপ্তাহ পর মুসলমানদের অনুগ্রহ প্রার্থী একজন খ্রিস্টান আরব তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন এবং তাকে জানান, কয়েকদিনের মধ্যে আবুল কুদসে একটি মেলা বসবে। এ মেলায় বাইজান্টাইন সাম্রাজ্যের এশীয় অঞ্চলের ব্যবসায়ী ও দর্শনার্থীরা মূল্যবান পণ্য ক্রয়-বিক্রয় করার জন্য আসবেন। মুসলমানরা গণিমতের মাল লাভ করতে চাইলে একটি আক্রমণকারী বাহিনী পাঠালেই হবে। এই খ্রিস্টান গুপ্তচর মেলায় বাইজান্টাইন সৈন্যরা প্রহরায় থাকবে কিনা তা বলেনি। তবে ভূমধ্যসাগরীয় উপকূলে ত্রিপোলিতে একটি শক্তিশালী বাইজান্টাইন দুর্গ ছিল। আবু ওবায়দা তার আশপাশে উপস্থিত যোদ্ধাদের সঙ্গে আলাপ করেন। আবুল কুদস অভিযানে কেউ নেতৃত্বদানে সম্মত কিনা তিনি তাদের কাছে তা জানতে চান। তিনি আশা করছিলেন যে, খালিদ এ অভিযানে নেতৃত্বদানে রাজি হবেন। কিন্তু তিনি নীরব থাকেন। তখন অতি উৎসাহী টগবগে একজন যুবক এগিয়ে আসে। এ যুবকের দাড়ি মাত্র গজিয়ে উঠছিল। তিনি ছিলেন মহানবীর চাচাতো ভাই ও মুতার যুদ্ধে শহীদ জাফর ইবনে আবি তালিবের পুত্র আবদুল্লাহ। আবদুল্লাহ মাত্র মদিনা থেকে এসেছিলেন। তিনি যুদ্ধে বিজয় লাভের গৌরব অর্জনে ব্যাকুল ছিলেন। আবু ওবায়দা যুবকটির প্রস্তাবে সম্মত হন এবং তাকে পাঁচ শো অশ্বারোহী সৈন্যের কমান্ডার হিসেবে নিযুক্তি দেন।

৬৩৪ সালের ১৪ অক্টোবর পূর্ণিমার রাতে এ বহর যাত্রা করে। তরুণ আবদুল্লাহ বিখ্যাত মুসলিম তাপস হযরত আবুজর গিফারির পাশাপাশি অশ্ব নিয়ে পথ চলছিলেন। পরদিন ভোরে এ অস্থির যুবক মেলায় প্রহরায় নিযুক্ত পাঁচ হাজার বাইজান্টাইন সৈন্যের ওপর হামলা করে বসেন। আবদুল্লাহ বিজয়ী হওয়ার আকাঙ্খা পোষণ করায় এবং আবুজর গিফারি শহীদ হওয়ার জন্য ব্যাকুল হওয়ায় মুসলমানদের সংযত করার কেউ ছিলেন না। তার পরিণাম হয়েছিল মারাত্মক। কিছুক্ষণ বীরত্বপূর্ণ লড়াইয়ের পর বাইজান্টাইন সৈন্যরা মুসলমানদের ঘেরাও করে ফেলে। তখন স্পষ্ট বুঝা যাচ্ছিল যে, কোনো মুসলমান জীবিত পালিয়ে যেতে পারবে না। অভিজ্ঞ মুসলিম সৈন্যরা বাইজান্টাইন সৈন্যদের হামলা থেকে আত্মরক্ষায় নিজেদের চারদিকে একটি শক্ত বেষ্টনী রচনা করে। তবে তাদের নির্মূল হয়ে যাওয়া ছিল সময়ের ব্যাপার মাত্র। একজন মুসলমান বাইজান্টাইনদের ঘেরাও থেকে পালিয়ে দামেস্কে গিয়ে পৌঁছে। এ যুবকটি পৌঁছানোর সময় আবু ওবায়দা তার সহযোগীদের নিয়ে বসে পরামর্শ করছিলেন। যুবকটি তাকে জানায় যে, অবিলম্বে সাহায্য পাঠানো না হলে আবুল কুদস থেকে একজন মুসলমানও জীবিত ফিরে আসতে পারবে না।

এ সংবাদ পেয়ে আবু ওবায়দা ভীত হয়ে পড়েন। তার অন্তরে হযরত উমরের সেই উক্তি মনে পড়ে: লুণ্ঠনের স্বার্থে মুসলমানদের ধ্বংসের পথে ঠেলে দেবেন না। সি-ইন-সি হিসেবে এটা ছিল আবু ওবায়দার প্রথম সামরিক সিদ্ধান্ত। আবদুল্লাহ ও তার সৈন্যদের রক্ষা করা সম্ভব না হলে সৈন্যবাহিনীর ওপর তার বিরূপ প্রভাব পড়তো। কোনো উপায় না দেখে আবু ওবায়দা খালিদের প্রতি তাকিয়ে বললেন: হে সোলায়মানের পিতা, আমি আল্লাহর নামে আবদুল্লাহ বিন জাফর ও তার সৈন্যবাহিনীকে রক্ষায় আপনাকে ছুটে যাবার অনুরোধ করছি। আপনিই একমাত্র ব্যক্তি যিনি এ কাজ করতে পারেন। খালিদ বললেন: আল্লাহর রহমতে আমি নিশ্চয়ই এ কাজ করবো। আমি শুধু আপনার নির্দেশের অপেক্ষা করছিলাম। কমান্ডে সাম্প্রতিক রদবদলে তিনি তার বিব্রতকর অবস্থা উল্লেখ করে আবু ওবায়দা বলেন: আমি আপনাকে নির্দেশ দিতে দ্বিধা করছিলাম। খালিদ বললেন: আল্লাহর কসম, আপনি যদি কোনো শিশুকে আমার ওপর নেতৃত্বদানের জন্য নিযুক্তি দিতেন তাহলেও আমি তাকে মান্য করতাম। ইসলামে আপনার মর্যাদা যেখানে আমার চেয়ে বেশি এবং যেখানে আপনি হলেন আল্লাহর নবীর বিশ্বস্ত সেখানে আমি কিভাবে আপনাকে আমন্য করতে পারি? আমি কখনো আপনার মর্যাদা অর্জন করতে পারবো না। আমি ঘোষণা করছি যে, মহান আল্লাহর নামে আমি আমার জীবন উৎসর্গ করছি। আবেগতাড়িত কণ্ঠে আবু ওবায়দা বললেন: আপনার ওপর আল্লাহর রহমত বর্ষিত হোক। হে সোলায়মানের পিতা, ছুটে গিয়ে আপনি আপনার ভাইদের রক্ষা করুন। আধা ঘন্টার মধ্যে ভ্রাম্যমাণ গার্ড খালিদের নেতৃত্বে আবুল কুদসে ছুটে যায়। তিনি ফাঁদেপড়া মুসলমানদের রক্ষা করেন। তবে তাদের অনেকে বাইজান্টাইনদের হামলায় নিহত হয়। খালিদ শুধু আবুল কুদস বাজারে হামলা এবং বিপুল পরিমাণ গণিমতের মাল নিয়ে ফিরে আসেন তাই নয়, তিনি ব্যক্তিগতভাবে আঘাতপ্রাপ্তও হন। আবুল কুদস অভিযানে খালিদের পদচ্যুতির কোনো প্রভাব পড়েনি।

হযরত উমরের কার্যকলাপ ছিল তার পূর্বসূরি হযরত আবু বকরের কার্যকলাপ থেকে পুরোপুরি ভিন্ন। আবু বকর সামরিক কমান্ডারদের বিভিন্ন অভিযানে পাঠাতেন এবং অপারেশন পরিচালনার ভার তাদের ওপর অর্পণ করতেন। অন্যদিকে হযরত উমর প্রতিটি যুদ্ধের সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের নির্দেশ দিতেন। তিনি তার সেনাপতিদের ওপর নজরদারি করার জন্য একটি গোয়েন্দা নেটওয়ার্ক গঠন করেন। তার খিলাফতকালে তিনি মুসলিম বাহিনীর বামবাহু কিংবা ডানবাহুর নেত্বত্ব কে দেবেন তাও নির্ধারণ করতেন। আবুু বকর যাদের কমান্ডার হিসেবে নিয়োগ করেছিলেন, উমর তাদের নিয়োগ পুনরায় অনুমোদন করেন। আমর ইবনুল আল-আ’সকে ফিলিস্তিন, ইয়াজিদকে দামেস্ক, সোহরাবিলকে জর্দান এবং আবু ওবায়দাকে এমেসার (এমেসা তখনো মুসলিম অধিকারে আসেনি) কমান্ডার হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। তারা শুধু সামরিক কমান্ডার ছিলেন তাই নয়, সংশ্লিষ্ট প্রদেশের রাজনৈতিক প্রধানও ছিলেন। উদাহরণস্বরূপ, সোহরাবিল শুধু জর্দানে মোতায়েন সৈন্যবাহিনীর কমান্ডার নয়, একইসঙ্গে তিনি প্রদেশের গভর্নরও ছিলেন। খালিদের কোনো ভূমিকা ছিল না। উমরের নির্দেশের আওতায় তিনি আবু ওবায়দার কর্তৃত্বে ন্যস্ত হন। আবু ওবায়দা ইরাকের কমান্ডার হিসেবে তার নিযুক্তি অনুমোদন করেন। ইতিহাস বিখ্যাত ভ্রাম্যমাণ গার্ড বাহিনী ছিল ইরাকি বাহিনীর অন্তর্ভুক্ত। সামরিক মর্যাদায় খালিদ ছিলেন অন্যান্য বাহিনীর কমান্ডারের সমপর্যায়ের। তবে রাজনৈতিকভাবে তিনি ছিলেন ক্ষমতাহীন। কমান্ডে রদবদল করায় নিঃসন্দেহে সামরিক অভিযানে ভাটার টান পড়ে। আবু ওবায়দা ছিলেন একজন মহান ব্যক্তি ও নির্ভীক যোদ্ধা। পরবর্তী কয়েক বছরের মধ্যে তিনি খালিদের কাছ থেকে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে একজন দক্ষ সেনানায়কে পরিণত হন। তিনি খালিদকে পাশে রাখতেন। তার পরামর্শ গ্রহণ করতেন। তবে তার খালিদের মতো সামরিক যোগ্যতা ও দূরদর্শিতা ছিল না। আবু ওবায়দা তার পরবর্তী লক্ষ্য সম্পর্কে মদিনার সিদ্ধান্ত কামনা করতেন। অন্যদিকে খালিদ টর্নেডোর মতো একটি যুদ্ধক্ষেত্র থেকে আরেকটি যুদ্ধক্ষেত্রে ছুটে যেতেন।

৬৩৮ সালে মারাশ অভিযানের আগে গোসলে মাদক জাতীয় দ্রব্য ব্যবহার করায় খালিদ নতুন করে সংকটের মুখোমুখি হন। গোসলের সময় এলকোহল মিশ্রিত এ বিশেষ উপকরণ ব্যবহার করা হলে শরীর শীতল হয়ে আসতো। খালিদ এ তৈলাক্ত উপকরণ শরীরে ঘর্ষণ করতেন এবং গোসলকে উপভোগ করতেন। এভাবে গোসল করলে তিনি তারতাজা হয়ে উঠতেন। কয়েক সপ্তাহ পর তিনি খলিফা হযরত উমরের কাছ থেকে একটি চিঠি পান। চিঠিতে খলিফা লিখেন: আমি জানতে পেরেছি যে, আপনি শরীরে এলকোহল মাখেন। আল্লাহ এলকোহল ও এলকোহল জাত দ্রব্য ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছেন। তিনি গোসলে মদ স্পর্শ করা হারাম করেছেন। গোসলে মদ ব্যবহার পানের চেয়ে কম নয়। আপনার শরীরে যেন মদের স্পর্শ না লাগে। কেননা মদ অপবিত্র।

খালিদের কাছে মদ নিষিদ্ধে খলিফা হযরত উমরের ব্যাখ্যা অতিরঞ্জিত বলে মনে হচ্ছিল। সব সাহাবীর মতো পবিত্র কোরআনে তার নিজের দখল ছিল বেশ। তিনি জানতেন যে, কোরআনে মদপান নিষিদ্ধ করা হলেও এলকোহল মিশ্রিত তেল ও মলম সম্পর্কে কোনো কথা নেই। খালিদ খলিফার কাছে পাঠানো এক চিঠিতে তার এলকোহল মিশ্রিত তেল ব্যবহারের ব্যাখ্যা দেন। এলকোহল ব্যবহারে উমরের ব্যাখ্যা যথেষ্ট বলিষ্ঠ ছিল না। তাই তিনি খালিদের কাছে একটি চিঠিতে লিখেন: আমি আশঙ্কা করছি যে, মুগিরার বাড়ি পাপে পরিপূর্ণ। এলকোহল ব্যবহার করায় আল্লাহ আপনাকে যেন ধ্বংস না করেন। বিষয়টি এখানেই নিষ্পত্তি হয়ে যায়। খালিদ পুনরায় গোসলে এলকোহল মিশ্রিত উপাদান ব্যবহার করেছিলেন কিনা তা জানা যায়নি। তবে একথা স্পষ্ট যে, এলকোহল সম্পর্কে উমরের মতামত গ্রহণ না করায় হাযার যুদ্ধে বিজয়ী হয়ে খালিদ খলিফার যে প্রশংসা করেছিলেন তা নিঃশেষ হয়ে যায়।

৬৩৮ সালের শরৎকালে মারাশ বিজয় শেষে ফিরে এসে খালিদ উদারহস্তে সৈন্যদের দান করেন। এ সময় কিছু অসৎ লোকের আবির্ভাব ঘটে। এসব অসৎ লোক খালিদের প্রশস্তিসূচক কবিতা পাঠ করে তার কাছ থেকে পুরস্কার লাভ করেন। তাদের একজন ছিলেন কবি আল-আশা’স ইবনে কায়েস আল-কিন্দি। কবি আশা’স কিনাচ্ছারিনে আসেন এবং খালিদের প্রশংসাসূচক একটি কবিতা পাঠ করে তাকে শোনান। কবি আশা’স জানতেন না যে, তিনি খালিদের সামরিক ক্যারিয়ার শেষ করে দেয়ার জন্য কবর খুঁড়ছেন। একপক্ষ কালের মধ্যে খলিফা উমর জানতে পারেন যে, খালিদের প্রশস্তিসূচক কবিতা পাঠ করায় কবি আশা’সকে ১০ হাজার দিরহাম পুরস্কার দেয়া হয়েছে। একথা জানতে পেরে উমর ক্ষেপে যান। এ পরিমাণ অর্থ ছিল রাজকোষ থেকে খলিফার প্রাপ্ত অর্থের চেয়ে বেশি। দ্বন্দ্বযুদ্ধ এবং অন্যান্য যুদ্ধে অর্জিত মাল থেকে প্রাপ্ত আয় খালিদের বেতনের অংশ ছিল না। একজন কমান্ডারের বার্ষিক আয় ছিল ৭ থেকে ৯ হাজার দিরহামের মধ্যে। খলিফা উমর অবিলম্বে আবু ওবায়দার কাছে পাঠানো একটি চিঠিতে লিখেন: খালিদকে দরবারে হাজির করুন, তার পাগড়ি দিয়ে তার হাত বাঁধুন এবং তার টুপি কেড়ে নিন। তাকে জিজ্ঞেস করুন তিনি আশা’সকে কোন তহবিল থেকে অর্থ দিয়েছেন। তিনি কি তার নিজের পকেট থেকে নাকি অভিযানে অর্জিত গণিমতের মাল থেকে অর্থ দিয়েছেন? খালিদ যদি স্বীকার করেন যে, তিনি গণিমতের মাল থেকে এ অর্থ দিয়েছেন তাহলে অর্থ আত্মসাতের দায়ে তিনি অভিযুক্ত হবেন। আর যদি তিনি দাবি করেন যে, তিনি তার পকেট থেকে এ অর্থ দিয়েছেন তাহলে তিনি অপব্যয়ের জন্য দোষী সাব্যস্ত হবেন। দুটি ঘটনার প্রতিটির জন্য তাকে বরখাস্ত করুন এবং তার দায়িত্ব নিজের হাতে তুলে নিন। অভিযুক্ত ব্যক্তি সাধারণ মানুষ ছিলেন না। খলিফার এই নির্দেশ একজন উঁচুমানের সাহাবীকে কার্যকর করতে হবে। এজন্য খলিফা উমর হযরত বিলালকে (রা.) এ কাজের জন্য বেছে নেন। তিনি হযরত বিলালের কাছে চিঠি হস্তান্তর করেন। কিভাবে খালিদকে বিচারের মুখোমুখি করতে হবে তা তিনি তাকে বুঝিয়ে দেন এবং তাকে সর্বোচ্চ গতিতে এমেসা যাবার নির্দেশ দেন। হযরত বিলাল এমেসা এসে পৌঁছান এবং আবু ওবায়দার কাছে উমরের চিঠি হস্তান্তর করেন। চিঠি পাঠ করে আবু ওবায়দা ভীত হয়ে পড়েন। তিনি বিশ্বাস করতে পারছিলেন যে, আল্লাহর তরবারি সাইফুল্লাহ এ ধরনের বিচারের মুখোমুখি হবেন। কিন্তু খলিফার নির্দেশ কার্যকর না করে উপায় নেই। তিনি খালিদকে ডেকে পাঠান। খালিদ কোনো প্রকার সন্দেহ না করে কিনাচ্ছারিন ত্যাগ করেন। তিনি ধারণা করছিলেন, বোধ হয় তাকে ওয়ার কাউন্সিলের কোনো বৈঠকে ডাকা হচ্ছে। হয়তো রোমের বিরুদ্ধে আরেকটি অভিযান অথবা বাইজান্টাইন সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে একটি পূর্ণাঙ্গ অভিযান চালানো হবে। খালিদ আরো যুদ্ধে অংশগ্রহণ করে গৌরবান্বিত হওয়ার জন্য উন্মুখ হয়ে উঠেন। এমেসা পৌঁছে তিনি আবু ওবায়দার বাড়িতে যান।

এই প্রথম তিনি জানতে পারেন যে, আবু ওবায়দা তাকে কেন তলব করেছেন। সি-ইন-সি আবু ওবায়দা সংক্ষেপে তার বিরুদ্ধে খলিফার অভিযোগ ব্যাখ্যা করেন এবং দোষ স্বীকারে তাকে অনুরোধ করেন। আবু ওবায়দার ভাষ্যে খালিদ স্তম্ভিত হয়ে যান। তিনি বুঝতে পারেন যে, তার পুুরনো প্রতিদ্বন্দ্বী উমর বিন খাত্তাব তার ভাবমর্যাদা ক্ষুণœ করতে চান। তিনি তার বোনের সঙ্গে পরামর্শ করার জন্য তার কাছে কিছুটা সময় চান। আবু ওবায়দা সময় দিতে সম্মত হন। খালিদ এমেসায় তার বোন ফাতিমার বাড়িতে যান। তার কাছে সবকিছু খুলে বলেন। ফাতিমা তার কথা শুনে বললেন: উমর কখনো তোমার কৈফিয়তে সন্তুষ্ট হবেন না। তিনি চান তুমি দোষ স্বীকার করে নাও যাতে তিনি তোমাকে বরখাস্ত করতে পারেন।

খালিদ বোনের সঙ্গে একমত পোষণ করেন এবং তার কপালে চুমো দিয়ে আবু ওবায়দার কাছে ফিরে আসেন। তিনি তাকে জানান যে, তিনি দোষ স্বীকার করবে না। তারপর দুজন সেনাপতি নীরবে হেঁটে একটি জায়গায় যান। সেখানে বিপুল সংখ্যক মুসলমান সমবেত হয়েছিল। তাদের অনেকে খালিদের সঙ্গে করমর্দন করার জন্য ছুটে আসে। একপাশে ছিল একটি উঁচু মঞ্চ। মঞ্চে আবু ওবায়দা ও খালিদ পাশাপাশি বসেন। আবু ওবায়দার অন্যপাশে ছিলেন কাফ্রি বিলাল। কয়েক মিনিট কারো মুখে কোনো কথা ছিল না। দরবারের উদ্দেশ্য সম্পর্কে মুসলমানরা জানতে পারেনি। খালিদ নিজেও জানতেন না। তিনি কখনো ভাবতে পারেননি যে, তিনি গণআদালতের মুখোমুখি হবেন। হযরত বিলাল জিজ্ঞাসুদৃষ্টিতে আবু ওবায়দার দিকে তাকান। আবু ওবায়দা তার মুখ ফিরিয়ে নেন। হযরত বিলাল আবু ওবায়দার মনোভাব বুঝতে পারেন। তিনি ওঠে দাঁড়ান এবং খালিদের মুখোমুখি হন। তিনি চিৎকার করে বললেন: হে খালিদ, আপনি কি আশা’সকে ১০ হাজার দিরহাম পুরস্কার দিয়েছেন? এ অর্থ আপনি কোথা থেকে দিয়েছেন? আপনার নিজের পকেট থেকে নাকি রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে?

খালিদ বিস্মিত হয়ে হযরত বিলালের প্রতি ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে থাকেন। তিনি নিজের কানকে বিশ্বাস করতে পারছিলেন না। হযরত বিলাল পুনরায় একই কথা বলেন। জীবনে এই প্রথম খালিদ নির্বাক হয়ে যান। আরো একটি মিনিট কেটে যায়। খালিদ কোনো কথা বলেননি। হযরত বিলাল তার দিকে এগিয়ে গিয়ে বললেন: আমিরুল মোমেনীন এ নির্দেশ দিয়েছেন। একথা বলে তিনি খালিদের পাগড়ি ও টুপি খুলে নেন এবং পাগড়ি দিয়ে খালিদের হাত পিছমোড়া করে বেঁধে ফেলেন। আবার খলিফার দূত হযরত বিলাল জানতে চান: আপনার অভিমত কি? আপনার নিজের পকেট থেকে নাকি রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে? খালিদ প্রতিবাদ করে বললেন: না, আমার নিজের পকেট থেকে। একথা শুনে হযরত বিলাল খালিদের হাতের বাঁধন খুলে দেন এবং নিজের হাতে তার মাথায় টুপি ও পাগড়ি পরিয়ে দেন। হযরত বিলাল নিজের জায়গায় ফিরে যান। কয়েক মিনিট পিন পতন নিস্তদ্ধতা বিরাজ করে। আবু ওবায়দা ও হযরত বিলাল একে অন্যের মুখোমুখি হয়ে মেঝেতে বসেন। খালিদ ওঠে দাঁড়ান। তখনো তিনি কাঁপছিলেন। তাকে সৈন্যবাহিনীর কমান্ড থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে কিনা তা তিনি বুঝতে পারছিলেন না।

বিনয়ী আবু ওবায়দাকে প্রশ্ন করে বিব্রত না করে তিনি দরবার থেকে বের হয়ে আসেন। ঘোড়ায় চড়ে তিনি কিনাচ্ছারিনের পথে রওনা হয়ে যান। হযরত বিলাল মদিনা ফিরে যান এবং খলিফার কাছে খালিদের বিচারের বর্ণনা দেন। খলিফা হযরত উমর আবু ওবায়দার কাছ থেকে একটি চিঠির জন্য অপেক্ষা করতে থাকেন। তিনি জানতে চাইছিলেন আবু ওবায়দা খালিদকে কিনাচ্ছারিনের কমান্ড থেকে অপসারণে তার নির্দেশ অনুমোদন করেছেন কিনা। এক সপ্তাহ কেটে গেলে এবং কোনো চিঠি না এলে উমর অনুমান করছিলেন, আবু ওবায়দা খালিদকে কিনাচ্ছারিনের কমান্ড থেকে অপসারণের সংবাদ অবহিত করতে আগ্রহী নন। খলিফা হযরত উমর খালিদকে অপসারণের বিষয়টি নিজে সামাল দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন। তিনি খালিদকে মদিনায় তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করার নির্দেশ দেন। খলিফার চিঠি পেয়ে খালিদ এমেসা আসেন এবং তার অবস্থান সম্পর্কে আবু ওবায়দার কাছে জানতে চান। আবু ওবায়দা তাকে জানান যে, খলিফার নির্দেশে তাকে কমান্ড থেকে অপসারণ করা হয়েছে। খালিদ তাকে বললেন: আপনি কেন আমার সঙ্গে এমন আচরণ করলেন? আপনি আমার কাছে বিষয়টি গোপন করলেন কেন? আজকের আগে বিষয়টি জানতে পারলে আমি খুশি হতাম।

আবু ওবায়দার মুখে বিষাদের ছায়া পড়ে। তিনি বললেন: আল্লাহর কসম, আমি জানতাম আপনি আহত হবেন। আমার কোনো বিকল্প থাকলে আমি কখনো আপনাকে আহত করতাম না। খালিদ কিনাচ্ছারিনে ফিরে যান এবং তার অতি প্রিয় ভ্রাম্যমাণ গার্ডকে সমবেত করেন এবং তাদের উদ্দেশে ভাষণ দেন। তিনি ভ্রাম্যমাণ গার্ডকে একটির পর একটি যুদ্ধে বিজয়ের শিরোপা পরিয়ে দিয়েছিলেন। ভ্রাম্যমাণ গার্ডকে কখনো পরাজয়ের স্বাদ নিতে হয়নি। এ বাহিনীর যোদ্ধারা বিনা প্রশ্নে তার নির্দেশ মেনে নিতো। তিনি দুঃখ ভারাক্রান্ত হৃদয়ে তাদের জানান যে, তাকে কমান্ড থেকে অপসারণ করা হয়েছে এবং এখন তিনি খলিফার নির্দেশে মদিনা যাচ্ছেন। খালিদ ভ্রাম্যমাণ গার্ডকে বিদায় জানান। তিনি কিনাচ্ছারিন থেকে ফের এমেসা যান। তারপর তিনি মদিনার দিকে যেতে থাকেন। মদিনা পৌঁছে তিনি খলিফার বাসভবনের দিকে এগিয়ে যান। কিন্তু উমরের সঙ্গে রাস্তায় তার সাক্ষাৎ হয়। দুজন লৌহমানব তদানীন্তন বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ শাসক উমর এবং সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ যোদ্ধা ও সেনাপতি খালিদ একে অন্যের কাছাকাছি হতে থাকেন। কারো চোখে কোনো ভীতি ছিল না। উমর প্রথম কথা বলেন। তিনি খালিদের সাফল্য ও কৃতিত্ব স্বীকার করে তাৎক্ষণিক একটি কবিতা রচনা করেন এবং আবৃত্তি করে বলেন:
আপনি হলেন এক মূল্যবান রত্ম
কেউ নয় আপনার সমকক্ষ
মানুষের নেই কোনো ক্ষমতা
আল্লাহ হলেন সবকিছুর নিয়ন্তা।
খালিদ বললেন: আমি মুসলমানদের কাছে আপনার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছি। হে উমর আল্লাহর কসম, আপনি আমার প্রতি অন্যায় করেছেন।
আপনি এসব সম্পদ কোথায় পেলেন?
গণিমতের মালে আমার হিস্যা থেকে। ৬০ হাজার দিরহামের অতিরিক্ত হলে আপনার।

হযরত উমর হিসাব করে দেখতে পেলেন যে, খালিদের সম্পদের পরিমাণ ২০ হাজার দিরহাম। তিনি ২০ হাজার দিরহাম বাজেয়াপ্ত করেন এবং বায়তুল মালে জমা দেন। খালিদ নির্দোষ প্রমাণিত হন। হিসাব শেষ করে উমর খালিদকে বললেন: হে খালিদ আল্লাহর কসম, আপনি হলেন আমার চোখে অত্যন্ত সম্মানিত। আপনি আমার প্রিয়পাত্র। আজকের পরে আমার কাছে আপনার অভিযোগ করার কোনো কারণ থাকবে না। কয়েকদিন পর খালিদ কিনাচ্ছারিনের উদ্দেশে মদিনা ত্যাগ করেন। তিনি আর কখনো আরব দেশে ফিরে আসেননি। খালিদ মদিনা ত্যাগ করা মাত্র খলিফা উমরের কাছে লোকজন এসে ভিড় জমায় এবং খালিদের সম্পদ তার কাছে ফিরিয়ে দেয়ার জন্য তাকে অনুরোধ করে। জবাবে উমর বলেন: আমি আল্লাহ ও মুসলমানদের সম্পদ লেনদেন করতে পারি না। ঐতিহাসিক তাবারির মতে, তারপর থেকে খালিদের প্রতি উমরের মন কোমল হতে থাকে। শিগগির উমর উপলব্ধি করতে পারেন যে, খালিদের প্রতি তার আচরণে মুসলমানরা গভীরভাবে মর্মাহত। খোলাখুলি বলা হতে থাকে যে, খালিদ উমরের ব্যক্তিগত বৈরিতার শিকার। এ সাধারণ ধারণা এত ব্যাপক আকার ধারণ করে যে, খলিফা তার সব কমান্ডার ও প্রশাসকের কাছে চিঠি লিখে ব্যাখ্যা দিয়ে বলেন: আমি আমার ক্রোধ অথবা তার অসাধুতার জন্য খালিদকে বরখাস্ত করিনি। লোকজন তাকে গৌরবান্বিত করায় এবং বিভ্রান্ত হওয়ায় তাকে বরখাস্ত করেছি। আমি আশঙ্কা করছিলাম যে, লোকজন তার ওপর নির্ভরশীল হয়ে উঠবে। আমি তাদেরকে একথা জানিয়ে দিতে চেয়েছি যে, আল্লাহই সব করেন। এ ভূখ-ে কোনো ভুল ধারণা পোষণ করার সুযোগ নেই। এ চিঠিতে হযরত উমর অনিচ্ছাকৃতভাবে খালিদের প্রশংসা করে লিখেন: তার সৈন্যরা তাকে দেবতা জ্ঞান করতো।
ইরাক ও সিরিয়া বিজয়ী এবং ধর্মত্যাগীদের বিনাশকারী খালিদ পদচ্যুত ও অপমানিত হয়ে কিনাচ্ছারিন এসে পৌঁছান। তার স্ত্রী দরজায় দাঁড়িয়ে তাকে অভ্যর্থনা জানালে তিনি বলেন: উমর আমাকে সিরিয়ার গভর্নর হিসেবে নিযুক্তি দিয়েছিলেন যতক্ষণ দেশটি গম ও মধুতে পরিপূর্ণ ছিল। তারপর তিনি আমাকে বরখাস্ত করেছেন।

খালিদের সামরিক অভিযানে চিরযবনিকা নেমে আসে। আল্লাহ যে তরবারিকে কাফেরদের বিরুদ্ধে উত্তোলিত করেছিলেন, হযরত আবু বকর যে তরবারিকে কোষবদ্ধ করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন, অবশেষে খলিফা উমর তাকে কোষবদ্ধ করেন। বরখাস্ত হওয়ার পর খালিদ চার বছরের কম বেঁচেছিলেন। জীবনের শেষ কটি বছর তার জন্য সুখকর ছিল না। পঞ্চদশ হিজরিতে হযরত উমর সবার জন্য ভাতা চালু করেন। হুদাইবিয়ার সন্ধির পর এবং ধর্মত্যাগীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধের আগে ইসলাম গ্রহণকারীরা তিন হাজার দিরহাম করে বার্ষিক ভাতা পেতেন। খালিদ এ ক্যাটাগরিতে অন্তর্ভুক্ত ছিলেন। তিনি পরিবার নিয়ে এমেসা গিয়ে উঠেন। সেখানে তিনি একটি বাড়ি ক্রয় করে বসবাস করতে থাকেন। পদচ্যুতি ছিল খালিদের জন্য একটি মারাত্মক আঘাত। তিনি মদিনা থেকে ফিরে আসার পর প্লেগ দেখা দেয়। প্লেগে তার অধিকাংশ প্রিয়জনের মৃত্যু হয়। ৬৩৯ সালের জানুয়ারি কিংবা ফেব্রুয়ারিতে ফিলিস্তিনের আমাওয়াসে প্রথম প্লেগের প্রাদুর্ভাব ঘটে এবং গোটা সিরিয়া ও ফিলিস্তিনে ছড়িয়ে পড়ে। হযরত উমর মুসলমান বিশেষ করে আবু ওবায়দার ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কিত হয়ে উঠেন। তিনি তাকে মদিনা সফরের আমন্ত্রণ জানান। আবু ওবায়দা চিঠি পাঠ করে বুঝতে পারেন যে, মদিনা সফরে গেলে মহামারী শেষ হওয়া নাগাদ উমর তাকে আটকে রাখবেন। তিনি মদিনা যেতে অস্বীকৃতি জানান। সৈন্যদের প্রতি বিশ্বস্ত থাকায় জীবন দিয়ে তাকে মাশুল দিতে হয়। আমাওয়াসে প্লেগে ২৫ হাজার মুসলিম মৃত্যুবরণ করে। মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ছিলেন আবু ওবায়দা, সোহরাবিল ইবনে হাসানাহ, ইয়াজিদ বিন আবু সুফিয়ান, দারার বিন আল-আজওয়ার ও তার বোন খাওলাসহ অনেকে। ভয়ঙ্কর মহামারীতে খালিদের ৪০ জন পুত্র মৃত্যুবরণ করে। তার মাত্র তিনজন পুত্র জীবিত ছিলেন। তারা হলেন সোলায়মান, মোহাজির ও আবদুর রহমান। তিনজন মূল কমান্ডার মৃত্যুবরণ করলে আমর ইবনুল আল-আ’স সৈন্যবাহিনীর কমান্ড গ্রহণ করেন এবং অবিলম্বে তিনি সৈন্যবাহিনীকে সিরিয়া ও ফিলিস্তিনের পাহাড়ে ছড়িয়ে দেন। এ উদ্যোগ নিয়ে তিনি অধিকাংশ সৈন্যের জীবন রক্ষায় সক্ষম হন। হযরত উমর উত্তরাঞ্চলীয় সিরিয়ার সামরিক গভর্নর হিসেবে আয়াদ বিন ঘানিম এবং দামেস্ক ও জর্দানের গভর্নর হিসেবে মুবাবিয়াকে নিয়োগ দেন। অন্যদিকে আমর ইবনুল আল-আ’স ফিলিস্তিনের কমান্ডে বহাল থাকেন। ধর্মত্যাগীদের বিরুদ্ধে অভিযানের পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনাকালে হযরত আবু বকর আমর ইবনুল আল-আ’সকে বলেন: হে আমর, আপনি হলেন বিচারশক্তিতে আরবদের মধ্যে সবচেয়ে বিজ্ঞ। খালিদ সম্পর্কে আপনার অভিমত কি? জবাবে আমর বললেন: তিনি হলেন যুদ্ধের মনিব ও মৃত্যুর বন্ধু। তিনি হলেন সিংহের মতো শক্তিশালী এবং বিড়ালের মতো সহনশীল। বরখাস্ত হওয়ার পর খালিদের আর কোনো সম্ভাবনা ছিল না। তিনি আর কোনো যুদ্ধে লড়াই করেননি। কিংবা কোনো শত্রুকে হত্যা করেননি। বাধ্যতামূলক অবসর জীবনে তিনি তার সহযোদ্ধা ও পুত্রদের মৃত্যুর জন্য বিলাপ করতেন। ইসলামের দিগি¦জয় অব্যাহত থাকে। প্লেগের পর ১৮ হিজরিতে আয়াদ বিন ঘানিম পুনরায় জাজিরা আক্রমণ করেন এবং পরবর্তী বছরের শেষ নাগাদ জাজিরা অধিকার সম্পন্ন করেন। ঘানিম মালাটায়া পর্যন্ত সফল অভিযান চালান। পূর্ব রণাঙ্গনের সংবাদ ছিল রোমাঞ্চকর। খালিদ বরখাস্ত হওয়ার সময় সা’দ বিন আবি ওয়াক্কাস ইরাক ও ইরানের অধিকাংশ ভূখ- অধিকার করেন। এ ফ্রন্টে আরো অগ্রগতি অর্জিত হয়। ৬৪০ সালে সিজারিয়া মুসলমানদের কাছে আত্মসমর্পণ করে এবং আমর ইবনুল আল-আ’স মিসর আক্রমণ করেন। সব মুসলমানের মতো খালিদ ইসলামের বিজয়ে গৌরবান্বিত বোধ করেন। তবে প্রতিটি বিজয় তাকে স্মরণ করিয়ে দিচ্ছিল যে, তিনি যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেননি। ডিক্লাইন এন্ড দ্য ফল অব রোমান এম্পায়ার শিরোনামে বইয়ে ব্রিটিশ ঐতিহাসিক গিবন খালিদ সম্পর্কে মন্তব্য করেছেন: the fiercest and most successful Arabian warriors.

ধীরে ধীরে খালিদ সব ভুলে যান। উমরের প্রতি তিনি নমনীয় হয়ে আসেন। একদিন এক অতিথিকে তিনি বলেছিলেন: সকল প্রশংসা আল্লাহর যিনি আবু বকরকে তুলে নিয়েছেন। তিনি আমার কাছে উমরের চেয়ে প্রিয় ছিলেন। সকল প্রশংসা আল্লাহর যিনি উমর কে খলিফা হিসেবে অধিষ্ঠিত করেছেন। তিনি আমাকে ঘৃণা করতেন। কিন্তু আমি তাকে পছন্দ করতাম।
(লেখাটি আমার ‘ইসলামের দিগি¦জয়’ থেকে নেয়া। বইটি প্রকাশ করেছে আফসার ব্রাদার্স)


শেয়ার করুন
  • 4
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    4
    Shares
  •  
    4
    Shares
  • 4
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.